রুপসী বাংলা আমার …..( ও একটা ক্যাডেট বুদ্ধি )

দেশ ছেড়েছি অনেকদিন হলো। প্রায় দেড়বছর। এমন না যে একটানা দেড় বছর কাটিয়ে দিয়েছি, একই প্রবাসে পড়ে আছি তাও না । প্রায়ই তিন মাস, ছয়মাস পরেই বাংলাদেশে যাই। চাকরীর কোম্পানী চেন্জ্ঙ হয়, দেশ চেন্জ্ঙ হয়। নতুন নতুন মানুষ, পরিবেশ দেখি । তাই হিসেব অনুযায়ী খুব বেশি হোমসিক হওয়ার কথা না। তারপরও হোমসিক হই । একসপ্তাহ , দুইসপ্তাহ দেশে গেলে খালি অফিসিয়াল কাজগুলোই করা হয়। দুচোখ ভরে বাংলাদেশ দেখার যে আগ্রহ তা কিছুতেই মেটে না । কতদিন ঝুম বৃষ্টি দেখিনা, বৃ্ষ্টির ঝাপটায় ভিজে ভিজে বারান্দায় হেলান দিয়ে গল্পের বই পড়িনা । কতদিন ট্রেনে চড়িনা , ট্রেনের জানালায় হেলান দিয়ে এক অচিন বাংলা দেখিনা । কতদিন নৌকায় ঘুরিনা , অলস দুপুর দেখিনা। ঈদের খুশি দেখি না, পহেলা ফাল্গুন দেখিনা, টিএসসি তে বাউলগান শুনিনা । এসবই বড়বেশি হোমসিক করে দেয়। আর মন খারাপ হলেই পুরোনো ছবির অ্যালবাম খুলে বসি । আর আবিষ্কার করি এক অপূর্ব সুন্দরী বাংলাকে। গতকাল ক্যামেরার কিছু ছবি দেখে এতমন খারাপ হলো , মনে হলো ছুটে যাই এখনি । মাথায় একটা ক্যাডেট বুদ্ধিও এলো । ভাবলাম দেশের বাইরেতো খালি আমি নেই যে আমি একাই মন খারাপ করে থাকবো। সিসিবির অনেক বাচ্চা-বুড়া পোলাপাইন ও বাইরে আছে। ওদের মধ্যেও মন খারাপ ছড়িয়ে দেই । তাই এই সুন্দর সুন্দর ছবিগুলোও দিয়ে দিলাম। যদি ছবিগুলা দেখে একজনেরও মন খারাপ হয় তাহলেই আমার কষ্ট সার্থক।

জলে ভাসা বাংলা :

দিগন্ত জোড়া জল,
এমন কোথা পাবি বল ?

নদীর এমন শান্ত রুপ
দেখে আমার জুড়ায় বুক

পথের বাঁকে, মেঘ-জলের ফাঁকে

লোহার খাঁচার ফাঁকে ….

আষাঢ়ের বাদল মেঘ ….

শান্ত পুকুর,
অন্ধকার দুপুর

কাশফুলে ঢেউ তুলে ….

সবুজে নীলে একাকার
রুপসী বাংলা আমার।

ছবিগুলোর সাইজ ঠিক করতে পারছিনা , মর্ডারেটকে অনুরোধ করছি সাইজগুলো ঠিক করার জন্য ( যদি সম্ভব হয় ).আপাতত ছবির উপর ক্লিক করে পুরো ছবি দেখতে পারবেন।

২,০৪৯ বার দেখা হয়েছে

২৬ টি মন্তব্য : “রুপসী বাংলা আমার …..( ও একটা ক্যাডেট বুদ্ধি )”

  1. ফয়েজ (৮৭-৯৩)

    মান্নান ট্যাগে রংপুর লাগাও। সিসিআর বহুত পিছে পড়ছে, একা ব্লগাই আপ করতে পারছি না,
    পুরান গুলাতেও একটু কষ্ট করে রংপুর লাগাও।


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন
  2. সাব্বির (৯৫-০১)

    আমি তো একবার লিখলাম ১ম হইছি। দুই বার আসল কেন বুঝলাম না 😮
    ভাই এই ভাবে আমাদের মন খারাপ না করলেও পারতেন।
    কথায় আছে 'দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম বুঝা যায় না'।
    সত্যি দেশ ছারার পর এখন উপলব্ধি করি দেশরে কত ভালবাসি।
    ১লা বৈশাখ, ১লা ফাগুন, ঈদ, ফেব্রুয়ারী, মার্চ, ডিসেম্বর এই সব এই বিদেশের মাটিতে কখনই পাওয়া সম্ভব না।
    দুরররর মিয়া মন ডাই খারাপ হইয়া গেল :(( :(( 😕

    জবাব দিন
  3. ফয়েজ (৮৭-৯৩)

    আমি দেশেই থাকি, তাই মন খারাপ লাগে নাই।

    আমি যে দেখেছি, যাওয়া আসার উপর যারা থাকে তারাই বেশি হোমসিক হয়। যারা লম্বা সময় থাকে তারা হয় কম। কিংবা হয় ঠিকই প্রকাশ করেনা।

    ছবি গুলো ভাল তুলছ। এক্কেবারে আজাদ প্রোডাক্টস মার্কা।


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন
  4. মুসতাকীম (২০০২-২০০৮)

    ছবিগুলা দুর্দান্ত হইছে
    আপনারে :salute: :salute: :salute:


    "আমি খুব ভাল করে জানি, ব্যক্তিগত জীবনে আমার অহংকার করার মত কিছু নেই। কিন্তু আমার ভাষাটা নিয়ে তো আমি অহংকার করতেই পারি।"

    জবাব দিন
  5. আলম (৯৭--০৩)

    :(( :(( :(( আপনে মনে হয় সবচে স্বার্থক হইলেন আমার ক্ষেত্রে। মরুভূমিতে বসে এই সুন্দর বাংলাদেশকে যে কী মিস করি আল্লাহ ছাড়া আর কেউ জানেনা।

    "একবার যেতে দেনা, আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়..."

    জবাব দিন
    • মান্নান (১৯৯৩-১৯৯৯)

      ঝাতি তো বড় বেশি ত্যক্ত করছে। ঝাতির এতো প্রাইভেট কথা জানার দরকার কি। পারলে ঝাতি নিজেও কাশফুলে ঝড় তুলুক। আমরা তখন কিছু জানতে চাইব না।

      তবে কিভাবে ঝড় তুলতে হয় ঐটা দেখছিলাম কলেজের একাডেমিক বিল্ডিং এর পাশে কারমাইকেল কলেজের পাটক্ষেতে। আমরা সবাই উৎসুক হয়ে তাকিয়ে থাকতাম কারা ঝড় তুলছে। তবে মাঝে মাঝে সবাইকে হতাশ করে জুটির বদলে বেরিয়ে আসত শেয়াল 🙂

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।