আমার ইমিগ্রেশন অভিজ্ঞতা -১

বিভিন্ন দেশ ঘুরে ইমিগ্রেশনের ও এয়ারপোর্টের কিছু মজার মজার অভিজ্ঞতা হয়েছে । এগুলো শেয়ার করার জন্যই লিখছি আজকে :

সিংগপুর ইমিগ্রেশন :

সিংগাপুরের চাংগী এয়ারপোর্ট আমার প্রিয় এয়ারপোর্টগুলোর একটা। অতি আধুনিক এই এয়ারপোর্টে সময় পাস করা কোন ব্যাপারই না। শপিং করে, ঘুরে, মানুষের ব্যস্ততা দেখে সময় কাটিয়ে দেয়া যায় অনায়াসেই। সিংগাপুর ইমিগ্রেশও খুব আধুনিক। স্মার্ট অফিসাররা খুব দ্রুততার সাথে সবকিছু শেষ করে। ইমিগ্রেশন ডেস্কে আমি পাসপোর্ট জমা দিলাম। অফিসার মহিলা আমার পাসপোর্ট নিয়ে কাজে ব্যস্ত হয়ে গেল। ডেস্কের উপরে রাখা চকলেট থেকে আমি চকলেট নিয়ে খেয়ে দেখি ওয়াও দারুন চকলেট !!!! আমি বাকিগুলোও নিয়ে নিলাম। ইমিগ্রেশন অফিসার একবার আমার দিকে তাকিয়ে ভেতর থেকে আরো কিছু চকলেট নিয়ে আবার ডেস্কের উপর রাখল। আমি এখনও চকলেটের দিকথেকে চোখ সরাতে পারছিনা। আর মনে মনে ভাবছি আবার চকলেট নিলে অফিসার আমাকে ঢুকতেই দিবে না সিওর। অফিসার পরে পাসপোর্ট ফেরত দেয়ার সময় পাসপোর্টের সাথে আরো দুটো চকলেট আর একটা হাসি উপহার দিলো।

প্রথমবার সিংগাপুরে গিয়ে চাংগি এয়ারপোর্টে গিয়ে মানুষের ব্যস্ততা দেখে টাসকি। কিছু মানুষ প্লেন ধরার জন্য দৌড়াচ্ছে। আমি মনে মনে ভাবলাম, “আরে ভাই তোরা তো বাসে বা ট্রেনে যাচ্ছিস না, প্লেনে যাচ্ছিস, একটু আগে আগে আয়। প্লেনে চড়ার সময়ও তোরা লেট।” ভেবে আমি এয়ারপোর্টের মধ্যেই ল্যাপটপ নিয়ে ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে বসলাম। এভাবে কিছুক্ষন যাওয়ার পর শুনতে পেলাম এনাউন্সমেন্ট হচ্ছে “মি: মানান প্লিজ রিপোর্ট টু বোর্ডিং ডেস্ক, বোর্ডিং উইল ক্লোজ সুন।” মনে মনে ভাবছি “আরেক ব্যাটা গাধা, প্লেন চলে যাচ্ছে, এখনও কোন খবর নাই”। ভাবতে ভাবতে হঠাৎ মনে হলো আরে মি: মানান তো আমিই (ততদিনে আমি বুঝে গেছি এরা কখনও মান্নান বলতে পারবে না) । তাড়াতাড়ি করে ল্যাপটপ কোলে নিয়ে দৌড় !!! এই প্রথম আমি বুঝতে পারলাম এয়ারপোর্টে কিছু মানুষ কেন সবসময়ই দৌড়ের উপর……

মালেশিয়া ইমিগ্রেশন:

মালেশিয়ায় যাচ্ছি।সাথে আমার এর বন্ধু যে প্রথমবারের মতো বিদেশ যাচ্ছে। তাই তাকে কোথায় কি যেতে হবে বুঝিয়ে দিচ্ছি। বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন পার হলো সহজেই। প্লেনেও উঠলাম, কেএল এয়ারপোর্টে পৌছুলাম। ইমিগ্রেশন ডেস্ক দেখিয়ে দিলাম। আমি সহজে ইমিগ্রেশন পার হলেও ওকে ইমিগ্রেশন অফিসার ছাড়লনা। ভিতরে নিয়ে অনেক প্রশ্ন করেই তবে ছাড়ল। মালেশিয়ায় ট্রেনিং শেষ করলাম। ফেরার দিনে আবার ইমিগ্রেশন। আমি পার হলাম সহজেই। আমার ফ্রেন্ডকে আবার আটকালো। ওকে আগেরবার শুধু প্রশ্ন করেই ছেড়ে দিয়েছে, ইমিগ্রেশন অফিসার ভুল করে আগে কোন এন্ট্রি সিল দেয়নি। তাই বের হওয়ার সময় ওকে ধরেছে কিভাবে ও সিল ছাড়া মালেশিয়া ঢুকেছে। অনেক বুঝিয়ে তবে ও ছাড়া পেল। ছাড়া পাওয়ার পর প্লেনে উঠে পাসপোর্ট চেক করে দেখে এবারও ওকে মালেশিয়া ইমিগ্রেশন এক্সিট সিল দেয়নি। ঢাকা ইমিগ্রেশনে আবার ক্যাচাল। ঢাকা ইমিগ্রেশন অফিসার ওকে দেখে বলল, “আপনি মালেশিয়া যাওয়ার জন্য বের হয়েছেন 9 তারিখে, মালেশিয়া যাননি, আবার 20 তারিখ এসেছেন ।এতদিন কোথায় ছিলেন?” আবার পুরো ব্যাপারটা বুঝিয়ে তবেই পার পাওয়া।

২,২৪৬ বার দেখা হয়েছে

২৩ টি মন্তব্য : “আমার ইমিগ্রেশন অভিজ্ঞতা -১”

  1. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)
    এই প্রথম আমি বুঝতে পারলাম এয়ারপোর্টে কিছু মানুষ কেন সবসময়ই দৌড়ের উপর……

    :khekz: :khekz:

    আমি জীবনে একবারই বিদেশের মাটিতে পা রাখছিলাম...ইমিগ্রেশনের কোন ঝামেলা ছাড়াই...!!!
    মুজিবনগরে পিকনিকে গিয়ে বর্ডার পার হয়ে দুইপা হেঁটে এসেছিলাম... =)) =))


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  2. ফয়েজ (৮৭-৯৩)

    ৯/১১ এর পর সিংগাপুর গেছিলাম পয়লা, পাক্কা তিন ঘন্টা বয়ায় রাখছিল লাল ড্রেস পড়া মাইয়াগুলা,

    মিজাজ টা এমন খারাপ হইছিল, মনে হইছিল লাত্থি মাইরা মুখটা ফাটায় ফালাই


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন
  3. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    আহহ,এস এস সির ভ্যাকেশনে ছিঃঙ্গাপুরের চাঙ্গি এয়ারপোর্টের ৩৬-২৪-৩৬ এয়ার হোস্টেস গুলার কথা ভাবলেই মনডা উদাস হয়া যায়...অগো সবার লাইজ্ঞা সেম সাইজ ড্রেস,ফিগার ঠিক না থাকলে পত্রপাঠ বিদায়...
    এরাওহোস্টেস আর বিমানের

    জবাব দিন
  4. রবিন (৯৪-০০/ককক)
    ই প্রথম আমি বুঝতে পারলাম এয়ারপোর্টে কিছু মানুষ কেন সবসময়ই দৌড়ের উপর……
    আপনি মালেশিয়া যাওয়ার জন্য বের হয়েছেন 9 তারিখে, মালেশিয়া যাননি, আবার 20 তারিখ এসেছেন ।এতদিন কোথায় ছিলেন?”

    :goragori: :goragori: :goragori: :goragori:

    জবাব দিন
  5. আজীজ হাসান মুন্না (৯১-৯৭)

    ব্রিটিশ ইমিগ্রেশন এ ঝামেলা করে অইখানে চাকুরি করা ইন্ডিয়ান আর পাকি র বাচ্চা অফিসার গুলান ! শুয়ারকা আউলাদ গুলান আংরেজ প্রভুদের প্রতি আনুগত্য দেখানোর জন্য সদ্বেশী বিশেস করে বাংলাদেশীদের উপর বেশি চড়াও হয়

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।