টুশকি জুনিয়ার ১.০

জমজমাট সিসিবি তে টুশকি কে খুব মিস করছি। সায়েদ ভাই তো ভুলেও এদিকে আসেন না। কিছু দিন আগে (চোখের নিমিষে ২/৩ বছর কেটে যায়) আমি টুশকি জুনিয়ার নামে একটা পোষ্ট দিয়েছিলাম। সেই ধারাবাহিকতায় জমজমাট সিসিবি তে আবারও ছোট টুশকির আগমন।

১। প্রাণবন্ধু স্যার সব খেলাতেই রেফারীর দায়িত্ব পালন করতেন। ফুটবল কম্পিটিশনের সময় ১৬তম ব্যাচের মাসুম ভাইয়ের হ্যান্ডবল হল নিজেদের গোল পোষ্টের খুব কাছাকাছি। প্রাণবন্ধু স্যারের বাঁশি, হ্যান্ডবল। মাসুম ভাই দৌড়ে গেল স্যারের কাছে কানে কানে কি যেন বলল, তারপর স্যারের তড়িৎ ডিসিশন পরিবর্তন আসলে হ্যান্ডবল হয়নি।
খেলা শেষে জানতে পারলাম মাসুম ভাই কি বলেছিলেন স্যারের কানেকানে,
“স্যার, আজকে আপনে নাইট ডিউটি মাস্টার মনে আছে তো”।

২। আইসিসি হকিতে যাওয়ার আগে বরিশাল শহর থেকে টিম এসেছে কলেজ টিমের সাথে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার জন্য। যথারীতি প্রাণবন্ধু স্যার রেফারী একপাশে অন্য পাশে কোচ রেফারীর দায়িত্ব পালন করছে (যারা জানেন না,হকিতে দুই জন রেফারী থাকে)। শহরের টিম গোল দিতে যাচ্ছে সাথে সাথে প্রাণবন্ধু স্যারের বাঁশি, “অফসাইড”। কোচ এসে বলল স্যার এইটা কি করলেন হকিতে তো কোন অফসাইড নাই। স্যার কিছুক্ষন চিন্তা করে বলল, “আমি যেই বই টা পড়ছি তাহলে তারা ভুল করেছে”।

৩। রসায়নের হাসানুজ্জামান স্যারের মটর বাইকের পিছনে নম্বর প্লেটের স্থানে সিডি (ডিস্ক) দিয়ে কারুকাজ করে রেজিশট্রেশন নম্বর ঝুলিয়েছিলন। তখনকার সময় বেশ নতুনত্ব বলা যায়। স্যার কে জিজ্ঞাস করলাম, আইডিয়া টা কার? বরাবরের মত আকর্ণ বিস্তৃত হাসি দিয়ে স্যারের পাল্টা প্রশ্ন বলতো, কার হতে পারে?
“স্যার, নিশ্চই আপনার বুদ্ধি”।
“তাহলে শুধু শুধু প্রশ্ন কর কেন?”

৪। আমাদের সাইমুম মানবিক বিভাগের রত্ন। কিছুটা শান্ত স্বভাবের। স্বাভাবিক ভাবেই স্যার দের খুবই প্রিয়। নাইট প্রেপে সাইমুম ঘুমিয়ে পরল ডেস্কে মাথা রেখে। ইংলিশের মোস্তাফিজুর রহমান স্যার প্রেপ ডিউটিতে। স্যার কিছুক্ষণ ঘোরাঘুরি করে শিওর হল সাইমুমই ঘুমাচ্ছে। স্যার সাইমুমের মাথায় হাত রেখে ঝাঁকি দিয়ে জিজ্ঞাস করলেন।
“সাইমুম, সাইমুম বাবা তুই কি ঘুমাচ্ছিস?”
হঠাৎ ঘুম থেকে উঠে বলল, “জ্বী, স্যার”
“আচ্ছা বাবা, তাহলে ঘুমা”

৫। স্যারের প্রতি যথাযত সম্মান প্রদর্শন করের পরের ঘটনাটা বলছি। রসায়নের বেলাল স্যার কে অনেকেই চিনেন। স্যার আলোচিত ছিল তার অতি উদ্ভট আচরণের জন্য। স্যার কিছু টা আবেগ আপ্লুত হয়ে নিজের পরিবার নিয়ে আলাপ করছিলেন কোন এক ক্লাসে।
“আমার একটা জমজ ভাই আছে”।
সবাই হতাশ এই পিছ আরেক টা আছে।
“কিন্তু, দুঃখের বিষয় সে মারা গেছে”
কোন এক ক্যাডেট পিছন থেকে,
“আল্লাহ বাঁচাইছে”

৬। আমাদের এক স্টাফ ছিল উনি সব কথার সাথে “সবাই” বলতেন। যেমন,
“কেউ কথা বলবে না, সবাই”
“বাঁশি দেবার আগে কোন ক্যাডেট দৌড়াবে না, সবাই”

৭। ইতিহাসের স্বপন কুমার স্যার ক্লাস নিচ্ছেন, আমরা তখন ক্লাস সেভেন। কেউ একজন চেপে রাখতে না পেরে ক্লাসের বায়ু দূষণ করল। দুর্গন্ধ সামনে স্যার পর্যন্ত পৌছে গেল। স্যার জানতে চাইলেন কে করেছে এই কাজ, কে? কে? আমরা সবাই নিশ্চুপ। স্যার ক্ষিপ্ত হয়ে বললেন,
“আগামী কাল থেকে কোন ক্যাডেট পা* দেবে না। কঠিন শাস্তি হবে পা* দিলে। এক পা*, দুই এক্সট্রা ড্রীল”।

আজকে এই পর্যন্তই থাক। বেঁচে থাকলে কোন এক দিন ছোট টুশকির নয়া সংস্করণ আসলেও আসতে পারে।

৫,১৩৩ বার দেখা হয়েছে

৭৬ টি মন্তব্য : “টুশকি জুনিয়ার ১.০”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    সূর্‍্য্য আজকে শিওর দক্ষিন দিকে উঠছে, তা না হলে সিসিবি খুলেই সাব্বির ভাইয়ের লেখা দেখার কোন কারন নাই, ইস আজকের এই ঐতিহাসিক সূর্যোদয়টা মিস করলাম :((

    টুশকি জুনিয়র দারুন হইছে, প্রাণবন্ধু স্যারের প্রথম কাহিনি পড়ার সময় আমার মাথায় হকিতে অফ সাইডের ঘুরতে ছিল, দেখি পরেই দিয়ে দিছেন... ব্যাপক বিনোদন :)) আর হাসানুজ্জামান স্যার তো নিজেকে একাই একশ না, এক হাজার মনে করতো 😛

    টুশকি জুনিয়র দীর্ঘজীবী হোক... খবরদার এর কোন নিরোধ ব্যবস্থা গ্রহন করেন না, নির্বিচারে টুশকি জুনিয়র প্রোডাকশন হতে থাকুক।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  2. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    খাইছে!
    তুই পোস্ট দিছস???
    তোর শরীর-মন সব ভাল তো?
    টেনশনে পিড়া গেলাম... :dreamy:

    ***টুশকি জুনিয়ার ১.০ ব্যাপক হইছে...হাহাপিগে... =))


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  3. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    সাব্বির পোস্ট দিছে, আর এইটাও বিশ্বাস করতে হবে!! ~x(
    নাহ্, হাছাই তো!
    পুরা উড়াধুরা, লাইক দিলাম। হাসছি, কিন্তু পিড়া মিরি নাই.............. :tuski:


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  4. ফাঁকিবাজ, সবগুলান ফাঁকিবাজ x-( x-(
    '' জাগো বাহে ,কুন্ঠে সবাই '' আওয়াজ তুইলা সবগুলা ঘুমায়া পড়ছে ~x( ~x(
    সানা ভাই , আপ্নি কই ? এইবার একটা কিছু না করলেই নয় :duel: :duel:

    জবাব দিন
  5. সালেহ (০৩-০৯)

    ৩। রসায়নের হাসানুজ্জামান স্যারের মটর বাইকের পিছনে নম্বর প্লেটের স্থানে সিডি (ডিস্ক) দিয়ে কারুকাজ করে রেজিশট্রেশন নম্বর ঝুলিয়েছিলন। তখনকার সময় বেশ নতুনত্ব বলা যায়। স্যার কে জিজ্ঞাস করলাম, আইডিয়া টা কার? বরাবরের মত আকর্ণ বিস্তৃত হাসি দিয়ে স্যারের পাল্টা প্রশ্ন বলতো, কার হতে পারে?
    “স্যার, নিশ্চই আপনার বুদ্ধি”।
    “তাহলে শুধু শুধু প্রশ্ন কর কেন?”

    হে হে। 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀 😀


    Saleh

    জবাব দিন
  6. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    সাব্বির
    স্যারগো লইয়া মজা নেও; না!
    তবে মজার নিঃসন্দেহে।
    তোগো হাসানুজ্জামান স্যাররে পাই নাই। বিশাল মিস।
    প্রাণবন্ধু স্যার আমাদের ৬ বছর ফরম মাস্টার ছিলেন। কবে জানি দেখলাম আমাদের কলেজের ভিপি।
    শপন স্যার মনে হয় আমরা যখন ইলেভেন এ তখন আমাদের কলেজে আসেন।
    আমি তো প্রথমে ভাবছিলাম ভূগোলের মোস্তাফিজ স্যার।
    ইংরেজি মোস্তাফিজ স্যারকে সেভেনে পাওয়ায় তার সম্পরকে কোন অপ্রিতিকর কিছু তার সাথে ঘটেনি।
    তবে সাব্বির স্যারদের নিয়া মজা করার কারণে নেXট টাইম দেশে গেলে স্যারদের জন্য গিফট নিয়া যাবি।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  7. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    আর হ্যাঁ বেলাল স্যার দ্যা গ্রেট।
    সিলেট থিকা আসলো আমাগো কলেজে; তারপর পাবনা; আবার বিসিসি।
    তোদের ক্লাসে গিয়ে কি কখনো বলেছেন,
    " আমার পকেটে আটলান্টার টিকেট আছে "

    "আলীগড়ের দেওয়াল ১২ ফুট চওড়া ছিলো "


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।