কতিপয় “অশিক্ষিত” আমজনতার বাংলাদেশ ভাবনা

আমজনতা কি বলে তা আমাদের জানা উচিত। নাগরিক সুযোগ সুবিধা এবং নিরাপত্তা ভোগ করে এবং এসির বাতাস খেয়ে এসব অনুভব করা একটু কঠিন।

বসে ছিলাম বাসে, ঘন কুয়াশার কারণে প্রায় ৪ ঘন্টা বাস আটকে ছিল। কানে আসলো কয়েক সিট পেছনে থাকা লোকজনের কথাবার্তা..
– দেখেন ভাই, এ দেশে এখন যা-ই হইবো, বা অলরেডি যা কিছু হইছে, সবই কইবো শেখ সাইবে স্বপ্ন দেইখা গ্যাছে। উনার কাম ছিলো খালি স্বপ্ন দেখা..
– হাহাহাহা………( কয়েকজনের হাসি )
– তয় ভাই একটা কথাও সত্যি, স্বাধীনতার সময়ে উনার মতো নেতা সবজায়গায় অয় না, যে টাইম এ যা করার দরকার, তা কিন্তু উনি করছেলো…
– হ ভাই, তা কইছেন ঠিক, মানুষে তার কথায় ওঠতো বসতো, জান দেবার লাইগা রেডি ছিলো, মনে পড়ে রে ভাই…….
– তয় ভাই, শেখ সাইবে ও তো মানুষ, হ্যারে লইয়া গ্যালো পাকিস্তানে, দেশে কি অইলো না অইলো, উনি দ্যাহে নাই, হুনছি হ্যার সামনে নাকি কবর খোঁচতো, তো দ্যাশে ফিরবার পরে ত্যালবাজরা এমুন ত্যালডাই দিলো, উনি আর কি করবেন, পরিস্থিতি বোঝার কোন চান্সই হ্যার লগের লোকজন দেয়নাই, দেশে উনার সোনার ছাওয়ালরা বাপের হোটেল খুইলা বইছে…………আরে মানুষ না খাইয়া মরে, আর হেই শেখ সাইবে পোলার জন্মদিন করায় সোনার মুকুট পড়াইয়া……..
– আসলে উনার লগের ত্যালবাজগুলাই কিন্তু ভাই মেইন কালপ্রিট, কি কন ?
– কালপ্রিট এর কি দেখছেন ? মেজর জিয়ায় ঘোষণাডা দেলো শেখ সাইবরে নেতা নাম কইরা, আর হালারপুতেরা ফিতা দিয়া হেইডুক কাইট্টা হুনাইতো, *****ত কারে কয়। এতে কি জিয়ার সম্মান বাড়ছে ? উনি জ্যাতা থাকলে এইগুলারেও পুইত্যা ফ্যালতেন..
– ভাই জিয়া কিন্তু খালখোল কাইট্টা ভালো এট্টা কাম করছেলে, ব্যাডা মোডামুডি ভালো একটা অবস্থা খারা করাইতে পারছেলো দেশে, কিন্তু আর্মির ভিতরে উনি নাকি অনেক ***মি করছে শুনছি…
– আপনে খাল কাডার কতা কন? এরশাদ দুদু তাইলে করে নাই কি? এতো যে রাস্তাঘাট, কয়ডা কেডা বানাইছে? আপনে এট্টা জেলায় যাইয়া দেহান, ওইহানে হের আমলে বানানো রাস্তা নাই…ভাই স্বৈরাচার –টার ওইগুলা বড় বড় মাইনষে বুঝে, আমগো উপকার অইলে আমি খুশি।
– লুইচ্চা হালারে খেদাইছে ভালো অইছে, হালায় আইজ এই দল, কাইল আরেক দলে ভেড়ে, চরিত্রের ঠিক নাই….
– হাসিনা-খালেদা কোনডারই ঠিক নাই, হাসিনায় তো যা পায় আব্বার নাম দিয়া দ্যায়, আর খালেদার দল তো ভাগে খায় না, পুরাডাই খায়…
– হাহাহাহাহাহা…………
– এ্যাহন কইলে তো চ্যাতপেন, আপনে এট্টু খুইজা দেখেন, দ্যাশে কাদের এ্যাগেইনস্টে কোন দুর্নীতি মামলা নাই, ওই তত্ত্বাবধায়ক সরকারও কিন্তু পই পই কইরা খুইজা নিজামীর নামে কোন মামলা খাড়া করাইতে পারে নাই, জোট সরকারের টাইমে এগো ২টা মিনিস্ট্র দিছিলো, দেখছেন, ওইখানে কতো কম খাওয়াখাওয়ি অইছে? আমি তো কমু জামাত আলারাই ভালো….
– ভাই হেগো তো বাইরে থিক্কা ত্যালের ডলার আহে, হেরা খাইতে যাইবো ক্যান?
– তবু দুই দল মিল্যা যা খাইছে আর যা খাইতেয়াছে, তার চাইতে হেরা অনেক কম খাইছে, হেগো মাতা ঠান্ডা, হেরা ওইরহম কতায় কতায় রাস্তায় লাডি লইয়া পিডাপিডি হরতে নামে না….
– শালারা মীরজাফরের বাচ্চা, খাইলেও *** এর বাচ্চা, না খাইলেও…..

আমি আর কিছু শোনার প্রয়োজন বোধ করলাম না, বাংলাদেশকে বাঁচিয়ে রেখেছে সব বাংলাদেশীর চেতনাই, কারো একার প্রচেষ্টায় সার্বভৌমত্ব আসেনি, আর কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা দলের সম্পত্তিও নয় তা। সার্বভৌমত্বের সংজ্ঞা অনেক ব্যাপক, একটি জাতির সকল শ্রেণীর এবং সকল মতাদর্শের মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টা ব্যতিত তা অর্জন করা যায় কিনা, তা আমার এই যৎসামান্য জ্ঞানে কুলাচ্ছে না।

১,৪৩৩ বার দেখা হয়েছে

১৭ টি মন্তব্য : “কতিপয় “অশিক্ষিত” আমজনতার বাংলাদেশ ভাবনা”

    • রায়হান আবীর (৯৯-০৫)

      জামাত বাদে বেশিরভাগ কথাই সত্য। সেইটা কনসার্ন না। কনসার্ন হলো জামাত খুব ধীরে ধীরে অন্য সত্যগুলোর সাথে "তারা খারাপ না" এই ব্যাপারটা মিশিয়ে ফেলতে পেরেছে। জাতি হিসেবে এইটা আমাদের বিরাট ব্যার্থতা।

      জবাব দিন
      • মিশেল (৯৪-০০)
        কনসার্ন হলো জামাত খুব ধীরে ধীরে অন্য সত্যগুলোর সাথে “তারা খারাপ না” এই ব্যাপারটা মিশিয়ে ফেলতে পেরেছে। জাতি হিসেবে এইটা আমাদের বিরাট ব্যার্থতা।

        একেবারে আসল কথাটা বলে দিলা।

        জবাব দিন
        • রাহাত (২০০০-২০০৬)

          এইজন্যেই আমি এই পোস্টটা লেখছি, জামাত ওয়ালারা কিভাবে খুব ধীরে ধীরে এগোচ্ছে তা বোঝাবার জন্যে, পাবলিক ভার্সিটি গুলোর অবস্থা কি তা জানি না, তবে আমি যখন মেডিকেল এর কোচিং করতাম তখন দেখছি অনেক মেধাবী পোলাপান শান্তিতে লেখাপড়া করার জন্যে ওদের দলে ভিড়তে। কারণ অন্য দলগুলো তাদের ছাত্রদের স্বার্থের চেয়ে তাদের দলীয় কর্মকান্ডকে বেশি প্রাধান্য দেয়, পড়াশোনা গোল্লায় গেলে গেলো।

          জবাব দিন
      • আমিন (১৯৯৬-২০০২)

        রায়হানের কমেন্টে ঝাঝা। চমৎকার বলেছিস। লেখাটা খারাপ লাগেনি। বরং পাবলিকের সরলীকীকরণের ব্যাপারটা খুব সুন্দরভাবে উঠে এসেছে। সবকিছুর শেষে আমরা খারাপ আমরা নিজেদের শরীর নিজেরা কোপাই কিংবা আমরা যতই ব্যর্থ হই তাতে ঐ তথাকথি কম টাকা খাওয়া শু**র বাচ্চাগুলোকে জায়েজ করে দেয়া যায় না। আরেকটা ব্যাপার সেটা হলো আমাদের সাধারণ মানুষরা কিছু ব্যাপারে বেশি মাত্রায় সেন্সিটিভ যেটা সব সময় সত্যের দিকে পরিচালিত করে না।

        জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।