মিনতি

মা’বুদ,
তুমি জানো, আমি আজীবন
আমার এ কল্যাণময় জীবনের জন্য
তোমার প্রতি কৃতজ্ঞ থেকেছি মনের মর্মমূলে।
এ জীবন ভেসে যেতে পারতো খড়কুটোর ন্যায়,
হারিয়ে যেতে পারতো দিগদিগন্তে অনায়াসে,
তোমার করুণায় প্রচণ্ড ঘূর্ণনের মাঝেও আমি
স্থৈত্য পেয়েছি, স্বস্তি ও শান্তি পেয়েছি,
ক্লান্তিতে ও শ্রান্তিতে বিশ্রাম ও ভরসা পেয়েছি,
অপ্রত্যাশিত সাফল্যে উজ্জ্বল ও বিহ্বল হয়েছি,
ক্ষণিকের তরে একটি ঠাঁই-ঠিকানাও পেয়েছি।

মা’বুদ,
তুমি জানো, তুমি ছাড়া আমি কারও উপর
নির্ভরশীল নই। আজীবন আমার ভার
তুমিই বয়েছো আমি চাওয়ার আগেই।
আমার দোষ-ত্রুটি, ব্যর্থতা-বিচ্যূতি ক্ষমা করে,
সকল গ্লানি গুপ্ত রেখে আমায় সতর্ক করেছো।
আজ যখন ভাঙনের শব্দ শুনি, সমবয়সীদের
এক এক করে প্রস্থানের খবর শুনি, তখন–
একান্তে আমি তোমাকেই চাই। শেষকালে আমার
ভারটুকু তুমি কাউকে দিও না মাবুদ; পরিবারের
কিংবা বন্ধু-সতীর্থ, অধীনস্থ-উপরস্থ কাউকেও না।
আমার ভারটুকু তুমিই তুলে নিও আপন করুণায়!

ঢাকা
০৪ অক্টোবর ২০২২

২১২ বার দেখা হয়েছে

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।