মুখোমুখি

[ব্লগ লেখি অবসর কাটাতে, কবি নই মোটেই। হঠাৎ সিসিবির কবিতা সপ্তাহে তাই রাফ খাতায় জমে থাকা একটা লেখা তুলে দিলাম। কবিতা হয়ত হয়নি মনোলগ ভেবে পড়লেই বাধিত হই।]

গতকালের আমি’র সাথে দেখা হয়ে গেল হঠাৎ করেই;
সকালের ঘুমভাঙা চোখে তাকাতেই
পেছন থেকে উঁকি দেয় আয়নায়।
হুবহু আমার মতই, লম্বায় গড়নে, এমনকি চেহারাতেও।
আমার দিকে তাকিয়ে আমি মিলিয়ে নেই
গতকালের আমাকে আমার সাথে,
হুবহু আমার মতই।

কিন্তু চোখুগুলো যেন আরেকটু বেশি গভীর ছিল,
আরেকটু বেশি মায়াবী , আরো একটু বেশি স্বপ্নীল।
হাসির রেখাটিও যেন একটু বড়ই ছিল;
ভ্রু এর কুঞ্চন একটু কম, গোনায় কম পড়ে কপালের ভাঁজেও।

নিত্যদিনের তাড়াহুড়োয় বেরুতে হয় সহসাই,
কিন্তু মাথায় ঘুরতে থাকে একটা মুখ
হুবহু আমার মতই কিন্তু তবুও আমি নই।

পাশ দিয়ে যাওয়া রিকশায় তরুণীর খোলা চুল দেখে
গতকালের আমিও কি এমনই নিরাসক্ত ছিল? মনে কোন কবিতা জাগেনি?
“চুল তার কবেকার” কিংবা অন্য কোন সুর?
ওর চোখ যে আরেকটু মায়াবী ছিল আরেকটু বেশি স্বপ্নীল।

বাসের ভিতরে কিশোরীর গায়ে অশ্লীল হাত দিয়ে দেওয়া লোকটিকে দেখে
আমার মতই কি নিরাসক্ত ছিল? চীৎকার করতে ইচ্ছে হয়নি ওর?
নির্লজ্জ বেহায়ার মত বড় সাহেবের কাজে বাহবা দিতে
একবার ও কি তার মরে যেতে ইচ্ছে করেনি?
নাকি আমারই মত এসবই নিয়ম, সবাই করে, এসবই ভেবেছে?
ওর চোখ যে আরেকটু মায়াবী ছিল আরেকটু বেশি স্বপ্নীল।

ব্যস্ত দিন শেষে ক্লান্ত আমি যখন বিছানায় শুয়ে
আরেকবার মরে যাওয়ার অপেক্ষায় আরেকবার বদলে যাবার অপেক্ষায়;
তখনই আবার মনে পড়ে-
গতকালের আমি কি এইভাবেই অপেক্ষায় ছিল?
ঘুমের আগে কি কোন স্বপ্নের হাতছানি ছিল না তার মনে?
কিংবা কোন রমনীর মুখ?
ওর চোখ যে আরেকটু বেশি মায়াবী ছিল, আরো একটু বেশি স্বপ্নীল।

৬৫২ বার দেখা হয়েছে

১১ টি মন্তব্য : “মুখোমুখি”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।