গেম রিভিউঃ প্রো এভোলিউশন সকার ২০১০

( গেমটি রিলিজ হয়েছে বেশ আগে। কিন্তু আমাদের অনেকের ই গেমটি খেলা হয়নি । ফুটবলের গেম বলতে আমরা প্রায় সবাই কেবল ফিফা সিরিজ খেলেই অভ্যস্ত । কিন্তু এই গেমটি ফুটবল সিমুলেশন গেম হিসেবে ফিফাকে বেশ পেছনে ফেলে দিয়েছে। তাই দেরীতে হলেও রিভিউ পোস্ট করলাম)

প্রো এভোলিউশন সকার সিরিজ বেশ কিছু বছর থেকেই গেম ডেভেলপার কোম্পানী “কোনামী ” নিয়মিত রিলিজ করে আসছে। কিন্তু বরাবরই ভালো গ্রাফিক্স হওয়া স্বত্তেও দূর্বল গেম প্লে ও কঠিন কন্ট্রোলের দরুণ গেমার জগতে ফিফার স্থান দখল করতে পারেনি।
কিন্তু ২০১০ তে এসে কোনামী আপাত দৃষ্টিতে তাদের প্রায় সব ত্রুটি দূর করেছে।
স্পেশাল ফিচারঃ
গেমটি উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও ইউরোপা লিগের লাইসেন্সড প্রোডাক্ট । তাই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলার আনন্দ পুরোটাই উপভোগ করা যাবে।
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফি
35
47848
গ্রাফিক্সঃ
গ্রাফিক্স এক কথায় অসাধারন। প্লেয়ার ডিটেইল ও মুভমেন্ট এতটাই অসাধারন যে, হঠাৎ দেখলে মনে হবে টিভিতে খেলা দেখছি। অত্যন্ত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্যাপারো বাদ দেয়া হয়নি। খেলা চলাকালীন সময়, প্লেয়ার রা মাথা ঘুরিয়ে বল ফলো করে। গোল করার পর কিংবা ফাউল হলে খেলোয়াড়দের অভিব্যাক্তির অ্যানিমেশন গুলোও অসাধারন।
খেলোয়াড়দের চেহারা সর্বোচ্চ ডিটেইল করার চেষ্টা করা হয়েছে। বডি শ্যাডো ডিটেল যেকোনো গেমার কে মুগ্ধ করবে।
ইনিয়েস্তা, ফেস ডিটেইল ও বডি শ্যাডো অসাধারন
ইনিয়েস্তা, ফেস ডিটেইল ও বডি শ্যাডো অসাধারন
ওয়ালকট, গোল উদযাপন
ওয়ালকট, গোল উদযাপন
গেম প্লেঃ
কন্ট্রোল ফিফার চেয়ে একটু কঠিন , তবে বেশ রিয়েলিস্টিক। পাঁচটি ডিফিকাল্টি লেভেল আছে। গেম অনেক স্মুথ রান করে। গেমস্পিড ও বেশ ভালো।
এক্সিবিশন ম্যাচ খেলা যাবে কম্পিঊটারের বিপক্ষে কিংবা বন্ধুর সাথে, (সেক্ষেত্রে একজন গেম প্যাডে খেলতে হবে। মাল্টিপ্লেয়ার অপশনে গিয়ে ল্যানেও খেলা যাবে। মাস্টার লিগ মোডে খেলা যাবে ম্যানেজার হিসেবে। এ ছাড়া বিকাম এ লিজেন্ড মোডে একজন খেলোয়াড় তৈরী করে তাকে নিয়ে ক্যারিয়ার এগিয়ে নিতে পারবেন। এছাড়া টুর্নামেন্ট মোড তো আছেই।
ভেরী স্পেশাল ফিচারঃ নেক্সট জেনারেশন এডিটিংঃ
আমার মত যারা গেম এডিটিং ভালবাসেন, তাদের জন্য এই গেমের চেয়ে ভালো কিছু হতে পারেনা। আপনি টিম লোগো থেকে শুরু করে, জার্সি স্পন্সর, প্লেয়ার ফেস সবই এডিট করে পারবেন। এমনকি আপনার নিজের ছবি স্ক্যান করে প্লেয়ার ফেস তৈরী করতে পারবেন! আর pes2008editing.blogspot.com থেকে প্যাচ ডাউনলোড করলে পাবেন, ম্যারাডোনা, ব্যাজিও, বাতিস্তুতা, রোমারিইওর মত লিজেন্ডদের নিয়ে খেলার মজা। শুরুতে লাইসেন্স জটিলতার কারনে অনেক ক্লাবের নাম, জার্সি ঠিক থাকেনা। কিন্তু প্যাচ ডাউনলোড করে নিলেই মজা! বিশ্ব একাদশ, দক্ষিন আমেরিকা একাদশ, ইউরোপিয়ান একাদশ নিয়েও তখন খেলা যাবে।
ক্ল্যাসিক আর্জেন্টিনা টিমের ম্যারাডোনা, (প্যাচ নামানোর পর)
ক্ল্যাসিক আর্জেন্টিনা টিমের ম্যারাডোনা, (প্যাচ নামানোর পর)
pes

সিস্টেম রিকোয়ারমেন্টঃ
নুন্যতমঃ সিস্টেমঃ XP/Vista?Windows 7
প্রসেসরঃ pentium 4 or higher
গ্রাফিক্স কার্ডঃ nvidia geforce 7300 or higher or similar ATI
ভিডিও র‌্যামঃ ২৫৬ মে বা
র‌্যামঃ ১ জি বি
হার্ড ডিস্ক স্পেসঃ ৬ জি বি
(উপরের স্ক্রিন শট গুলো আমার পিসি থেকে নেয়া। আমার কনফিগারেশন –
গ্রাফিক্স কার্ডঃ Nvidia Geforce 9600 GT 1 GB
র‌্যামঃ ৩ জি বি)

রেটিং – ৮.১ / ১০
তো বসে পড়ুন এক্ষুনি, ফুটবলের আসল মজা অপেক্ষা কছে আপনার জন্য।

১,৯৬২ বার দেখা হয়েছে

৩৭ টি মন্তব্য : “গেম রিভিউঃ প্রো এভোলিউশন সকার ২০১০”

  1. রকিব (০১-০৭)

    PES 2010, গ্রাফিক্সের মান যথেষ্ট উন্নতি করেছে, বলতে হয় আমূল পরিবর্তন। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে এখনো একটু জড়তা আছে মনে হয়। সেদিক দিয়ে ফিফার সাথে এবার বেশ ভালোই লড়াই জমবে মনে হচ্ছে। দুটোই পিএস৩ কনসোলে দেখেছি। তুলনামূলক ভাবে আমার কাছে ফিফা ২০১০ ভালো মনে হয়েছে পিএস৩ এ।


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  2. রেজওয়ান (৯৯-০৫)

    গেম খেলতে পারি না 🙁
    ২৫৬ মেঃবাঃ র‌্যাম আর ৮০ গিঃবাঃ হাড্ডি (যার পুরাটাই মজ্জা ভরা ;)) )
    এইটা দিয়া কিছুই খেলা যায় না :((
    লোভটা বাড়াইয়া দিলেন.....
    ও রকিব, ভুইল্যা গেসস কি কইছিলাম ?

    জবাব দিন
  3. আছিব (২০০০-২০০৬)

    গ্রাফিক্স কার্ডঃ Nvidia Geforce 9600 GT 1 GB
    র‌্যামঃ ৩ জি বি)

    ভাই............আপনার গ্রাফিক্স কার্ড দেখে হিংসা হইতেছে ~x(

    গ্রাফিক্স এর জন্য গেম খেলা ছেড়ে দিছি :(( :((
    তয় ফিফার জনপ্রিয়তা PES 10 ছাড়াতে পারবে না ।এবার শুনেছিলাম এটা হবে WCG-তে,কিন্তু শেষে ফিফাই হচ্ছে 😀

    জবাব দিন
  4. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    রিভিউ দারুন। মারাত্বক লোভ লাগতেসে। তবে আমার ল্যাপির অত ক্যাপাসিটি নাই। যাহোক পি এস থ্রী এর ভালো কিছু গেমের লিস্ট পাওয়া যাবে কি? ফিফা বাদে, ফিফা কিনুমই কিনুম। আমার বউ চাকরী পাওয়া উপলক্ষে আগামী মাসে আমাকে পি এস থ্রী গিফট করবে। 😀 😀 😀 তখন ৩/৪ টা গেম কিনব. ভালো কিছু গেমের সাজেশন পাইলে উপকার হয়।

    জবাব দিন
  5. আশহাব (২০০২-০৮)

    ভাই রিভিউ দারুন হইসে, লোভ লাগতেসে 😀
    "পিসি গেমস খেলা" নিয়ে আমার পরিচিত এক কম্পিউটারের দোকানদার একবার বলেছিল, "টাকা ঢালো, গেমস খেলো" 🙁 সেই থেকে আমার আর টাকা ঢালাও হয় না, নতুন কোনো গেমস খেলাও হয় না :(( একদিক দিয়া অবশ্য ভালোই হইসে, ফিফা ০৯ খেলা পর্যন্ত আমার কিবোর্ড গেসে ৩ টা, এর পর থেকে আর গেমসও খেলি না, কিবোর্ডও আর যায় না B-)


    "Never think that you’re not supposed to be there. Cause you wouldn’t be there if you wasn’t supposed to be there."
    - A Concerto Is a Conversation

    জবাব দিন
  6. সাজিদ (২০০২-২০০৮)

    সিমুলেশন সকার গেম গুলি ভাল লাগেনা, ফিফা ১০ খেলসি, বেশি রিয়ালিসটিক করতে গিয়ে এত কঠিন বানায় ফেলসেযে অবস্থা হইসে মাঠে খেললেও ঘামায় যাই আবার পিসিতে খেললেও ঘামাই যাই, এখন খেলতেসি এস্যাসিনস্‌ ক্রিড ২, জটিল, ফাটাফাটি একটা গেম, শুক্রবার রাত থেকে শনিবার রাত পর্যন্ত পুরা টানা ২৪ ঘ্ন্টা খেলসি আজকেও ক্লাস ফাকি দিয়ে চলে আসছি গেম খেলতে, কারো একশন এডভেনচার গেম ভাল লাগলে এটা খেলে দেইখেন, গ্যারান্টি দিতে পারিযে ভাল লাগবে

    জবাব দিন
  7. ইন্দিয়ার্নাইন্টিন্সিক্সটিনাইন, গেমসের সেইরকম পোকা আছিলাম, যখন আমার পিসিতে সব গেম চলত। বাদ দিছি বাধ্য হয়া, কারণ নতুন গেম গুল আর আমার পিসিতে চলেনা :((
    আর পিএসথ্রি কেনার ট্যাকা নাই, গরীব মানুষ 🙁

    আমি বাজি ধইরা কইতে পারি, সিসিবিতে আমারটার চেয়ে অ্যানটিক পিসি আর কারো নাই।

    পেন্টিয়াম থ্রি ৭৩৩ মেগা হার্টজ
    ২০ গিগা হাড্ডি (কোন মজ্জা নাই O:-) O:-) O:-) )
    ৫১২ মেগাবাইট SD-RAM (১৩৩ বাস, 1333 না)
    ৬৪ মেগাবাইট এজিপি

    জিটিএ স্যান অ্যান্ড্রেস, আর এন এফ এস মোস্ট ওয়ান্টেড, আর ফিফা ২০০৮ ছিল আমার পিসিতে চলা শেষ তিনটা গেম। এরপরের কোনটাই আর চলে নাই।

    সাধ আছে সাধ্য নাই:(
    এখন যেইগুলা খেলতে চাই, সেইগুলা হইল,
    ১. ব্যাটম্যান: আরকহ্যাম অ্যাসাইলুম
    ২. জিটিএ ফোর
    ৩. অ্যাসাসিন্স ক্রীড ২
    ৪. গ্রীড
    ৫. প্রিন্স অফ পার্সিয়ার লেটেস্ট টা (নাম জানি না)

    আদৌ খেলা হবে কি না জানি না 🙁

    জবাব দিন
  8. মাঈনুল (১৯৯৬-২০০২)

    রিভিউ ভালো হইছে কিন্তু ফুটবল গেম এর কন্ট্রোল কঠিন লাগে সবসময়।

    আমার কম্প্যু:
    কোর-টু-ডুয়ো ২.৪ গিহা
    ৪ গিবা RAM
    এটিআই 4650 / ৫১২ RAM
    ৫০০+৫০০+১৬০ হাড্ডি
    এক্স-বক্স ৩৬০ উএসবি কন্ট্রোলার
    শেষ খেলছি ড্রাগন এজ, বার্ণ-আউট প্যারাডাইস। টেবিলে আছে প্রোটোটাইপ, গড-অফ-ওয়ার-২। নতুন কোন রেসিং/রোল প্লেয়িং এর অপেক্ষায় আছি। মোস্ট ফেভারিট গেমঃ এজ অফ এম্পায়ার-২ মাল্টিপেয়ার (বুয়েট এর জাতীয় গেম)।

    জবাব দিন
  9. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    রিভিও ভাল হয়েছে। :thumbup:

    কম্পিউতার গেমস এর প্রতি আমার আগ্রহ যতটা কম, ফুটবলের প্রতি আমার আগ্রহ ততটাই বেশি, এ কারনে আমার ল্যাপিতে এই মুহুর্তে শুধু একটা গেমসই আছে... ফিফা ১০, সিজনের পর সিজন শেষ করে যাচ্ছি। সেই ৯৮ দিয়ে শুরু, তারপর থেকে ফিফাতেই আছি। মাঝে PES একবার ট্রাই করছিলাম, পছন্দ হয় নাই। তবে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের জন্য এটা ট্রাই করে দেখা যেতে পারে।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।