আমার ক্যাডেট বেলা – ৮ (ক্লাস ইলেভেন পর্ব)

প্রথম পর্ব থেকে

জলে রাজা কুমীরই তো, বনে রাজা সিংহ’য়
ক্যাডেট কলেজে ক্লাস ইলেভেনই কিং হয়!
তিনমাস ছুটি শেষে ভুড়ি নিয়ে মস্ত
আবারো কলেজে ফেরা, জুনিয়র ত্রস্ত!
ডাইনিংয়ে আগে গিয়ে বসে পড়ি আসনে
এ যে দেখি ভারি মজা রাজ্যটা শাসনে!
বেল দিলে গ্লাসে পানি নিয়ে খাই ঢকঢক
চোখাচোখি হলে জুনিয়র কাঁপে ঠকঠক!
ঘড়ি মানা অভ্যাসটাকে আমি টাটা দেই
পিটির ফলইনে রোজ দৌড় ভুলে হাঁটা দেই!
বাসা থেকে নিয়ে আসা ড্রেস পড়ে গাত্রে
করিডোরে ঘোরাঘুরি করি প্রতি রাত্রে!
সম্মান বাড়ে তাতে, বাড়ে নাম যশ রে
জুনিয়র দেখে ভাবে, আরে! কত বস রে!
এনসিও স্টাফদের কেইইবা হে বেল দেয়?
জুনিয়র শিক্ষকও এসে দেখি তেল দেয়!
টিভি রুমে টিভি দেখি মাথা রেখে বালিশে
জে.পি হয়ে মাতবরী করি সব সালিশে!
ফুলিয়ে গলার রগ, কন্ঠটা করি আপ
“হোয়্যার ইজ ক্লাস টেন?!”, “জুনিয়র্স!, হারি আপ!!”
ডেয়ারিং হতে চাই স্যারদের জ্বালিয়ে
থার্সডেতে দলবেঁধে রাত্রিতে পালিয়ে!
ক্যাম্পাসে গাছ থেকে পেড়ে আমি ডাব খাই
রাত দিন জুনিদের লাখো অভিশাপ খাই!
লনক্রস করে ঘাসটাকে করি ধন্য
সোজা পথে চলা নয় আমাদের জন্য!
বার্থডেতে ক্যান্টিনে ফ্রেন্ডদের ট্রীট দেই
স্টেজে, মাঠে- সবখানে আমরাই লীড দেই!
মোটে আর খাঁচা ছাড়া হয়না যে আত্না
যেই ই হোক, হু কেয়ার্স?! দেইনাকো পাত্তা!
ক্যাম্পাসে হেঁটে যাওয়া মেয়েটার পিছু নেই
ইলেভেনে ভয় ডর বলে বুঝি কিছু নেই!
কিঞ্চিৎ চুল বড়, অলওয়েজ বুক টান
সাড়ে তিন তলা গিয়ে সিগারেটে সুখটান!
রাত্তিরে গুনগুন গেয়ে ওঠা গীটারে
সময়টা থেমে থাকে এই টেন সীটারে!

দু:খকে বন্ধুরা করি সবে মিলে ব্যান
এই বুঝি বেঁচে থাকা, এই বুঝি ইলেভেন!
হলো বলা বহু কিছু, তবু এটা কমই হে
ইলেভেনে দিন কাটে স্বাধীনতা, সমীহে!

৩,৪২৪ বার দেখা হয়েছে

৩৫ টি মন্তব্য : “আমার ক্যাডেট বেলা – ৮ (ক্লাস ইলেভেন পর্ব)”

  1. গুলশান (১৯৯৯-২০০৫)

    আমার মনে হয় টুয়েলভেই থেমে যাওয়া ঠিক হবে না। কলেজ থেকে বের হওয়ার পরের লাইফ নিয়েও সিরিজ চলুক এটাই আমার দাবী। সিরিজের নামটা অবশ্য তখন পাল্টানো যেতে পারে। তবে সিরিজ চলুক।

    জবাব দিন
  2. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    পাঁচ/ছয় বছর পর এফসিসিতে এসএসসি'তে ফার্স্ট স্ট্যান্ড, সাথে ১৫ টা স্ট্যান্ড! ইলেভেনে ঢুকার সময় য়ামাদের পুরা ব্যাচরেই অথরিটি দারুণ রিসিপশন দিসিলো। যথারীতি ইলেভেন সুলভ পার্ট নিয়া পুরা কলেজ গরম B-) পরেরদিনের পিটির ফলইন এই ইলেভেন সুলভ পার্টের হালকা বড় চুল এডজুট্যান্টের চোখে পিড়লো। গেমসের ফলইন এও ইলেভেনের প্রায় ৪০জনরে আলাদা করা যাইতেছিলো, পুরা বিএমএ টাইপ বাটিছাট দিয়া 😛


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।