ভ্যালেন্টাইন গিফট

এই ভালোবাসা দিবস সবসময় একটা ঝামেলায় ফালায়া দেয়। ঝামেলা টা আর কিছুনা, ঝামেলাটা হইল গিফট। কি গিফট কিনুম এই চিন্তায় মোটামুটি দুই সপ্তাহ মাথা খারাপ থাকে। গত বার তো শেষ পর্যন্ত কিছুই কিনতে পারিনাই। ১৪ ফেব্রুয়ারী তাকে বললাম, “আমার ভালোবাসা প্রকাশ করতে পারে এমন কোনো কিছু খুঁজে পেলাম না, তাই কিনিনাই। আর তাতে কী, আমিই তো তোমার সবচেয়ে বড় গিফট, আমি তো হাজির।” তারপর একটা ক্যালানো হাসি। আমার বান্ধবী বলল, তুমি গিফট দিতেই হবে এটা কে বলল। কখনো কিছু ভালো লেগে গেলেই আমার জন্য কিনে ফেল। আর প্রতিদিনই তো আমাদের ভালোবাসা দিবস। (আহারে কত ভালা মানুষ, বিয়ের পর এমন থাকবে তো !!) তারপর নিজে একটা গিফট বাইর কইরা আমারে ধরায়ে দিল। এইবার আর এইভাবে হবেনা। কিছু একটা কিনবই। কত জায়গা যে ঘুরলাম, কোন কিছুই পছন্দ হয়না। ভাইরে সাজেশন দিয়া উদ্ধার করেন।

৪,৬২৩ বার দেখা হয়েছে

৫৮ টি মন্তব্য : “ভ্যালেন্টাইন গিফট”

  1. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    সুন্দর কিন্তু একটু এক্সেপশনাল ফুল ভালো উপহার। এছাড়া বইবেলার মাস উপলক্ষ্যে বই দিতে পারো, তবে তার পছন্দসই হবে এবং না পড়া বই আন্দাজ করতে করতে চোখে সর্ষে ফুল না হোক ধা ধা লেগে যাবে। আর্চিস বা হল্মার্কের দোকানগুলোতে সুন্দর অর্নামেন্টসের সেট পাবে, মনে হয় ৫০০ টাকার মধ্যে। সেখান থেকে পছন্দ করে লকেট-কানের দুল বা ব্রেসলেট ক্লিপস এর সেট কিনে দিতে পারো। বা পুতুল দিতে পারো। একটু সতর্কতার সাথে পছন্দ করলে ৯৫% ক্ষেত্রে মেয়েরা পুতুল পছন্দ করবে ......
    আমার আইডিয়া শেষ ......

    জবাব দিন
  2. রাহাত (২০০০-২০০৬)

    আমার বান্ধবী বলল, তুমি গিফট দিতেই হবে এটা কে বলল। কখনো কিছু ভালো লেগে গেলেই আমার জন্য কিনে ফেল। আর প্রতিদিনই তো আমাদের ভালোবাসা দিবস।
    :dreamy: :dreamy: :dreamy:

    জবাব দিন
  3. মাহমুদ (১৯৯৮-২০০৪)

    পোট্রেট দেয়া যায়(চিটাগাঙ্গে ৫০০ টাকায় করা যায় এমন পরিচিত দোকান আছে)
    মেলিতা ভাবী,আপনার দেবর আল মাহমুদ ভাইর সাথে কয়েক দিন আগে নেভীর একটা শিপে গিয়া অনেক গল্প করলাম।

    জবাব দিন
  4. সামিয়া (৯৯-০৫)

    :))
    আমি সাজেশন দিতে পারি।
    আপনার আসলেই কিচ্ছু দিতে হবে না, প্রতি দিন একটু ভালবেসে মন থেকে তার সাথে কথা বইলেন, তাহলেই উনি খুশি হয়ে যাবেন, আই ক্যান বেট।

    জবাব দিন
  5. আসলে ভাইয়া, গিফট ডিপেন্ড করবে আপনার বাজেটের উপরে। আপনি যদি হেভ্ভি মালদার পার্টি হন তাহলে হোয়াইট গোল্ডের পায়েল কিনে দিতে পারেন, দেখবেন মেয়ে লগে লগে আপনারে জড়ায় ধরবে খুশিতে। আর যদি আপনি আমার মত আম-জনতা হোন মানে কম খরচে ভালো-মজবুত-টেকাসই গিফট দিতে চান তাইলে জাস্ট চারটা জিনিস দেন-
    ১। একটা চিঠি : মধ্য রাতে চিঠিটা লিখবেন খুব আবেগ নিয়ে। মেয়ে ছেলে উভয়েই চিঠি পছন্দ করে কারন চিঠিতে স্পর্শ লুকান থাকে।
    ২। একটা কার্ড : একটা হলমার্কসের কার্ড কিনেন। কার্ডের উপর ভালো কিছু রোমানটিক কথা লিখেন। যেমন লিখতে পারেন-
    " ঐ আকাশের নীল ছুয়ে-
    পরছে ভালোবাসা চুয়ে চুয়ে
    দু'হাত ভরে দিলাম তুলে-
    মাখিস কলিজায়।"
    নিজের আবেগ দিয়ে কিছু লিখেন বা ভালো কোনো প্রেমের কবিতার ২/৪ লাইন দিতে পারেন।
    ৩। একটা ডল : মোস্টলি সবাই টেডি বিয়ার কিনে আপনি টেডি না কিনে এনজেল টাইপ কিছু ডল আছে ঐগুলা একটা কিনতে পারেন। বা ধরেন দুইটা ডল একটা দোলনায় বসে আছে এরকম কিছু পাওয়া গেলে কিনতে পারেন।
    ৪। চকলেট: ২০০ টাকার ভিতরে চকলেটের কিছু প্যাকেট পাওয়া যাওয়ার কথা। এরকম একটা কিনতে পারেন (অল্পবয়সী মেয়েরা চকলেট আইসক্রিম আচার এসব লাইক করে) ।

    মোটামোটি একটু দেখেশুনে গিফট করলে দেখবেন ভাবি হেভি খুশি হবে এবং আগামী ৩ মাস যা চাইবেন তাই পেয়ে যাবেন। 😛

    ধন্যবাদ সবাইকে।

    জবাব দিন
  6. @ রাব্বী ভাইয়া, একটা চিঠির দাম আর কত পড়বে বলেন? একটা কার্ড পাওয়া যাবে ১০০ টাকায়। ডল ৫০০ টাকা আর ধরেন চকলেট ২০০ টাকা। হাজার টাকাত ভাই প্রেমিকার লাইগা খরচ করন লাগবই। নাইলে কি আর পরের তিন মাস যা চাওয়া তাই পাওয়া যাবে নাকি???

    @মাহমুদ ভাই,
    আপনি মেইবি প্রেম টেম করেন না ... তাই বুঝেন নাই প্রেমিকার কাছে প্রেমিকের চাওয়া কি? যাকে বুঝানোর মানে হায়দার ভাইয়া ঠিকি বুঝছে। 😛

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।