ঘুম,ক্লাস ও একজন ক্যাডেট ২

ঘটনা ২
নারগিস মাডামের ইংরেজি ক্লাস, ঝিমাইতে ঝিমাইতে ঘুমায়ে গেছিলাম।নিয়ম ছিল ক্লাসের সময় পারমিশন নিয়ে ১ জন বাইরে যেতে পারবে।ঘুম থেকে উঠে মনে হল বাইরে যাওয়া দরকার।আমি জানতাম না ১ জন বাইরে ছিল।পারমিশন চাইলাম ঃ may I go out ,madam? মাডাম কট মট করে উত্তর দিল is there anybody out? কিন্তু আমি শুনলাম is there any doubt? মনে মনে কইলাম মাডাম এতক্ষন যা পড়াইছে সেই সম্পর্কে আমার কোন doubt আছে কিনা সেটাই মনে হয় জানতে চাইছে । হাসি মুখে উত্তর দিলাম no, madam। মাডাম কইছিল noo!!!!???? আমি শুনলাম go. যা শুনলাম তাই করলাম । উল্টা ঘুরে দরজা দিয়ে বের হয়ে গেলাম । c ফর্মে (ব্লক টয়লেট) গিয়ে আমাদের বি ফর্মের একজনের সাথে দেখা হয়ে গেল। আরে!! তুই? অনেক্ষন হইছে জাইগা!! বলে ও চলে গেল।৪-৫ মিনিট পর যখন ফর্মে গেলাম তখন দেখি মাডাম নাই । ক্লাসে চাপা নীরবতা । মাডাম কই ? প্রশ্ন করতেই জবাব পেলাম মাডাম ভিপি রুমে গেছে রিপোর্ট করতে।আমি নাকি বেয়াদবি করে মাডামের ক্লাস থেকে বের হয়ে গেছি (!!!!) মাডাম খুব ই খেপছে(!!)
তখন ভিপি ছিল রফিক নওশাদ স্যার । কিছুক্ষন পর আমাকে ভিপি রুম থেকে স্মরণ করা হল।তারপর কি হল ? সেটা ঘুমের কাহিনী তে পড়ে না তাই বাদ!!!!! :duel: :duel:
ঘটনা ৩
এটা ক্লাস সম্পর্কিত না । কিন্তু ক্যাডেট সম্পর্কিত তাই লিখলাম।
আমার ক্লাসমেট , নাম বলবনা হাউজমেট ও , মেধাবী ছেলে। কিন্তু তার একটা আলসেমী আছে । পড়ালেখার ব্যাপারে । সেটা ত সবার ই আছে।। আসল কথা হচ্ছে আলসেমী টা হচ্ছে পড়ার স্টাইলে। চেয়ারে বসে পড়তে তার কষ্ট হয়, পিঠ ব্যাথা করে। বেডে শুয়ে এক দিকে বই রেখে পড়তে কষ্ট হয় কারন ঘাড় ব্যাথা করে। শুয়ে পড়ে হাতে বই নিয়ে পড়তে কষ্ট হয় কারন বেশিক্ষন বই ধরে রাখা যায় না হাত ব্যাথা হয়ে যায়। !!!
সে বেডের যে পাশ টা ডরমের মাঝের দিকে সেই দিকে বেডের সাইড থেকে মাথাটা একটু সামনের দিকে বের করে উপুড় হয়ে শুয়ে পড়বে। হাত থাকবে থুতনির নিচে। তারপর কোন রকম এদিক ওদিক ছাড়া চোখের দৃষ্টি ফ্লোরের যেখানে গিয়ে পড়ে সেখানে বইটা রাখবে।বইএর যে পেজ টা পড়বে সেটা বের করে বইএর ওপর মোটামুটি ভারি কিছু (যেমন তালা, পেস্ট, ব্রাশ ) রাখবে যাতে বাতাসে পেজ টা উল্টায়ে না যায়!!!!
অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে সে এইভাবে অনেক্ষন নির্ঘুম থেকে একটানা পড়তে পারত।
ঘটনা ৪
শাহিদা পারভিন মাডামের বাংলা ক্লাস।কবিতা না কি যেন পড়াইতেছিলেন।নিজের অজান্তেই ঘুমায়ে গেছিলাম।পাশের জন ডেস্কএ থাবা দিতেই জেগে দেখি মাডাম কটমট করে তাকায়ে আছে। সঙ্গে সঙ্গে ধরা পড়ার লজ্জায় চেয়ার ছেড়ে মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে পড়লাম।মাডামের উক্তি কানে আসতে না আসতেই চোখ তুলে তাকালাম।
ম্যাডামঃএই ছেলে!! ঘুমাও কেন? আমার দিকে তাকাতে ইচ্ছে করে না???? আমার চেহারা কি সুন্দর না????? :-/



ঘটনা ৫
ইজদান স্যার ছিল একাডেমি ব্লকের সবচেয়ে বেকার মানুষ। পরিসংখান এর ক্লাস নাই বললেই চলে। সেই জন্য যদি কোন ক্লাসে টিচার না থাকতো স্যার আসত শেল্ফ স্টাডি এর গার্ড হিসাবে। স্যার কাওকে ঘুমাতে দেখলে মারতেন। স্যার এর এই বহুবার ক্লাসে কোন কাজ ছাড়া আসার কারনে স্যার এর সম্পর্কে একটা দারুন তথ্য আবিষ্কৃত হল।
‘স্যার এর চোখে একটু সমস্যা আছে। স্যার ২ রো পরের কোন কিছু পরিষ্কার ভাবে দেখতে পান না। কিন্তু তাকিয়ে থাকেন এবং হেড ডাউন করে না ঘুমালে স্যার ধরতে পারেন না।’
রিস্ক নেয়া শুরু হল। কথা সত্য প্রমানিত হল।এখন আর স্যার এর তাকানোকে ভয় নেই। স্যার সামনে আসার আগ পর্যন্ত সেফ। পরে এমনও হয়েছে ফর্মে ১৫ জনের বেশি মুখে বাম হাত ও ডান হাতে কলম ধরে ঘুমাচ্ছে আর স্যার ডাইয়াসে দাড়ায়ে আছে।
ঘটনা ৬
১১ বি ফর্মের জন্য শনিবার এক বিভিষিকার নাম।
১।সকাল শুরু বিরক্তিকর প্যারেড দিয়ে।
২।ব্রেকফাস্টে আরও বিরক্তিকর ব্রেড।
৩।মাইরি একখান ক্লাস রুটিন।
রফিক,শফিক,কবির,বারী, অ্যাডজুটান্ট, ফিসিক্স প্রাক্টিকাল



একমাত্র যারা এই নামের মানুষ গুলোর সাথে পরিচিত শুধুমাত্র এবং শুধুমাত্র তারাই পরিস্থিতির ভয়াবহতা আঁচ করতে পারবেন।লেখার মাধ্যমে আমার মনের ভাব প্রকাশিত হবে না। তাই ভাষা এখানে নিরুপায়।
জ্ঞাতার্থে বলে যায়, রফিক- রফিকুল ইসলাম স্যার(রসায়ন), শফিক- শফিকুল ইসলাম ( পদার্থ বিজ্ঞান),কবির- আহসানুল কবির (বাংলা), বারি-এনামুল বারী (অংক)………
এটা লিখতে লিখতে অনেক গুলো স্যার এর কথা মনে আসতেছে। কিছু স্যার এর ক্লাস না করলে ছাত্রজীবনটাই বৃথা।
*আহসানুল কবির স্যার এর বাংলা ক্লাস
*জামশেদ স্যার এর জুওলজি ক্লাস
*মান্নান স্যার এর অংক ক্লাস
*খলিল স্যার এর ফিসিক্স ক্লাস ( ১ পিরিওড সার্কাস)
(বাক্তিগত মতামত)

** এখনও কত ক্লাস করি।ঘুমাই ও।কিন্তু মাঝে মাঝে অন্য মনস্ক হয়ে গেলে বি ফর্মের সেই চির চেনা ২৩ জনের মুখ চোখের সামনে ভেসে ওঠে।ইনটেকের ৪৭ জনের সবাই আপনজন।কিন্তু তার পর ও ফর্মের গুলা রে ক্যান জানি একটু বেশি আপন আপন লাগে।**

৩,৬৪৯ বার দেখা হয়েছে

৪৬ টি মন্তব্য : “ঘুম,ক্লাস ও একজন ক্যাডেট ২”

  1. আসিফ মাহমুদ

    আহসানুল কবির স্যার এর ক্লাস এ একবার ঘুমাচ্ছিলাম ...তখন সিক(মাইগ্রেন) ছিলাম বলে আমাকে প্রচুর tranquilizer medication এর উপর থাকতে হত এবং মেডিসিন এর রিএকশান এ মোটা হয়ে যাচ্ছিলাম...তার উপর শনিবার এর প্যারেডের পর প্রথম ক্লাস...চোখ খুলে রাখা সম্ভব হচ্ছিল না... তো স্যার ওনার সেই চিরচেনা ভংগিতে বললেন,"এই ছেলেটা ঘুমাচ্ছে আর মোটা হয়ে যাচ্ছে"... 😕 😕


    ...একদিন সবকিছু মুছে যায় হিমেল হাওয়ায়, স্মৃতিমাত্র লিখে নাম...সেইখানে আমিও ছিলাম...

    জবাব দিন
  2. মীম (২০০৬-২০১১)

    =)) =)) ভাইয়া শুধু মান্নান স্যারের ক্লাস পাইছি (জানি না আপনি যার কথা বললেন সেই কিনা!!)...... উনি আমাদের ডাকতেন "বুকা মামনিরা" ;)) ;)) (সম্পাদিত)


    দ্যা 'দুই' নাম্বার ক্যাডেট

    জবাব দিন
  3. আসিফ মাহমুদ

    হা হা হা সুইট মান্নান স্যার?? :)) যার ক্লাস এ পোলাপান ব্লাকবোর্ড এ শ্রেণীশিক্ষক এর নাম এর জায়গায় নাম না লিখে রসগোল্লা'র ছবি একে রাখত ...


    ...একদিন সবকিছু মুছে যায় হিমেল হাওয়ায়, স্মৃতিমাত্র লিখে নাম...সেইখানে আমিও ছিলাম...

    জবাব দিন
  4. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    ঘটনা ৩ এর স্টাইলে আমি নিয়মিত গল্পের বই পড়তাম 😛

    আহসানুল কবির স্যার আমাদেরকে বাংলা সহপাঠ 'জোহরা' পড়াতেন, (যার কাহিনি এমনই ইলাস্টিক যে এ যুগের হিন্দি সিরিয়ালের সাথে পাল্লা দিতে পারবে)। ঘুমের জন্য ঐ ক্লাসগুলোর থেকে আদর্শ পরিবেশ খুব কমই পেয়েছি 😀


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  5. সাজেদ (২০০৪-২০১০)

    "ম্যাডামঃএই ছেলে!! ঘুমাও কেন? আমার দিকে তাকাতে ইচ্ছে করে না???? আমার চেহারা কি সুন্দর না?????"

    এই ডায়লগ আমাকে ম্যাডামের কাছে ৫ বার শোনা লাগছে ভাই।

    কুবের স্যার একবার ক্লাসে এসে বোর্ডে গিয়ে আঁকা শুরু করল একটা বাড়ি, তার সামনে একটা গাছ, নিচে একটা গরু। তারপর লিখল- কুবের+আমিনা=মহেষ। :)) :khekz:
    খলিল স্যার তো চীজ ছিল একটা।
    মজা পাইলাম ভাই পড়ে। =)) :goragori: O:-) :boss: :hatsoff:


    Be Mad, Be Great, Be the History.......

    জবাব দিন
  6. তানভীর (১৯৯৫-২০০১)

    কোন মান্নান স্যারের কথা বলছো বুঝতে পারছি না। আমরা (সিকক) একজনকে পেয়েছিলাম। আমাদের higher math এর ক্লাস নিতেন। ক্লাসে এসেই একটা চক নিয়ে ব্লাকবোর্ডে চলে যেতেন বলতেন, আর ঘুমঘুম কন্ঠে বলতেনঃ
    ওহে, খাতা কলম ধরো...
    আমরা সাধারনত কেউ তাকে বই দিতে চাইতাম না, কারন বইটাকে চক দিয়ে সাদা করে ফেলতেন...

    জবাব দিন
  7. ম্যাডামঃএই ছেলে!! ঘুমাও কেন? আমার দিকে তাকাতে ইচ্ছে করে না???? আমার চেহারা কি সুন্দর না????? :-/
    ম্যাডামঃ নাঈমূল
    আমিঃ জি ম্যাডাম ???
    ম্যাডামঃ নাই মূল
    আমিঃ জি ম্যাডাম???????
    ম্যাডামঃ নাই মূল মানে মূল নাই মানে তোমার মূল নাই... হো হো হো...
    আমিঃ করে কী??? :O :O :O :O :O

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।