জ্বরের ঘোরে!!!

১। সিসিবি তে কেমন জানি মরা অবস্থা চলছে। সহজে কেউ লেখা দিতে চায় না। ঘন্টার পর ঘন্টা সিসিবি খুলে বসে থাকি কেউ তো লেখা দিচ্ছে না বরং কারো কমেন্ট দেখে যদি একটু মনটা ভরে। কমেন্টের জাদুকর জুনা আরও গরীব হয়ে ফিরে আসছে, আশা করা যায় নতুন নতুন কমেন্টে সে আবার আমাদের মুগ্ধ করবে। কিন্তু কেম্নে কি? শেষ মেষ আমার মত ভাদাইম্মা লেখক ও লিখতে শুরু করল।

২। সিসিবির প্রথম দিকে লেখা দিতে বেশ ভাল লাগত। লেখক কম ছিল, পাঠক কম ছিল। ভয়ের কিছু ছিল না। আর এখন পাঠক,লেখক,অতিথিতে ভরপুর। বেশ ভাল লাগে, কিন্তু সমস্যা হল আমার মত লেখকরা সাহস করে উঠতে পারছেনা লেখা দেওয়ার জন্য। মান সম্পন্ন না হলে মান ইজ্জত নিয়া টানাটানি। কিন্তু গত দুই দিনে নিজে কে আর সামলাতে পারলাম না। দিলাম একটা অখাদ্য ছেড়ে। পোলাও, বিরীয়ানীর মধ্যে মাঝে মাঝে শাক সবজি খাওয়ার প্রয়োজন আছে।

৩। গত শনিবার থেকে জ্বর আর সর্দি হয়েছে আমার। এদিকে আবার বিভিন্ন ফ্লুর ঝড় বইছে অস্ট্রেলিয়াতে। সোয়াইন ফ্লুর প্রভাবে সমস্ত দুনিয়া নাকি কাঁপছে। হাউস মেট, বন্ধু- বান্ধব সবাই আমার দিকে আঁড় চোখে তাকায়। এক রকম জোর করেই আমাকে ডাক্তারের কাছে নেয়া হল। সোমবার বিকালে ডাক্তার দেখাতে গেলাম। কয়েক দিন আগে টিভি তে দেখছিলাম সোয়াইন ফ্লু হলে কিভাবে তা শনাক্ত করা হয়। বেশ ইন্টারেস্টিং মনে হয়ে ছিল। খুব আশা নিয়া বসলাম, মিনিমাম ব্লাড টেষ্ট তো করতে হবেই। সবার সাথে ভাব মারা যাবে। সবাই আমারে দেখতে আসবে। কিন্তু কোথায় কি? ডাক্তার বেটা হালকা একটু চেক করে বলে তুমি কি ভয় পাচ্ছ যে তোমার সোয়াইন ফ্লু হয়েছে নাকি? আমি মনে মনে আশার আলো দেখতে পেলাম। তারপর বলে-“ইউ আর আবসুলিটলি আলরাইট!!”। সোয়াইন ফ্লুর ধারে কাছেও কিছু হয় নাই আমার 😮 । মন খারাপ করে এন্টিবায়োটিক ওষুধ নিয়ে বাসায় চলে আসলাম।

৪। চার দিন ধরে জ্বর আর সর্দির জ্বালায় বাসা থেকে বের হচ্ছিনা। নেট এ কিছু করার পাইনা। হঠাৎ সন্ধান পেলাম “টিনটিন” এর। হ্যাঁ আমি হার্জের বিখ্যাত কমিক্স্‌ টিনটিন এর কথাই বলছি। বুড়া বয়সে কমিক্স্‌? কি করব পড়তে তো মন্দ লাগছে না। ভালই টাইম পাস্‌ হয়। সমস্যা খুব তারাতারি শেষ হয়ে যায়। ছোট বেলায় একটা টিনটিন যোগার করতে পারলে এক সপ্তাহ পার করে দিতাম। আর এখন!!! প্রথম দিন এক ঘন্টায় তিন টা পড়ে ফেললাম। কিন্তু এই গতি তে পড়লে ছয়-সাত ঘন্টায় সব শেষ হয়ে যাবে অনুধাবন করার পর গতি কমিয়ে দিয়েছি। চার দিনে মাত্র সাত টা শেষ করেছি আরও বার টা আছে :shy:

৫। অন্যদের মত একি গান সারা দিন শোনার অভ্যাস আমারও আছে। আশে পাশের মানুষ বিরক্ত হয়ে যখন বন্ধ করতে বলে তখন যদি চেঞ্জ হয়। কিছু দিন আগে জামাই টু এর কাছ থেকে পাওয়া “রোখযানা” শুনতে শুনতে মুখস্ত করে ফেলছি। আজকে আবার কামরুল ভাই মাথায় আরেকটা ঢুকাইয়া দিছে”তুমি আজ কথা দিয়েছ”। দেখি আশে পাশের মানুষ কবে বিরক্ত হয়।

৬। সমসাময়িক সিসিবি ধারা অনু্যায়ী একটা গান পরিবেশন করা ফরয হয়ে গেছে। আমি ইংলিশ গানের খুব একটা ভক্ত না। তবুও মাঝে মধ্যে কিছু গান খুব মনে ধরে। Eruption এর আশির দশকের একটি গান কথা এবং সুরের জন্য আমার এখনও ভাল লাগে। প্রথম কবে শুনেছিলাম মনে নাই, কিন্তু শেষ বার শুনলাম আজ। গান টি সবার জন্য।

জনস্বার্থেঃ গানের গায়িকা কে দেখার দরকার নাই, শুধু শুনুন :-B

৪,১৯৭ বার দেখা হয়েছে

৫৯ টি মন্তব্য : “জ্বরের ঘোরে!!!”

  1. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    ওয়ান ওয়ে টিকেট প্রথম শুনছিলাম সিডি সাউন্ড থেইকা বাইর হওয়া সেই বিখ্যাত মেরুন কালারের এই নামেরই একটা ক্যাসেটে 😀
    সাব্বিররে পাংগামু কিনা বুঝতাছিনা 😛
    যাইহোক, সমসাময়িক সিসিবি ধারায় কই, ক্যাডা... সাব্বির নাকি... :grr:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  2. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    সাব্বির ভাই লেখা দিছে 😮 :thumbup: :thumbup:

    সমস্যা হল আমার মত লেখকরা সাহস করে উঠতে পারছেনা লেখা দেওয়ার জন্য। মান সম্পন্ন না হলে মান ইজ্জত নিয়া টানাটানি।

    একেবারে খাটি কথা বলছেন... আজাইরা অনেক কিছু নিয়া প্রায়ই লেখতে ইচ্ছা করে, কিন্তু....

    জ্বর থেকে তাড়াতাড়ি সেরে ওঠেন...


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  3. আহসান আকাশ (৯৬-০২)
    জনস্বার্থেঃ গানের গায়িকা কে দেখার দরকার নাই, শুধু শুনুন

    :khekz: :khekz: :khekz:


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  4. এত কম লিখলে কেম্নে কি 🙁 লেখা নিয়ে চিন্তা কইরেন না আমরা আছি কমেন্টের জন্য 😀
    তাড়াতাড়ি ভাল হয়ে উঠেন 🙂
    ভাই আরেকটা কথা 🙂 আপনে ক্যাডা সাব্বির ভাই নি 😀

    জবাব দিন
  5. বস
    এইটা আশির দশকের ক্যাসেটের গান???
    সবচেয়ে মজার কথা হইলো একটা বেগুণী কালারের মোড়ক সমৃদ্ধ মিক্সড এলবামের নাম ছিলো এই গানের নামে----- যেইটা আমার জীবনের প্রথম শোনা ইংরেজী ক্যাসেট এবং আমি ছোটবেলায় ক্লাস থ্রি-ফোর-এ শুধু এই ক্যাসেট শুনে ২ বছর কাটিয়েছিলাম। বোরিং লাগেনাই 😀

    এতদিন পর শুনলাম !!
    থ্যাংকু সাব্বির ভাই :gulli2: সুন্দর লেখা

    জবাব দিন
  6. দিহান আহসান

    আমিও তোমার মত লিখার জন্য বসে থাকি কিন্তু লিখার দেখা নাই। আমিতো আবার তোমার মত লিখা শুরু করে দিতে পারছিনা, কারন আমি লিখতেই পারিনা। তোমার লিখা কিন্তু খুব ভাল হয়েছে ভাইয়া।
    গান টা এক সময় শুনা হত খুব। ধন্যবাদ, আবারো শুনানোর জন্য।
    কেমন আছ এখন? নাও গরম গরম এক কাপ :teacup:

    জবাব দিন
    • সাব্বির (৯৫-০১)

      ভাবী আমি লেখা লেখি তে বেশ কাঁচা। তাই সাহস পাই না 🙁
      কয় দিন ধরে সিসিবি তে ভাটা চলছে দেখে আমি চামে চান্স নিলাম আর কি 😀 এই সুযোগ আপনেও কাজে লাগান B-)
      সিসিবির সবাই যদি এক কাপ করে চা দেয় তাইলে তো দেখা যাবে সারা দিন চা খাইতে খাইতে পেট বাস্ট হয়ে যাবে ~x(
      কি আর করা ভাবী মানুষ চা দিছে না তো করা যায়না। সাথে একটা সিগ্রেট খাই কি বলেন 😀
      অ ট ক্যাডা,,,,,ভাবী,,,,,নাকি B-)

      জবাব দিন
  7. রকিব (০১-০৭)
    দিলাম একটা অখাদ্য ছেড়ে।

    তাইফুর ভাই বোধহয় আশেপাশে নাই 😛 😛 ।
    দুর্ভিক্ষের কালে আপনি ত্রাণ নিয়ে আসলেন 😀 😀
    নেন ভাইয়া :teacup: খান।


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।