স্বপ্ন-৩

‘মানুষ মরে গেলে পচে যায়। পচে গেলে বদলায়, কারণে অকারণে বদলায়।‘

লাইন টা ঠিক হল কিনা জানি না। দ্বাদশ শ্রেণীতে থাকতে লাইন টা পরে ছিলাম। আমার দুর্বল মেমোরি লাইন টা যে কার সেইটা মনে করতে পারছে না। প্রশ্ন হল লাইন টা কি জন্য লিখলাম।

কারণ মানুষ বেচে থাকলেও বদলায়। কারণে অকারণে বদলায়। বদলে গেছি আমি, আমরা সকলেই। দিন শেষে যখন নিজের কথা চিন্তা করি, দেখি অনেক বদলে গেছি। বদলাতে চাইনি। তবুও বদলে যাই।

মানুষ বদলায় কেন?

আপনাদের নিশ্চয় পাঠকের মৃত্যু গল্প টার কথা মনে আছে? যেই বই লেখক গোগ্রাসে গিলেছিল অনেক বছর পরে সেই বই আর তার ভাল লাগে না। সেই পাঠকের মৃত্যু কেন হলো? সময়ের সাথে সাথে বদলে গিয়ে ছিল পাঠকের মন। তার মানে মন বদলায়। সময় কেটে যায়, মন পাখিও উড়ে উড়ে বদলে যায় আপন রঙ্গে।

স্বপ্ন সিরিজে এসে হঠাৎ বদলে যাওয়ার কথা লিখলাম কেন? কারণ আমার বদলে যাওয়ার সাথে সাথে বদলে যাচ্ছে আমার স্বপ্ন। আগে যেই স্বপ্ন দেখতাম সেই স্বপ্ন আর দেখি না। জীবন টা কে আগে যেই নজরে দেখতাম সেই নজর আজ নষ্ট হয়ে গেছে। আমার অনেক পুরনো স্বপ্ন আজ কেন জানি মনেই পরে না। কেন এমন হয়?

সময়ের সাথে সাথে স্বপ্ন গুলো পরিবর্তন হয়। ছোট বেলায় যা দেখতাম বড় হয়ে আমরা কি সেই স্বপ্নই দেখি??? যত বড় হই আকাশ কুসুম স্বপ্ন থেকে স্বপ্ন গুলো কেন যে অনেক বস্তুবাদী হয়ে যায়??? বস্তুবাদী স্বপ্ন আমার ভাল লাগেনা। কিন্তু দুখের বিষ্য সময়ের প্রয়োজন টা অনেক প্রভাব বিস্তারী। আমাকেও তার প্রবাহে গা ভাসাতে হয়।

মানুষের সুখের দিন গুলি কেন জানি দীর্ঘস্থায়ী হয়না। হয়ত অনেক সুখের একটা স্বপ্ন নিয়ে আপনার মন বিভোর হয়ে আছে, সুখ স্বপ্ন টা কবে পূরণ হবে সেই আশা নিয়ে আপনি অধীর আগ্রহে বসে আছেন। কিন্তু জীবন তো বড় রহস্যময়। আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন এমন কিছু একটা ঘটবে যে আপনার সেই সুখ স্বপ্ন টা পূরণের মাঝে অনেক বাধা এসে দাঁড়াবে। কারণ জীবন আপনাকে নিয়ে এই খেলা খেলবেই। এমন হতে পারে আপনার কোন একটা বোকামি অথবা অবহেলা, অথবা আপনার নিয়তি কিছু একটা তো আপনাকে নিয়ে এই খেলা খেলবেই।

এর মানে এই না যে আপনি সব কিছু নিয়তির হাতে ছেড়ে দিবেন। নিয়তি কে নিয়ন্ত্রণ করার শক্তি আপনার থাকতে হবে। এই জন্য দরকার আপনার পবিত্র মন। মন কে নিয়ন্ত্রণ করুন, স্বপ্ন পূরণের আশাতে বসে না থেকে স্বপ্ন পূরণের চেষ্টা করুন। তাহলে হয়তো আপনার নিয়তিকেও আপনি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন!!!

লিখতে বসেছিলাম আমার স্বপ্নের কথা। প্রশ্ন করতে পারেন আপনাদের উপদেশ দিচ্ছি কেন? জানি আপনারা সবাই বুদ্ধিমান। ভাল করেই বুঝতে পারছেন আপনাদের বলার সুযোগে উপদেশ গুলো আসলে আমি নিজেকেই দিচ্ছি। কারণ আমার নিজের বোকামির জন্য আমি নিজের অনেক স্বপ্নকে ঝাপ্সা হয়ে যেতে দেখেছি। দেখেছি আমাকে হায়েনার হাসি শুনিয়ে স্বপ্ন গুলো কি ভাবে দূরে ভেসে যায়। তবুও আমি আবার আমার স্বপ্ন গুলোর পিছনে আবার দৌড়ান শুরু করি। আমার স্বপ্ন তো আমাকেই পূরণ করতে হবে।

আমি কখনই নিরাশাবাদী নই। সব সময় চেষ্টা করেছি গ্লাস টা যে অর্ধেকখালি সেইটা না দেখে গ্লাস টা যে অর্ধেক ভরা তা দেখার জন্য। তাই স্বপ্ন গুলো যখন বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে চলে যায় আমি আবার নতুন করে স্বপ্ন দেখার শুরু করি।

আমার লাস্ট ব্লগ টাতে রাশেদের একটা কমেন্টস খুব পছন্দ হয়েছে। মানুষ নাকি তার স্বপ্নের সমান বড়। যে যত বড় স্বপ্ন দেখবে সে কি ততো বড় হবে? আমার অনেক আকাশ কুসুম স্বপ্নের মত কি আমি বড় হয়ে যাব? স্বপ্নের তো কোন সীমা নাই। আমার বড় হওয়ার কি তা হলে কোন সীমা নাই???

অনেক ব্লগর ব্লগর এর পরে এবার একটা স্বপ্নের কথা বলি। না থাক সেইটা আরেক দিন। আজ অনেক বেশি লিখে ফেললাম। পাঠক কে এত কষ্ট দেয়া ঠিক না। বড় ব্লগ পড়তে আমারও অনেক কষ্ট হয়।

নতুন বর্ষে  আপনার নতুন পুরাতন সব স্বপ্ন গুলো পূরণ হোক সেই আশাই করি………।

১,৯৭৬ বার দেখা হয়েছে

১৮ টি মন্তব্য : “স্বপ্ন-৩”

    • জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

      ফুলন্দেবী ঠিকই বলেছেন... 😛
      এটা সুজাউদ্দৌলা'র ডায়লগ ছিল... :dreamy:

      সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে মানুষের স্বপ্নও স্বাভাবিক নিয়মে পরিবর্তিত, পরিবর্ধিত হয়। এটাই নিয়ম। যে এটার সাথে খাপ খাওয়াতে পারে না, সে স্বপ্নভংগের বেদনায় পোড়ে।
      ছোটবেলা থেকে সুপার হিরো হবার স্বপ্ন থেকে কনফেকশনারি দোকানের মালিক, বই এর দোকানদার, ক্রিকেটার...কত কত স্বপ্ন দেখতাম!!!

      এখন স্বপ্ন দেখি খুব খুব খুবই সহজ সরল একটা জীবন যাপন করার। যেখানে সুখ-দুঃখ-হাসি-কান্না-আনন্দ-বেদনা...সবকিছুই থাকবে পরিমান মতন।


      ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

      জবাব দিন
    • রিয়াজ (৯৮-০৪)

      আমার মেমোরীর কাছে আগেই মাফ চেয়ে নিছিলাম...ধন্যবাদ কারেকশনের জন্য।


      জানি সত্য নয়,শুধু কল্পনায়...ইচ্ছের ঘুড়ি আমরা ওড়াই...স্বপ্ন গুলো সত্যি হবে তারি অপেক্ষায়

      জবাব দিন
  1. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    " মানুষ স্বপ্নের সমান বড়" -- শুনে খুব প্রীত হলাম।
    আমরা জানি স্বপ্ন দেখতে হইলে ঘুমাইতে হয়। এই ব্লগের বৃহত্তম মানুষ মাস্ফ্যু মনে হয় ঘুমায় স্বপ্ন দেখে আর বড় হয়-- এই জন্যই ওরে দেখি না।
    যা উকগা ভাই তোমার স্বপ্নের কথা শুনতে পারলে ভালা লাগতো। সেইটা যখন জানা গেলা না তাইলে আমার স্বপ্নের কথা বইলা যায়, আমার স্বপ্ন হইলো ঘুমানো। তাইলে আবার স্বপ্ন সেখান থেকে আবার ঘুম... আবার স্বপ্ন আবার ঘুম ... আর স্বপ্ন আর বড় হওয়া ....বড় হইতে হইতে আকাশ ছুঁয়ে ফেলা। 🙂

    জবাব দিন
  2. রিয়াজ (৯৮-০৪)

    স্বপ্নের কথা টা আরেক দিন লিখব, সময় করে। 🙂
    আমিন ভাই আপনার স্বপ্ন টা খুব সুন্দর, শুধু এই স্বপ্নরই মনে হয় গ্যরান্টি দেওয়া যায় যে সফল হবে। 😀


    জানি সত্য নয়,শুধু কল্পনায়...ইচ্ছের ঘুড়ি আমরা ওড়াই...স্বপ্ন গুলো সত্যি হবে তারি অপেক্ষায়

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।