আমাদের রসায়ন শিক্ষা

স্যার এর নামটা বললাম না।তবে যারা বেশি কৌতুহলি তাদের জন্য একটু সহজ করে দিলাম। ইংরেজিতে স্যার এর নাম দাঁড়ায় cowboy catch the moon. কেউ যদি চিনে ফেলেন তার জন্য আমি দায়ী নই।যাই হোক কাজের কথায় আসি।স্যার পড়ান খুবই চমৎকার।ওনার পড়ানোর ধরনটা তবে একটু ভিন্নধর্মী।অনেকের হয়ত মনে আছে এসএসসির বইতে অধাতুর একটা অধ্যায় ছিল।তার একটা বিশাল অংশ জুড়ে ছিল সালফার।সেই সালফার স্যার আমাদের এমন ভাবে পড়িয়েছেন যে আজো ভুলিনি।তাই স্যার এর মত করেই আজকে শিখব-
‘‘আজকে আমরা পড়বো সালফার।তোরা জানিস ইহা অধাতু ।তবে ইহার চরিত্র মোটে ও ভালনা। ইহাকে লুইচ্চা বলা যায় কারন ইহা দুইজনের সাথেও খেলে চারজন নিয়েও খেলে আবার ছয় জন নিয়েও খেলে।মানে ইহার যোজনী দুই,চার আর ছয়।মানে ইহা বহুরূপী বলে পরিচিত।

আর তোরা নিশ্চয় সবাই জাইঙ্গা পরিস।তাদের অনেকেই আছে খেচ্চর।মানে এক মাস হয়ে গেছে কিন্তু ধোয়াধুয়ির নাম নেই,তাদেরকে বলি–এক মাস পরে জাইঙ্গা উল্টিয়ে উলটা পিঠ আরও এক মাস পরবি,তারপর জাইঙ্গা খুলবি।খুলে দেখবি পুরা জাইঙ্গা হলুদ হয়ে গেছে।তারপর কি করবি জানিস? নখ দিয়ে চেটে দেখবি, চেটে দেখবি কেমন কেমন যেন লাগছে।ঐটা কি জানিস?ঐটা হল গিয়ে সালফার।তার মানে সালফার দেখতে হলুদ আর স্বাদে বিশ্রী।আর মনে রাখিস যারা জাইঙ্গা ধুইস্ না তারা সাবধান হয়ে যাইস কারন যে কোনো মুহুর্তে জায়গা মত জ্বলে উঠতে পারে কারন ইহা নিজে জ্বলে। পরে কিন্তু পুরুষত্ব থাকবেনে।’’

সেই সালফার তাই আজো ভুলিনি।

৫,৪৮২ বার দেখা হয়েছে

৫৬ টি মন্তব্য : “আমাদের রসায়ন শিক্ষা”

  1. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    :khekz: :khekz:

    এইটা কি লিখলি মামা? কল্পনা কইরাইতো বমি আসতেছে!
    ওয়াক!


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  2. জিহাদ (৯৯-০৫)

    ক্লাস সেভেন, এইটে হাউস মাস্টার পাইসিলাম। পুরা ছারখার করে দিসিল লাইফ :((

    তার করা হাউস ইন্সপেকশনের যন্ত্রণা প্রিন্সিপাল ইন্সপেকশনের কয়েকগুন হইতো 😡

    এককথায় বলতে গেলে স্যার নিজেও ছিল সালফার এর মত। এইজন্য এখনো তারে ভুলিনাই :grr:


    সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

    জবাব দিন
    • স্যারের হাল্কা অতিরিক্ত একটা জিনিষ কর্তনের ব্যাপারে আমাদের কলেজের পোলাপান বড়ই আগ্রহী ছিল।তার জন্য আমরা অনেক ক্ষুর,কাঁচি খুজছি।
      অনেক গল্প,গান বানাইছি।কিন্তু আমি ব্যর্থ হইলাম :bash: :bash:

      জবাব দিন
  3. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    বস সেম উদাহরণ উনি আমাদের বুঝাইছিল হ্যালোজেন সনাক্তকরণে। তাঁর ক্লাশ পুরাাক সিরম। একবার এখ সেইলে তার পায়ে পরে সকি কাইন্না!!!!
    আমার প্রিয় টিচার (!) রে নিয়া রসিকতা করার জন্য শাহাদাত ভাই্যের কি যেন চাই........
    যাক , স্বাগতম শাহাদাত ভাই।

    জবাব দিন
    • আমিন (১৯৯৬-২০০২)

      মাইনুল ভাই,
      স্যার তাইলে আমাগো কলেজে আইসা আপনের কথাই কইতো।
      " শোন তোরাতো আমি কি এটা বুঝতেসিস না। কুমিইল্লেয় আমি যখন ছিলাম, আসার আগে ছেলেরা রাস্তায় পড়ে গড়াগড়ি শুরু করলো। বললো ছার, চলে যাবেন তো আমাদের বুকে পারা দিইয়ে যাবেন।"(কপিরাইট: আর সি ডি)

      জবাব দিন
      • আমাদেরও এই একই কাহিনি বলেছেন।
        আরও বলছেন,কোন ক্যাডেটের নাকি টিটি কম্পিটিশনে টিটি বল লাইগা দাঁত পইরা গেছিল(আসল ঘটনা ছিল আমাদের ব্যাচের আদনান কমন রুমে খেলতে গিয়ে পড়ে গিয়া সামনের দাঁত ভেঙ্গে ফেলছিল)।

        জবাব দিন
        • ফাহাদ (২০০২-২০০৮)

          আরে আহসান ভাই আপনাদেরকে ত ভালই কইসে। 😐 😮 আমাদের কি কইসিল জানেন ? আমি টিটি বল দিয়া রুমে ফাজলামি করতেছিলাম :awesome: সে আইসসা দেখসে , :bash: 😡 সে তখন ছিল হউস মাস্টার, :bash: দেইখা আমাদের পুরা ক্লাস রে হউসে অফিসে ডাকসে , ~x( তারপর বলে সিলেটে নাকি কন ক্যাডেট আরেক জন রে ফাযলামি কইররা টিটি বল মারসে , :-/ অইটা নাকি গিয়া তার :just: জায়গা মতন লাগসে, 😕 :-/ তার ভাষ্য মতন -

          সাথে সাথে ছেলেটার অন্ডকোষ ফাইটে গেছিল । :khekz: ছেলেটি মা মা বলে মাটিতে শুয়ে পরেছিল।

          :chup: তারপর নাকি অই ছেলেরে CMH এ পাঠানো লাগসে। 😮 আরও কত্ত কিছু । পুরা :just: ১.৩০ ঘন্টা বক বক :chup: কইররা তারপর থামসে। x-( ~x(

          জবাব দিন
  4. তানভীর (৯৪-০০)

    স্যারকে নিয়ে একটা সুখস্মৃতি আছে আমার।

    আমাদের যখন এসএসসি পরীক্ষা শুরু হয়, তখন কলেজে আমরা ছাড়া আর কেউ ছিল না। প্রথম পরীক্ষার আগের দিন স্যার ছিলেন ডিউটি মাস্টার। ঐদিন যখনই স্যারকে দেখেছি, দেখেছি কি যেন লিখছেন। বেশ অবাক হয়েছিলাম। ডিনারের আগে দিয়ে হাই টেবিলে বসে স্যার আমাদের সবাইকে ক্যাডেট নাম্বার অনুযায়ী একে একে আসতে বললেন। সবাই ওখানে গিয়ে স্যারের সামনে রাখা অনেকগুলো ছোট কাগজের মধ্য থেকে একটা করে কাগজ তুলল। প্রত্যেকটা ছোট ছোট কাগজে স্যার আমাদের জন্য বেশ সুন্দর কথা লিখে রেখেছিলেন। আমিও একটা কাগজ তুলে যখন লেখাটা পড়লাম তখন আমার মন খুব ভালো হয়ে গিয়েছিল।

    স্যার সারাদিন ঐ ছোট কাগজগুলোয় লিখেছিলেন আমাদের মন ভাল করে দেয়ার জন্য - একথাটা যতবার মনে হয় ততবার স্যারকে আমি হৃদয়ের অন্তঃস্থল থেকে একবার করে সালাম দেই।

    জবাব দিন
    • এইডা পইরাই বমি আস্তেসে???
      আমার কিছু প্যারোডি বানানো আছে,অইগুলা শুনলে ইফতারী মহল বমি কইরা ভাসায়া দিবেন।
      কিছুদিন আগে আমাদের ব্যাচ জন্মদিনে আমি একটা প্যারোডি গাইছিলাম,যেইটা হইল আমার জীবনে সবচে শালীন আর এডিটিং করা প্যারোডি।অইটার আসল ভার্সনও ভয়াবহ।
      মির্জাপুরের পোলাপান আসল ভার্সন গুলার স্বাদ পাইছে

      জবাব দিন
  5. ইফতেখার (৯৫-০১)

    আমার শোনা আর সি ডি এর বেস্ট ডায়ালগ-

    ঝেনাইদাহ এর এক ছেলে ছাদে গেছে প্রস্রাব করতে (শুধু প্রস্রাব করতে কেন কেউ ছাদে যাবে সেইটা উনিই জানেন)। রেলিং এর পাশ থেকে যেই না ছেলেটা মুতা শুরু করেছে, মুতের পানি গিয়ে পড়েছে কারেন্ট এর লাইনে। সেই পানি দিয়ে (ব্যপারটা খুব সাইন্টিফিক, খেয়াল রাখতে হবে !!) কারেন্ট উঠে ছেলেটাকে শক দিলো (শকটা কোথায় খাইলো ... ব্যপারটা ইন্টারেসটিং) .........

    আর ছেলেটা ছাদ থেকে পড়ে মইরে গেলো।

    -----

    আরেকটা আছে, বড়ই অশ্লীল, আরেকদিন বলবো নে।

    জবাব দিন
  6. মানযুর-ই-ইলাহী মিলকী (২০০০-২০০৬)

    কিরে বিটারা, এইখানে এইখানে তোরা এইসব কি লিখছিশরে.........

    এইখানে বর্নিত সকল কাহিনী পুরাপুরি সঠিক। এই সব কাহিনি ওই স্যর যত কলেজে ছিলেন সব কলেজেই ঘঠেছে।
    অবস্থা এমন যে, স্যর এর নামের হিন্ট না দিলেও ওনাকে চিনতে কারও কোন সমস্যা হবে না!

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।