এই লেখাটা পাক মন পেয়ার আর দাদা ভক্তদের জন্য

০।
কাইয়ূম ভাই আর কামরুল ভাইয়ের খোঁচা খেয়ে ঠিক করেছিলাম, যতদিন না এই সিসিবিতে একটা গল্প লিখে প্রথমে পোস্ট করতে পারছি ততদিন আর সিসিবিতে কোন লেখা দিব না। কিন্তু আমার এই কথা শুনে হয়ত সাত আসমান উপর থেকে একজন হাসছিলেন আর বলছিলেন- রোসো বাছা, এইবার একটু মজা দেখ। তাই গতকাল রাতে আর দিনে কয়েকটা ধমুন্ধার কান্ড ঘটে গেল। সারাদিন জার্নি শেষে ক্লান্ত আমি নেটে বসেই দেখি ফেসবুকে শুরু হয়ে গেছে যুদ্ধ, কথার যুদ্ধ। একটু আগে সচলে ঢুকে দেখি সেইখানেও লোকজনের আনাগোনা। কিন্তু আমাদের সিসিবিতে সেই শুনশান নীরবতা। তাই ঠিক করলাম ক্ষেতা পুড়ি নতুন লেখা কোন গল্পের আর সাথে পোড়াই পাক মন পেয়ার আর আমাদের দাদা ভক্তদের কল্পনার রাজ্য।

০১।
গতকাল রাতে পাকিস্তান টুয়েন্টী টুয়েন্টী বিশ্বকাপ জিতল। জিততেই পারে, তাদের আছে দারুণ দারুণ কিছু ম্যাচ উইনার। তবে আমার সমস্যা সেইখানে না, আমার সমস্যা শুরু হল তারও একটু পরে, ফেসবুক নামক যন্তর মন্তর ঘরে। হঠাৎ হঠাৎ দেখি আবেগে দারুন উচ্ছাসিত কিছু স্ট্যাটাস। ভাবলাম ফাইনালে দুই দলের একদল কে তো সাপোর্ট করতেই হবে, আর সাপোর্ট করা দল জিতলে যে কেও খুশি হতে পারে। কিন্তু ভুল, এইসব ধারণা ছিল দারুণ একটা ভুল। কারণ ফেসবুকে মন্তব্য আর প্রতি মন্তব্যে সেইসব স্পষ্ট হয়ে গেল। কারণ এইসব এইটা নিছক কোন খেলা নয় বরং পাকমন পেয়ারদের আত্মপ্রকাশ।

পাকিস্তানি সমর্থক অনেকেই বলছেন- খেলার সাথে রাজনীতি এককরা ঠিক না কিংবা বহু আগের কিচ্ছা কাহিনি এইখানে এনে কি আর হবে আর নাইলে বলছেন হাজার হইলেও এরা আমাদের মোসলমান ভাই। তাইলে আসেন এইবার দেখি এরা আমাদের কেমন তর ভাই। সবার খিয়াল না থাকলে আবার খিয়াল করায়ে দেই- গত কয়েকদিন আগে পাকিস্তানি ক্রিকেট বোর্ড তাদের একটা বয়স ভিত্তিক দলকে বাংলাদেশে পাঠাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। কারণ তাদের মতে এই মরার বাংলাদেশে তাদের সেই দলের নিরাপত্তার অভাব হতে পারে। তাই এইবার খুব খিয়াল কইরা ভাইবা দেখেন তো আপনে কি গত কয়েক দিনে কোন বোমা হামলার শিকার হয়েছেন কিংবা কোন অজ্ঞাত বন্দুকধারীর গুলির? আপনে না হইলেও পাক মন পেয়াররা হইছে কারণ শিয়ালকোট তাদের জানে মন, পিন্ডিতে তাদের প্রাণ। তাই সেইখানে এইসব হওয়া মানে তাদের কাছে নিজের দেশে হওয়া। তাই তারা এইসব নিয়ে বেশি একটা উচ্চ-বাচ্চ করে নায়। হায় পাক মন পেয়ার।

উহো আরেকটা কথা আসেন শুনি। আমাদের দেশ কে কিছুদিন আগে যুক্তরাস্ট্র বিভিন্ন দ্রব্যের কোটা মুক্ত প্রবেশাধিকারের সুবিধা দেয়ার কথা, বিশেষ করে গার্মেন্টস শিল্প। কিন্তু কয়েক্টা প্রতিদ্বন্দী দেশের লবিং এর কারণে আমরা সেই সুবিধা পাই নি। এইবার আন্দাজ করেন তো দেখি এই দেশ গুলোর মাঝে কে ছিল? ঠিক ধরেছেন, পাকিস্তান। আমাদের পাকি ভাইয়েরা আমাদের বাঁশ দিলেও এতে অবশ্য আমাদের মন খারাপ করার কিছু নেই। কারণ হাজার হলেও এই কোটা সুবিধা পাকিস্তানে গেছে ফলে সেইখানে আমাদের ভাই-ব্রাদারদের নতুন নতুন কাজের সুবিধা হবে। আর আমাদের কিছু গার্মেন্টস বন্ধ হলেও খারাপ কিছু হবে না হাজার হলেও বাংগালী অতিথি পরায়ণ জাতি, পাকি ভাইদের জন্যে নিজের চাকরী বন্ধক রাখতে আমাদের আপত্তি নেই।

০২।
আমাদের বাঙ্গালী জাতির ভিতরে অবশ্য আরেকটা জাতি আছে পাক মন পেয়ার ছাড়া, তারা আবার ভীষণ দাদা ভক্ত। উহাদের কাছে শুধু মাত্র আমাদের মুক্তিযুদ্ধে দাদাদের ভূমিকার কারণে তাদের সব গোস্তাকী মাফ। তাদের কাছে তালপট্টির কোন দরকার নেই, সীমান্তে পাখির মত মানুষের মৃত্যুও এইখানে তুলা মানে তাদের কাছে সম্পরকের অবনতি। পিনাক বাবুর অহেতুক লাফালাফিও তাদের পাহাড় সমান নীরবতা কে ভাঙ্গাতে পারে না।

অবাক করা একটা দেশ আমাদের বাংলাদেশ। লক্ষ লক্ষ প্রাণের বিনিময়ের পরেও আমরা নাকি বাফার স্টেট। এইবার তাইলে বাফার স্টেটের সংজ্ঞা নতুন করে সবার শিখতে হবে, হবেও বা। ভারত এখন দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী রাস্ট্র তাই তারা হয়ত নতুন করে বাফার স্টেট কে সংজ্ঞায়িত করবে। আর সেই সংজ্ঞা অনুযায়ী আমাদের উত্তর পুরুষরা শিখবে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে আমরা বাংলাদেশ নামক একখানা বাফার স্টেট পেয়েছি। তবু এর মাঝে সবচেয়ে অবক করা বিষয় এই বিষয়ে আমাদের অনেকের বিষ্ময়কর নীরবতা।

ভারত কে আমাদের খেলাধূলায় সমর্থন করতে কোন অসুবিধা নেই কারণ আগেরবার মেরেছিল ফারাক্কায় আর এইবার মারবে টিপাইমুখে। আমাদের কোন ভয় নেই কারণ পিনাক বাবু আমাদের কালকে আশ্বাস দিয়েছেন টিপাইমুখ বাধে ভারত কোন আন্তর্জাতিক আইন লংঘন করে নি। কিন্তু এইখানে আসল আইন লংঘন করেছে কে? কারণ ভারত টিপাইমুখ সম্পরকিত প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করে নি। তবে পিনাক রঞ্জনের এইখানে দোষ কি উনি হয়ত হেলসিংকি রুলের ২৯(২) আর জাতিসংঘের নদী কনভেনশনের ১২ নাম্বার ধারা টি দেখেন নি। কারণ সেইখানে স্পষ্ট বলা আছে কোন নদীর অববাহিকায় কোন পরিবর্তন করতে গেলে যাতে কিনা ঐ অববাহিকায় অবস্থিত অন্য দেশের ক্ষতি হয়, সেই দেশ কে এনভায়রনমেন্টাল ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট এর ফলাফল সহ ঐ দেশের হাতে থাকা সমস্ত ডাটা এবং তথ্যাবলী সর্বরাহ করতে পারে যেন গ্রহীতা দেশটি পরিকল্পিত কাজটির সম্ভাব্য প্রতিক্রিয়া যাচাই-বাছাই করতে পারে। তবে এইখানেও অনেকের বিষ্ময়কর নীরবতা আমাকে ব্যাথিত করে।

০৩।
উপরে আমার দেওয়া উদাহরণ গুলো ছাড়াও এই দুই দল সম্পরকে আর হাজার হাজার নমুনা দেওয়া যায়। এইসব উদাহারণ ছাড়াও আমাকে বেশি অবাক করে বাংলাদেশ নামক জাতি রাস্ট্রের ভিতর উপমহাদেশের বাকী দুই দেশের সমর্থকদের আস্ফালন, যেন জিন্নাহার দ্বি-জাতি তত্ত্ব আমাদের মানসিকতায় এক অস্পস্ট বিভেদ রেখা টেনে রেখেছে এত বছর পরেও। তবে আমাদের শুরু করতে হবে কোন একখান থেকে যেন আমরা ধীরে ধীরে মুছে ফেলতে পারি আমাদের জাতি রাস্ট্রের ভিতর ভিন্ন রাস্ট্রের সমর্থকদের আস্ফালন, ছড়িয়ে দিতে পারি সচেতনতা। তাই অন্যদের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজ নিজ ক্ষেত্র থেকে তৈরি করতে হবে আমাদের জাতি সত্ত্বার গভীর বোধ যেন আমাদের উত্তর পুরুষরা হীনমন্যতায় না ভোগে, অন্যের সাফল্য লাভে যাতে আত্মপ্রসাদ লাভ না করে।

৬,৪৯৭ বার দেখা হয়েছে

১২৩ টি মন্তব্য : “এই লেখাটা পাক মন পেয়ার আর দাদা ভক্তদের জন্য”

  1. জাহিদ (১৯৯৯-২০০৫)

    ভাই, তুই ১টা মাল। :hatsoff: :hatsoff: খুব ভাল হইছে। :salute: :salute:
    কিন্তু তুই যদি কোনো সমাধানের রাস্তা দেখাতি তাইলে আমি (ব্যাক্তিগতভাবে) আর বেশি পছন্দ করতাম...
    ৫ তারা। :ahem: :ahem: :ahem: :ahem: :ahem:

    জবাব দিন
    • রাশেদ (৯৯-০৫)

      পড়ার জন্য ধন্যবাদ
      এত বড় আর এত দিনের সমস্যার কিন্তু একদিন সমাধান হবে না। আর এর সমাধানও হতে হবে বহুমাত্রিক। রাস্ট্রীয় পর্যায়ে কূটনৈতিক ব্যাপার গুলোতে আমাদের আর শক্ত আর কৌশলী ভূমিকা নিতে হবে। মানুষের মাঝে সচেতনতা বাড়াতে হবে যাতে সাধারণ মানুষের মাঝে এই বোধ আসে এদের কাছ থেকে উপর এবং নীচ দুইখানেই আমরা বাঁশ ঢলা খাচ্ছি। এই সমস্যা সমাধানের প্রধান রূপরেখা আমার মতে হতে হবে এই দুই মত ভিত্তিক, আর এর উপর ভিত্তি করে বাকী খুটিনাটি বিষয় গুলো ঠিক করতে হবে। আসলে সমস্যা টা এত প্রকট মাত্র দুই পাতার এক ব্লগে এর সমধান কল্পনা করাও অসম্ভব।


      মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

      জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)
    অন্যদের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজ নিজ ক্ষেত্র থেকে তৈরি করতে হবে আমাদের জাতি সত্ত্বার গভীর বোধ যেন আমাদের উত্তর পুরুষরা হীনমন্যতায় না ভোগে, অন্যের সাফল্য লাভে যাতে আত্মপ্রসাদ লাভ না করে।

    একটু সময় চাচ্ছি, পরীক্ষা দিয়ে এসে রাতে বিস্তারিত মন্তব্য করবো। সুবিধাভোগীর মতো নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ থেকে বলছি, এসময় এমন একটা পোষ্টের অনেক বেশি দরকার ছিল ভাইয়া। ধন্যবাদ। :salute:


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
    • রাশেদ (৯৯-০৫)

      আশা করি পরীক্ষা ভাল হবে। ব্যস্ততার মাঝেও পোস্টে ঢুকার জন্য ধন্যবাদ। পরে বিস্তারিত মতামত আশা করছি তোমার কাছ থেকে। বিশেষ করে বিদেশে পড়তে গেলে আমাদের ছাত্রদের এই জাতীয় কোন সমস্যা ফেস করতে হয় কিনা কিংবা দেশের প্রতি সেইখানে তাদের অনুভূতিটা কেমন হয়।


      মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

      জবাব দিন
  3. শার্লী (১৯৯৯-২০০৫)

    বড়ই ভালো একটা বিষয় তুলে আনছিস দোস্ত। আমার মনে আছে ১৯৯৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ যখন পাকিস্তানকে হারাল তখন পাকিস্তানের সাপোর্টারদের মুখে কষ্টের কথা। আবার গত বিশ্বকাপে যখন বাংলাদেশ ভারতকে হারাচ্ছে তখন আমাদের বাড়ির এক ভাড়াটিয়ার মুখে কষ্টের কথাও শুনেছি। উভয় ক্ষেত্রে আমার মনে হয়েছে ওই সকল মানুষদের কমোডে মুখ ঢুকিয়ে ফ্লাশ করে দেই।

    জবাব দিন
  4. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    খুবই চমৎকার লেখা রাশেদ। আমিও ঠিক এই রকম একটা লেখা লেখার কথা চিন্তা করছিলাম 🙂 🙂 । অফিস থেকে বাসায় ফিরে খুব ক্লান্ত ছিলাম, তাই এক দফা ঘুম দিয়ে উঠে দেখি ঠিক আমার মনের লেখাটাই তুমি দিয়ে দিয়েছো। :boss: :boss: :boss:
    আসলেই, পাকিস্তান ক্রিকেট দল ভালো খেলে - খুবই ভালো কথা। খেলার সাথে রাজনীতি মেলানো যাবে না, কিন্তু খেলার সাথে ধর্ম মিলিয়ে পাকিস্তান সমর্থন করতে হবে - কষ্ট করে হলেও মেনে গেলাম। কিন্তু খুব কষ্ট লাগে যখন দেখি আমার দেশের কেউ পাকিস্তানের পতাকা হাতে নিয়ে পাকিস্তান জিন্দাবাদ শ্লোগান দিচ্ছে।
    আর ফারাক্কাকে চোখের সামনে দেখেও কিভাবে এখনো আমরা টিপাইমুখের ব্যাপারে সন্দেহের দোলাচলে আছি, ব্যাপারটা আমি এখনো বুঝতে পারছিনা। নাকি প্রতি বছর উত্তর বঙ্গে নিয়ম করে ঘটে চলা মংগা আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে ব্যাপারটা দেখাতে দেখাতে চোখ ফুটো করে দিয়েছে বলে আর দেখতে পাচ্ছিনা।
    একটা উদ্ধৃতি পড়েছিলাম, কার মনে নেই - "সাধারন লোকজন ধরা খেয়ে শেখে, বুদ্ধিমান লোকজন অন্যকে ধরা খাইতে দেখে শেখে"। আমি বুঝতে পারছিনা, আমরা আসলে কি দেখে শিখি।

    জবাব দিন
  5. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)

    এই ধরণের ঝগড়ায় অংশগ্রহণের সৌভাগ্য আমার খুব কম হইছে। একদম বলার মতো বললে গতকালকেই প্রথম। ক্রিকেট খেলা দেখি না, কালকে গোসল করে রুমে ফেরার পথে মহিবদের রুমে ঢুকে দেখলাম আর চার ওভার বাকি আছে। পাকি হারবে এই আশায় একটু বসলাম।

    এই চার ওভার সময়ের মধ্যের আমার মাথা জাস্ট ছিড়ে যাবার অতিক্রম হলো, পাকমন পেয়ারুদের হাউকাউ শুনে [[আল্লাই জানে মহিব, মুহাম্মদ এরা কিভাবে পুরা সময় সহ্য করলো]]।

    যাই হোক এরপর হালকা কথা কাটাকাটি হইছে। আসলে হালকা না বেশ ভালৈ। ঝগড়ায় কি কি কথা হইছিল সেইটায় আর না গেলাম 🙁 পাকিস্তান সম্পর্কে কিছু বললে পাকমন পেয়ারুরা সত্যি ভীষণ উত্তেজিত হয়ে পড়ে।

    যাই হোক, ভ্রাতা রাশেদ। এইসব বাদ। আসো, আজকে থেকে আপনার ভারত পাকিস্তান এই দুই দেশের প্রতি নীরব প্রতিবাদ জানানো শুরু করি। এই দলে আরও অনেকেই আছে। আমরাও সেই দলে যোগ দেই। আজ থেকে আমরা যথাসম্ভর এই দুই দেশের পন্য বর্জন করবো। কেন করবো, তার হাজারটা কারণ দেখানো সম্ভব। সেইদিকে না যাই।

    ঠিকাছে?

    জবাব দিন
  6. জিহাদ (৯৯-০৫)

    কিছু বলার নাই। তিনাদেরকে কিছু বলতে গেলেও বিপদ। উত্তেজনায় খাড়ায় যায় পুরা।

    আর কিছু করতে পারি না পারি সারাজীবন এইসব বাংপাকিগেলমানদের (কপিরাইট: হিমু ভাই) ঘৃণা করে যাবো।


    সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

    জবাব দিন
  7. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    এই পোস্ট আমার জন্য না... :-B
    কারন আমি আয়ারল্যান্ড এর সাপোর্টার... B-)
    (প্রতি বিশ্বকাপে অন্ততঃ একটা জয় সুনিশ্চিত... ;;; )


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  8. সামিয়া (৯৯-০৫)
    অন্যদের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজ নিজ ক্ষেত্র থেকে তৈরি করতে হবে আমাদের জাতি সত্ত্বার গভীর বোধ

    রাশেদ, এই কথাটা যে কত্ত ঠিক একটা কথা...
    আমরা প্রতিনিয়তই শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়াদের গালাচ্ছি, কিন্তু আমরা প্রতিনিয়তই নিয়ম ভাংছি, ঘুষ খাচ্ছি, লবিং করছি...তারপর আবার চায়ের টেবিলে গিয়ে প্রফেসর ইউনুসকে গালি দিচ্ছি, আমরা ভুলে যাই ওরাও তো আমাদেরই দেশের আমাদেরই মতন মানুষ, আমরা যা করব ওরাও ঠিক তাই করবে।
    আমাদের আসলে তাই খুব ধীরে ধীরে নিজেদের থেকে শুরু করতে হবে, নিজেদেরকে দিয়ে শুরু করতে হবে। কিছু কিছু সময় একলা চলো নীতি অনুসরণ করতে হয়, আমরা নাহয় তাই করলাম। একটা দেশের গড়ে ওঠার জন্য ৩৫ বছর কি খুব যথেষ্ট সময়? বরঞ্চ এটা কোন সময়ই না। আমাদের দেশটা এখনো শিশু পর্যায়ে, এটাকে গড়ে ওঠার জন্য সময় তো দিতে হবে।
    চলো নিজেরা নিজেরাই শুরু করি, আমরা আমরাই তো 🙂

    জবাব দিন
    • রাশেদ (৯৯-০৫)

      হুম, সামিয়া কথা সেইটাই। তবে শুরুতে মাইন্ড সেটটা ভাংগতে হবে অবশ্যই। আর শুরুটা করতে হবে নিজেকে দিয়েই কারণ সব তো আমরা আমরাই 🙂

      অফটপিকঃ খালি নিজেকে বদলালে হবে না পাশের মানুষটাকেও বদলাতে হবে 😉


      মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

      জবাব দিন
  9. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    এক বিশ্বকাপ ক্রিকেট চলাকালীন সময়ে আমাদের ইংরেজির এনায়েত স্যার ক্লাসে বলেছিলেন, 'শয়তান আর পাকিস্তান খেলা হলে আমি শয়তানের সাপোর্ট করবো, তাও পাকিস্তান না'।

    পাকিস্তান সম্পর্কে আমার মতামতও স্যারের মতোই।
    আজকের দিনে স্যারকে খুব মনে পড়ছে।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  10. সামিয়া (৯৯-০৫)

    জানো ঠিক এই বিষয়টা নিয়েই গতকাল একজনের সাথে কথা হচ্ছিল, ঠিক এই পয়েন্ট অফ ভিউ থেকেই। আমার ভাবতে খুব ভাল্লাগছে আসলে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ভাবে অনেকেই এই বিষয়গুলো নিয়ে এভাবে ভাবে। হাতের পাঁচ আঙ্গুল যেমন সমান হয় না, তেমন একটা দেশের সব মানুষ তো আর দেশের জন্য সমান ভাবে ভাববে না, কিছু মানুষ ভাববে। সেই কিছু মানুষ ভাবলেই একটা দেশের জন্য যথেষ্ট।

    জবাব দিন
  11. মুহাম্মদ (৯৯-০৫)

    কালকে রাতের অভিজ্ঞতা বলার মতো। আমি খেলা দেখি না। কালকেও দেখি নাই। কিন্তু টিভি আমাদের রুমে হওয়ায় সবাই আমাদের রুমেই ছিল। পুরো সময় চুপ করে থাকলেও শেষে আর ঠিক থাকতে পারি নাই।
    আমি খালি ওদের বোঝাতে চাচ্ছিলাম, "সব বাঙালি তোদের মত না, এমন অনেক বাঙালি আছে যারা একাত্তর নিজের চোখে দেখতে পায়।" এজন্য নিজের অবস্থানটা পরিষ্কার করেছি শুধু।

    তবে আমি মনে করি, পাকিস্তান ও ভারত- এই দুটোকে এক করে দেখা উচিত না। পাকিস্তান আমাদের সাথে যা করেছে তার সাথে অন্য কিছুর তুলনা চলে না। ভারতের বিরোধিতা করার পেছনে যুক্তি আছে, কিন্তু পাকিস্তানকে ঘৃণা করার জন্য কোন যুক্তির প্রয়োজন পড়ে না।

    জবাব দিন
  12. জাহিদ (১৯৯৯-২০০৫)

    মুহাম্মদ, একটা ব্যাপার পরিষ্কার হওয়া দরকার,

    কিন্তু পাকিস্তানকে ঘৃণা করার জন্য কোন যুক্তির প্রয়োজন পড়ে না।

    এটা কি রাষ্ট্র পাকিস্তানের বিরুদ্ধে? নাকি পাকিস্তানের জনগনের বিরুদ্ধে?

    জবাব দিন
  13. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    আমি আমার কাজের সূত্রে যতোটুকু দেখেছি, ভারতীয়দের জাতীয় স্বার্থবোধটা প্রখর। তাদের নেতৃত্ব, আমলাতন্ত্র, উদীয়মান মধ্যবিত্ত প্রবলভাবে জাতীয়তাবাদী। ফারাক্কা, টিপাইমুখ, তালপট্টি বা তিনবিঘা- সবকিছুতেই তারা নিজেদের স্বার্থটাকে দেখছে। ভারতের সব কাজকে আবার আমাদের ভারতবিরোধী বা দাদাবিরোধীরা বাংলাদেশকে পিষে মারার ষড়যন্ত্র হিসাবে দেখে!

    আমি ভারতপ্রেমী বা বিরোধী কোনটাই না। আবার ঠিক সংকীর্ণ জাতীয়তাবাদীও না। তবে দেশের-মানুষের স্বার্থ যেখানে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকা থাকে সেখানে আমার সর্বতোভাবে প্রতিবাদ, প্রতিরোধ করতে দ্বিধা নেই। টিপাইমুখ ইস্যুটাকে তাই আমি শুধুমাত্র বাংলাদেশের সমস্যা হিসাবে না দেখে এর সঙ্গে ভারতের উত্তর-পূর্বের সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলোর সম্ভাব্য ক্ষতিগ্রস্ত সবাইকে নিয়ে চলতে চাই।

    আমি জানি এই কাজটা কঠিন। তাই ভারতবিরোধীরা ঢাকার রাজপথ উত্তপ্ত করবে, হরতাল করবে, ভারতবিরোধী জিকির তুলে রাজনীতির নোংরামির পথ বেছে নেবে, কারণ এটাই সহজ কাজ। কিন্তু বিষয়টা এমন তো না যে, মহাজোট সরকার গঠনের পর টিপাইমুখে বাঁধ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। আগের সরকারগুলো কি করেছে?

    টিপাইমুখ নিয়ে বর্তমান সরকারের ভূমিকা লজ্জার!! তাদের জন্য ধিক্কার আর ঘৃণা ছাড়া আর কি জানাতে পারি? বিষয়টা নিয়ে তাদের দ্রুত জেনে-বুঝে দেশের মানুষ ও জনমতকে সঙ্গে নিয়ে কাজ শুরু করতে হবে।

    আরেকটা বিষয়, আমরা যারা টিপাইমুখ বাঁধের বিরোধীতা করছি; তারা কি কাপ্তাই বাঁধের বিরোধীতা করতে পেরেছি? কাপ্তাই বাঁধ যে কয়েক লাখ মানুষকে বাস্তুচ্যুত করেছে, দেশের একটা অংশে দীর্ঘদিন ধরে অসন্তোষ জিইয়ে রেখেছে, তার কি প্রতিকার করেছি আমরা? কয় টাকার বিদ্যুৎ পাই আমরা কাপ্তাই থেকে? দেশের মোট বিদ্যুৎ সরবরাহের কতো শতাংশ আসে ওখান থেকে? ৫ শতাংশও না।


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
    • সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

      মুহাম্মদের দি অ্যাক্সিডেন্টাল ওটার-৩ পড়তে পড়তে আব্বাস কিয়ারোস্তামির এই উক্তিটা নজরে এলো। চলচ্চিত্র প্রসঙ্গটা উহ্য করে পড়ো। বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক হিসাবে দেখো। তাহলেই আমার দৃষ্টিভঙ্গীটা বুঝতে পারবে।

      দুর্ভাগ্যবশত, আপনার মত চলচ্চিত্র সমালোচক অ্যামেরিকায় খুব কম, কিন্তু সেখানে ইরান সমালোচকের কোন অভাব নেই। আমাদের, অর্থাৎ চলচ্চিত্রের লোকদের জন্য বিভিন্ন সংস্কৃতির মিলগুলো খুঁজে বের করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ভিন্ন সংস্কৃতির মধ্যে অভিন্ন ভিত্তির সন্ধান করি। কিন্তু রাজনীতিবিদরা সম্ভবত উল্টোটা করে। কারণ বিভিন্ন মানুষের মধ্যে পার্থক্য ও দ্বন্দ্বের মাধ্যমেই তারা লাভবান হয়।


      "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

      জবাব দিন
    • শাওন (৯৫-০১)

      সানা ভাই,
      আপনি ঠিক বলেছেন। আমরা টিপাইমুখী বাধেঁর অবশ্যই বিরোধিতা করব। তবে সেই সাথে কাপ্তাই বাধেঁ আমাদের বাঙ্গালীদের স্বার্থপরতাকে অস্স্বীকার করবোনা। কেনো যেনো মনে হয় আমরা আমাদের সব পুরানো ভুল আর অন্যায়ের শাস্তি পাচ্ছি।


      ধন্যবাদান্তে,
      মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শাওন
      প্রাক্তন ক্যাডেট , সিলেট ক্যাডেট কলেজ, ১৯৯৫-২০০১

      ["যে আমারে দেখিবারে পায় অসীম ক্ষমায় ভালো মন্দ মিলায়ে সকলি"]

      জবাব দিন
  14. মঞ্জুর (১৯৯৯-২০০৫)

    আজকে *লের পাকস্তানি গুলা party দিছিল iut তে।মেজাজ খুব খারাপ ছিল...।দুই দেশটাই(ভারত,ফাকিস্তান) পুরা *ল।
    পিনাক রে ধইরা মাইর লাগান উচিত।শালার কথা শুনলেই মেজাজ আরো খারাপ হয়ে যায়।আমাদের দিপু মনি যে কি করে??অর সামনে অই ব্যাটা এম্নে কথা বলার সাহস পায় ক্যাম্নে?

    জবাব দিন
  15. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    লেখাটা সঙ্গত কারণেই খুব ভাল লাগল তবে একজন ক্রিকেটপ্রেমী হিসেবে আমি এই বেলা আমার মতামতটা তুলে ধরি।

    আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি যে খেলাধূলার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক ও ঐতিহাসিক বিষয়াবলী টেনে আনাটা খুবই সংকীর্ণ মন-মানসিকতার পরিচায়ক।এখানে অনেকে হয়তো হায় হায় করে আমাকে বলবেন-মুক্তিযুদ্ধ কি আমাদের জীবনে একটা রাজনৈতিক বা ঐতিহাসিক ব্যাপারের চাইতে আরো বড় কিছু নয়?এর উত্তর হচ্ছে-অবশ্যই।আমাদের অস্তিত্বের সাথে মুক্তিযুদ্ধ জড়িয়ে আছে এবং সব কিছুর আগে স্বদেশপ্রেম অবশ্যই স্থান পাবে।কিন্তু কথা হচ্ছে আমরা এর বহিঃপ্রকাশ কিভাবে ঘটাব?খেলার মাঠে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে ঘৃণা করলেই কি আমার দেশপ্রেমের সর্বোচ্চ বহিঃপ্রকাশ ঘটবে?নাকি দেশপ্রেম প্রকাশের আরো যৌক্তিক ও যথোপযুক্ত ক্ষেত্র রয়েছে?আসুন আমরা ব্যাপারটা একটু বিশ্লেষণ করি।

    ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশ পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে হারানোর পর শোনা গিয়েছিল যে কিছু কিছু পাকিস্তান সমর্থক(বাংলাদেশে)খুব দুঃখ পেয়েছিলেন।অনেকে নাকি এমনটিও বলেছিলেন যে "বাংলাদেশ জিতেছে ভাল কথা কিন্তু সে জয় পাকিস্তানের বিপক্ষে না হয়ে অন্য কোন দলের বিপক্ষে হলে আরো ভাল হত"।এই লেখাটি যদি সেই সব সমর্থকদের উদ্দেশ্যে হয়ে থাকে তাহলে আমি বলব খুব বেশি ভদ্র ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে।১৯৯৯ সালের আগে বিশ্বকাপে আমাদের নিজেদের কোন দল ছিলনা-আমরা ক্রিকেটপ্রেমীরা ভারত,পাকিস্তান ইত্যাদি দল সমর্থন করলাম।কিন্তু যখন আমাদের নিজেদের দল খেলা শুরু করল তখন এসবের প্রয়োজনীয়তা ফুরালো-আমরা অবাক বিস্ময়ে দেখলাম যে আমাদেরকে আর ভিনদেশী দল সমর্থন করতে হবেনা-লাল সবুজ পতাকা বহন করা একেবারে নিজেদের একটি দল রয়েছে আমাদের!তরুনীরা আগে যেমন ইমরান খান বা যুবরাজ সিংএর পোস্টার সংগ্রহ করতেন তাদের জায়গায় স্থান পেল সুদর্শন মেহরাব হোসেন অপি বা খালেদ মাসুদ পাইলটের ছবি।আমার ব্যক্তিগতভাবেও সবচাইতে বড় লাভ এটি-সম্পূর্ণ পরদেশী কোন দলের ক্রিকেটারদের খেলা দেখে দেখে সময় পার না করে আমি শুধু বাংলাদেশের খেলা দেখতে লাগলাম।বাংলাদেশের সাথে খেলার সময় যদি কোন বাংলাদেশী মানুষ ভিন্ন দল সমর্থন করে এবং বাংলাদেশের পরাজয়ে আনন্দিত হয়-তবে মানসিকভাবে তাকে জারজ গোত্রভুক্ত করতে আমি দ্বিধাবোধ করবনা।

    কিন্তু বাংলাদেশ বাদে সম্পূর্ণ ভিন্ন দুটি দলের মধ্যে খেলা হলে তার একটিকে যদি সমর্থন করা হয় এবং ঘটনাক্রমে সেই দুটি দলের একটি যদি ভারত বা পাকিস্তান হয়-তাতেই যে ক্রিকেটামোদী ব্যক্তি ঐ দুটি দলের একটিকে সমর্থন করছে সে বেঈমান হয়ে গেল-এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই।ব্যক্তিগত উদাহরণ টানতে কিছুটা বিব্রত বোধ করছি তবুও বলি- রাজনৈতিকভাবে আমার বাবার মত পাকিস্তানবিরোধী মানুষ আমি দুটি দেখিনি।মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আমার ক্ষুদ্র যা পড়াশোনা এবং পাকিস্তানের যে বর্বরতার চিত্র-তার পাঠ আমি আমার বাবার কাছ থেকেই পেয়েছি।৬৯ এর গণঅভ্যত্থান আর একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ করা প্রজন্মের মানসিকতা ধারণ করা আমার বাবা কিন্তু খেলার মাঠে বাংলাদেশের পরেই পাকিস্তানকে সমর্থন করেন তাদের খেলার সৌন্দর্যের কারণে।বাবার পাকিস্তানপ্রীতি কিন্তু ওই খেলার মাঠেই সীমাবদ্ধ,এবং তা কিন্তু বাংলাদেশপ্রীতি ছাপিয়ে নয় মোটেই।

    আমাদের বাঙ্গালিদের অনেক দোষের একটি হচ্ছে আমরা অনেকেই যার সাথে যেটা মেশানো উচিৎ নয় তার সাথে সেটা মিশিয়ে একটা বেড়াছেড়া লাগাতে ভালবাসি।কখনো কখনো এই "বেড়াছেড়া" লাগানো এমন পর্যায়ে পৌঁছে যায় যা হাস্যকর দেখায়।গতকালকেই ফেসবুকে দেখলাম পাকিস্তানের জয়ে খুশি হয়েছে বলে বেঈমান,রাজাকার ইত্যাদি বলে ডাকা হচ্ছে অনেককেই।এ ধরণের মানসিকতা আমি মনে করি বালখিল্যতার পর্যায়ে পড়ে।

    বলা হয়েছে যে পাকিস্তানের কৌশলের কারণে বাংলাদেশ কোটা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে সুতরাং সে কারণে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে ঘৃণা করতে হবে।আমেরিকান সরকার ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ছিল সে কারণে হলিউড অভিনেতা টম হ্যাঙ্কসকে ঘৃণা করতে হবে-ব্যাপারটা অনেকটা এরকম হয়ে গেলনা?এতই যখন দেশপ্রেম তখন পাকিস্তানি কূটনীতিবিদদের মুখোমুখি হয়ে তাদের মোকাবিলা করার জন্য যা যা করা লাগে সেগুলো কেন করছিনা আমরা?ভারতীয় ক্রিকেট দলকে ঘৃণা করলেই কি টিপাইমুখ বাঁধ ঠেকানো হয়ে যাবে????

    সত্যিকারের যেটা করা উচিৎ সেটা না করে পাকিস্তান বা ভারতীয় ক্রিকেট দলকে ঘৃণা করার মাধ্যমে স্বদেশপ্রেম প্রকাশের চেষ্টা তাই আমার কাছে তৃতীয় শ্রেণীর হিপোক্রিসি ছাড়া কিছুই নয়।

    আমার মন্তব্যের উদ্দেশ্য যেসব জারজ নিজ দেশের খেলায় ভিন্ন দেশকে সমর্থন দেয় এবং সেই দেশের সাথে নিজ দেশের পরাজয়ে আনন্দিত হয় তাদের মুখ বাঁচানো নয়।কিন্তু উধোর পিন্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানোর মত পাকিস্তানের কূটনৈতিক অপতৎপরতা বা ভারতীয় আগ্রাসনকে যথাযথ দায়ী ব্যক্তির ঘাড়ে ফেলে তার সঠিক উপায়ে প্রতিকার না করে তাদের খেলোয়াড়দের খিস্তি খেউড় করে দেশপ্রেমের পরাকাষ্ঠা দেখানো আর নপুংশকের ধর্ষকামী আস্ফালন আমার কাছে একই রকম নির্বুদ্ধিতা।

    আমি জানি অনেকেই আছেন ১৯৭১ সালে যাঁদের পরিবারের মানুষজন বর্বর পাক সেনাদের হাতে নিহত হয়েছেন বা বর্ডারে বি এস এফ এর হাতে অত্যাচারিত হয়েছেন।তাঁরা যদি সর্বোতভাবে ভারত বা পাকিস্তানের সব কিছুকেই ঘৃণা করেন তাতে যুক্তি না হোক অন্তত আবেগটা খুঁজে পাওয়া যায়। সেসব মানুষের আবেগে আঘাত দেবার মত ধৃষ্টা আমার নেই তবে এটুকু বলতে পারি-যারা দোষী শুধু তাদেরকেই ঘৃণা করা যুক্তিযুক্ত-ঢালাওভাবে সবাইকে নয়।

    ধন্যবাদ সবাইকে।

    জবাব দিন
      • আন্দালিব (৯৬-০২)

        মাসরুফ, কেমন করে জানি আমার মন্তব্যটা ঠিক তোমার মন্তব্যের জবাবগুলো ধারণ করছে। (কারণ যে নোটে কমেন্ট করেছিলাম, সেটা এরকম 'যুক্তি'সম্বলিতই ছিল।)। পড়ে দেখার অনুরোধ করলাম।
        ঘৃণার উৎপত্তিটা বুঝার চেষ্টা করো। পাক-ভারত বাংলাদেশের সাথে যা করেছে, সেটা ভয়াবহ রকমের অন্যায়। সে কারণে তাদের বিরোধিতা করাটা একেবারেই যৌক্তিক। তারপর যখন দেখি যে সেই বিরোধের মাঝেও ফাটল, কেউ কেউ তাদের সামনেই বিগলিত, কেউ তাদের সমর্থক, তখন অক্ষমের মনে ঘৃণা ছাড়া আর কিছু থাকে না। আমরা ভারতীয়দের সাথে পারবো না, পাকিদেরকেও কূটনৈতিকভাবে লাথি দিতে পারবো না, কিন্তু ঘরে বসে, আড্ডাতে তাদের চৌদ্দগুষ্টি তো উদ্দার করতেই পারি, নাকি?

        পিতাদের প্রজন্মের পাকিপ্রীতি, কাউকে রাজাকার ডাকার একটা ব্যাখ্যা নিচেই দিছি, দেখো।

        আমি দেশকে ভালোবাসি এইটা বললে যেমন প্রমাণ হয় না, তেমনি চান-তারা পতাকা উড়ায়ে, পাকিস্তান জিন্দাবাদ, আফ্রিদি মাই হিরো বলে যতই কেউ দাবি করুক, আমি তাকে দেশপ্রেমিক মানতে পারি না।

        জবাব দিন
        • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

          আন্দা ভাই,

          পাকিস্তান বা ভারতের প্রতি আমার আলাদা কোন প্রেম নাই এইটা মনে হয় আলাদা করে প্রমাণ করা লাগবেনা।আমি শুধু এইটাই বলতে চাইসি-ক্রিকেট ইজ যাস্ট আ গেম-এইখানে নিচের দুইটা জিনিস করাটা আমার কাছে অযৌক্তিক মনে হয়ঃ

          ১)বর্বর পাক আর্মির কর্মকান্ডের দায় তাদের খেলোয়াড়দের উপর ফেলে কেউ পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে সমর্থন করলেই তাকে "রাজাকার" আখ্যায়িত করা।

          ২)পাকিস্তানের যারা সমর্থক তাদের মাধ্যমে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রতি খেলাগত কারণে সমর্থনকে আরো বাড়িয়ে ১৯৭১সালে পাকি কুত্তার বাচ্চাদের করা কাজ গুলাকে সমর্থণ করা।

          ক্রিকেট আমার কাছে একটা খেলাই-এর বেশি কিছু নয়।বাংলাদেশ দল জিতলে আমারো মনে হয় আমি নিজেই যেন বিশ্বজয় করে ফেলছি কিন্তু বাংলাদেশ দল বাদে অন্য কোন দলের খেলায় কেউ যদি পাকিস্তান সাপোর্ট করে(ভুল বুঝবেন না,আমার দ্বিতীয় পছন্দ ওয়েস্ট ইন্ডিজ-গাধার বাচ্চাদের সাথে শ্রীলঙ্কার খেলা দেইখা...থাক আর কইলাম না) তাহলে যতক্ষন পর্যন্ত সে তার পাকিস্তানপ্রীতিকে খেলার মাঠে সীমাবদ্ধ রাখছে অন্ততঃ ততক্ষন পর্যন্ত তার দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলার আমি কোন কারন দেখিনা।

          তবে সে যদি এই সাপোর্ট দিয়া "আমরা মুসলিম ভাই" অথবা "দেশ আলাদা করার কি দরকার" টাইপ কথা বইলা ১৯৭১ সালের পাকি বর্বরতাকে জায়েজ করার চেষ্টা করে তাইলে তার **ছায় লোহার গরম শিক ঢুকায় দেওয়া দরকার x-( x-( x-(

          আর পাকিস্তানি পতাকা উড়ানো বা পাকিস্তানের জাতীয় শ্লোগাণ দেওয়া সম্পূর্ণ আলাদা জিনিস-খেলার মাঠে সমর্থনের নামে এইটা করা জায়েজ করা যায়না কারণ জাতীয় পতাকা বা শ্লোগাণের আলাদা মর্ম আছে-আমেরিকায় যতবার অন্য দেশের কোন মানুষ তার জাতীয় সঙ্গীত গায় সেই সাথে তাকে আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীতও গাইতে হয়,পতাকার বেলাতেও এই নিয়ম। যেই শালা বাংলাদেশী হইয়া পাকিস্তান বা অন্য দেশের পতাকা উড়ায় তারেও ওই গরম শিক ট্রিট্মেন্ট দেওয়া উচিৎ x-( x-( x-(

          জবাব দিন
          • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

            আর বস,বাংলাদেশ বাদে দুইটা ভিন্ন দলের খেলায় শুধু খেলার খাতিরে পাকিস্তান সাপোর্ট করলেই যে তার দেশপ্রেম মিথ্যা হয়া যায় এইটা মনে হয় একটু ওভার জেনারালাইজড হয়া গেল।

            জবাব দিন
            • আন্দালিব (৯৬-০২)

              মাসরুফ, তোমার পয়েন্টটা আমি বুঝতে পারছি। তোমাকে যে এভাবে কম্পার্টমেন্ট আলাদা করা লাগলো, কোনটাকে তুমি মেনে নিতে পারো, এবং কোনটা করলে গরম শিকের ট্রিটমেন্ট দিবা সেখানেই আমার উত্তরটা আমি পেয়েছি। তবে ঘটনা হলো, নিজের পছন্দকে আমরা জাস্টিফাই করতেই চাই। পাকিদের বা ভারতীয়দের আমাদের সাথে করা খারাপ কাজগুলো এতই খারাপ (যদিও আমি দুইটাকে এক কাতারে ফেলতে নারাজ) যে সেখানে ভালো লাগার পয়েন্ট পাওয়া যায় না। তখন কিন্তু অজান্তেই এরকম ভাষ্য আসে যেগুলো শুনলে আমার তাকে ছিঁড়ে টুকরা করতে ইচ্ছা করে।

              আমার কাছে মনে হয়েছে, পাকিসাপোর্টারদের মনে একটা হীনমন্যতা কাজ করে। সেখান থেকেই এর উৎপত্তি। এটারে এতকাল ইগনোর করছিলাম। কিন্তু যখন দেখি, যুদ্ধাপরাধী বিচারে সোচ্চার একজন প্রাউড অফ আফ্রিদি লেখে তখন ধাক্কা খাইলাম। তার বিচারে কীভাবে পাকিস্তান পার পেল, আর রাজাকার শুয়োরের বাচ্চা হইলো। এগুলা আরোপিত ব্যক্তিত্বের নমুনা, সবাই বলতেছে, তাই আমিও বলি এরকম। এটাকে চিহ্নিত করা জরুরি।

              জবাব দিন
    • সাজিদ (২০০২-২০০৮)

      হুম..... এই পোস্টের আগে আমিও কিছুটা এই লাইনে ভাবতাম, কিন্তু পোস্টটা পরার পর মনে হইসিল তাইতো বান্ঙালাদেশী হয়ে কেমনে পাকিস্তান সাপোর্ট করে মানুষ ছি ছি.... কিন্তু আপনার কমেন্টটা পড়ে আবার মনে হইতেসে আগেইতো ঠিক ভাবসিলাম.....
      এরকম ঘন ঘন মত বদলাবার কারনে কেউ একজন আমাকে কইষা একটা থাবড়া দেন ~x( ~x( :bash: :bash:

      জবাব দিন
      • আন্দালিব (৯৬-০২)

        সাজিদ, কারো কথায় তুমি প্রভাবিত হতে পারো। শুনে মনে হতেই পারে সে ঠিক বলেছে। তবে তোমার নিজস্ব বিচার-বিবেচনাই কিন্তু শেষ পর্যন্ত টিঁকে থাকবে। আমি নিজে যেটা করেছি, আমার চারপাশের বাস্তবতা, এই পৃথিবীতে কোন দেশ কেমন, ইতিহাস কি, এগুলো পড়েছি। একটা সময়ে নিজে নিজেই কিছু সিদ্ধান্তে এসে গেছি। সেরকম তোমারও হবে, আর কিছুদিন যেতে দাও। 🙂

        জবাব দিন
    • বন্য (৯৯-০৫)

      রাশেদ, খুবই সুন্দর একটা লেখা হইছে...বিশেষ করে তোর দৃষ্টিভঙ্গিটা...আর একটা জিনিস লেখায় খুব ভাল ফুটে উঠেছে যে..তুই যা মনে প্রানে বিশ্বাস করিস ঠিক তাই লিখেছিস....অযথা হিপোক্রেসীর আশ্রয় নেসনি.....এককথায় অসাধারন.... :hatsoff: :hatsoff:

      মনের কথা গুছায়া বলতে পারিনা...পারলে আমার মতামত পুরা মাসরুফ ভাইর মতো হত...একদম লাইন টু লাইন.....মাস্ফু ভাইকে :salute:

      জবাব দিন
    • রাশেদ (৯৯-০৫)

      মাস্ফু ভাই লেখাটা পড়ার জন্য আর কষ্ট করে এত বড় মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ।

      প্রথমে আমি আমার লেখাটা আবার আরেকবার কষ্ট করে আপনাকে পড়ে দেখতে অনুরোধ করব। আমি কিন্তু আমার লেখার কোথাও বলি নি পাকিস্তান কিংবা ভারতের পররাষ্ট্র নীতির কারণে তাদের ক্রিকেট টীমকে ঘৃণা করতে হবে। আমার লেখার মূল সুর কিন্তু ছিল তাদের জন্য যারা পাকিস্তান বা ভারত কে সমর্থন করার জন্য ধর্ম বা কৃ্তজ্ঞতার প্রসংগটা তুলে আনে তাদের জন্য।

      আমার লেখাটার মূল উদ্দেশ্য সম্ভবত বুঝাতে আমি ব্যর্থ হয়েছি। এটা ঘৃণা ছড়াবার জন্য নয় বরং সচেতনতা বাড়াবার জন্য। খেলা কে খেলার মাঠেই রাখা উচিত এই ব্যাপারে আমার কোন দ্বিমত নেই। কিন্তু ফেসবুকে গতকাল পরিচিত অনেকের সাথে অনেকের ঝগড়া দেখলাম, সেইখানে একটা মজার জিনিস দেখলাল যারা পাকিস্তান কে সমর্থন করে তাদের মধ্যে বেশীর ভাগই কিন্তু পাকিস্তান কে তাদের কৃ্তকর্মের জন্য ডিফেন্ড করার চেষ্টা করছে।

      মাস্ফু ভাই, আমার ধারণা আমি আপনার রাখা মন্তব্যের প্রেক্ষিতে আমার বক্তব্য পরিষ্কার করতে পেরেছি। তারপরেও যদি কোন কিছু অস্পষ্ট থেকে যায় তাইলে মন্তব্যের মাধ্যমে এইখানে জানাতে অনুরোধ করছি। তাহলে পরের মন্তব্যে আমার দৃষ্টিভংগী আর পরিষ্কার করতে চেষ্টা করব।


      মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

      জবাব দিন
      • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

        সেইখানে একটা মজার জিনিস দেখলাল যারা পাকিস্তান কে সমর্থন করে তাদের মধ্যে বেশীর ভাগই কিন্তু পাকিস্তান কে তাদের কৃ্তকর্মের জন্য ডিফেন্ড করার চেষ্টা করছে।

        রাশেদ, এই ব্যাপারে আমার অবস্থান পরিষ্কার।খেলার মাঠে ক্রিকেটীয় কারণে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে সাপোর্ট করাটা হয়তো মেনে নেয়া যায়,কিন্তু আমি আন্দালিব ভাইয়ের প্রতি আগের মন্তব্যে যেমন বলেছি-ক্রিকেট,মুসলিম ভ্রাতৃত্ব ইত্যাদির কথা বলে ১৯৭১ কে জায়েজ করতে চাওয়া শূয়োরের বাচ্চাদের জন্য টকটকে লাল গরম রডের ট্রিটমেন্টটাই যথোপযুক্ত।

        জবাব দিন
    • কামরুল হাসান (৯৪-০০)
      সেসব মানুষের আবেগে আঘাত দেবার মত ধৃষ্টা আমার নেই তবে এটুকু বলতে পারি-যারা দোষী শুধু তাদেরকেই ঘৃণা করা যুক্তিযুক্ত-ঢালাওভাবে সবাইকে নয়।

      পাকিস্তানীদেরকে খালি আবেগ দিয়ে ঘৃনা করা হয়? আমারতো মনে হয় আবেগের চেয়েও যুক্তির ঘৃণাটা বেশি । ৩০ লাখ মানুষকে হত্যার পরেও কাউকে ঘৃণা করতে যুক্তির টান পড়ে নাকি?


      ---------------------------------------------------------------------------
      বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
      ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

      জবাব দিন
        • রাশেদ (৯৯-০৫)

          মাস্ফু ভাই আপনার জন্য আরেকটা প্রশ্ন। উপরে তো দেখলেন পাকিস্তান তাদের বয়স ভিত্তিক দল বাংলাদেশে পাঠাতে নারাজ। এর খারাপ প্রভাব কিন্তু আমাদের ক্রিকেটের উপরে আসবে ভবিষ্যতে। বাংলাদেশে সফর যে কোন দলের জন্য লাভজনক নয়, তাই এরপর বাকী দল গুলো যদি তাদের অর্থনৈতিক স্বার্থের কারণে এইটা কে তাদের বাংলাদেশ সফর বন্ধ রাখার অস্ত্র বানায় তাইলে কি আমাদের দেশের ক্রিকেট সামনে এগিয়ে যাবে? সেইখানে দেখুন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড কিন্তু পাকিস্তানের খারাপ সময়ে তাদের ওখানে টীম পাঠিয়েছিল।

          এরকম ক্ষেত্রে আমি খালি একটা কথা বলতে পারি- "তুমি আমার বুকে শেল দিলেও আমি তোমায় ফুল দিব" এই রকম মতবাদে কি আপনি বিশ্বাসী?


          মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

          জবাব দিন
          • জিহাদ (৯৯-০৫)

            আমি একটা কথা কই। ইন্ডিয়ান চ্যানেলগুলাতে তাদের লাফালাফি দেখে যারপরনাই বিরক্ত ছিলাম। যেদিন ইন্ডিয়া আউট হয়ে গেল স্ট্যাটাসে তাদের মটোটাই লিখা দিসিলাম ব্যঙ্গ করে - ইয়ে কাপ কাহি নেহি যায়েগা।

            সেইটা দেখে আমার এক পাকি ক্লাসমেট কোনরকম উস্কানি ছাড়াই একটা কিছু লিখলো যার অর্থ এইরকম - তোমরাও একশো বছর ওয়েট করো। তারপর ইয়ে কাপ জরুর আয়েগা।

            যারা এইরকমভাবে আমাদেরকে হেয় করার ছোট্ট একটা সুযোগ পেলেও সেইটা নিতে ছাড়েনা তাদের পাছায় যেচে পড়ে গিয়ে চুমা দিবার কোন খায়েশ আমার নাই। ধন্যবাদ।


            সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

            জবাব দিন
    • আরিফ (৯২-৯৮)

      মাসরুফ, তোমার মন্তব্যটা পড়ে কষ্ট পেলাম। এটা নিতান্তই আমার ব্যক্তিগত অনুভুতি।

      আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি যে খেলাধূলার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক ও ঐতিহাসিক বিষয়াবলী টেনে আনাটা খুবই সংকীর্ণ মন-মানসিকতার পরিচায়ক।

      খেলাধুলা এবং সাপোর্ট করা, দুটোই আবেগের ব্যাপার।

      যে লোকটা ৫ বছর আগে আমার বোনকে রেপ করেছে, সে যত যোগ্যই হোক, তাকে আমি ভোট দেব না, দেব না। তার নামটা শুনলেই অতীতটা সামনে চলে আসবে। আমি হয়তো কোনদিনই ততোটা উদার হতে পারবো না।

      জবাব দিন
  16. আন্দালিব (৯৬-০২)

    লেখাটা খুব ব্যালেন্সড লেখা হয়েছে। এখানে মূলত খেলা নিয়ে ঝগড়াঝাটির পরের অংশের সিদ্ধান্তমূলকতাটা আসছে। আমি গতকাল গভীর রাত পর্যন্ত এটা নিয়ে চিল্লাপাল্লা করেছি। তবে এটাও জানতাম, সামনাসামনি ঝগড়া করেও একজন পাকিপ্রেমীর মন সরাতে পারি নাই। এখন ইন্টারনেটে হাজার লাইন লিখলেও সেটা হবে না। ওখানে একটা নোট-এ একটা কমেন্ট করেছিলাম, সেটা তুলে দিচ্ছি যেহেতু পুরোপুরি প্রাসঙ্গিক।
    এখানে ফেসবুকে পাকিস্তান জিন্দাবাদ, আমার আফ্রিদি কী জোশ খেলল স্ট্যাটাস দেখে যে রাগটা হইছে সেটাকে জাস্টিফাই করতে করতে রাত পার করলাম। একটা পর্যায়ে টের পেলাম, বাংলাদেশে বসে, আমি কেন পাকিস্তান এবং তার ক্রিকেট টীমকে ঘৃণা করি সেটা ব্যাখ্যা ও কারণ দর্শাইতে হচ্ছে! একজন পাকক্রিকেটপ্রেমির যুক্তিগুলো দেখিঃ
    ১।খেলার মাঝে রাজনীতি কেন?
    ২।৭১এর জন্য কেন বর্তমান খেলোয়াড়েরা দায়ী হবে?
    ৩।আমার ফ্যামিলিতেও মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ আত্মীয় আছে। তারপরেও আমি পাকিসাপোর্টার কারণ তারা ভাল খেলে।
    ৪।পাকিরাও মুসলমান, মুসলিম মুসলিম ভাই ভাই।
    ৫।পাকিবিরোধী মানে ভারতপ্রেমি, আ'লীগ। ছি ছি!
    আরো কিছু যুক্তি থাকতে পারে, কিন্তু আমার আপাতত মনে পড়তেছে না। আমার মানুষ হিসেবে সীমাবদ্ধতা হল আদর্শগতভাবে আমি পাকি-চোদা মেন্টালিটির। তুই আমারে পাকি বইলা আওয়াজ দিবি, আমি প্যান্ট খুলে রাইফেল নিয়ে দাঁড়ায়ে যাব। অনেকটা জোকারের মত, গাড়ি দেখলেই পাগলা কুত্তার মত দৌড়াইতে শুরু করে। পাকিসবুজ পতাকা দেখলেই গা জ্বলে, পাকিস্তানের জার্সির সবুজটাতে চোখ কটকট করে। দাড়িওয়ালা সাঈদ আনোয়ার বা ধর্মান্তরিত মোঃ ইউসুফকে দেখলে তাদের খেলোয়াড়ি পরিচয়ের চেয়ে পাকিস্তানি পরিচয়টা বেশি জেগে উঠে। চিকি আফ্রিদীকে দেখলে মনে পড়ে আমার দেশের ভরাযৌবতি কন্যা এর জন্য নিজের যৌবন বিলায়ে দিতে চাইছিল। তাতে সেই কন্যাকে কী করতে ইচ্ছা করে সেটা খোলাসমাজে কইলাম না।
    তুই যেমনে কইলি, পাকিস্তান সাপোর্ট করার কারণে রাজাকার বা দেশপ্রেম নাই বলাটা কিন্তু ঝগড়াঝাটির অনেক পরের লেভেল। শুরু হয় উপরের যুক্তি দিয়ে। তারপরে যেহেতু নিজের পছন্দকে ডিফেণ্ড করা লাগবে সেহেতু তাদের ফেভারে কিছু কথাও বলতে হয়। সেখানেই রাজাকারীয় ইস্যু। সেখানেই দেশপ্রেমের প্রশ্ন।
    আমি আমার পিতার প্রজন্মকে অনেক দায়ী করি আমাদের দেশের এই বেহাল অবস্থার জন্য। তারা তখন যুবক ছিল আমাদের মতই। দেশ স্বাধীনের পরে ধীরে ধীরে এই দেশে যত অরাজকতা, অন্যায়, এবং ন্যাক্কারজনক কাজ হইছে সেগুলোর জন্য প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে তারাই দায়ী। পাকিপ্রীতির জন্যে তারা নিজেদের শৈশব-কৈশোরের ভালোলাগার শিকার বলে আমি ধরে নিতে পারি, হাজার হোক তারা তখন পাক সার জমিন সাদ বাদ গাইতেন।
    কিন্তু ১৯৮৩/৮৪ বা তারও পরে জন্মায়ে কেউ যখন পাকি সাপোর্ট করে সেটাকে আমি পারিবারিক প্রভাব বলি। আমাদের পিতাদের প্রজন্ম এতটাই বোধহীন, নিজেদের ভুল সমর্থনটা সন্তানের মাঝে ছড়িয়ে দিছেন।
    খেলার মাঝে আর কিছু আনবো না। তয় আমার পাকি পতাকা দেখলেই মুতে দিতে ইচ্ছা করে। সভ্যসমাজে বসে সেটা করা যায় না বলে মুখে গালি দেই। এখন, এমনকি আমি ভারতের খেলাতেও গালি দিছি হর্ষ ভোগলের একপেশে কমেন্ট্রি শুনে। এই ভারতকেও আমি কৈশোরে সাপোর্ট করতাম। কিন্তু যখন সেখানেও দেখলাম, প্রতিবেশী হইলেই যে ভাল হইবে এমন কথা নাই, তখন সেটাও চলে গেছে।

    তবে এই ঝগড়া ঝাটিতে আমার দেশীয় ভাইদের মধ্যে কারা নিজের দেশের প্রতি ক্ষতিকারক দেশকে চিনতে সক্ষম বা অক্ষম সেটা বুঝা গেছে। কে নির্বোধ, কে রাজাকারছানা, কে বিবেচক, কে দেশপ্রেমিক সেটাও বুঝা গেছে। একমাত্র পজেটিভ আউটকাম বলে এটাকেও আমি মূল্য দিতেছি।

    জবাব দিন
    • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

      যেহেতু নিজের পছন্দকে ডিফেণ্ড করা লাগবে সেহেতু তাদের ফেভারে কিছু কথাও বলতে হয়

      আন্দা ভাই, এই জায়গাটাতেই আমার আপত্তি।পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে সমর্থন করতে যদি কেউ চায় তাহলে পাকিস্তানের খেলার কথাই আসুক-এইখানে তাদের ১৯৭১ এর কীর্তিকলাপ জায়েজ করতে হবে কেন?যদি কেউ করে তাহলে সে মা*ারদোত এইটা যেমন সত্যি,আবার ভিন্ন দলের খেলায় কেউ ক্রিকেটীয় কারনে পাকিস্তান সাপোর্ট করলেই সে রাজাকারছানা এইটাও অতি সরলীকরণ দোষে দুষ্ট।

      আশা করি বুঝাইতে পারছি।

      জবাব দিন
    • রায়হান আবীর (৯৯-০৫)
      আমি আমার পিতার প্রজন্মকে অনেক দায়ী করি আমাদের দেশের এই বেহাল অবস্থার জন্য। তারা তখন যুবক ছিল আমাদের মতই। দেশ স্বাধীনের পরে ধীরে ধীরে এই দেশে যত অরাজকতা, অন্যায়, এবং ন্যাক্কারজনক কাজ হইছে সেগুলোর জন্য প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে তারাই দায়ী। পাকিপ্রীতির জন্যে তারা নিজেদের শৈশব-কৈশোরের ভালোলাগার শিকার বলে আমি ধরে নিতে পারি, হাজার হোক তারা তখন পাক সার জমিন সাদ বাদ গাইতেন।
      কিন্তু ১৯৮৩/৮৪ বা তারও পরে জন্মায়ে কেউ যখন পাকি সাপোর্ট করে সেটাকে আমি পারিবারিক প্রভাব বলি। আমাদের পিতাদের প্রজন্ম এতটাই বোধহীন, নিজেদের ভুল সমর্থনটা সন্তানের মাঝে ছড়িয়ে দিছেন।

      :thumbup: :thumbup: :thumbup:

      জবাব দিন
  17. আশহাব (২০০২-০৮)
    বলা হয়েছে যে পাকিস্তানের কৌশলের কারণে বাংলাদেশ কোটা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে সুতরাং সে কারণে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে ঘৃণা করতে হবে।আমেরিকান সরকার ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ছিল সে কারণে হলিউড অভিনেতা টম হ্যাঙ্কসকে ঘৃণা করতে হবে-ব্যাপারটা অনেকটা এরকম হয়ে গেলনা?

    :pira: :pira: :pira:

    মাস্ফু ভাই :salute: :salute: :salute:

    জবাব দিন
    • সাজিদ (২০০২-২০০৮)

      সব বুঝলাম কিনতু তুই "yes pakistan" লেখসোস কি ভাইবা???????

      পাকিস্তানি পতাকা উড়ানো বা পাকিস্তানের জাতীয় শ্লোগাণ দেওয়া সম্পূর্ণ আলাদা জিনিস-খেলার মাঠে সমর্থনের নামে এইটা করা জায়েজ করা যায়না কারণ জাতীয় পতাকা বা শ্লোগাণের আলাদা মর্ম আছে-আমেরিকায় যতবার অন্য দেশের কোন মানুষ তার জাতীয় সঙ্গীত গায় সেই সাথে তাকে আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীতও গাইতে হয়,পতাকার বেলাতেও এই নিয়ম। যেই শালা বাংলাদেশী হইয়া পাকিস্তান বা অন্য দেশের পতাকা উড়ায় তারেও ওই গরম শিক ট্রিট্মেন্ট দেওয়া উচিৎ
      জবাব দিন
    • রাশেদ (৯৯-০৫)

      আশহাব এই লাইনটা লেখার পর আমি খিয়াল করলাম এইটা দুই ফলা ছুরির মত, যেমনে খুশী ব্যবহার করা যায়। তাই এইটার ব্যবহার করতে খুব সাবধান, যেন কোন রাজাকার এই উক্তির মাধ্যমে খেলার ভিতর দিয়ে পাকিস্তানের উপর আমাদের সমর্থন আদায় না করতে পারে।


      মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

      জবাব দিন
  18. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    সেই কলেজ লাইফ থেকে বিভিন্ন ভাবে পাকি প্রেমিদের বিরোধিতা করে আসছি... এখনো করে যাচ্ছি... ফেসবুকে গতকাল রাতেও বেশ চিল্লাফাল্লা করেছি... রাশেদ বিষয়টা খুব সুন্দর করে তুলে ধরেছো :hatsoff:

    অনেকদিন সামনা সামনি কোন পাকি প্রেমিকে মনের মতো করে ঝাড়ার সুযোগ পাচ্ছি না... কবে যে সেই রকম দু'একটা সামনে পাব...


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  19. নন ক্যাডেট হয়েও ক্যাডেট কলেজ ব্লগে ভয়ে ভয়ে মন্তব্য করি একটা 😀

    ভাই, যিনি পাকিস্তান সাপোর্ট করেন, তিনি শুধু আমার একটা প্রশ্নেরই উত্তর দিন, যেটা গতকাল আমি ফেসবুকে স্ট্যাটাস মেসেজে রেখেছিলাম।

    উত্তরটার মধ্যে কোন ব্যাখ্যা দরকার নেই, শুধু হ্যাঁ কিংবা না।

    "যদি ১৯৭১ সালে আপনার আপন বোনকে পাকিস্তানী আর্মি ধর্ষণ করতো, আপনি কি আজকে, এই ২০০৯ -এ পাকিস্তান ক্রিকেট টিমকে সমর্থন করতে পারতেন কিনা ?"

    -------------------------------------

    চমৎকার একটা লেখার জন্য রাশেদকে ধন্যবাদ। তবে মন্তব্যের ঘরে সবচেয়ে পরিণত মনে হলো সানা ভাইয়ের মন্তব্যটা। রাষ্ট্রনীতি এবং দেশপ্রেম - সবকিছুর মধ্যেই এই পরিণতমনস্কতা থাকাটা জরুরী বলেই মনে করি। সবাই ভালো থাকবেন।

    জবাব দিন
    • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

      উত্তরটা হচ্ছে না।এবার আমিও আপনার প্রতি প্রশ্ন ছুঁড়ে দেই(আগের মন্তব্যে করেছি অবশ্য)-
      আমেরিকান সরকার ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ছিল সে কারণে হলিউড অভিনেতা টম হ্যাঙ্কসকে ঘৃণা করতে হবে-ব্যাপারটা অনেকটা এরকম হয়ে গেলনা?

      জবাব দিন
      • রাশেদ (৯৯-০৫)
        আমেরিকান সরকার ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ছিল সে কারণে হলিউড অভিনেতা টম হ্যাঙ্কসকে ঘৃণা করতে হবে-ব্যাপারটা অনেকটা এরকম হয়ে গেলনা?

        মাস্ফু ভাই, এই যুক্তির মাধ্যমে আপনে সব কিছুকে অতি সরলীকরণ করছেন। আমি অবশ্যই টম হ্যাংকস কে ঘৃণা করব যদি সে তার সরকারের কৃ্তকর্মের জন্য লজ্জিত না হয়ে বরং তাকে সমর্থন করে।

        মানুষ হিসেবে আমরা প্রত্যেকে একটা সমাজ, জাতি, রাষ্ট্রের ভিতর বাস করি, চাইলেও আমরা এর থেকে আলদা হতে পারব না কিংবা এর সাথে আমাদের সম্পরক অস্বীকার করতে পারব না। তাই যে শক্তি বুঝে শুনে তার অপরাধের কথা স্বীকার না করবে, এত বছর পরেও আমাদের রাষ্ট্রের ভিতর হস্তক্ষেপের চেষ্টা বন্ধ না করবে তাকে আমি কখনই মনে প্রাণে গ্রহণ করতে পারব না। তাই আমাদের জাতীয় স্বার্থে আঘাত করে এমন কোন কিছুর প্রতিনিধিত্ব করে যে কোন কিছুই আমার কাছে সমর্থনের অযোগ্য।


        মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

        জবাব দিন
        • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

          মাস্ফু ভাই, এই যুক্তির মাধ্যমে আপনে সব কিছুকে অতি সরলীকরণ করছেন। আমি অবশ্যই টম হ্যাংকস কে ঘৃণা করব যদি সে তার সরকারের কৃ্তকর্মের জন্য লজ্জিত না হয়ে বরং তাকে সমর্থন করে।

          অতি সরলীকরণটা কোথায় সেইটা বুঝায় বললে খুশি হইতাম।আমার তো মনে হয় "পাকিস্তান ক্রিকেট দল ফাইনালে জিতায় খুশি হওয়া সব কয়টা লোক রাজাকারের বাচ্চা" এই ধারণাটাই অতি সরলীকরণের সব চাইতে বড় উদাহরণ।পাকিস্তানকে নিয়া অতিরিক্ত লাফালাফি,তাদের ক্রিকেট সমর্থনকে ১৯৭১ জায়েজ করার অপচেষ্টা বা পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা/শ্লোগাণ হাতে নিয়ে(এবং জাতীয় পতাকা/শ্লোগাণের মর্যাদা ইচ্ছাকৃতভাবে বিস্মৃত হয়ে) সাপোর্টটাকে বাড়াবাড়ি পর্যায়ে ফেলা পাকি ক্রস স্পার্ম জারজদের কথা আমি বলতেছিনা-আমি বলতেছি সাধারণ ক্রিকেটপ্রেমীদের কথা যারা পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা ফাইনালে পাকিস্তানকে সাপোর্ট করছে এবং তাদের জয়ে আনন্দ পাইছে।টম হ্যাঙ্কস যদি আমেরিকার অপরাধ সমর্থন করে তাহইলে অবশ্যই ওই ব্যাটার মুভি দেখা বাদ দিমু+তারে কুত্তার বাচ্চা বইলা জানমু,কিন্তু যদি এই কাজ গুলা সে না করে এবং ওই ঘটনার সাথে তার সরাসরি সম্পৃক্ততা না থাকে-তাহলে কি ১৯৭১ সালের নিক্সন প্রশাসনের পাকিপ্রীতির অপরাধে টম হ্যাঙ্কসের টার্মিনাল বা ফরেস্ট গাম্প মুভিটা দেইখা কমু-ধুস, যেই শালা টম হ্যাঙ্কসের অভিনয়ের প্রশংসা করে সেই শালা আমেরিকার দালাল???

          গড ড্যাম ইট,এই সাধারণ কথাটা বুঝতে চাচ্ছিস না কেন??

          জবাব দিন
      • আচ্ছা, আপনার উত্তর হচ্ছে না।

        কিন্তু তারপরও আপনি যেহেতু সমর্থন করছেন, ধরে নিচ্ছি সম্ভবত '৭১ এ আপনি সরাসরি বৃহৎ কোন ক্ষতির সম্মুখীন হন নি। কিন্তু এই বাংলাদেশের অসংখ্য মানুষ এই ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। কারো মা, কারো বোন। এছাড়া অনেকেরই বাবা/চাচা/মামা কেউ না কেউ যুদ্ধে প্রাণ দিয়েছেন। তাহলে কি ব্যাপারটা এমন হলো না যে, যার গিয়েছে শুধু সেই বিরোধিতা করুক, বাকিদের করার দরকার নেই ?

        জবাব দিন
        • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

          সবজান্তা ভাই,

          আমার মন্তব্যটা কষ্ট করে খেয়াল করুনঃ

          পাকিস্তানকে নিয়া অতিরিক্ত লাফালাফি,তাদের ক্রিকেট সমর্থনকে ১৯৭১ জায়েজ করার অপচেষ্টা বা পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা/শ্লোগাণ হাতে নিয়ে(এবং জাতীয় পতাকা/শ্লোগাণের মর্যাদা ইচ্ছাকৃতভাবে বিস্মৃত হয়ে) সাপোর্টটাকে বাড়াবাড়ি পর্যায়ে ফেলা পাকি ক্রস স্পার্ম জারজদের কথা আমি বলতেছিনা-আমি বলতেছি সাধারণ ক্রিকেটপ্রেমীদের কথা যারা পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা ফাইনালে পাকিস্তানকে সাপোর্ট করছে এবং তাদের জয়ে আনন্দ পাইছে।টম হ্যাঙ্কস যদি আমেরিকার অপরাধ সমর্থন করে তাহইলে অবশ্যই ওই ব্যাটার মুভি দেখা বাদ দিমু+তারে কুত্তার বাচ্চা বইলা জানমু,কিন্তু যদি এই কাজ গুলা সে না করে এবং ওই ঘটনার সাথে তার সরাসরি সম্পৃক্ততা না থাকে-তাহলে কি ১৯৭১ সালের নিক্সন প্রশাসনের পাকিপ্রীতির অপরাধে টম হ্যাঙ্কসের টার্মিনাল বা ফরেস্ট গাম্প মুভিটা দেইখা কমু-ধুস, যেই শালা টম হ্যাঙ্কসের অভিনয়ের প্রশংসা করে সেই শালা আমেরিকার দালাল???

          আপনার এই ধারণা কেন হইল যে আমি ১৯৭১ এর পাকিস্তানের বিরোধিতা করিনা?দুইটা ভিনদেশি ক্রিকেট দলের সাথে এক দিনের একটা ম্যাচে কেউ একটা দলকে(যেই দলের সাথে ১৯৭১ এর অপরাধগুলার সরাসরি কোন সম্পৃক্ততা নাই) সাপোর্ট দিলেই কি সে পাকি পা চাটা কুত্তা হয়া গেল?আসল পাকি ক্রস স্পার্ম বাস্টার্ড গুলা যেমন এই খেলার সাপোর্টকে ১৯৭১ এর যুদ্ধাপরাধ জায়েজ করতে ব্যবহার করে,ঠিক একই ভাবে সাধারণ একটা খেলায় শুধু খেলার কারণে পাকিস্তান দলরে সাপোর্ট করলে তারে রাজাকার বানায়া দেওয়াটাও অতিরিক্ত রকমের বাড়াবাড়ি ছাড়া আর কিছু না।আমরা যুদ্ধাপরাধিদের বিচার করতে পারিনা ঠিক মত,কূটনৈতিক ব্যাপারগুলার প্রত্যেকটাতে পাকিস্তানকে সাপোর্ট দেই,নিজেদের ইতিহাস বইটাও দশ বার বদলাই,১৯৭১ এর কুত্তার বাচ্চা পাকি জেনারেলদের মৃত্যুতে শোকবার্তা পাঠাই আর খেলার মাঠে যাদের ১৯৭১ এর গণহত্যার সাথে কোন সম্পর্কই নাই সেই ক্রিকেট দলকে গালাগালি কইরা "দেশপ্রেম" প্রকাশ করি।

          say amen to hypocrisy!

          জবাব দিন
          • কামরুল হাসান (৯৪-০০)
            দুইটা ভিনদেশি ক্রিকেট দলের সাথে এক দিনের একটা ম্যাচে কেউ একটা দলকে(যেই দলের সাথে ১৯৭১ এর অপরাধগুলার সরাসরি কোন সম্পৃক্ততা নাই) সাপোর্ট দিলেই কি সে পাকি পা চাটা কুত্তা হয়া গেল?

            কেউ বলে নাই 'পাকি পা চাটা কুত্তা' হয়ে গেলো। ব্যপারটা কতোটুকু নৈতিক বা তোমার ভাষায় কতটা 'যুক্তিযুক্ত' সেই নিয়ে কথা হচ্ছে। স্বীকার করছি ক্রিকেট দলের কারো ৭১'র গনহত্যার সাথে সম্পৃক্ততা ছিলো না, কিন্তু একই সঙ্গে এটাও সত্যি যে এই ক্রিকেট দলের কেউ সেই গনহত্যার জন্যে বিন্দুমাত্র লজ্জিত বা অনুতপ্ত নয়? তাই না? নইলে অনেকবারইতো এরা বাংলাদেশ সফরে এসেছে, কেউ একটি বার বলেছে যে '৭১ সালে আমাদের পূর্বপুরুষদের অপরাধের জন্যে আমরা লজ্জিত? ' বলেনি। তাহলে অন্য দুটি দেশের খেলা হলেই ক্রিকেটের দোহাই দিয়ে তাদের পছন্দ করতে হবে কেন?

            বরং বয়স কম বলে তুমি হয়তো, বাংলাদেশ দলকে নিয়ে পাকিস্তানী দলের বাসিত আলী বা আসিফ মুজতাবার কটুক্তিগুলি ভুলে গেছো কিন্তু আমার বুকে সেগুলি কাঁটা হয়ে বিঁধে আছে যে ! তাই আমি ওদের ঘৃনা করি।

            'নিক্সন প্রশাসনের পাকিপ্রীতি' আর নয় মাসে ত্রিশ লক্ষ মানুষ নির্বিচারে হত্যা, (৯০হাজার পাক সেনা ত্রিশ লক্ষ বাঙ্গালি হত্যা করেছে, গড়ে প্রতিটা পাক সেনা ৩৩ জন বাঙ্গালিকে মেরেছে) দুটি একই ভয়াবহতার পাল্লায় মেপে যুক্তি দেখানো এবং পাকিস্তান ক্রিকেট দল সমর্থন জায়েজ করা আমার কাছে সঠিক মনে হয় না। বাকি তোমার বিচার বুদ্ধি !

            আর একটি কথা, নিচে আমার নাম নিয়ে তোমার জোক্স বানানোটা আমার কাছে একটু অপ্রাসঙ্গিক লেগেছে, এবং বলা বাহুল্য আমি মোটেও পছন্দ করিনি এটা। আশা করি বুঝতে পারবে।

            ভালো থেকো।


            ---------------------------------------------------------------------------
            বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
            ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

            জবাব দিন
  20. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    মাসরুফ
    চিরাচরিত খাপো-খুপো বাদ দিয়ে বিশাল জ্ঞানগর্ভ মন্তব্যে দেখার পর আমিও আর ফাইজলামির লাইনে গেলাম না। নইলে 'জামাই মাস্ফ্যু'ই বলতাম।
    কাজের কথায় আসিঃ

    তোমার মন্তব্য পড়ে যা বুঝলাম, তুমি ঢালাওভাবে সব পাকিস্তানীদের ঘৃনা করার পক্ষপাতী না, বিশেষ করে খেলার মাঠে পাকিস্তানী ক্রিকেটারদের তো নয়ই! তাইতো?

    আমি ঢালাওভাবে সব পাকিস্তানীদের ঘৃনা করি। মন থেকে করি। পাকিস্তান নাম শুনলে আমার মুখভর্তি বমি আসে। দুনিয়ার সবচেয়ে বদমাইশ-বেজন্মা দেশের নাম 'পাকিস্তান' এর চেয়ে হাস্যকর আর কী হতে পারে !

    খেলার আর রাজনীতি এক নয়, সেইজন্যে পাকিস্তানী খেলোয়াড়দের ঘৃনা করা ঠিক না - এই ভুয়া তত্ত্ব দিয়ে মানুষকে বোকাচোদা বানানোর চেষ্টা নতুন কিছু নয়। একটা দল যখন নিজের দেশকে প্রতিনিধিত্ব করে, তারা সেই দেশের ইতিহাস, কৃষ্টি, ঐতিহ্য, রাজনীতি, সমাজ, অর্থনীতি, সংস্কৃতি সবকিছুকেই ধারণ করেই প্রতিনিধিত্ব করে। এইটা বোঝার জন্যে আশা করি বিশাল জ্ঞানী হওয়ার দরকার হয় না, সাধারণ বুদ্ধিতেই বোঝা সম্ভব। কোন দেশে জন্ম হওয়া এবং না হওয়া দ্বারা যেহেতু আমার ব্যক্তিজীবনও প্রভাবিত হয়, সেহেতু খেলার মাঠে আমরা যখন একটি দলকে সমর্থন করি, সেই দলের পিছনের দেশটির নামও তখন তাই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়ায়। সেই হিসেবে নিজের দেশকে সমর্থন করাও রাজনৈতিক!
    তাইলে খেলাকে রাজনীতির সাথে না মিশিয়ে তো পারছি না। 'পতাকা'র ব্যাপারটা এড়ানো যায় না কিছুতেই। তাই না?

    তুমি হয়তো বলবে সাধারন পাকিস্তানীদের আমরা ঘৃনা কেন করবো? করবো কারন, সাধারণ পাকিস্তানী বলে কিছু নেই। পাকিস্তানী শাসক , সামরিক বাহিনী, বেসামরিক লোকজন , ক্রিকেট খেলোয়াড় সবাই পাকিস্তানকে রিপ্রেজেন্ট করে। আর প্রতিটা পাকিস্তানী বাঙ্গালি গনহত্যার দায় নিয়ে ঘুরছে। কেউ সরাসরি গনহত্যার সাথে সম্পৃক্ত থেকে, কেউ সমর্থন দিয়ে, কেউ এখনো সেটাকে সঠিক মনে করে , সবাই, সবাই।
    বাংলাদেশের পাট রপ্তানির টাকা দিয়ে পাকিস্তানে শহর গড়ে তোলা হয়েছে, মরুভুমিকে আবাদ করা হয়েছে। প্রতিটা পাকিস্তানী বাঙালির কাছে ক্ষতিপূরণের দায় মাথায় নিয়ে ঘুরছে, সবাই। খেলোয়াড় হয়ে গেলেই কেউ সেই দায় থেকে মুক্তি পেয়ে যায় না। যায় কি?

    তুমি বলতে পারো এখনকার পাকিস্তানী প্রজন্ম, এরা তো কোন দোষ করেনি, এদের কেন ঘৃনা করবো? করবো , কারন এই প্রজন্মের কেউ তো বাংলাদেশের কাছে তাদের আগের প্রজন্মের অপরাধের জন্যে ক্ষমা চায় নি। আগের প্রজন্ম ভালো কিছু করলে যদি তার অহংকার করা যায় তবে খারাপ কিছুর জন্য নেয়া যায় দায়ও, তাই না? অথচ আগের প্রজন্মের অন্যায় স্বীকার না করে তাদের চেয়েও বড় অন্যায় করে চলেছে তারা।

    আর দেশ এবং ক্রিকেট টিম আলাদা কোন ব্যপার নয়। যেই দেশের নাম আমার নামের সঙ্গে যুক্ত সেই দেশের গৌরব - লজ্ঝা সব কিছুর সাথে নিজেকে জড়াতে হয়। বাংলাদেশী হিসেবে তুমি যেমন জড়াও, কিন্তু পাকিস্তানী হিসেবে ওরা জড়ায় না !!

    এতো কথা বলতাম না, কারন কোন যুক্তি-ফুক্তি দিয়ে আমি পাকিস্তানীদের ঘৃনা করি না, এই একটি মাত্র জায়গায় আমি অযৌক্তিক। কিন্তু তোমার মন্তব্যের শেষ লাইনে তুমি 'যুক্তিযুক্ত ভাবে ঘৃনা' করার কথা বলেছো দেখে তোমাকে কিছু যুক্তি খুঁজে দিলাম। নইলে 'পাকিস্তান' নাম শুনলে আমি যুক্তি দূরে ঠেলে দেই, মানবিকতা হারিয়ে ফেলি, আমার বীচি মাথায় উঠে যায় !

    মরার আগ পর্যন্ত আমি পাকিস্তানকে যুক্তিহীনভাবে ঘৃনা করতে চাই।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
    • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

      আর প্রতিটা পাকিস্তানী বাঙ্গালি গনহত্যার দায় নিয়ে ঘুরছে। কেউ সরাসরি গনহত্যার সাথে সম্পৃক্ত থেকে, কেউ সমর্থন দিয়ে, কেউ এখনো সেটাকে সঠিক মনে করে , সবাই, সবাই।

      কামরুল ভাই,দায়টা সবার আছে স্বীকার করি কিন্তু সেই সাথে এইটাও কিন্তু সত্যি যে অনেক পাকিস্তানি আছেন যাঁরা নিজেদের কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত।একবাল আহমেদ,কবি ফয়েজ আহমেদ ফয়েজ,৬ জন পাকিস্তানি ডিপ্লোম্যাট যারা ১৯৭১ সালে নিজ সরকারের কর্মকান্ডের প্রতিবাদে পদত্যাগ করেছিলেন,কর্নেল বেলায়েত যিনি মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তার অপরাধে পাক বাহিনীর হাতে মৃত্যুদন্ড পেয়েছিলেন,বিহারী মুক্তিযোদ্ধা মনির আহমেদ যিনি বাংলাদেশের পক্ষে যুদ্ধ করেছিলেন সহ আমার প্রায় ডজন খানেক পাকিস্তানি বন্ধুবান্ধব যারা আমার সাথে দেখা বা কথা হলেই শুরুতে ১০ বার ক্ষমা চেয়ে নেয় নিজের পুর্বপুরুষের অপরাধের কথা ভেবে------পাকিস্তান সরকার বা তাদের বর্বর সেনাবাহিনীর প্রতি জঘন্য ঘৃণা থাকলেও এই মানুষ গুলোর প্রতি আমি কোনভাবেই ঘৃণা প্রকাশ করতে পারিনা।প্রতিটা মানুষকে আমি বিচার করে যাব তার নিজ নিজ কর্ম অনুসারে-তার জাতীয়তার ভিত্তিতে নয়।

      I think we must agree to disagree on this matter.কথা বাড়িয়ে লাভ নেই।

      জবাব দিন
  21. রবিন (৯৪-০০/ককক)

    এই টপিক নিয়ে কালকে রাতে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। যা নিয়ে অনেক কথা পালটা কথা হয়েছে অনেক। আমি শুধু আমার স্ট্যাটাসে কি কি মন্তব্য এসেছে এটা শেয়ার করলাম।

    Ashraful Amin Robin What a shame. Bd ppl cheer for paki.
    Yesterday at 12:45am ·

    Tasfiq Rahman at 1:06am June 22
    bcaz we r muslims

    Muntasir Ahmed at 1:11am June 22
    robin bhai these players are not responsible for 1971 i guess... though i support South Africa.. 🙂 they played well and won the World Cup... thats it.. 😀

    Nahyan S. Alam at 1:12am June 22
    whata shame!

    Anik Andalib at 1:13am June 22
    পাকিস্তান প্রীতি দেখে শিউরে উঠতেছি। ৩৮ বছরেই আমরা সব ভুলে গেছি। চমৎকার! একাত্তুরেও কেউ কেউ চিয়ার করতো, পাকিস্তান জিন্দাবাদ!

    Arman Zahed at 1:17am June 22
    "Muslim muslim" dhowa tuila luv nai. .Muslim boila 71 e ora amader kauke,even nari r shishuder kono sar dey nai. .Well, player ra 71 e silo na,manlam. .
    But,BD zokhon paki te gesilo,tokhn mehmandarir omullo nidorshon hishebe amader plyrder dise economy cls, r nijera silo luxry cls. .. . .
    Khub valo. . .Ei na hole support korar moto desh. . .Koro koro . .
    . . .. .

    Lumzan Hasan at 1:17am June 22
    andalib vae asole ami jinista sompurno alada vabi but sorry for my cmnts 🙁

    Zihad Tarafdar at 1:19am June 22
    ৭১ এ এইসব পাকিস্তানি রেসপন্সিবল না। আর তার জন্যে এত বছর পরেও তারা তাদের পূর্বপুরুষদের কৃতকর্মের জন্য লজ্জিত না। ক্ষমাও চায়নাই। আর আমরাও মহানুভব মানুষ। সবকিছু ভুলে গিয়ে লাত্থি খাবার পর আবার পা চাটতে যাই, আর মুখে ফেনা তুলি, পাকিস্তান জিন্দাবাদ!

    Yousuf Chapal at 1:20am June 22
    paki paki n paki ,,,,,,all over the world one nation shame for human civilization...whatever game is over

    Omar Jay at 1:21am June 22
    its not the Pakistanis but us who r to blame. They dint even ask for our support.

    Anik Andalib at 1:24am June 22
    এরা কেমনে রেস্পন্সিবল না? এদের বাপ-চাচা কেউ হানাদার বাহিনীতে ছিল না? এদের জিজ্ঞাসা করেন, '৭১এর যুদ্ধকে এরা ভারতীয় চক্রান্ত ভাবে!!! শালার থুথু মারি খেলার গুষ্ঠিতে।

    Muntasir Ahmed at 1:27am June 22
    i think we lack something, amra bhalo k bhalo bolte pari na.. ajonnoi amra bangladeshi ra akhono pichiye achi.. ora ja korse 71 a tar jobab amra dite jani and disio.. ajonno ora 2nd tym amader dike bhuleo fire takabe na.. 1 more thing amra keo eeeee bhuli nai and bhulbo oo na ora ki korse.. but akta marderer er chele je otai hobe ta kintu na... ami abaro bolbo they played well today and they deserved it... though they also defeted my team in the semi.. 🙂

    Anik Andalib at 1:30am June 22
    Muntasir, আপনি খালি হ্যাঁ বা না তে উত্তর দেন, আপনার বোন বা মা বা বাবা যদি পাকিস্তানিদের হাতে মারা যাইতো, আজকে আপনি চিয়ার করতেন? খুশি হইতেন? (আমি আরো খারাপ উদাহরণ দিলাম না শুধুমাত্র রুচিতে বাধলো বলে)

    Muntasir Ahmed at 1:41am June 22
    Andalib bhai, ami kokhonoi pakiss der cheer kori nai, kori na nd korbo oooo na khushi howa to durer kotha... pakiss onek khoti korse amader.. for your kind info my fuppa is a muktijoddha ora amar dadar bari puray dise only muktijoddha der khawato bole.. arokom onek kichui ache.. agula jana sotteo ami jeta bhalo sheta k bholi bolchi akhono... shobai to r poshu chilo na manush o too chilo...

    Anik Andalib at 1:44am June 22
    এই ঘটনাগুলো ঘটার পরেও যদি ঘৃণাইয় শরীর রি রি না করে তাহলে আমি আশ্চর্য হইলাম। আমি শুয়োরকে ঘৃণা করি, এখন শুয়োরের মাংস ভালো বলে তাকে ভালো বলতে হবে? খেলায় সাপোর্টের ব্যাপারটা মনের সায় না থাকলে হয় কীভাবে? দেশপ্রেমকে কি শার্টের মত খুলে রাখা যায় নাকি?

    Ashraful Amin Robin at 1:47am June 22
    hey guys, cool. sobar alada alada opinion thaktei pare. ami onek age pak cricket support kortam. but after that, amar mone hoise i hate them for wht they do to us. its my opinion. muntasir, they played nice today, no doubt about that. i appreciate that. but wht im trying to say that, some ppl make "michil" and said paki zindabad. oitar jonno we should be shame

    Zihad Tarafdar at 1:48am June 22
    মোরাল অফ দ্যা স্টোরি: আমার বোনের ধর্ষণকারীকে আমি ঘৃণা করবো। কিন্তু যখন সে আমার সাথে কুতকুত খেলতে আসবে তখন আমি স্পোর্টিং এটিচিউড নিয়ে খেলবো। কারণ সে আমার সাথে এইবার কুতকুত খেলতে আসছে। আমার ুটকি মারতে না।

    Anik Andalib at 1:49am June 22
    জিহাদ, তোমাকে উত্তম জাঝা। কপি করলাম!

    Muntasir Ahmed at 1:50am June 22
    i agree with u robin bhai... its a shame...

    Ashraful Amin Robin at 1:53am June 22
    amio choto belai paki cricket support kortam. ami sikar kori. but jokhon sob jenechi, tarpor theke ami chaileu oder ke support korte pari na. i only support BD team. jotou haruk. tobuo dekhi.pakider jonno support chaileu asbe na

    Iqbal Hossain at 2:21am June 22
    that’s really great that you support ur own country and i hope all of we do so. But supporting paki shouldn't base on religious belief and shouldn't hate them considering our liberation war as well. I think we should support a team based on their performance and that’s my personal opinion. Finally all of we should respect others opinion too.

    Sajia Afreen at 2:34am June 22
    Robin, ki je likhla . . . Ekhon amader deshe e nijera nijera lege jachche. . . But its true i god damn hate paki. . .

    Aminul Islam Hameem at 5:35am June 22
    robin bhai;;;;;;u r rit...go ahead!!

    Mushfiq Hasan at 6:45am June 22
    Guys try to be Globalized....everybody should remember their past.. this is true I believe that but the point is one of our south east asian team has won the ICC 20-20 world cup, thats the positive thing...I guess.And we should give credit to any team who ever plays well.....that should be our spirit...

    Adnan Hossain Mirza at 12:34pm June 22
    ami to bujhlam na pakistan jitle ba harle amader ****(khrap kotha) chulkai kano? bangladesh jitle nahoi ekta kotha chilo...bangladesh bade kono team er kono bail nai..jedin bangladesh world cup e india ke haraise..shedin theke cricket mane bangladesh..haruk ar jituk

    Jony Rahman at 12:35pm June 22
    dont be upset robin. its just a game.ohh neway next india abar valo khelbe :))

    Ashraful Amin Robin at 1:04pm June 22
    tui ki mone korsis ami india er supporter? Ha ha. Nare i only support bd. Haruk r jituk

    Adnan Hossain Mirza at 1:08pm June 22
    shabbash ...

    Sayem Saclayen at 5:45pm June 22
    muslim tho afghanistaner supporter hon na ken

    Yeasir Mahmood Khan Rajan at 10:31pm June 22
    Ei holo Bangali jati! In 1992 25th March Paki won ODI world cup. That night also we did michil with slogun 'paki jindabad'. Shohid der Attara ki bhabchilo ke jane! Shame we did it again. Paki plays good cricket. But people having no cricket sence also support pakis. It is not cricket prem. I respect every individual opinion. But just think paki is ... Read Moreone of the rare countries that attacked, killed, raped own county people. As we were attacked, raped, murdered we should not forget that so easily. We should have that self respect.

    Ashraful Amin Robin at 10:34pm June 22
    Thanks boss. Thats da point i want 2 say. 1 can appreciate any team, but paki zindabad kono bibekban bangali bolte pare na

    জবাব দিন
  22. জিহাদ (৯৯-০৫)

    কামরুল ভাইয়ের সব কথার সাথে ২০০% সহমত।

    দেশপ্রেম আমার কাছে কোন হাওয়াই শার্ট না‍‍। ব্যাপারটা আমার কাছে এমন না যে আমি যখন যুদ্ধ নিয়ে কথা বলবো তখন ঘৃণা ভরে পাকিস্তানিদের কথা মুখে আনবো। আর খেলা শুরু হইলে সেই শার্ট খুলে বসে খেলা দেখা শুরু করবো। আর এইজন্যই আমি খেলাকে আর সব কিছু থেকে আলাদা করতে পারিনা যখন দলটার নাম পাকিস্তান।

    আম‍ি‍ ঠিক‍ যে কারণে বাংলাদেশের খেলায় বাংলাদেশকে সাপোর্ট করি। আবেগের ঠিক একই‍ জায়গা থেকে আমি পাকিস্তানের খেলায় পাকিস্তানকে কখনো সমর্থন করতে পারিনা। কারণ তখন আমার কাছে পাকিস্তান মানে ইউনুস খান, আফ্রিদী কিংবা আবদুর রাজ্জাক না, আমি তখন ইনডিভিজুয়ালি তাদেরকে বিবেচনায় আনিওনা ,আমার চোখে তখন তারা এমন একটা জাতিকে রিপ্রেজেন্ট করছে যারা তাদের কৃতকর্মের জন্য এখনো ক্ষমা চায়নি। তাদের প্রতি আমার সমর্থন থাকবে কোন‍ যুক্তিতে? মাসরুফ ভাই ক্রিকেট দলকে ঘৃণা করার কথা বিষয়টা তুলসেন। আপনার কথামত তাদেরকে আলাদা ব্লেম দেবার কোন যুক্তি না থাকলেও তাদেরকে মাথায় তুলে নাচার যুক্তিও আমি খুঁজে পাইনা। আমরা মহানুভব জাতি। আর এজন্যই বাসিত আলী কিংবা মইনখানের বাংলাদেশকে নিয়ে করা কটুক্তিগুলাও খুব সহজে ভুলে যাই। স্পোর্টিং এটিচিউড নিয়ে খেলা দেখতে বসি। আর পাকিস্তান জেতার আনন্দে "পাকিস্তান, মেরি জান" লিখে ফেসবুক স্ট্যাটাসে লটকে দেই।


    সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

    জবাব দিন
    • মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

      আজিব ব্যাপার !!!!!! একবার ঘুম থেকে উঠে দেখি, রাশেদ আমার মনের মতন পোস্ট দিসে, আরেক বার উঠে দেখি কামরুল ঠিক প্রায় আমার মনের কমেন্টটা করসে।
      মাসরুফ, তোমার কমেন্টগুলোও আমার ভালো লেগেছে, কিন্তু কামরুলের মতই পাকিস্তানের প্রতি আমার অনুভুতি প্রায় অন্ধ। আলাদা আলাদা ভাবে আমি ইউনিস খান বা উমর গুলদের অপছন্দ করিনা, কিন্তু তারা যখন সবুজ জার্সিটা পরে "তারা" প্রতিক টা নিয়ে পাকিস্তানের ব্যানারে মাঠে আসে, তখন কোনোভাবেই তাদের পছন্দ করতে পারিনা।
      যা হোক আমার অনুভুতির কথা বাদ দাও। খেলাধুলা উপভোগ করার জন্যে সবাই কোনো না কোনো দল সমর্থন করে, সেই হিসেবে পাকিস্তানের সমর্থকও থাকতেই পারে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে, ক্যাডেট কলেজের বাইরে এসে আমি যত পাকিস্তান সমর্থক দেখেছি, তাদের সমর্থনের মাত্রা আমার কাছে অসুস্থ মনে হয়েছে। আমার মনে হয়েছে, তারা ক্রিকেটের ব্যাপারটাকে দুভাগ করে রেখেছে - হয় পাকিস্তানের নাহয় ইন্ডিয়ার সমর্থক। আমি পাকিস্তানবিরোধী বলে, হলে থাকতে, "তোর ইন্ডিয়া তো ............" দিয়ে শুরু কতো কথা যে শুনতে হয়েছে এদের কাছে, কোনো ইয়ত্তা নেই। ওপরে রবিনের দেয়া স্ট্যাটাস মেসেজটা পড়লেই ব্যাপারট বোঝা যাবে, রবিন পাকিস্তানের জয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছে দেখে নিচে কেউ একজন সান্তনা দিয়েছে ওকে, আগামীতে ইন্ডিয়া ভালো খেলবে। সে কিভাবে জানে রবিন আমার মতন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সাপোর্ট করে না ??

      জবাব দিন
  23. রকিব (০১-০৭)

    বেশ সময় নিয়ে আবার পুরা লেখাটা এবং প্রতিটা কমেন্ট পড়লাম। কারো কমেন্টের প্রতিউত্তর দেবো না। বরং নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ থেকে কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতা বলবো।

    ১। ১৯৯৯ এর বিশ্বকাপ, বাংলাদেশ পাকিস্তানকে হারায়। পরদিন স্কুলে যাবার সময় এক বন্ধুকে বলতে শুনলাম, বাংলাদেশকে বেটিং করে জেতানো হয়েছে, পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা নাকি ঘুষ খেয়েছে। ছোট ছিলাম, ওকে সেদিন ঝাড়ি দেয়া ছাড়া আর কিছু ছিল না আমার।

    ২।ক'দিন আগে এক বড়ভাইয়ের সাথে গল্প করছি, ভাইয়া ডাই-হার্ট পাকিস্তানি ক্রিকেট ফ্যান। হঠাৎ কথা প্রসঙ্গে বললেন, তিনি বাংলাদেশ-পাকিস্তানের খেলা হলেও পাকিস্তানের সাপোর্ট দিবেন। একইরকম অভিজ্ঞতা ভারতীয় সাপোর্টারদের নিয়ে আছে।

    ৩। ক্লাশে নতুন এক পাকিস্তানি ছেলের সাথে পরিচয় হয়েছিল, ওয়াসিম তারিক নাম। কথাপ্রসঙ্গে একদিন বললো, আমরা বাঙ্গালিরা নাকি দেশভাগের জন্য দাঙ্গা (মুক্তিযুদ্ধকে ও সেই নামেই চেনে) করে ভুল করেছি। কেন যেন মনে হলো ওদের পরবর্তী প্রজন্মও খুব একটা ভালো কিছু দেবে না।

    ৪। ২০-২০ ওয়ার্ল্ডকাপে বাংলাদেশ সবেমাত্র ফিরতি প্লেনের টিকেট কেটেছে। কম্পু ল্যাবে গিয়ে পাশের ভারতীয় ছাত্রের তীব্র বিদ্রূপ সহ্য করলাম প্রায় মিনিট চারেক। অবশেষে একটা কথা বললাম, ২০-২০ নিয়ে লাফাচ্ছিস, ৫০-৫০ এ যে লেজ গুটিয়ে মালকোচা মেরে পালালি ওটা কি এত তাড়াতাড়ি ভুলে গিয়েছিস।

    ৫। সবশেষে একটা কথা বলবো, পাকিস্তান কিংবা ভারতের সাপোর্ট-ডিসাপোর্ট করতে গিয়ে আমরা বিভিন্ন সায়গায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম অসংলগ্ন আচরণে জড়িয়ে পড়ি। এমনকী খুব ভালো দু'জন বন্ধুর মধ্যে মুখ দেখাদেখিও বন্ধ হতে দেখেছি। যে জিতুক, হারুক, এর জন্য যদি আমরা আমাদের জায়গায় বসে ঝগড়া করে নিজেদের সম্প্রীতি নষ্ট করি তাহলে ব্যাপারটা খারাপ হয়ে যায়। একাত্তরে বাঁশ দিয়েছে পাক, আর ভারত মাঝে মাঝেই মুন্ডু ছিড়ে চলেছে। কিন্তু তাই বলে যদি আমরা এদের ডিফেন্ড করতে গিয়ে নিজেদের স্বত্বাকে হারাই, কিংবা নিজেদের মধ্যে কোলাহল তুলি এটা কিন্তু অসমীচিন হয়ে যাবে। কারো খেলা সাপোর্ট নিয়ে উপরে অনেক কথা হয়েছে, তা নিয়ে কিছু বলবো না। কিন্তু তখনই আমার আতে ঘা লাগে যখন বাংলাদেশের খেলা বাদ দিয়ে দিল দে চুকে সানাম মুভি দেখি, আর ভারত-পাকিস্তান-অষ্ট্রেলিয়ার ম্যাচ দেখতে পরীক্ষা বাদ দিয়ে বসে পড়ি।

    ৬।

    আমার মনে হয়েছে, তারা ক্রিকেটের ব্যাপারটাকে দুভাগ করে রেখেছে - হয় পাকিস্তানের নাহয় ইন্ডিয়ার সমর্থক। আমি পাকিস্তানবিরোধী বলে, হলে থাকতে, “তোর ইন্ডিয়া তো …………” দিয়ে শুরু কতো কথা যে শুনতে হয়েছে এদের কাছে, কোনো ইয়ত্তা নেই।

    - মঈনুল ভাইয়ার এই কথাটা আমাকেও অনেকবার শুনতে হয়েছে। অন্য দেশের সাপোর্টাররাও সাপোর্ট করে, তবে অখেলোয়াড় সুলভ আচরণ কিংবা ক্রীড়া পরিপন্থী আচরণ তুলনামুলক ভাবে দুটো দলের মাঝেই বেশি দেখা যায়, এটা কিন্তু অস্বীকার করবার কোন উপায় নেই।

    ৭। মানছি, এশিয়ান ক্রিকেটকে জনপ্রিয় করতে ভারত-পাকিস্তানের জোরটাই বেশি ছিল। কিন্তু তাই বলে তারা যে আজো আমাদের তাদের থেকে ছোট মনে করে তা দেশের বাইরে এসে মর্মে মর্মে টের পাচ্ছি। জানি একদিন না একদিন জবাব দেবো, জবাব দেবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। হাউস চ্যাম্পিয়ন হলে যেভাবে অন্য হাউসের সামনে গিয়ে আমাদের পতাকা আর হাউস বোর্ড নিয়ে নাচতাম (বেশি মজা পাইছি মাশরুফ ভাইয়ের হাউসের সামনে গিয়ে নাচতে :frontroll: :frontroll: ), সেভাবে টরোন্টোর প্রতিটা রাস্তায় আমি দৌড়াবো বিশাল একটা পতাকা নিয়ে।


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
    • জিহাদ (৯৯-০৫)

      আমি আরেকটা ছোট ঘটনা যোগ করি।

      আমগো ব্যাচের এক পাকি ক্লাসমেট ওয়াকার। এর নানা নাকি দাদা ছিল বেলুচ রেজিমেন্ট এ। ৭১এ বাংলাদেশে যুদ্ধ করসে। সেই নানা নাকি ওয়াকাররে কইসে ২৫ মার্চ এর পুরা ব্যাপারটা ছিল ইন্ডিয়ার করা। সব হত্যাযজ্ঞ করসে ইন্ডিয়ান আর্মি। কিন্তু পাকিস্তান ভারত আর্মির ইউনিফর্ম একই রকম বলে ভুদাই বাঙালিরা নাকি বুঝতে পারেনাই‍ এইটা কাদের কাম। তারপর ভারত সেইটারে পাকিস্তানের নামে চালায় দিসে আর আমরা বাঙালিরাও নাকি সেইটা ধরে নিয়ে ফাল পারতেসি। এবং ঐ পোলাডা এই কথাই এখনো অবধি বিশ্বাস করে। আর সবচে আচানক কথা সে বাংলাদেশে বইসা আমারই এক বাঙালি ফ্রেন্ডকে সে সেইটা বুঝাইতে চাইতেসিল!

      পাকিস্তানের প্লেয়ারদের বাপ চাচাও যে তাদের ভুংভাং দিয়া একই কথা বুঝায়নাই সেইটার নিশ্চয়তা কি কেউ আমারে দিতে পারবেন?

      এই যখন অবস্থা, এরা ক্ষুদ্রতম চান্স পাইলেও বাংলাদেশরে যেইখানে ক্রিটিসাইজ করতে ছাড়েনা, আমগো ক্রিকেট টীম নিয়া চান্স পাইলেই খোঁটা দেয়, আর আমি সব কিছু ভুইলা গিয়া তাদের ক্রিকেট টীমরে মাথায় তুইলা নাচুম? আমারই বইন "দ্যাটস মাই আফ্রিদি" লেইখা ফ্লাইং কিস ছুড়তে থাকবে ফেসবুকে এইটাই কি আমরা চাই?
      যারা ক্রিকেটীয় দৃষ্টিকোণ থেকে এইগুলা সব ভুইলা গিয়া তাদের সাথে মোলাকাত করতে চান, তাদের বলি আপনাদের দৃষ্টির কোণ আরেকটু বাড়ান। তাকায় দেখেন খেলার বাইরেও অন্য কোন নোংরা খেলা দৃষ্টিতে ধরা দেয় কীনা দেখেন।

      আমাগো বাপ চাচারাও অনেকে যুদ্ধ দেখার পরেও পাকিস্তানি ক্রিকেট টীমরে ক্যান জানি নীরব সাপোর্ট দেয়। তাগোর দেখাদেখি আমাদের জেনারেশনের একাংশ জাস্ট ফর ফান মটোতে পাকিস্তানি ক্রিকেটের ডাই হার্ড ফ্যান হয়া গেসে। এর ধারাবাহিকতা হিসেবে আমাদের পরের জেনারেশন আজ থেকে বিশ বছর পর আরেক পা আগায়া আইসা ১৯৭১ রে কেবলমাত্র রাজনীতির চক্রান্ত আর তিন লাখ মা বোনরে ধর্ষণের ঘটনারে জাস্ট ফর ফান হিসেবে দেখবে না এই গ্যারান্টি আমারে কে দিবে?


      সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

      জবাব দিন
    • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

      সকলের অবগতির জন্য জানানো জাইতেছে, মাসরুফ কলেজে থাকতে এক ১৯৯৮ বাদে অন্য কোন বছর হুনাইন হাউস ছাড়া অন্য কোন হাউস চ্যাম্পিয়ন হওয়ার ঘটনা ঘটেনাই-রেড হাউস কি বাত হি কুছ অর হ্যায়...তাই চা-ওয়ালার আমার হাউসের সামনে নাচানাচি করার বর্ণণাটা নিতান্তই চ্যাম্পিয়ন হবার অব্যক্ত বাসনার স্বপ্ন ও কল্পনাজনিত বহিঃপ্রকাশ থেকে উৎপন্ন মতিভ্রম বা হ্যালুসিনেশনের ঘটনা বলেই সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয়... 😀

      জবাব দিন
  24. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)
    কিন্তু বাংলাদেশ বাদে সম্পূর্ণ ভিন্ন দুটি দলের মধ্যে খেলা হলে তার একটিকে যদি সমর্থন করা হয় এবং ঘটনাক্রমে সেই দুটি দলের একটি যদি ভারত বা পাকিস্তান হয়-তাতেই যে ক্রিকেটামোদী ব্যক্তি ঐ দুটি দলের একটিকে সমর্থন করছে সে বেঈমান হয়ে গেল-এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই

    খেলা দেখতে হলেই সমর্থন করা লাগবে এমন কোন কথা নেই। আমি নিজে প্রায় সব ফুটবল ম্যাচ দেখার চেষ্টা করি, কারণ আমার দেখতে ভালো লাগে তাই। এমনও অনেক খেলা হয় যেখানে দুই দলের একটারেও আমার সহ্য হয় না। আমি কাউরে সাপোর্ট করি না।

    ক্রিকেট খেলা দেখতে বসলেই একটা না একটা দলকে সমর্থন করা লাগে- এইটা ঠিক না। এইটা যিনি করেন, তিনি মোটেও ক্রিকেটমোদী না।

    সুতরাং ভারত, পাকিস্তানের ম্যাচে তাদের সমর্থন না করলেও ১০০% খেলার টেস্ট পাওয়া যায়। এইটা আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি।

    জবাব দিন
    • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

      ক্রিকেট খেলা দেখতে বসলেই একটা না একটা দলকে সমর্থন করা লাগে- এইটা ঠিক না এইটা যিনি করেন, তিনি মোটেও ক্রিকেটমোদী না।

      আশা করি এইটা তোর ব্যক্তিগত মতামত কারণ কে ক্রিকেটামোদী আর কে না সেই বিচার কিন্তু তুই/আমি রাম শযাম যদু মধু এদের হাতে বিচারের ভার পড়ে নাই।

      জবাব দিন
  25. আহসান আকাশ (৯৬-০২)
    দেশপ্রেম আমার কাছে কোন হাওয়াই শার্ট না‍‍। ব্যাপারটা আমার কাছে এমন না যে আমি যখন যুদ্ধ নিয়ে কথা বলবো তখন ঘৃণা ভরে পাকিস্তানিদের কথা মুখে আনবো। আর খেলা শুরু হইলে সেই শার্ট খুলে বসে খেলা দেখা শুরু করবো। আর এইজন্যই আমি খেলাকে আর সব কিছু থেকে আলাদা করতে পারিনা যখন দলটার নাম পাকিস্তান।

    :thumbup: :thumbup: :boss:


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  26. আদনান (১৯৯৪-২০০০)

    মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে দুইটা দশক কোন কথা হয়নাই । পাঠ্যপুস্তকে আমরা পড়েছি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে আমরা লড়াই করে স্বাধীনতা পেয়েছি । এই হানাদার বাহিনী যে পাকিস্তান সেটা আমরা অনেক পরে জেনেছি । যেকোন কারণেই হোক আমাদের পূর্ববর্তী প্রজন্মের একটা বড় অংশ মুক্তিযুদ্ধের ব্যাপারে আশ্চর্যজনক ভাবে নীরব । আমি নিজেও ছোট থাকতে পাকিস্তান সাপোর্ট করেছি, কিন্তু সব জানার পর সাপোর্ট করা আমার পক্ষে সম্ভব না । যতদিন পাকিস্তান বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা না চাচ্ছে ততদিন পাকিস্তান মানেই যুদ্ধাপরাধ । এখন কথা হল তাহলে কি আমরা পাকিস্তানের সাথে কোন সম্পর্ক রাখবো না, আর ভারতকে মাথায় তুলে রাখব ? ভারত আমাদের বন্ধু নয়, তারা আমাদের সাহায্য করেছিল সেজন্য আমরা কৃতজ্ঞ কিন্তু তাই বলে দাদারা যা বলবেন তাই সই, এটা কখনোই মানবো না । আসলে আমাদের আত্মহংকার বাড়াতে হবে, আমরা যে দুই প্রতিবেশীর চেয়ে কোন অংশে কম নই এটা বিশ্বাস করার সাথে সাথে কাজেও দেখাতে হবে । আর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে আরো কথা বলা জরুরী শুধু আওয়ামী বা জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধ না, সত্যিকারের মুক্তিযুদ্ধ । সাধারন মানুষের মুক্তিযুদ্ধ । মুক্তিযুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি, আমাদের এখনকার যুদ্ধ আমদের নিজের সাথে । ভাল থাকুন ।

    জবাব দিন
  27. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    সকলের উদ্দেশ্যে বলছিঃ

    ভাইবোনেরা,উপরে গত এক দিন নানা রকম যুক্তি পালটা যুক্তি চলায় আমি নিজে অনেক কিছু শিখতে পারছি।তবে আমার সামান্য মস্তিষ্কে একটা জিনিস অনুধাবন করে ভাল লাগলঃ

    এখানে কেউ কেউ কট্টরভাবে পাকিস্তান/ভারত বি্রোধী এবং খেলার মাঠেও এদের সমর্থনকে সহ্য করতে পারেন না।আবার অনেকে আছেন আমার মত আজিব চিড়িয়া যারা কিনা খেলার মাঠে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে সহ্য করেন(ভাইসকল,এই আমি আমি না,বাংলাদেশের পর আমার দ্বিতীয় সমর্থন গাধার বাচ্চা ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল x-( )কিন্তু তাদের সমর্থন দুইটা ভিন্ন দলের খেলায় ওই সমর্থনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ,সেইটাকে আরো কিছুদূর বাড়ায়া ১৯৭১ জায়েজ করাদেরকে তাঁরা গরম শিক ট্রিটমেন্ট দেয়াটাই সমীচীন মনে করেন।সবচেয়ে উল্লেখযগ্য এবং আনন্দের বিষয় হইলো,কট্টর বা নরম প্রকারভেদ থাকতে পারে কিন্তু খেলার মাঠের সমর্থনকে ১৯৭১ সালের পাকি কর্মকান্ড সমর্থন পর্যন্ত টাইনা নেওয়া কোন শুকরের শুক্র আর কুকুরের বীর্যজাত হারামজাদা কিন্তু অন্ততঃ এইখানে আমাদের মধ্যে নাই।আমাদের মধ্যে মতভেদটা আসলে খুব সামান্য-এইটুকু মতভেদ নিয়ে পারস্পরিক সহাবস্থান ও শ্রদ্ধাবধ বজায় রাখা খুবই সম্ভব। আর এই কারণেই সিসিবিরে আমি এত্ত ভালা পাই 😀 😀 😀

    অনেক হাউকাউ করলাম আসেন একটা জুক্স শুনিঃ

    এক জাঙ্গিয়া-প্রস্তুতকারক কোম্পানিতে জেনারেল ম্যানেজার পদে নিয়োগের জন্য ইন্টারভিউ চলতেছে।সেইখানে এই সিসিবির এক সদস্য গেল ইন্টারভিউ দিতে,ধরা যাক তার নাম কামরুল(এইখানে এই কামরুল যে কন কামরুল হইতে পারে,পিলিজ কেউ এইটাকে বাস্তব কোন অরিত্রের সাথে মিলাইলে তা নিজ দায়িত্বে মিলাইবেন)।

    ইন্টারভিউয়ারের প্রশ্ন-আচ্ছা কামরুল, বল তো আমরা আমাদের জাঙ্গিয়া কি উপায়ে বাজারজাত করি?

    কামরুল-সযার আপনারা তিন ভাবে বাজারজাত করেন-প্রতি প্যাকেটে ৭টা,প্রতি প্যাকেটে ৫ টা আর প্রতি প্যাকেটে ১২ টা জাঙ্গিয়া এই তিনভাবে।

    প্রশ্নঃআচ্ছা ভেরি গুড।এইবার বল,কেন এইভাবে বাজারজাত করা হয়?

    কামরুলঃ স্যার এইটা খুবই সহজ প্রশ্ন।৭টার প্যাকেট বাজারে ছাড়া হয় বাংলাদেশিদের জন্য-ওরা প্রত্যেকদিন একটা কইরা সপ্তাহে সাত দিন সাতটা জাঙ্গিয়া ব্যবহার করে।৫ টার প্যাকেট ছাড়া হয় আমেরিকানদের জন্য কারণ ওরা উইকেন্ডের দুই দিন জাঙ্গিয়া ছাড়াই কাটায়...

    প্রশ্নকর্তাঃ ভেরি গুড...আচ্ছা এইবার বল তো,১২ টার প্যাকেট কাদের জন্য?

    কামরুলঃ স্যার,এই ১২ টার প্যাকেট আসলে পাকিস্তানিদের জন্য,ওরা আবার প্রতি মাসে একটা কইরা সারা বছরে ১২ তা জাঙ্গিয়া ব্যবহার করে কিনা...

    একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র অনুসারে জানা গেছে যে জনাব কামরুলকে তাঁর সপ্রতিভ ইন্টারভিঊইয়ের জন্য জেনারেল ম্যানেজার না কইরা সরাসরি সিইও পদে নিয়োগ দেওয়া হইছিল... 😀

    (অফ টপিকঃকামরুল ভাই, পিলিজ কিছু মনে নিয়েন না।আমি আপনেরে খুব ভালা পাই দেইখা জুক লিখার সুময় আপনের নামটাই মুনে আসল :shy: যুদি হালকা পাতলা রাগও কইরা থাকেন তাইলে নেক্সট দিন ঠাডাইয়া একটা থাবড়া দিয়া আমার চাপার দাঁত ফালাইয়া দিয়েন... :frontroll: :frontroll: :frontroll: )

    জবাব দিন
  28. রকিব (০১-০৭)
    কামরুল ভাই, পিলিজ কিছু মনে নিয়েন না।আমি আপনেরে খুব ভালা পাই দেইখা জুক লিখার সুময় আপনের নামটাই মুনে আসল

    ছুট থাকতে একটা কথা শুনেছিলাম, ঐযে কি মেরে যেন কি দান 😛 😛 !!! আমি এবার মানে মানে পালাই।
    অফটপিকঃ মাস্ফ্যু ভাই, আমার নেক্সট লেখার টপিক আপনি। সাবধান :grr: :grr:


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  29. রায়হান রশিদ (৮৬ - ৯০)

    অসাধারণ একটা আলোচনা চলছে। মুক্তাঙ্গনে লিন্ক দিচ্ছি এখনি। এই আলোচনাটা যতদূর সম্ভব ছড়িয়ে দেয়া দরকার। অনেক ধন্যবাদ রাশেদ, সূত্রপাত করার জন্য। বাকীদেরও, চমৎকার একটা বিতর্ক উপহার দেয়ার জন্য। জিহাদ তোমার লেখাটা এখানে দিয়ে দাও না। এক কাজ করলে কেমন হয়, এবারের বিজয়মেলায় ওটা দিয়ে একটা পোস্টার ছাড়া যায়না সিসিবি'র পক্ষ থেকে?
    যা-ই বলো ভাই, বহু বছর ক্রিকেট নামের খেলাটাই দেখার রুচি হতো না এসব কারণে। আজকাল আমাদের ক্রিকেট দলও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খেলতে নামছে, তাই আবার নতুন করে দেখা শুরু করেছি।
    সবাইকে আবারো ধন্যবাদ।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।