~ স্মৃতির আসমান সাঁতারু অভিমান ~

বাঁ বুকের পকেট থেকে
ভাঁজ খুলে চিঠিটাকে মেলতেই
ঝুপঝাপ লাফিয়ে বেরুলো
ডজন তিনেক নীল রঙের শব্দ।
ঠিক হাত ফসকে ছিটকে পড়া
ক’খানা ছুটন্ত মুড়ি-মুড়কির মতো।
সেই ছত্রিশ শব্দে গভীর বোনা ছিল
বলা না বলা প্রায় শতেক অভিযোগ।

অকস্মাৎ তিরিশ বছর পর
কোন মলাটের ভেতর থেকে
পুরোনো সেই চিঠিটা আজ
বেরিয়ে এলো হঠাৎ আবার।
তাকে ঘিরেই ভাবনা চিন্তা
একঝাঁক চঞ্চল পাখির মতোন
স্মৃতির ঝাঁপি খুলে করোটিতে
উড়তে শুরু করলো দুর্বার।

চারভাঁজের ওই কাগজখানা
থাকে অমনই, হাতে ধরা।
বুকের ভিতর বাতাস জুড়ে
বাজতে থাকে হাজার কথা।
পিয়ানো আর সাক্সোফোনে
মান ভাঙানো স্মৃতির পরম্পরা।

অনন্ত সময় ধরে থাকি, ছুঁয়ে থাকি,
কোষে কোষে নৃত্যরত স্মুতির জোনাকী।
ভুল করেও ভাঁজ খুলিনা চিঠিখানার,
অভিমান টুপ টাপ ঝরে যদি আবার !

৩০ জানুয়ারী ২০১৬

১,৯১৭ বার দেখা হয়েছে

৪ টি মন্তব্য : “~ স্মৃতির আসমান সাঁতারু অভিমান ~”

    • লুৎফুল (৭৮-৮৪)

      ধন্যবাদ বন্ধু।
      এক ব্লগে বিষয়ভিত্তিক প্রতিযোগিতায় 'অভিমান' বিষয়ের উপর ঝটিকা লেখা কবিতা। তা আবার কি করে সাফল্যের বরমাল্যও জুটিয়েছে ওখানে।
      সো নো ব্যাকগ্রাউন্ড ডিরেক্টলি...
      বিবিধের সাথে ভাবনার অলংকরণ ... এই ...

      জবাব দিন
  1. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    সুন্দর শিরোনামে মন ছোঁয়া কবিতা। কবিতার স্তবকগুলোর মান ক্রমান্বয়ে উঁঁচুতে উঠে গেছে। শেষ স্তবকে এসে পাঠকেরাও নস্টালজিয়ায় আক্রান্ত হতে পারে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।