~ আগুনে অচ্ছুত সে, ভালোবাসায় ব্রাত্য ~

শহরের আগুন আজ আর
কিছুতেই দেবালয় ছোঁয় না।
মানুষকে যতোটা সে বাসে ভালো
দেবতাকে ঠিক ততোটা না।

দেবতার শাদা কিংবা নীল
রক্ত – দাহ্য ততোটা
নয়, যতোটুকু কামলার বা
শ্রমিকের, খেটে খাওয়া মানুষের,
নগন্য সাধারণ লাল
রক্ত হয়। অনায়াস বহ্নুতসবে
যারে সহজে পোড়ানো যায়।

স্বস্তা আবেগে কথার
খই ফোটায় যারা, সেই সব
বোকা সাধারণ কেরানী ও
কর্মী, প্রেমিক ও কবি ;
মানুষের ভালোবাসা নিয়ে যার
আবেগাপ্লুত হবার মতো
নিছক বোকামী সহজাত।

জরা ও অভাব, অনাহুত
প্রাণঘাত, শংকা, সংশয়,
অনিশ্চিত যাপনের ভয়,
নগর ও নাগরিকদেরে
ভালোবাসে যতো অবারিত, নয়
তার কিছুটাও ভাগাভাগি করে
তুলে রাখা দেবতা ও দেবালয় তরে।
আগুনে নাড়ী সেঁকে জন্ম
যার। ছাই ভষ্মে মিশে যেতে
সানন্দ জীবনপাত বাঁধা তার।
সেই সাধারণ জীবনের স্বাদ
এতোটুকু বোঝে সাধ্য কী দেবতার !

নগরের আগুন তাই আজ
কিছুতেই দেবালয় ছোঁয় না।
মানুষকে যতোটা সে বাসে ভালো
দেবতাকে তার কিছুটাও না।

০৭ আগস্ট ২০১৫

১,১৫৭ বার দেখা হয়েছে

৭ টি মন্তব্য : “~ আগুনে অচ্ছুত সে, ভালোবাসায় ব্রাত্য ~”

  1. সাইদুল (৭৬-৮২)

    একটা কথা, এই ব্লগের কবিরা কদাচিৎ কবিরা প্রেম - ভালোবাসার বাইরে অন্যকিছু নিয়ে ভাবে।
    তোমার অনেক কবিতায়ই সমাজ ভাবনা, জীবন বোধের ব্যাপার স্যাপার থাকে ( আমি যদি ঠিক মত বুঝে থাকি)

    এই জন্যেই তোমার কবিতারা আলাদা। এবং সাহসী।
    চমৎকার হয়েছে। ধন্যবাদ


    যে কথা কখনও বাজেনা হৃদয়ে গান হয়ে কোন, সে কথা ব্যর্থ , ম্লান

    জবাব দিন
  2. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    "নগরের আগুন তাই আজ
    কিছুতেই দেবালয় ছোঁয় না।
    মানুষকে যতোটা সে বাসে ভালো
    দেবতাকে তার কিছুটাও না।" - নগর জীবন ও নাগরিক পরিস্থিতি সম্পর্কে সুগভীর উপলব্ধি থেকে উঠে এসেছে এসব কথা।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।