ম্রিয়মান মুঠোফোন দিলোনা বসন্ত জানতে

কে কখন তারে বেজেছিলো !
অনিরুদ্ধ কথকতা শিউলির ভোরে
মালায় মালায় গেঁথেছিলো !
কে কখন তারে বেজেছিলো !
বৃষ্টি ছাঁটে ঈষত ভেজা
কদম ছুঁয়েছিলো !
কে কখন নৈঃশব্দের ভীড়ে
কথার পসরায় সাজিয়ে নৌকো
সাগর পাড়ি দেবে ভেবেছিলো !
কে কখন শীতের শিশিরে
মগ্ন পায়ে হেঁটেছিলো চুপি চুপি !
অনাবিল মেঘের ভেলায় স্তুপ স্তুপ
কথা ফেরী করে নিতে চেয়েছিলো !

কে কখন বসন্তের অপেক্ষায় অগুনতি
রঙ ঢেলে এক ঝুড়ি স্বপ্ন এঁকেছিলো !
ম্রিয়মান মুঠোফোন নীরবে একাকী
শরত শরত নিষ্প্রভ ঘাতক যেনো,
প্রেমের অচিনপুরে নির্মম বোমা ছুঁড়ে দিলো !
এতো গান, এতো সুর, সম্ভাবনা
মতিচুর – ম্রিয়মান মুঠোফোন কেনো
সব কথা চেপে বড় বেশী নিশ্চুপ ছিলো !

৯৭৪ বার দেখা হয়েছে

১৫ টি মন্তব্য : “ম্রিয়মান মুঠোফোন দিলোনা বসন্ত জানতে”

  1. পারভেজ (৭৮-৮৪)

    বাহ্‌! বাহ্‌!!
    সিসিবিতে দিনদিন গুনি বন্ধুদের আনাগোনা বাড়ছে তো বাড়ছেই।
    খুশি!
    খুবই খুশি!!

    পড়তে তো দারুন লাগলো। ছন্দটা ধরতেও সময় লাগেনি মোটেও।

    সুস্বাগতম আমাদের এই নিজেস্ব ব্লগস্ফেয়ারে...


    Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

    জবাব দিন
    • লুৎফুল (৭৮-৮৪)

      অনেক ধন্যবাদ । পারভেজ ।
      এখানে পোস্ট করবার ইচ্ছেটা অনেক আগে থেকেই ছিলো ।
      হয়ে উঠছিল না । আর মাঝে একবার তো পাসোয়ার্ড ভুলে গেছে দীর্ঘ সময় ।
      সর্বশেষ অনুপ্রাণিত করলি তুই আর নূপুর ।
      না হলে আলস্যে আটকে থাকতো । থেকেই যেতো ।

      কিছু দিন লাগবে নিয়ম কানুন গুলো বুঝে উঠতে ।
      হয়ে যাবো নিয়মিত । এসে যখন পড়েছি ।
      আবারো ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      জবাব দিন
      • রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

        আমার নামটা বাদ দিয়ে দিলেন ভাই।

        সেই কবে থেকে বলছিলাম আপনাকে মনে আছে>>>>

        এসেছেন এইটা বড় পাওয়া। ভাইয়া নামটা বাঙলায় করে দিয়েন একটু কষ্ট করে।


        এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

        জবাব দিন
    • লুৎফুল (৭৮-৮৪)

      অনেক ধন্যবাদ । পারভেজ ।
      এখানে পোস্ট করবার ইচ্ছেটা অনেক আগে থেকেই ছিলো ।
      হয়ে উঠছিল না । আর মাঝে একবার তো পাসোয়ার্ড ভুলে গেছে দীর্ঘ সময় ।
      সর্বশেষ অনুপ্রাণিত করলি তুই আর নূপুর ।
      না হলে আলস্যে আটকে থাকতো । থেকেই যেতো ।

      কিছু দিন লাগবে নিয়ম কানুন গুলো বুঝে উঠতে ।
      হয়ে যাবো নিয়মিত । এসে যখন পড়েছি ।
      আবারো ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা ।

      জবাব দিন
  2. সাইদুল (৭৬-৮২)

    কে কখন বসন্তের অপেক্ষায় অগুনতি
    রঙ ঢেলে এক ঝুড়ি স্বপ্ন এঁকেছিলো !
    ম্রিয়মান মুঠোফোন নীরবে একাকী
    শরত শরত নিষ্প্রভ ঘাতক যেনো,
    প্রেমের অচিনপুরে নির্মম বোমা ছুঁড়ে দিলো

    সুন্দর, খুব সুন্দর


    যে কথা কখনও বাজেনা হৃদয়ে গান হয়ে কোন, সে কথা ব্যর্থ , ম্লান

    জবাব দিন
  3. লুৎফুল (৭৮-৮৪)

    রাজীব,
    আসলে যেটুকু বললাম তা হলো গল্পের শেষাংশ ।
    তুমি তো সেই কবে থেকে বলেছিলে । আমি শেষমেষ পেরে উঠলাম এখন কেবল ।
    নামটা তো শুধরে দিয়েছি । প্রায় ২৪ ঘন্টা আগে ।
    জমাকৃত তথ্য এখনো পাশ হয়ে বের হয়নি সম্ভবত ।
    আর লেখা সাবমিট করার ব্যাপারেও একটা প্রশ্ন ছিলো ।
    দিনে একটা লেখা সাবমিট করা যায় ? নাকি অন্য রকম কিছু !
    লেখার সাইজ এর কোনো সীমা (যেমন শব্দ সংখ্যা) আছে কি ?
    সাবমিট করলে সেটা কত সময় পরে দৃশ্যমান হবে ব্লগে ।
    কিংবা সেটা যে হলোনা এবং পুনরায় সাবমিট করতে হবে তা বুঝবো কি করে ?
    একেবারে প্রাথমিক বিষয় নিয়ে এমন সব প্রশ্ন করে বিড়ম্বনা দিচ্ছি না আশা করি ।
    শুভেচ্ছা ।

    জবাব দিন
  4. নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

    লুৎফুল ভাই,
    এ লেখাটা পড়িনি। আপনার লেখায় একটা অবশ্যম্ভাবী রোমান্টিকতা থাকে -- যাতে বারবার অবগাহন করা যায়।

    মন্তব্যে আমার নামোল্লেখ দেখে লজ্জাই পেলাম। সেদিন শুধু বলেছি -- আসুন সিসিবিতে। ব্যস্ততার জন্যে আপনাকে প্রমিজ করা যোগাযোগ শুরু করতে পারিনি, তার আগেই দেখি আপনার লেখা। রাজীব অবিরতভাবে বলে যায় সবাইকে। কিন্তু ওর লেখাই অনেকদিন পাইনা এখানে।

    জবাব দিন
    • লুৎফুল (৭৮-৮৪)

      ভাই নূপুর, এই একটাই হন্তারক নেশা । রোমান্টিকতা ।
      এই নেশাগ্রস্ততা তাই ছুঁইয়ে যায়, কখনো এমনকি দখল করে থাকে লেখার অক্ষরগুলো ।

      আইন কানুন পড়ার ফুরসত পাবো অমন নিষ্ঠাবান ছাত্র কি কোনোকালে ছিলাম !
      হোঁচট খেতে খেতে শেখা আজীবন ।
      এখানেও । যাহোক জেনে যাচ্ছি রকম সকম ।
      খুব ভালো লাগছে এই নতুন জগতটাকে জানতে পেরে ।
      কিন্তু সময় বড্ড কৃপণ ।

      জবাব দিন
    • লুৎফুল (৭৮-৮৪)

      ভাই নূপুর, এই একটাই হন্তারক নেশা । রোমান্টিকতা ।
      এই নেশাগ্রস্ততা তাই ছুঁয়ে যায়, কখনো এমনকি দখল করে থাকে লেখার অক্ষরগুলো ।

      আইন কানুন পড়ার ফুরসত পাবো অমন নিষ্ঠাবান ছাত্র কি কোনোকালে ছিলাম !
      হোঁচট খেতে খেতে শেখা আজীবন ।
      এখানেও । যাহোক জেনে যাচ্ছি রকম সকম ।
      খুব ভালো লাগছে এই নতুন জগতটাকে জানতে পেরে ।
      কিন্তু সময় বড্ড কৃপণ ।

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।