ফিচলা ক্যাডেট – বি.এম.এ ভার্সন

ঘটনা – ১

ক্যাডেট কলেজের গন্ডী পেরোতে না পেরোতেই বি.এম.এ তে এসে পড়লাম সেই চিরচেনা স্টাফদের খপ্পড়ে । এখানকার স্টাফরা ছিল আবার ১০০ কাঠি বেশী সরেস। ২৪ ঘন্টায় ১৮ ঘন্টাই বোধহয় কাটত তাদের সাথে। কি কি উপায়ে, কতভাবে ক্যাডেটের শরীর থেকে সিভিল পানি বের করা যায় সেই গবেষনাতেই বোধহয় তারা সবচেয়ে বেশী মগ্ন থাকত । আর এইসব গবেষনার গিনিপিগ খুঁজে পেতে তাদের বেগ পেতে হত না। হাত বাড়ালেই নাগালের মধ্যে ২/৪ টা ক্যাডেট সবসময় খুঁজে পেতেন তারা।

তবে ক্যাডেট মানেই তো কঠিন চীজ। প্রথম বছরে চোখ না ফুটলেও ধীরে ধীরে অনেককেই দেখেছি খোলস ফুটে বেড়িয়ে এসেছিল তাদের চির পরিচিত রূপে। তেমনি এক বন্ধুর কথা শুনুন,

এক ছুটির দিনে আমরা চুল কাটানোর উদ্দেশ্যে বারবার শপ এর দিকে যাচ্ছি। চুল কাটানো না থাকলে আবার শহরে বের হতে দেয় না বি.এম.এ সরকার। তাই দৌড়াদৌড়ি করে আমরা যাচ্ছিলাম। প্রসঙ্গত বলে রাখি বি.এম.এ এর রাস্তায় ক্যাডেটদের সবসময় নিম্নে ২ জন একসাথে চলতে হত। তো আমরা কয়েকজন বের হয়ে গেলাম আমাদের কোম্পানী থেকে। এবং সৌভাগ্যজনকভাবে জি.সি অফিস নামক (স্টাফদের আখড়া) পুলসিরাতটাও কিভাবে কিভাবে যেন পাড় হয়ে গেলাম কোন প্রকার গিনিপিগে রুপান্তরিত হওয়া ছাড়াই। কিন্তু আমাদের এক বন্ধু একটু দেরী করে ফেলায় বেচারা হঠাৎ করে এক ক্ষুধার্ত গবেষকের হাতে ধরা খেয়ে গেল। বন্ধুবরেষু ছিল আমাদের মধ্যে কঠিন এক চীজ, আর সেইদিনের সেই স্টাফ ছিল সদ্য নিয়োগ পাওয়া জুনিয়র একজন প্রশিক্ষক। তো হাতের কাছে জলজ্যান্ত এক ক্যাডেট পেয়েই শুরু হয়ে গেল কেয়ামত,

স্টাফ – এইইইইইইইইইইইইই ক্যাডেট !!!!!!! 😡
ক্যাডট – জ্বীইইইইইইই স্টাআআপ 😕
স্টাফ – কোথায় যাচ্ছেন সাহেব ?
ক্যাডট – হেয়ার কাটে স্টাআআআআপ ।
স্টাফ – নমুনা কইত্তেছেন সাহেব ? 😡
ক্যাডট – জ্বী নাআআআআ স্টাআআআআপ । :no:
স্টাফ – জি.সি অফিসের সামনে দিয়া ক্যাডেট এমনে হাঁটে !!!!!
ক্যাডট – আমি তো দৌড়াচ্ছিলাম স্টাআআআআপ । O:-)
স্টাফ – ঈঈঈঈঈঈঈঈঈ !!!!!! ক্যাডেট আবার কথা বলে !!!!
ক্যাডট – ভুল হয়ে গেছে স্টাআআআআআপ ।
স্টাফ – সাহেব, বৃষ্টি হচ্ছে দেখছেন ?
ক্যাডট – জ্বী স্টাআআআআপ ।
স্টাফ – তাহলে রেইনকোট আনেন নাই কেনুউউউউউ ?
ক্যাডট – স্টাপ, অনুমতি দিলে একটা কথা বলি ?
স্টাফ – ক্যাডেট আবার কথা বলে নাকি ? 😮
ক্যাডট – ইয়ে মানে বলছিলাম কি স্টাপ, চারিদিকে এত বন্যা , সিডর, হাজার হাজার মানুষ জ্বলচ্ছাসে মারা যাচ্ছে, সেখানে একটা রেইনকোট দিয়ে বৃষ্টি ঠেকানোর চেষ্টা তো অতি তুচ্ছ !!! 😐
স্টাফ – অইইইইই সাহেব, মশকরা করেন, না ? আজকে আপনাকে দিয়াই ব্রেকফাস্ট করব, দাঁড়ান !!! :chup:
ক্যাডট – জ্বীইইইই স্টাআআআআপ ।
স্টাফ – আপনার দেখি হাজারটা ফল্ট !!! আপনি সিঙ্গেল কেন ? আপনার পেয়ার কোত্থায় ? :-/
ক্যাডট – স্টাফ, এইখানেও একটা কথা ছিল, যদি অনুমতি দিতেন….. ;))
স্টাফ – এই ক্যাডেট দেখি আজকে এইখানেই শহীদ হইতে চায় !!! বলেন বলেন….
ক্যাডট – স্টাফ, পৃথিবীতে আসলাম একা, যাবও একা, ২ দিনের জন্য এমনে পেয়ার পেয়ার নাটক করে কি লাভ !!!!! :bash:
স্টাফ – ……………… (নির্বাক)
২ মিনিট পর সম্বিত ফিরে পেয়ে…………….. :chup: :duel: :gulli2:

ফলাফল – হেয়ার কাট শেষে আমরা যখন প্রপার মার্চ করে পুলসিরাত পার করছি তখনও সেই ক্যাডেট সেখানে আমতলায় :frontroll:
-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*

ঘটনা – ২

কোন কারনে জনৈক ক্যাডেট ধরা খেল সিনিয়র টার্মের এক ক্যাডেট এর কাছে, ব্যাস সাথে সাথে ফলিন লেগে গেল।

সিনিয়র ক্যাডেট – ইয়েস ইউ *কেন শীট, মেক ফল ইন আফটার ব্রেকফাস্ট ইন ফ্রন্ট অফ ডাইনিং হল।
অপরাধী ক্যাডেট – ইয়েস স্যার !
সিনিয়র ক্যাডেট – ডোন্ট মিস ইট, আদারওয়াইজ ইউ উইল ফিল দ্যা জোক টুনাইট !
অপরাধী ক্যাডেট –ইয়েস স্যার ।

কোন কারনে সেই সিনিয়র ক্যাডেট তাকে পেল না ব্রেকফাস্টের পর, অতঃপর দুপুরে যখন শহরে বের হবার জন্য রওয়ানা হল তখন সেই ক্যাডেট এর দেখা পেল। তড়িঘড়ি থাকায় পাঙ্গা না দিয়ে জিজ্ঞাসা করল,

সিনিয়র ক্যাডেট – ইয়েস ইউ *কেন শীট !!! হোয়্যার হ্যাড ইউ বিন ? x-(
অপরাধী ক্যাডেট – স্যার ইউ টোল্ড টু মিট আফটার ব্রেকফাস্ট।
সিনিয়র ক্যাডেট – দেন ? হোয়্যার ইজ ইওর ডাউট ?!?
অপরাধী ক্যাডেট – স্যার, আই হ্যাভ নট টেকেন মাই ব্রেকফাস্ট, দ্যাটস হোয়াই স্যার !! ~x(
সিনিয়র ক্যাডেট – ওকে ইউ *কেন শীট , মিট মি আফটার ডিনার টাইম, টেক ইট অর নট ।
অপরাধী ক্যাডেট – রজার স্যার ।

রাতের ডিনার টাইম শেষে সিনিয়র ক্যাডেট মাত্র রুম এ এসে বসেছে, এমন সময়,

অপরাধী ক্যাডেট – সালাম স্যার, সালাম স্যার….
সিনিয়র ক্যাডেট – হু ইজ ইট !
অপরাধী ক্যাডেট – স্যার জিসি *কেন শীট, স্যার ।
সিনিয়র ক্যাডেট – হোয়াট !!??!! 😮
অপরাধী ক্যাডেট – স্যার , আই হ্যাভ কাম টু ফিল দা জোক, এজ পার ইওর অর্ডার স্যার ! মে আই স্টার্ট লাফিং স্যার ?!? :khekz:
সিনিয়র ক্যাডেট – ইউউউউউউউউউউউ *ক্কেএএএন শীইইইইইইইইইইট !! :duel: :chup: :gulli2:

এরপর টানা কিছুক্ষন ব্রাস্ট ফায়ার এর মত ঝারির স্রোত, আর ক্যাডেট ?? তার অবস্থা বুঝতে কি কারও বাকি আছে ?
-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*-*

    অফটপিক

কলেজের ৫০০ তম পোস্ট লেখার লোভ সামলাইতে না পাইরা আজাইরা প্যাঁচাল পাইরা গেলাম, মাফ কইরা দিয়েন ।

    অনটপিক

বিসিসি রক্করে… :awesome:

    পুনঃ অফটপিক

কেউ কেউ পি.এইচ.ডি করার সুযোগ পাইল, কেউ কেউ বি.সি.এস এ খেল দেখাইল, কেউ কেউ ধামাকা স্কলারশীপ পাইল………সবাইরে একসাথে অভিনন্দন।

    পুনঃ অনটপিক

অনেকদিন গেট টুগেদার হয় না, কাউরে ছিলও দেয়া হইতেছে না। কি বলেন ম্যাংগো জ্যাকফ্রুট ব্লগজনতা ? ;;;

২,৮০৮ বার দেখা হয়েছে

৪০ টি মন্তব্য : “ফিচলা ক্যাডেট – বি.এম.এ ভার্সন”

  1. ইফতেখার (৯৫-০১)

    লেডি ক্যাডটের সাথে পেয়ার (এইটা কিন্তু ইংরেজি পেয়ার কইলাম, পুলাপাইন বেশি বদ) করা যায়?

    অপরাধী ক্যডেটের সেন্স অফ হিউমার সেইরাম 😉

    ভালা হৈচে 😉 😉

    জবাব দিন
  2. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    ৫০০ নম্বর ব্লগটা আমি লেখবো না বলে একটা ব্লগ আটকায়ে রাখছি... কনগ্রেটস রেজু, ৫০০ নং পোস্টের গর্বিত মালিক হওয়ার জন্য।

    আমরা ব্লগের টেন্ডুলকার হয়ে গেলাম তো, তবে মকরা রায়হান ওর পোস্ট গুলা ট্যাগ করলে এতদিনে মনে হয় হাজারের কাছাকাছি পৌছায় যাইতাম।

    অনটপিকঃ হায় বিএমএ, হায় জিসি অফিস, হায় আমগাছ তলা... এইগুলা ক্যামনে যে পার কইরা আসছি, আল্লাই যানে...


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  3. তানভীর (৯৪-০০)

    মজা পাইছি রেজওয়ান। :)) :))

    বিসিসিকে ৫০০তম পোস্টের শুভেচ্ছা। :boss:

    কুমিল্লার ডজার লেখকগুলা (রহমান ভাই, মইনুল ভাই, তারেক, রবিন, মান্না, রাশেদ, বন্য, হাসনাইন, কবি শাহরিয়ার......) যে কই????

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।