চাপাবাজী!!

কয়েকদিন ধরেই নাফিস(০৪-১০) ব্যাচ এর গ্রুপ এ বলছিলো সিসিবি তে আয়,সিসিবি তে আয়। কিন্তু কি লিখবো আইডিয়ার অভাবে আর লিখা হয় না। তো গতকাল আড্ডা মারার সময় কথায় কথায় মুয়াম্মার বললো যে আমি নাকি কলেজে চাপা মারতাম না। মির্জাপুরিয়ান দের ভাষায় যাকে “গ্যাজ” বলা হয় ।কথাটা গায়ে লাগলো। ক্যাডেট আবার চাপা মারে না কিভাবে?? তাই আজকে একটি ঘটনা শেয়ার করছি ।

ঘটনা কোনো এক প্যারেন্টস ডে’র । কয়েকদিন আগেই এক ক্যাডেট কে কলেজ আউট করার পর অথরিটি বেশ জোশ এ আছে। কিছু করলেই আউট করে দেবে এমন একটা ভাব । প্যারেন্টস ডে’ তে আব্বা আমার মোবাইল ফোন টা নিয়ে এসেছিলেন । আমি আমার গ্রামীণফোন এর সিম টা খুলে পকেটে রেখে দিয়েছিলাম। বাকীসময় আমার মনেই নেই যে ওটা আমার পকেটে । মনে পড়লো প্যারেন্টস ডে শেষে স্টাফ এর ডাকে, “ক্যাডেট ফারহান,এদিকে আসো”।

একটু বলে নেই, মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজে প্রত্যেক প্যারেন্টস ডে’র সময় ফজলুল হক হাউজের সামনে একটা চেক পোস্ট বসানো হয়।। ওখানে স্টাফ রা প্যারেন্টস ডে শেষে হাউজে গমনরত ক্যাডেট দের ব্যাগ এবং শরীর চেক করেন অনৈতিক কিছু পাওয়া যায় কিনা। বলা বাহুল্য আমাদের কলেজে খাবার দবার ও অনৈতিক বিবেচনা করা হয়। :p

তো যাই হোক স্টাফ এর ডাকে খেয়াল হলো যে আমার পকেটে একটা সিম আছে । পেছনে ফেরার ও উপায় নেই । নির্ঘাত এবার আমার হয় বড় অঙ্কের জরিমানা হবে না হয় আউট করে দেবে অথরিটি । পরবর্তী কাহিনী কথোপকথনেঃ

– ক্যাডেট ফারহান,এদিকে আসো।
– জ্বী স্টাফ?
– কি নিয়া যাইতেসো হাউজে?সত্যি করে বলো।।আমরা কাউকে কিছু বলবো না । সত্যি করে বলো ।
– সত্যি স্টাফ কিছু নিয়ে যাইতেসি না ।
– তাই নাকি? আসো তোমার প্যান্টের পকেট গুলা চেক করি ।
– চেক করবেন? করেন স্টাফ। কিন্তু পকেট গুলা ছিঁড়া । একটু সাবধানে চেক কইরেন স্টাফ ।
– বেয়াদব ক্যাডেট !!! প্যারেন্টস ডে’ তে একটু ভালো কাপড়-চোপড় পইরা আসতে পারো না?? যাও…
– স্টাফ কাপড় তো ভালই।কিন্তু ওই ধোপা ই তো সব পকেট ছিঁড়া দেয়(চেহারায় একটু ইমোশন এনে) …
– তোমারে যাইতে বলছি যাও। নাইলে কিন্তু ২টা ইডি লাগায় দিব ।
– ওকে স্টাফ ।

অতঃপর আমিও ভদ্র ছেলের মতো বিনা চেকিং এ হাউজে চলে আসলাম ।

২,০৬৯ বার দেখা হয়েছে

২০ টি মন্তব্য : “চাপাবাজী!!”

  1. তাওসীফ হামীম (০২-০৬)

    ফেসবুকে পড়ছি, আবার পড়লাম, ব্লগে স্বাগতম জানাই। জায়গায় লাগাও ফ্রন্ট্রল, পরিমান বড় ভাইরা ঠিক করুন, আমি শুরু করায়ে দিলাম


    চাঁদ ও আকাশের মতো আমরাও মিশে গিয়েছিলাম সবুজ গহীন অরণ্যে।

    জবাব দিন
  2. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    ফ্রন্টরোল চালায় যাও... আর হ্যা, ব্লগে স্বাগতম :grr:


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।