আমার ক্যাডেট কলেজের স্বর্ণালি দিনগুলি- (সাত)

না কোন “Venetian” বা “Marcien” নয়। এদের ডাক নাম “Motlobien” অর্থাৎ ‘মতলব’ থেকে আগত। চাঁদপুর ডিসত্রিক্ট এর একটি উপজেলা মতলব ।৪০৯ বর্গ কিলমিটার ব্যাপি এলাকায়, ২২ টি ইউনিয়ন ,২৪৪ টি মহল্লা ৪০৭ টি গ্রাম নিয়ে এই উপজেলা। প্রায় ১০ লক্ষ জনবসতি সম্পন্ন। বাংলাদেশের এত উপজেলা থাকতে ‘মতলব’ নিয়ে আমার এতো আগ্রহ কেন, বলছি।

ফৌজদারহাট এর প্রতিটি  batch এ এদের বেশ কয়েকজন করে স্থান পেতো।এদের সপ্তম শ্রেণীর গড় বয়স সকলেরই বিশ এর উপরে থাকতো । যদিও কশ্মিন কালেও এরা স্বীকার করত না, কারন আমাদের যখন দাড়ি গোঁফ এর হাল্কা রেখাও হয়নি, এরা তখন খসখসে নীলচে দাড়ি প্রতিদিনই শেইভ করতো ।প্রচণ্ড দৈহিক ক্ষমতা সম্পন্ন, কষ্ট সহিষ্ণু এদের কাছে আমরা ‘সেন্ট প্লাসিড’, ‘গ্রেগরি’ , ‘কলেজিয়েটরা’ ফার্ম এর মুরগীর বাচ্চার মতো দুর্বল মনে হতো। আমাদের কাছে ওরা নিছক সহপাঠী হলেও ওদের কাছে আমরা নিশ্চয়ই “চাঁদের মানুষ ” গোছের কিছু ! এই প্রসঙ্গে “শাকুর মজিদের” ক্যাডেট কলেজ নিয়ে গল্পটা মনে পরে গেল। আমরা শহরে বেঁড়ে উঠাদের সাথে প্রত্যন্ত গ্রামের একজনের বেঁড়ে উঠায় কতো প্রভেদ। চাল-চলন , এমনকি ভাষাগত তারতম্মের জন্যে ওরা ওই অচিন দেশের নাগরিকের নামে নামকরণ।

কিন্তু এদের প্রচণ্ড নিষ্ঠা, অধ্যবসায়, মেধা ও সর্বোপুরি জীবনী শক্তি দিয়েই অল্প দিনে সকলের সাথে একই কাতারে চলে আসতো এবং অল্প কয়েক বছরেই অবলীলায় সকলকে ছাড়িয়ে অনেক উপরে অবস্তান করতো। আমাদের মতলব এর সহপাঁঠিরাও এর বাইরে নন।
সেনা বাহিনীর চৌকস কর্নেল-ব্রিগেডীয়ার থেকে আমেরিকার নামকরা দক্ষ “হার্ট স্পেশালিস্ট” পর্যন্ত এর মধ্যে আছেন। যাহোক ধান বানতে শিবের গীত বেশি না গেয়ে, নতুন “সিনিয়ার” হওয়ার আনন্দ লিখেই আজ শেষ করতে চাই।

অবশেষে সেই দিন এলো, আমরা প্রথম সিনিয়ার হলাম। বলীর পাঁঠা গুলি আস্তে আস্তে চোখের সামনে দিয়ে বাক্স পেটেরা নিয়ে ঢুকল। অপেক্ষায় থাকলাম কখন ওদের মা-বাবা ফিরে যাবেন এবং আমাদের ‘কারিশমা’ ওদের উপর প্রয়োগ করবো !

টার্গেট Motlobien!! সন্ধ্যায় প্রথম সুযোগ এলো । “Bully” করার খেয়ালে আমরা কয়েকজন উৎ পেতে আছি ।

এক দল কিচির মিচির করতে করতে যাচ্ছিলো ।হুংকার দিলাম “ATTENTION” (আমাদের সময় কম্যান্ড English এ ছিল।)
ছেলে গুলি যথা সম্ভব সোজা হয়ে দাড়াতে চেষ্টা করছে ! একজন একটু নড়ে উঠতেই হুংকার ছাড়লাম : BLOODY, WHY ARE YOU MOVING????              – উত্তর এলো ” ফিসলা খাই “। আবার হুংকারঃ BLOODY SPEAK IN ENGLISH  উত্তর এলঃ BHAI “CHILLIP” EAT! (অর্থাৎ পিস্ লা খাই )!!!         আর হাশি থামাতে পারলাম না। এখনো মনে পড়লে হাঁসি। I’ll treasure it through out my life!!! (চলবে)

৯৫৫ বার দেখা হয়েছে

১৩ টি মন্তব্য : “আমার ক্যাডেট কলেজের স্বর্ণালি দিনগুলি- (সাত)”

  1. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    Aziz bhai
    Salam.
    So far the way it's going on ...
    Superb ...
    Carry on bhaijan.
    Wanted to say laghe raho munna bhai.
    But hate hindi so much
    Tai banglay boli, "Cholbe"


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।