৬ টি মন্তব্য : “অ”

  1. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    চমৎকার গল্প।
    এ ধরণের গল্পের কি যেন একটা নাম আছে, মনে করতে পারছি না। আমাদের ফার্স্ট বয় নজরুল (পরবর্তীকালে ড. নজরুল, হার্ভার্ডের অধ্যাপক, বর্তমানে জাতিসংঘের সিনিয়র ইকনমিস্ট) সেই ১৯৭৩ সালে কলেজ ম্যাগাজিনে ঠিক এ ধরণের (এই স্টাইলের) একটা গল্প লিখেছিল, তখন এই স্টাইলটার নাম প্রথম শুনেছিলাম। এরপর আর এ বিষয়ে কোন চর্চা হয়নি।
    (উপরের মন্তব্যটা ভুলে শেষ করার আগেই পোস্ট হয়ে গিয়েছিল। এডিট করার কয়েকটা প্রচেষ্টা ব্যর্থ হবার পর নতুন মন্তব্য হিসেবে এটা পোস্ট করলাম।)

    জবাব দিন
    • রেজা

      আহসান ভাই, মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। আমার সাহিত্য জ্ঞান কম, আমি নাম জানি না। আপনি ১৯৭৩ সালের স্মৃতি মনে করতে পারছেন জেনে একই সাথে আশ্চর্যিত ও ভালো লাগছে।

      জবাব দিন
    • রেজা

      প্রশ্নটা আরেকটু পরিস্কার করলে ভালো হয়। আমাদের সময় প্রত্যেকদিন ৭ টা পিরিয়ড ছিল। ৪০ মিনিট সময় প্রতিটার। ৪ টা শেষ হলে মিল্ক ব্রেক। তারপর বাকি ৩ টা। গড়ে পড়তায় ৩ টা প্রেপ, আফটার নুন, ইভিনিং, নাইট। সিজন বুঝে। শীতকালে ২ টা প্রেপ। ইভিনিং আর নাইট। গড়ে পড়তায় প্রত্যেক প্রেপ ১ ঘণ্টা। এর পরেও রুমে পড়া যায় লাইটস অফের আগে ও পরে।

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।