একটু হাইসেন কিন্তু (সবার পিলিজ লাগে)…

১। ডিউটি মাস্টার বাচ্চি খান স্যার। কোন এক অদ্ভুৎ কারণে গেমসের পরে টি ব্রেক এর বাঁশি পড়ার সময় হাউসের বারান্দায় হাঁটাহাঁটি করছিলেন। আমার জনৈক বন্ধু গেমস না করার কারণে গোসলের ঝামেলা ছাড়াই নামাজের পোষাক পরে নিচ্ছিল। কেডস ও মোজা খোলার পরে হাফ শার্ট খুলে ফেললো। পরনে তখন হাফ প্যান্ট আর স্যান্ডো গেঞ্জি। এই অবস্থায় পাজামা না পরে আগে পাঞ্জাবী পরে ফেললো। ঠিক তখনই বাচ্চি খান স্যার রুমের পাশ দিয়ে হেটে যাবার সময় জানালা দিয়ে এই দৃশ্য দেখে আঁতকে চীৎকার করে উঠলেন, “হেই ইউ, ন্যাংটা কেন হে…”

২। সদ্য বিবাহিত জনৈক ইসলামিয়াতের স্যার লজ্জাবনতভাবে ক্লাশে আসলেন। কারণ, বিয়ে করে আসার পরে এটাই ছিল তার প্রথম ক্লাশ। আমরা তো যথারীতি স্যারকে চেপে ধরলাম “স্যার নতুন ম্যাডামের (স্যারদের মিসেসদের কে আমরা ম্যাডাম বলতাম) কথা বলেন ।” স্যার মনে হয় আরো লজ্জা পেলেন। তবুও অনেক কিছু বললেন। তবে সবকিছুর মাঝেও একটা কথা সবার কাছে কেমন যেন লাগলো। স্যার বলেছিলেন, “ছোট মানুষ তো বাবা-মা ছাড়া কখনো থাকেনি। আনেক কিছুই বোঝেনা ।” আমরা তো বুঝে পাইনা কি বললেন স্যার এটা। যাইহোক, সবাই আমরা যার যার মত করে বুঝে নিলাম। কলেজ পিকনিক এ স্যারের মিসেস কে দেখলাম, বোরকা পড়া। আনত নয়ন দু’টো দেখে তেমন কিছুই বোঝার উপায় নেই। হঠাৎ দেখলাম, স্যারের কোলে একটা ছোট্ট বাচ্চা ঘুমাচ্ছে। সব স্যাররা তাদের মিসেসদের নিয়ে ঘুড়ে বেড়াচ্ছেন। আর এই স্যার বিরস বদনে তার কোলে সেই ছোট বাচ্চাটিকে নিয়ে সতর্কতার সাথে বসে আছেন যেন বাচ্চাটির ঘুম ভেঙ্গে না যায়। আমরা তো অবাক, ঘটনা কি!!!! সেই দিন না স্যার বিয়ে করলেন…এর মধ্যেই কিনা… হালকা রসিকতা আর আমাদের অবাক দৃষ্টিতে বিব্রত হয়ে স্যার লাজুক হেসে বললেন, “ইয়ে মানে তোমাদের ম্যাডামের বোন। পিঠাপিঠি বোনতো… তাই ওকে ছাড়া তোমাদের ম্যাডাম থাকতে পারেনা…।” 😮
সবাই মনে হয় একটু ধাক্কা খেল। পিঠাপিঠি শ্যালিকাকে যদি কোলে করে ঘুম পড়াতে হয়…মনে পড়ে গেল স্যারের সেই কথা…“ছোট মানুষ তো…।” (ঠিক মনে নেই তখনো নারী ও শিশু নির্যাতন আইন চালু ছিল কিনা)

৩। এই ঘটনাটি আমার ফৌজদারহাটের বন্ধুদের কাছ থেকে শোনা। ফৌজাদারহাটে তখন চুল-দাঁড়ি পেঁকে যাওয়া বৃদ্ধ এক ইসলামিয়াতের স্যার ছিলেন। কি করে যেন সেই বৃদ্ধ বয়সে স্যারের একটি ছেলের জন্ম হলো। এই নিয়ে নাকি ক্যাডেট মহলে স্যারকে নিয়ে নানা আলোচনা। কেউ কেউ স্যারের দক্ষতায় মুগ্ধ। কেউবা এর উত্তর মেলাতে পারেনা। যাইহোক, বিভিন্ন সময়ে স্যার তাঁর এই ছোট ছেলেটিকে কলেজের বিভিন্ন সামাজিক প্রোগ্রামে নিয়ে আসতেন। আর ভীষণ দুষ্ট ক্যাডেটরাও এই পিচ্চিটিকে বাগে পেলে খালি চিমটি কাটতো। শুধু চিমটিই না। কিছু উৎসাহী ক্যাডেট আবার তার বাবার বৃদ্ধ বয়স হওয়া সত্ত্বেও তার জন্ম রহস্য জানতে চাইত তার কাছে। এভাবে দেখা যেত প্রায় অনুষ্ঠানেই সেই পিচ্চি চিমটি আর প্রশ্নবানে জর্জরিত হয়ে কাঁদতে কাঁদতে তার বৃদ্ধ বাবার কাছে ফিরে যেত। এভাবে একদিন স্যার আর সইতে না পেরে ক্যাডেটদের কাছে এসে মিনতি করে বললেন, “তোমরা কেন এই ছোট মাসুম বাচ্চাটিকে এভাবে চিমটি কাট? ওর কি দোষ? আমি আর কতবার বলবো, ইট ওয়াজ জাস্ট অ্যান অ্যাক্সিডেন্ট…।” :-/

৭,১২৯ বার দেখা হয়েছে

৮৭ টি মন্তব্য : “একটু হাইসেন কিন্তু (সবার পিলিজ লাগে)…”

  1. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    আহসান ভাই, বস্ লম্বা একটা ঘুম দিয়া উইঠাই সাথে সাথে আপনার কারণে পিরা গেলাম :goragori: :goragori:

    তিন নিম্বারটা পিড়া, পুরা মিরা যিবার দিশা হিলো বস্, যিদি সিত্যি সিত্যি মিরা যিই তিইলে সিটা ইপনেই দিষ x-( মির্ডির কিসির ইসিমী হিসিবা পিলিশ ইসা ইপনিরেই ধিরবো, তিখন পিলিশরেই বিলতি হিবে, ইমারে ছিইড়া দিন-সিবার পিলিজ লাগে… 😀 =)) =))


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  2. শওকত (৭৯-৮৫)

    আমার নাম আছে দেখতাছি, মাসুম। তাইলে তো ধন্যবাদ দিতেই হয়। 😀

    অফটপিক: আমি এইখানে নতুন। কিছু কিছু জিনিষ আমারে কে বুঝাইবো। যেমন পিরা, মিরা, যাস্ট.....আছেন কুন মমিন বান্দা)

    জবাব দিন
  3. সেলিনা (১৯৮৮-১৯৯৪)

    অনেকদিন পর আহসানের লেখা পড়লাম।

    হাসতেসি, কিন্তু দুই নম্বরটা পড়ে মনটাও খারাপ হইলো।

    আচ্ছা বাচ্চি খান স্যারের সাথে যোগাযোগের কোন উপায় কি আছে? ফোন, কিংবা ইমেইল? উনার মেয়ে আমাদের সাথে পড়তো, কলেজ থেকে বের হওয়ার পর থেকে সে পুরা গায়েব হয়ে গেছে।

    জবাব দিন
  4. আহ্সান (৮৮-৯৪)

    বাচ্চি খান স্যার কোথায় আছেন ঠিক জানিনা। তবে আমি জানাতে পারবো হয়তো তোকে। তথ্য যদি পাই, তাইলে এই কমেন্টের উত্তরেই কোথাও এক জায়গাতে লিখে রাখবো, দেখে নিস পরে।

    জবাব দিন
  5. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    আইচছা কেউ খিয়াল করছেন নি???আইজকাল আহসান ভাইয়ের পোস্টে বিয়া,শ্যালিকা,বাচ্চা-কাচচা ইত্যাদি জাতীয় শব্দ বেশি থাকে???

    গতকালকে আমি আর টিটো ভাই একটা আন্দোলন শুরু করমু আলুচনা করতাছিলামঃ
    এক দফা এক দাবী
    আমাদের চাই আহসান ভাবী

    আপনেরা কি কন????

    জবাব দিন
  6. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    আসাদ ভাই,
    সিসিবি জুনিদের পক্ষ থেকে পক্ষ থেকে প্রথমেই সিসিংবিধান অনুসারে :salute:
    বস্, এসেই আমাদের পিরা ভাষা বলার জন্য আবারো :salute:
    লিখা শুরু করে দেন আসাদ ভাই, নিশ্চয়ই আমরা দারুন দারুন সব লেখা পাবো আপনার কাছ থেকে :clap: :clap:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  7. রহমান (৯২-৯৮)

    :)) :)) :khekz: :khekz: =)) =)) :goragori: :goragori:

    একটু হাইসেন কিন্তু(সবার পিলিজ লাগে)

    বস্‌,
    সরি, আপনের কথা রাখতে পারলাম না। এই লেখা পিড়া আমি একটু হাসতে পারলাম না, বরং বেশিই হাইসা ফেলাইসি। এই দেখেন এখনো হাস্তেই আছি, হাস্তেই আছি,হাস্তে হাস্তে পিরাও গেছি =)) :goragori: :khekz:

    জবাব দিন
  8. আহ্সান (৮৮-৯৪)

    ওরে ইখন একটু থাম।
    পিরা গেছস ভালো, মিরা যাইসনা।

    (অফটপিকঃ সানাউল্লাহ ভাই, ইমি কিন্তু নিয়ম ফলো কিরছি। ইক বাক্যে দুইবারের বেশী বিবহার করিনাই।)

    জবাব দিন
  9. মুসা (১৯৯২-১৯৯৮)

    দারুন লেখা হইছে ।অভ্র তে লিখতে এক্তু সমসসা হচ্ছে তাই অনেক কিছু ইচ্ছা থাকা সত্তেও লিখতে পারছি না।কএক দিনের মদ্ধে ভালভাবে শিখে জাব x-( x-( x-( x-( x-( x-(

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।