অস্থিতিশীল ইয়েমেন পরিস্থিতি ও আটকে পরা বাংলাদেশিদের আর্জি

ইয়েমেন এর প্রেজেন্ট পরিস্থিতি সবাই ফলো করতেছে কিনা আমি জানিনা। গত কয়েকদিনে যা বুঝলাম তাতে মনে হলো পরিস্থিতি কিন্তু খুব বাজে কিছুর দিকে যাচ্ছে। হৌদি নিয়ন্ত্রিত বিদ্রোহী গ্রুপ পুরো দেশটাকে এক ধরণের গৃহযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছিল। এই বিদ্রোহী গ্রুপ মূলত শিয়া অধ্যুষিত। স্বাভাবিক ভাবেই মধ্যপ্রাচ্যে এক মাত্র মিত্র হিসেবে তারা ইরানকে পাশে পেয়েছে। সুন্নী অধ্যুষিত সৌদি আরব এখন যে সাম্প্রতিক সামরিক পদক্ষেপ গুলো নিচ্ছে সেটার পেছনে তারা কারন হিসেবে ব্যাখা করেছে ,” সত্যিকারের সরকারকে পুনরায় প্রতিষ্ঠা করা” কে। এই বিষয়ে হালকা আইডিয়া পেতে চাইলে ইকোনমিস্ট এর এই ছোট আর্টিকেল টা পড়তে পারেন এই লিঙ্কে। এই মিলিটারী স্ট্রাইক এর পেছনে পশ্চিমা বিশ্বের সমর্থন রয়েছে। এডেন পোর্ট এর দখল নিয়ে ঘটনার প্যাচ আরো বাড়ছে।অলরেডি সৌদি আরব এর এয়ার স্ট্রাইক চলছে। প্রতিদিন ক্যাজুয়ালিটি বাড়ছে। কেন ই বা সৌদি আরব গ্রাউন্ড ফোর্স ব্যবহার এর কথা বিবেচনা করতেছে অথবা এই ঘটনা কোনদিকে মোড় নিতে পারে সেই জিনিস এক্সপ্লেইন করতে গেলে সাত খন্ড রামায়ণ লিখতে হবে।  মধ্যপ্রাচ্য তথা সমগ্র বিশ্বের অন্যতম ভন্ড ও সুবিধাবাদী রাষ্ট্র সৌদি আরব শুধু বোমা মেরেই এই সংকট সমাধান করতে পারবে কিনা  সেই বিষয়েও আমার ব্যক্তিগত অভিমত আছে.. তবে সেই আলাপে আজ আর যাচ্ছিনা। অন্য কোথাও সে বিষয়ে কথা বলা যাবে।
আপাতত যেটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা হলো , আমাদের নিজেদের লোকদের রক্ষা করা। ইয়েমেন এর পরিস্থিতি তে বাংলাদেশ এর ১০০০০ মানুষ সেখানে আটকা পড়েছে। নিচে ফেসবুকে পাওয়া এই পোস্ট টা দিয়ে দিচ্ছি। আশা করছি সবাই ঘটনার গ্র্যাভিটিটা বুঝতে পারবেন।
সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করছি,

প্রিয় দেশবাসী,
আসসালামু আলাইকুম,
আপনাদের অবগতির জন্য জানানো যাইতেছে যে, আমরা বাংলাদেশি নাগরিক দুইহাজার এর চেয়েও বেশি সানা ইয়েমেন এ বসবাস করছি, এবং আদেন, তাইয, হুদাইদাহ, ইব্ব, মারেব, সাদা, ধামার, সবমিলে দশহাজার এর কাছাকাছি বসবাস করছি গোটা ইয়েমেন এ।বর্তমানে ইয়েমেন সম্পর্কে সবাই অবগত এবং উদবেগে আছে যে, সৌদি আরব এবং তার মিত্র বাহিনি সহ সব উপসাগর দেশসমুহ সবাই মিলে ইয়েমেন এর উপর বিমান হামলা চালাচ্ছে, এমনকি আমরা এও শুনতে পাচ্ছি, সৌদি আরব এবং তার মিত্র বাহিনি সহ সব উপসাগর দেশসমুহের সামরিক বাহিনি স্থল্প পথের দিকে এগুচ্ছে, এমতাবস্থায় আমাদের ইয়েমেন বসবাস করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে, গত এক সপ্তাহে প্রতিটি রাতে মুহুরমুহু বিমান হামলা চলছে, সারারাত এক মিনিটের নিস্তার নেই, “এক একটি রাত যেন মনে হয়, আজকের রাতই জিবনের শেষ রাত, চারপাশে শুধু বোমা আর গুলির আওয়াজ, প্রতিটি রাতই মনে হচ্ছে আজই জিবনের শেষ রাত”।
আপনাদের সদয় অবগতির জন্য জানানো যাইতেছে যে, সকল দেশের সকল দূতাবাস এরই মধ্যে ইয়েমেন থেকে চলে গেছে, এবং সকল দেশের সকল দূতাবাস তাদের সকল লোকজনকে সরিয়ে নিয়ে জাচ্ছে, গত দুইদিন ভারত, পাকিস্তান ও তাদের নাগরিকদের নিজ নিজ দেশে ফিরিয়ে নিয়ে গেছে, যারা অবশিষ্ট আশে তাদের ও সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা চলছে, আমাদের ইয়েমেন এ কোন দুতাবাস না থাকার কারনে আমরা গত দুইদিন ভারত, পাকিস্তান দুতাবাসে যোগাযোগ করেছিলাম, কিন্তু তারা আমাদেরকে স্রেফ জানিয়ে তাদের নাগরিক ছাড়া অন্য কোন নাগরিকদের সহযোগিতা করতে অপারগ, এমনকি পার্শ্ববর্তী দেশ হলেও। এখন আমরা বাংলাদেশিরা বর্তমানে খেয়ে না খেয়ে গত তিন দিন খুবই মানবেতর দিন যাপন করছি। এই মুহূর্তে সরকারের সহযোগিতা সারা আমাদের আর বাচার কোন উপায় নেই, একমাত্র সরকারের সহযোগিতাই পারে আমাদের দেশে ফিরিয়ে নিতে।।
সব দেশের সরকারেরা তাদের দুতাবাসের মাধ্যমে তাদের নাগরিকদের যেকোন উপায়ে ফিরিয়ে নিয়ে গেছে।
আমাদের ভুল কি, আমরা কি বাংলাদেশি বলে? আমাদের জাতীয়তার কি কোন দাম নেই??
আমরা প্রবাসীরা কি বাংলাদেশের কোন একটি অংশ না???
আর কিছুই বলার নেই। যদি আমাদের দেশ মনে করে যে আমরা বাংলাদেশেরই একটা অংশ, দয়া করে আমাদের জন্য কিছু একটা ব্যবস্থা করুন, ইয়েমেন থেকে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য যত দ্রুত সম্ভব।
আমাদের জন্য দোয়া করবেন।
ধন্যবাদান্তে,
মোহাম্মাদ জহিরুল ইসলাম বুলবুল
সকল ইয়েমেন প্রবাসি বাংলাদেশিদের পক্ষ থেকে।।
মোবাইলঃ- ০০৯৬৭ ৭৭৭০৫৩১১৩/৪
সানা, ইয়েমেন।
(এই কন্টেন্ট টা সোশ্যাল মিডিয়া তে শেয়ার হওয়া দরকার। আমার মনে হয় কপি পেস্ট করে শুধু ওই অংশটা ফেসবুক বা অন্য কোন প্লাটফর্মে শেয়ার করলে মনে হয় ভালো হয়। মোদ্দা কথা হলো, যতোটা সম্ভব কথা গুলো সবার কাছে পৌছে দেওয়া দরকার। আমার কাছে মনে হয়েছে ব্যাপারটা খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে হলো.. তাই তাড়াহুড়া করে পোস্ট টা দিলাম। )

১,১২৮ বার দেখা হয়েছে

৭ টি মন্তব্য : “অস্থিতিশীল ইয়েমেন পরিস্থিতি ও আটকে পরা বাংলাদেশিদের আর্জি”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    ফেসবুকে এই ম্যাসেজটা শেয়ার হতে দেখেছি কিন্তু আমাদের পররাস্ট্র মন্ত্রনালয় এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নিয়েছে কি না সেরকম কোন খবর পেলাম না। দুতাবাস থেকেও যেখানে তার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের অভাব নেই সেখানে দুতাবাস বিহীন ইয়েমেন প্রবাসীদের নিয়ে আমি আসলেই সংকিত। এখানে দেখলাম ভারতীয় নেভি শীপ এডেন থেকে ভারতীয়দের উদ্ধার করছে।

    ইয়েমেনের ঘটনার নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই নজর রাখছি। ইরান সৌদিআরবের ক্ষমতার লড়াইটার পরিনতি কি হয় দেখা যাক। মাঝখান দিয়ে আল কায়েদা আর আইএস তো আছেই।

    শিয়া সুন্নিদের ভিতরের দ্বন্দের ইতিহাস সম্পর্কে হালকা ধারনা ছিল কিন্তু বর্তমানে এটার কি অবস্থা তা নিয়ে তেমন কোন ধারনা ছিল না। বিবিসির এই ডকুমেন্টরি দেখে রীতিমত শকড হয়েছি। ভবিষত্যতে কি অপেক্ষা করছে কে জানে!


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  2. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    ইউনিপোলার ওয়ার্ল্ডে বিশ্বের শক্তিধর দেশটি ও তার দোসরদের সমরাস্ত্র পরীক্ষার জন্য বিশ্বের যেখানে প্রয়োজন, সেখানে দাঙ্গা বাঁধানো হবে। কে যেন সেদিন বললো যে যদি কোনদিন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ হয়, তবে তা হবে মধ্যপ্রাচ্য নিয়ে। টার্গেট দেশ ও তার মানুষগুলোকে বোমার আঘাতে ধ্বংস করা হবে, অবকাঠামোগুলোকে মাটিতে মিশিয়ে দেয়া হবে, তারপর আবার অবকাঠামো গড়ার জন্য সেই শক্তিধর দেশের মনোনীত ঠিকাদারকে কাজ দেয়া হবে। এগুলো চক্রাকারে চলতেই থাকবে, তবে এসব কার্যক্রমকে কেউ সন্ত্রাসী কার্যক্রম বলতে পারবেনা।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।