শিক্ষক VS ক্যাডেট এর ৬বছরের ম্যাচের কিছু ধারাবিবরনি। এপিসোড-৩

১) মকবুল হোসেন স্যার। ভূগোল dpt.স্যারের মুদ্রা দোষ ছিল আরকি আরকি বলা।আসলে ব্যাপারটা হয়েছে আরকি,আর বলো না আরকি। স্যার ”এক দিন এসে বলল এই তোমরা শোন আরকি,আমি আরকি আরকি বলা ছেড়ে দিয়েছি আর কি।” তখন পোলাপাইন আর কি বলবে?

২) ইন্টার হাউস ফুটবল কম্পিটিশন। মকবুল স্যার কমেন্ট্রি দিচ্ছে।ফুটবল স্যারের প্রিয় খেলা।তার হাউসের সাদ্দাম ভাই খুবই ভাল খেলছে।স্যার উত্তেজিত হয়ে মাইকে বলে ফেলল “এগিয়ে যাও সাদ্দাম,এবার এক কিক এ দুই গোল হয়েই যাবে আরকি।”

৩) ক্লাস টুয়েল্ভ।আমার জানালায় হলমার্ক থেকে কেনা একটা ভূতের মুখোস ঝুলানো।আফটারনুন প্রেপের বেল দিছে।আমি ঘুমাচ্ছি।মকবুল স্যার HDM.স্যার আমাকে ডাকতে ডাকতে রুমে ঢুকলেন তারপর দৌড়ে বের হয়ে গেলেন।আমি কিছুই বুঝলাম না।রাতে হাউস মাস্টার ডাকল, গেলাম।মকবুল স্যার বললেন “স্যার ওর জানালায় একটা ভূতের মাথা ঝুলানো।দেখে ভয়ে দুপুরে আমার নিজের বুকে ব্যাথা শুরু হয়ে গেছিল।ওইটা পরে যদি জুনিওর ব্লকে রাতে যায় তাইলে ভয়ে কচি বাচ্চারা মারাও যেতে পারে।”আমি টেনসনে পরে গেলাম।এত দেখি এটেম্প টু মার্ডার কেস এ ফাসাইয়া দিলো।হাউস মাস্টার বলল “যাও নিয়ে আস।”নিয়ে গেলাম।দেখেই হাউস মাস্টার বলল “আমি ঠিকই ভাবছিলাম,এটা দেখতে ঠিক তোমার মত।তোমাকে দেখলেও বুকের মধ্যে এমনই লাগে।” ওই রাতে অনেকক্ষন আয়নার সামনে দাড়িয়ে দাঁড়িয়ে নিজে নিজে বুঝলাম স্যার এমনি বলেছে আমি দেখতে এতটা ভয়ংকর না।

৪) জহিরুল হক স্যার।ইতিহাস dpt.আমাদের মফিজুর প্রেপ টাইমে হঠাৎ চেয়ার থেকে দাঁড়িয়ে ডাক দিল “জহির come here.”স্যার সুন্দর চলে আসল।মফিজুর বলল “স্যার ছেলেপেলে বেয়াদব হয়ে গেছে।আপনার নাম ধরে ডাকে।”স্যার বলল “তাই নাকি? who is that bloody?”স্যার রেগে গেলে বলতেন এটা। ঠিক তখুনি মেহেদি দাঁড়িয়ে বলল “স্যার এই মাত্রই মফিজু্র ডেকেছে আপনাকে।” স্যার বিষয়টা তখন ধরতে পারলেন। আর মফিজুর দিল দৌড়।

৫) হসপিটাল থেকে সামাজিক বিজ্ঞান পরীক্ষা দিচ্ছেন ইমরান ভাই আর সালাউদ্দিন ভাই।সব লেখা শেষ। লাঞ্চ পার হয়ে গেছে কেউ খাতা নিতে আসে না। সালাউদ্দিন ভাই আইডিয়া দিল যে ভূগোলের তো সব চিত্র আঁকা শেষ এবার ইতিহাসের চিত্র আঁকি। যেই কথা সেই কাজ। ছাপ দিয়ে এঁকে দিলেন তিতুমিরের বাঁশের কেল্লা।খাতা পেয়ে জহির স্যার তো বেজায় খুশি।তার এত দিনের অভিজ্ঞতায় কেউ কখনও ইতিহাসে চিত্র দেয় নাই।স্যার বললেন এদের পুরষ্কার দেয়ার ব্যাবস্থা করতে হবে।এই খাতা ভাইসপ্রিন্সিপাল কে দেখিয়ে এদের ২জনের সম্মাননার ব্যাবস্থা করতে রওনা হলেন।ভাইয়ারা অনেক কষ্ট করে তাকে বুঝালেন যে তারা কোন সম্মাননা চান না। ভাইসপ্রিন্সিপাল একবার খাতা টা দেখলেই সম্মাননা জুটে যেত কপালে।

২,৫৭০ বার দেখা হয়েছে

৩৬ টি মন্তব্য : “শিক্ষক VS ক্যাডেট এর ৬বছরের ম্যাচের কিছু ধারাবিবরনি। এপিসোড-৩”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    :khekz: :khekz: :khekz:
    দারুন একটা সিরিজ চলছে, ব্যাপক মজা পেলাম... চালিয়ে যাও।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  2. মেহেদী (২০০২-২০০৮)

    😀 :)) :)) :)) :)) :)) :)) :)) :))
    মকবুল স্যার ICCFM এ গিয়েছিলেন। উনার তখন প্রমশন হয়। তিনি কল পাবার পর এডজুডেন্ট স্যার এর কাছে গিয়ে বলেন " Congratulations Sir, আমার প্রমশন হয়েছে "

    এই আমাদের মকবুল স্যার!!

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।