প্রথম প্যাচাল

ব্লগে অনেকদিন ধরেই লিখবো লিখবো করছিলাম। কিন্তু বাংলা টাইপিং না জানার কারণে এতদিন পেরে উঠছিলাম না। আর আমি বরাবরই একটু অলস প্রকৃতির, ক্যাডেট কলেজে শর্টকাট মারার অভ্যাস বোধ হয় আমার আজীবনের যাবে না। তাই আমি চিন্তা করছিলাম কিভাবে স্বল্প পরিশ্রমে ব্লগ লেখা যায়। তখনই মাথায় আসলো কবিতার কথা।

সেদিন ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইলেকট্রনিকস ক্লাসে বসে বসে কবিতাটা লিখলাম। ভালোই হয়েছে অবশ্য সেই সময়টা স্যারের ভীনগ্রহের কথা বার্তা শুনে কাটাইনি। আমার এন্টেনা ভাই মৌর্য যুগের। ক্লাসে কি বলে স্যাররা কিছুই বুঝিনা, শুধুই শরৎচন্দ্রের মহেশের মতো ড্যাব ড্যাব চোখে তাকিয়ে থাকি।

কবিতার সাথে ক্যাডেট কলেজের সম্পর্ক নেই। এমনিই লিখলাম। ভুল-ত্রুটি ক্ষমা দিয়েন সবাই।

“”স্বপ্ন””

একটি ভ্রূণ, কত সাধনা-কত ধ্যান
কতই না চাওয়া পাওয়ার সম্মিলন—
অন্ধকার প্রকোষ্ঠে বেড়ে ওঠা
হয়তোবা অতল গহ্ববরের হাতছানি;
হয়তো অপার স্বপ্নের আগাম বুনন শিল্পী।

তিল তিল করে পথ চলা
কত ঘাত-প্রতিঘাতের বেড়াজাল;
তবুও স্বপ্নকে জিইয়ে রাখার তাগিদ—
নয় মাস দশ দিন
অতঃপর আবির্ভার তার; একটি মানব সত্ত্বা—
একটি মানব স্বপ্ন—
আগমনী ধ্বনি একটি নতুন পদ-যাত্রার।

মঞ্জুর
সকাল এগারোটা পঞ্চান্ন
২৫.০৮.২০০৮
কে.কে স্যারের ক্লাস।

১,১৭৭ বার দেখা হয়েছে

১২ টি মন্তব্য : “প্রথম প্যাচাল”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।