আমার ক্যাডেট লাইফ এবং প্রবাস লাইফ

২১ শে মে ১৯৯২ – প্রায় ৫৫০ এর মত নিবো’ধ কিছু বালক-বালিকার সাথে নিবো’ধ আমিও বোধশক্তি বৃদ্ধির জন্যে ক্যাডেট কলেজ নামক দেশের সনামধণ্য এক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠাণে নিজেকে বিষজ’ন দিলাম।জয়েন করার দিন আমার সাথে বাবা,মা ছাড়াও গিয়েছিল আমার প্রতিবেশী এক আপু।সবকিছুই ক্যামন যেন একটা ঘোরের মত মনে হচ্ছিল ।আর আমার এবং আমার সজ্জনদের যেভাবে আপ্যায়ণ করা হচ্ছিল আমার কাছে কলেজের সবাইকে মনে হচ্ছিল ফেরেশতা। আনুষ্ঠানিকতা ছেড়ে যখন হাউসে গেলাম তখন আমার কাছে মনে হচ্ছিল সব সিনিয়র ভাইরা আমার দিকে বিশেষ যত্ন নিচ্ছে ব্যাপারটা আমার কাছে আরও দারুণ লাগছিলন। কেন আমার প্রতি সিনিয়ররা বিশেষ যত্ন লিচ্ছিল তা বুছতে পারলাম পরের বছর যখন আমার জুনিয়র আসল।
কুইজ সবার জন্যঃ কলেজে যয়েন করার দিন আমার প্রতি সিনিয়র ভাইদের বিশেষ যত্ন নেবার কারন কি?
সঠিক উত্তর দাতাকে পদ্মভুষণ খেতাবে ভুষিত করা হবে। moderator please ensure this . ;;; ।
১৯৯৮,ক্যাডেট কলেজ থেকে দীঘ’ ছয় বছরের সাধণার পর , ডারউইনের বিবত’নবাদ তত্তকে সম্পূণ’ ভূল প্রমাণ করে একি সংখ্যক বালক-বালিকা নিবো’ধ মানুষ থেকে পরিপূণ’ নতূণ এক জাতি হিসাবে সভ্য জগতে পা রাখল। সেই জাতির নাম বরাবরের মত ক্যাডেট রাখা হল। বলাই বাহুল্য আমিও ব্যাতিক্রম রইলাম না।সভ্য জগতের এতগুল মানুষের মাঝে আমি ক্যাডেট হাসফাস করতে লাগলাম তাই কিছুটা মানুষ জাতিত্তের চরিত্র বোঝার জন্য ২০০১ সালের ডিসেম্বরে পাড়ি জমালাম প্রবাসে।আমার উদ্দেশ্য ছিল ক্যাডেট জাতি থেকে মানুষ জাতিতে রূপান্তর হওয়া।কিন্তু এটা যে আসম্ভব ! বরং দেখি আমার সান্নিধ্যে যেই আসে সেই ক্যাডেট জাতির চরিত্রের দিকে ধাবিত হয়।শেষ পয’ন্ত সিদ্ধান্ত নিলাম যে এই জাতির জাত রক্ষার জন্যে সন্যাসী হয়ে যাব।
কুইজ সবার জন্যঃ ক্যাডেট জাতির চরিত্র উপরোক্ত দুইটি প্যারাগ্রাফ থেকে সংক্ষেপে প্রকাশ কর।
সব’শ্রেষ্ঠ উত্তরদাতাকে পদ্মলেখণ খেতাবে ভূষিত করা হবে moderator please ensure this also . ;;; ।

আমার মূল লেখাটি শুরূ হবে উপরের দুইটি প্রশ্নের উত্তর পাবার পর…তাই সবার উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম।

চলবে…

২,১২২ বার দেখা হয়েছে

২৬ টি মন্তব্য : “আমার ক্যাডেট লাইফ এবং প্রবাস লাইফ”

  1. কামরুলতপু (৯৬-০২)
    কুইজ সবার জন্যঃ কলেজে যয়েন করার দিন আমার প্রতি সিনিয়র ভাইদের বিশেষ যত্ন নেবার কারন কি?

    এইটা একটা প্রশ্ন হইল নাকি আপনিই তো উত্তর দিয়ে দিয়েছেন আপনার সাথে এক আপু গিয়েছিল। এইটার জন্য পদ্মভূষণ ... এহ ভাইয়া উত্তর দিতেই লজ্জা লাগছিল কিছু লাগবে না। এখানে আমরা সবাই ক্যাডেট এইটা না পারলে তারেই পদ্মভূষণ উপাধি দেওয়া হোক।

    জবাব দিন
    • হিল্লোল (৯২-৯৮)

      সবাইকে অসংখ্য ধণ্যবাদ মন্তব্যের জন্য। কামতপুকে দুইটা
      ভূসনে ভূসিত করা যেতে পারে।যদিও আমি জানতাম উত্তর দিতে কাউকেই বেগ পেতে হবেনা।আর যেটা দেখলাম সিসিবি এর রিডার রা খুবি মনোযোগী ,কলেজে জয়েণ ডেট আসলে ২১শে মে ছিল আমার জন্যেও।যাই হোক আমি পড়ের অংশ কনটিনিঊ করব । আর যারা আমাকে চিকি ভেবেছিল তাদেরকে ধণ্যবাদ , যদি চিকি হতাম তাহলে এত খেতাবের সাথে আরও একটা খেতাব জুটত। যাই হোক আমার ব্লগিং্যের পরের অংশ একটু সিরিয়াস হতে পারে । কারন ১৯৯২ থেকে ২০০৯ এই ১৭ বছর অনেক মজার মজার অভিগ্যতা হয়েছে সেগুলো পযা'য়ক্রমে সেয়ার করব।

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।