প্রসঙ্গ – অনাগত

জানিনা মনবিদ্যার উপরে মাসরুফের দখল কতখানি, তবে আমার মনের কথা পড়ে নিতে যে ওর এতটুকু ভূল হয়নি তা বলতে পারি। অনাগতদের জন্য মাসরুফের লেখাটি পড়ে নিজের মনের ভাবটুকু প্রকাশ না করে আর পারলামনা।

২৮ আগষ্ট দিনটি খুব ই ব্যস্ত কাটিয়েছি। ষ্টেজ ডেকরেশন থেকে শুরু করে লাইটিং, হ্যান্ডস নিয়ে আসা, পারফর্মারদের নিয়ে লাস্ট মুহুর্তের ড্রেস রিহার্সেল, পুরো প্রোগ্রাম পরিচালনার দায়িত্বভার, প্রোগ্রাম নিয়ে আমার বসের টেনশন – সব কিছু মিলিয়ে আমার ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। কিন্তু এতকিছুর মাঝেও নিজেকে কি থেকে যেন বঞ্ছিত মনে হচ্ছিল। বার বার শুধু মনে হচ্ছিল, আমার তো আজ এখানে থাকার কথা ছিলনা। সিসিবি’র আড্ডা মিস করা, হই হুল্লোর করা, মনের মাঝে ব্লগের একেকজনের যে ছবিটি এঁকেছিলাম তা বাস্তবে মিলিয়ে নেবার প্রতীক্ষা- সব কিছু মিলিয়ে কেমন যেন উল্টা পাল্টা লাগছিল নিজেকে। কিন্তু ব্যাপারটা কারো সাথে শেয়ার ও করতে পারছিলাম না। প্রোগ্রামে হাসানের “ভূলে গেছি কবে…” গান টা গেয়েছিলাম। স্টেজে উঠে গানের স্থায়ীটুকু গাইবার পরে অন্তরার আগে গীটারিষ্ট যখন লীড মিউজিক টা দিচ্ছিল, ঠিক সেই মুহুর্তে আমি এই কথাটি ই ভাবছিলাম…”এই গানটা আজ অন্য কোথাও হতে পারতো……”

অনুষ্ঠান শেষে আশাতীত কমপ্লিমেন্ট পেয়েছি…কিন্তু তারপরেও থেকে গেছে একটা অপূ্র্ণতা…। এই অপূর্ণতা কেবলই আমার। সবার সাথে ভাগ করা যায়না। অনুষ্ঠানের পরে ডিনারে অনেকেই জানতে চেয়েছিল আমি আনমনা কেন ..তাদেরকে আজ বলে দেব মাসরুফের লেখাটি ব্লগ থেকে পড়ে নেবার জন্য।

মাসরুফের লেখার মঝে নিজের নামটি খুঁজে পেয়ে আমার অনুভূতিটা যে কি হয়েছে, তা আমি বোঝাতে পারবোনা…। এতকিছুর মাঝে, হাজার মানুষের ভীড়ে আমার মত ক্ষুদ্র একটা মানুষের নাম মনে রেখে মাসরুফ শুধু এটুকুই প্রকাশ করেছে, “আমরা ছাড়া আর কে পারে এমন করে ভালবাসতে?” নিজেকে নিজে প্রশ্ন করি, “কি করে এই ভালোবাসার প্রতিদান দেব?” ………কোন উত্তর খুঁজে পাইনা। এর কোন উত্তর হয়না।

১,৮৬৪ বার দেখা হয়েছে

২০ টি মন্তব্য : “প্রসঙ্গ – অনাগত”

  1. আহসান ভাইয়ের যথারীতি আরেকটা লেখা যেটা হৃদয় ছুয়ে গেলো। চমৎকার লেখা আহসান ভাই, খুব শিগগিরই আপনার গান শোনার আশায় আছি।
    সিসিবি'র আড্ডাটা নিয়ে এখনো কেউ লিখছেনা কেনো? মাশরুফ, জিহাদ তপু কিংবা অন্য কেউ? কিংবা কামরুলের 'সেইরকম' একটা রিভিউ 😉 যারা যারা সেদিন ছিলো প্রত্যেকের লেখা চাই 🙂

    জবাব দিন
  2. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    আহসান ভাই,প্রতিদান দেবার প্রশ্ন আসছে কোথেকে?আপনি বয়েসে আমাদের চেয়ে এত বড় তারপরেও সামরিক জীবনের কঠোরতার মাঝে থেকে যে এই আড্ডাতে কষ্ট করে সময় দিয়ে যান,আমাদের প্রতিটি লেখা পড়েন ও মন্তব্য করেন এটাইতো অনেক বড় পাওয়া।আপনি কিংবা শফি ভাই,আপনাদের মত বড় ভাইরাই ত আমাদের অনুপ্রেরণা।এই বেলা আপনাকে একটা কথা বলি-ইদানিং জলপাই রংএর গাড়ী দেখলেই আমি দূর থেকে উঁকি দিয়ে হলেও আপনার মুখ খোঁজার চেষ্টা করি। আল্লাহ ই জানেন কোনদিন এটা করতে গিয়ে ঝামেলা পাকাই!ভালো থাকবেন, ভাইয়া!

    জবাব দিন
    • আহ্সান (৮৮-৯৪)

      মাসরুফ,

      ভাইয়া ভুল বুঝোনা আমাকে। প্রতিদান দেয়া তো দূরে থাক, দেয়ার চিন্তা করাটাও আমার সামর্থের বাইরে।
      রুপক হিসেবে আমি তোমাদের ভালবাসার গভীরতা আমার কাছে কতটুকু, কত গুরুত্বপূর্ণ, কতটা মূল্যবান তা বোঝানোর চেষ্টা করেছি মাত্র। তোমাদের ভালবাসার প্রতিদান দেবার ধৃষ্টতা আমার নেই ভাইয়া।

      আর এখানে আসি নাড়ীর টানে। আমার সব কাজের মাঝেও এই ব্লগটি আমার কাছে অনেক বড় একটা ব্যাপার। তোমাদের লেখা পড়তে আসি আমার মনের খোড়াক জোগানোর জন্য। অর্থাৎ, আমি আমার জন্যই আসি।

      জলপাই রঙ এর গাড়ী তে উঁকি মারলে কোন ক্ষতি নেই। ভাইকেই ত খুজতেছো তাই না...ব্যাপার না...আর ঝামেলা হলে তো এই ভাই আছেই।

      ভালো থেক ভাইয়া।

      জবাব দিন
  3. ওবায়দুল্লাহ (১৯৮৮-১৯৯৪)

    চমৎকার লেখা।
    আবেগ জড়ানো মন্তব্যকথন।
    ভালো লাগলো আগা গোড়া...
    শুভেচ্ছা নিস দোস্ত।
    🙂
    আর,
    বস এর দুশ্চিন্তা ধুলিস্যাৎ করা সুন্দর প্রোগ্রামের জন্য অভিনন্দন।:clap:


    সৈয়দ সাফী

    জবাব দিন
  4. শাহরিয়ার (২০০৪-২০১০)

    আহসান ভাই
    আপনে ৯৪ এ বাইর হইসেন?
    আমাদের সালাম স্যার ও মনে হয় আপনার ব্যাচমেট।চিনেন নাকি??


    People sleep peaceably in their beds at night only because rough men stand ready to do violence on their behalf.

    জবাব দিন
  5. অর্চি (৯৯-০৫)

    সবাই সিসিবি গেট টুগেদারে যাওয়া/না যাওয়া নিয়ে কত কিছু লিখে ফেললো, আমি তো জানলামই না ব্যাপারটা হল কবে!?! :((
    আহসান ভাই, আপনি এতো ইমোশনাল, যেটা আপনার ইমেজের সাথে একদমই যায়না! :salute:

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।