চুন্নু বৃত্তান্ত

আইজ সারদিন সিসিবিতে থাইকা হাইসা ঠিক তৃপ্তি হয় নাই । অফিসে আর কত হাসুম, রানার আর বিএসএম বাইরে ঘুর ঘুর করে । ভয়ে ভিতরে ঢুকেনা, স্যার না জানি কি পরে…এইসময় ডিস্টার্ব করলে ঝারি নিশ্চিত । অবশ্য তারা ঠিকই আন্দাজ করছিল । তাই অফিস শেষে রুমে গিয়া মুনরে ফোন দিলাম । আরেকদফা হাইসা জানটা জুরাইলো । চুন্নুরে নিয়া হাসতাছিলাম । অবশ্য পরে আমি আর মুন হিসাব কইরা বাইর করলাম যে কলেজের মজার এবং বিরক্তিকর প্রসংগ উঠলে চুন্নু ইজ মাস্ট, তাই আজ মনে হইল এই উপাখ্যান সবার সাথে শেয়ার করি । তার এই চুন্নু নামকরনের একটা ইতিহাস আছে । ক্লাস এইটে থাকতে সে তার পিতার সুবাদে চীন দেশ ভ্রমনে যায়, অল্পদিনের জন্য। আর কি মনে কইরা জানিনা তার পর থেকেই আশরাফুল ইসলাম স্যার (ইংরেজি) তাকে চীনা ক্যাডেট ডাকত । আমাদের আর পায় কে, বেশ সুন্দর নাম তো !! সেই চীনা শব্দটিই কালের বিবর্তনে নিজ রুপ হারিয়ে চুন্নু রুপ ধারন করে । রিজওয়ান অবশ্য তাতেও হাল ছারে নাই, সে বানাইছে ক্যালসিয়াম কার্বনেট নু (চুনের রাসায়নিক সংকেত আর কি, চুন প্লাস নু)। এখনো মনে পরে কি মধুর স্বরেই যে সে ডাকতো, এই…ক্যালসিয়াম কার্বনেট নুউউউউ । আমরা তখন ক্লাস সেভেনে, প্রিন্সিপাল ইন্সপেক্সন ড্রিল । মুন চুন্নুর কাছে মনে হয় তুলা চাইতে গেছিল । কিপটাডা দেয় নাই । মুইন্নাও ছারে নাই, আস্ত একটা সুপারগ্লু শেষ করছে…ওর পালিশ করা জুতাজোড়া সু কেসের সাথে আটকাইয়া দেয়ার জন্য । সকালে ওর লাফালাফি দেইখা আমরা তো আমরা রুমলিডার পর্যন্ত হাইসা কুল পায়না । রুমলিডার অবশ্য পরে রাগ করছিল, দুইদিন পর যখন দেখল তার পেন্সিল আর রাবার টেবিলের সাথে আটকানো…সুপারগ্লু দিয়া । চুন্নুরে মোটামুটি আমদের কেউই দেখতে পারত না । কারো সাথে বিবাদের পর সে যখন সবার কাছে বিচার দিত প্রায়ই কেউ একজন তার প্রতিপক্ষকে ফুট কইরা বইলা বসত, এত কথা কিসের মাইর দিয়া দে না । ক্লাস টেনে কোনো এক ছুটির আগের রাতে কারেন্ট ছিলনা । সেইবার ছুটি থিকা আইসা খুব মজা পাইছি, যখন শুনছি চুন্নু সারারাত এক আলমিরার উপর বইসা ছিল, ওর কেন জানি মনে হইছিল আমরা সবাই মিলা অরে গন দিমু, অথচ আমরা এর কিছুই জানিনা । জীবনে খুব বড় পাপ করছিলাম আর কলেজে একটাই ভুল করছিলাম । এই চুন্নুরে ক্লাস টুয়েলভে আমাগো রুমে নিয়া । অবশ্য মুইন্নার দোষ বেশি, আমরা রাজি ছিলামনা, ওই কইলো দোস্ত বাদদে কেউ অরে রুমে নেয়না, বেচারা থাকবো কই । রুমে যাইয়া যে খেল দেখাইল । প্রায়ই বাকিরা কইতো তো্রা আছস কেমনে ? চুন্নুর ঘুমের আবার এক বিশেষ স্টাইল ছিল । সে লম্বা একটা টাইটস পইরা(তার নাকি শী্তে সমস্যা), খপ কইরা মুখে একটা টুথক্লিপ পরত আর শেষে একটা স্লিপিং গগলসের মত জিনিস লাগায়া রাত দশটায় ঘুমাইতে যাইত । আমরা হাসতাম আর কইতাম পাইলট এই মাত্র প্লেন নিয়া ফ্লাই করল । আর দুই তিন ঘন্টা পইরা বারোটা একটার দিকে যেই আমরা একযোগে ঘুমানোর প্রস্তুতি নিতাম হঠাত কইরা চুন্নু লাফাইয়া উঠত । চোখ থিকা গগলসটা সরায়া, খপ কইরা টুথক্লিপ বাইর কইরা পরতে বসত, আমরা মনে মনে কইতাম, শালার প্লেন ল্যান্ড করল । টুয়েলভে ফাইনাল পরিক্ষার কয়দিন আগে । সবাই দিনরাত পরতাছি । হঠাত খেয়াল করলাম একটু পরপর খালি কিসের জানি ফরর ফরর আওয়াজ আসতাছে । ঘটনা কি ? কি আর…আমাগো চুন্নু মিয়ার ঠান্ডা লাগছে, সে একটু পরপর একটা কইরা টিসু পেপার নিয়া তাই সমুলে বাইর করার চেস্টা চালাছ্ছে । প্রথমে ভালভাবে কইলাম, দোস্ত একটু বাথরুমে গিয়া ফ্রেস হইয়া আয়, আর তো সহ্য হয়না । কিসের কি, উলটা শুনায়া দিল তোর সমস্যা হইলে তুই বাইরে যা । অগত্যা আমি আর মুনই রুম ত্যাগ করলাম । যাই হোক এই কাহিনি শেষ হইবার না, শুনছি আমগো জ্বালায়া সে এখন আমেরিকা জ্বালাইতে গেছে । একবার নাকি এইর মইধ্যে দেশে আসছিল, একটা কথাই নাকি কইছে…ওর কলেজ জীবনের সব কস্টের জন্য নাকি একমাত্র মুনই দায়ী, যাক বাবা বাচলাম ।

১,২৭১ বার দেখা হয়েছে

১৪ টি মন্তব্য : “চুন্নু বৃত্তান্ত”

  1. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)
    চুন্নুর ঘুমের আবার এক বিশেষ স্টাইল ছিল । সে লম্বা একটা টাইটস পইরা(তার নাকি শী্তে সমস্যা), খপ কইরা মুখে একটা টুথক্লিপ পরত আর শেষে একটা স্লিপিং গগলসের মত জিনিস লাগায়া রাত দশটায় ঘুমাইতে যাইত ।

    :khekz: :khekz: :khekz:


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  2. তারেক (৯৪ - ০০)
    আমরা রাজি ছিলামনা, ওই কইলো দোস্ত বাদদে কেউ অরে রুমে নেয়না, বেচারা থাকবো কই ।

    এইরকম দরদ দেখাইতে গিয়া আমিও ঝামেলায় কাটাইছি দুই বছর। পুরাটা আর বললাম না।


    www.tareqnurulhasan.com
    www.boidweep.com

    জবাব দিন
  3. টিটো রহমান (৯৪-০০)

    তোমারে:clap:
    চুন্নুরে :chup:

    শুনছি আমগো জ্বালায়া সে এখন আমেরিকা জ্বালাইতে গেছে ।

    এ দেশ থেকে জ্বালানী এক্সপোর্ট হইছে


    আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।