রাজনীতির কড়চা

hasina-640x480

ফেরত আনার কী দরকার?
আজ বিএসএফ-বিডিআর (এই নাম বলা যাবে তো?) যৌথ বৈঠক হইছে। বৈঠকে বিশাল এক অগ্রগতির খবর পাইলাম আমরা। আর সেইটা হইলো সন্ত্রাসীদের তালিকা বিনিময়। বাংলাদেশ দিছে ১ হাজার ২২৭ জনের নাম। আর ভারত দিছে ৭৭ জনের নাম। ভারত যে নাম দিছে তার বেশির ভাগই কোনো না কোনো বিচ্ছিন্নবাদী নেতা। আর বাংলাদেশ দিছে সব খুনী, মাস্তানদের নাম।
প্রশ্ন হইলো আমরা ১২২৭ জন সন্ত্রাসীরে ফেরত চাইতাছি কেন? আমাদের কি সন্ত্রাসীদের অভাব পড়ছে? এমনিতেই এখন প্রতিদিন খুন বা গোলাগুলি হইতাছে। ছিনতাই তো ডাইল ভাত। দেশের মধ্যে যারা আছে তাগো যন্ত্রনাতেই বাঁচতাছি না। এখন আবার ভারত থেকে ১২২৭ জনরে ফেরত আইনা নতুন কইরা যন্ত্রনা বাড়াইতাছি কেন। তার চাইতে ওরা ঐখানেই থাকুক না। কী দরকার ফেরত আনার।

চোরে চোরে বেয়াই
বইতে পড়ছি চোরে চোরে মাসতুতে ভাই। কেন কয় জানি না। সম্ভবত চোরের সাী আরেক চোর দেয় বইলা হয়তো। তয় এখন থেইকা চোরে চোরে বেয়াই কওন যাইতে পারে। কেন বলা যায় তার একটা কারণও আছে।
একটা শুভ বিবাহের খবর দেই। কাইল এই বিয়া। পাত্রের বাবা শেখ সেলিম। আর কন্যার বাবা ইকবাল হাসান মাহমুদ। ঠিকই ধরছেন দুই জন দুই দলের। শেখ সেলিম আওয়ামী লীগের আর ইকবাল হাসান মাহমুদ ছিলেন বিএনপি সরকারের বিদ্যুৎ মন্ত্রী। দুই দল তো ঝগড়া করতেই ব্যস্ত, মিল-মহব্বত কেমনে হইলো?
সেই কাহিনী কই। গত তত্বাবধায়ক সরকারের সময় দুইজনরে তালিকাভুক্ত করছিল দুদক বা টাস্কফোর্স। দুইজনেই ছিলেন জেলে। আবার দুইজনেই কিন্তু ছিলেন একই সেলে। জেলের সেই সেল দুই শক্ররে বন্ধু বানাইছিল। সেই বন্ধুত্ব এখন বেয়াই সম্পর্কে গড়াইতাছে।
বাংলা সিনেমার পরিচালকরা এইটা নিয়া সিনেমা করে না কেন?

চোর কি বলা যাইবেক?
আদালত ঘোষণা দিছে সাবেক মন্ত্রী ও সচিব মহিউদ্দিন খাল আলমগীর বেকসুর খালাস। তত্বাবধায়ক সরকারের সময় অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে ১৩ বছর জেল হইছিল। কেন খালাস পাইলেন? কারণ যখন দুর্নীতি দমন কমিশন তালিকাভূক্ত করছে তখন এই জাতীয় মামলা করার এখতিয়ার দুদকের ছিল না। আইন করা হইছে ধরার পড়ে। এই এক যুক্তিতেই মামলা খালাস। এই কারণে আরও ৫০ জনও খালাস পাইয়া যাইবেন। এখন কথা হইলো ৫০ জনের সবাই কি সাধু ছিলেন বা আছেন? কিন্তু সবাই এবার সাধু হইয়া গেলেন। তাইলে কি তাদের আর চোর বলা যাইবে না? নাকি যে আইনে চোর বলছি সেই আইনে যাইবে না? বুঝতাছি না।

*কার্টুনটা ই-বাংলাদেশের। গুগলে সার্চ দিয়া পাওয়া গেছে।

৪,৭১১ বার দেখা হয়েছে

৬৩ টি মন্তব্য : “রাজনীতির কড়চা”

  1. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    সত্যি সেলুকাস ! কী বিচিত্র এই দেশ !

    জন্ম আমার ধন্য হলো মাগো........ 🙁


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  2. আহ্সান (৮৮-৯৪)
    জেলের সেই সেল দুই শক্ররে বন্ধু বানাইছিল। সেই বন্ধুত্ব এখন বেয়াই সম্পর্কে গড়াইতাছে।

    বিয়াপক মজা পাইলাম... কালে কালে আরো কত কি যে দেখব...

    মাসুম ভাই,
    :hatsoff: :thumbup:

    জবাব দিন
  3. কুচ্ছিত হাঁসের ছানা

    আস্তে আস্তে সবাই ছাড়া পেয়ে যাবে। বেকসুর খালাস পেয়ে মানহানির মামলা করবে। বেকায়দায় পড়ে আছে শুধু জনগণ যাদের শুধু তামশা দেখা ছাড়া আর কোন কিছু করার নাই।

    জবাব দিন
  4. তৌফিক (৯৬-০২)

    শওকত ভাই অনেকগুলা মনের কথা বলছেন।

    আমার এখন দুই বছরে খরচ হওয়া টাকা-পয়সা আর ম্যান আওয়ার্স-এর জন্য কষ্ট লাগতেছে। যে টাকা আর পরিশ্রম খরচ হইছে, এর ২% ও ভালোভাবে ব্যবহার করে গেলে দেশের মানুষের উপকার হইত।

    জবাব দিন
  5. মাহফুজ (৯২-৯৮)

    এক অদ্ভুত মাইনকা-চিপায় আছি আমরা। আমাদের ভোটের রাজনীতিতে জনগণের অপশন দুইটা - '****' লীগ, আর '****' দল। 'না ভোট' নামক একটা বস্তু আছে, কিন্তু তাতেই বা লাভ কি...ফিরতি নমিনেশন তো ওই লীগ আর দল থেকেই দিবে।
    সবচেয়ে কষ্ট লাগে যখন দেখি জনগণের একটা অংশ বাধ্য হয়ে রাজাকারকে ভোট দেয়...

    জবাব দিন
  6. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    ভাল্লাগছে। অনেক পরে কমেন্ট করলাম। সমসাময়িক পরিস্থিতি দেখলে আমার লজ্জা লাগে কিন্তু নেতাদের কিছুই হয় না। সবচেয়ে নির্লজ্জ বোধ করি বিচার বিভাগ.......

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।