হতভাগা আমি ও আমরা

আজকাল পড়াশোনা নিয়ে এত ব্যস্ত থাকি যে কোথাও কিছু করে শান্তি নেই।তবুও আজ এই লেখাটা না লিখতে পারলে মরেও শান্তি পাবনা।সেদিন আমার কিছু সামনেই বোমা বিস্ফোরণে একজন মারা গেল আর যে ভাবে গুম হত্যা চলছে কবে যে আমার নাম্বার চলে আসে বলা মুস্কিল।তাই ভাবলাম লেখাটা লিখেই ফেলি, যদিও এই লেখাটার কোন উপকারিতা আছে কিনা আমার জানা নেই।

আপনাদের মনে আছে কিনা ইউরো জোনের দেশ গুলোতে অর্থনৈতিক সংকটের কারণে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে নাগরিকরা। ইতালির সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী বয়স্ক-ভাতা কমানোর ঘোষণা দিতে যেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ছিলেন।

এই সংবাদটি আমি দেখি কোন একটি টিভি নিউজে। এটা দেখার পর আমরা মনটা এত খারাপ হয়ে যাচ্ছিল আমি বলে বোঝাতে পারবনা।আমার শুধু চোখের সামনে ভেসে উঠছিল ঈদের পর তেল সহ অন্যান্য জ্বালানির দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে আমাদের অর্থমন্ত্রীর অট্টহাসি। তখন আমার মনে হচ্ছিল আমরা কেন এত হতভাগা ।

আমি জানিনা আমরা কোন পাপের শাস্তি বয়ে বেড়াচ্ছি , কেউ জানেন কি?

ফেসবুকে “অপ্রকাশিত” শিরোনামে একটা লেখা দিয়ে শেষ করছি:

প্রভু কহিলেন, ‘তোমাদের সিলেটের বিএনপি নেতা তো পুরা মন্ত্রী হইতে পারিবে না। হুইপ টুইপ হইতে পারে ভবিষ্যতে, খুব বেশি হলে একটা উপমন্ত্রী।’

বলিলাম, ‘আপনার এই আন্দাজের হেতু কী?’

প্রভু কহিলেন, ‘শেরাটনের সামনে বাসে গানপাউডার ছিটাইয়া ৯ জন মারছিল, তারা মন্ত্রী হইছে এই যুগে। এখন সিলেট বিএনপি পুড়াইছে মাত্র ১জন। অন্তত একডজন মানুষ না পুড়াইলে ভবিষ্যতে আশা নাই। টাফ কম্পিটিশন এখন।’

আমি বলিলাম, ‘প্রধানমন্ত্রী হইতে হইলে কয়ডজন পুড়াইতে হইবে?’

তিনি কহিলেন, ‘ঐটার আলাদা তরিকা। ১৬ কোটিরে ধীরে সুস্থে প্রতিদিন পুড়ানোর খ্যামতা দেখাইতে পারলেই খালি প্রধানমন্ত্রী হইবার চান্স মিলিতে পারে।’

কৃতজ্ঞতা – আরিফ জেবতিক।

৪৯৫ বার দেখা হয়েছে

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।