‘হলি’ থেকে শিখলাম, জীবনের রং মেখে মানুষ হই ।

দিল্লী। মার্চ ১ , ২০১০। বাংলা type নিয়ে রীতিমত যুদ্ধ করতে হচ্ছে । কিন্তু তাই বলে পিছিয়ে পরলে চলবেনা , অনেক কষ্ট করে লিখছি , প্রথমেই বলি অনেক typo এবং বানান ভুল থাকবে , দয়া করে অনুবাদ করে নেবেন । অনেকদিন পরে ব্লগিং করছি । আজকে আমার ছুটি , ইন্ডিয়াতে আজকে হলি উত্সব, সবাই রং মেখে একাকার । আমিও গিয়েছিলাম , নিজেকে একটু রাঙাতে । আমার এখানকার বন্ধুরা রং দিয়ে আমাকে এমন অবস্তা করল যে আমি নিজেই নিজেকে চিনতেই পারছিলাম না। খেলা শেষে যখন বাড়িতে ঢুকছি তখন বাড়িওয়ালার কুকুর “হিরো” আমাকে দেখে আগন্তক মনে করে ঘেউ ঘেউ শুরু করে দিল।তখন বুঝলাম আমার চেহারা ভয়ঙ্কর দেখাচ্ছে , বাথরুমে গিয়ে নিজেকে দেখে বুঝলাম হিরো যে আমাকে কামড়ে দেইনি এইটাই আমার সৌভাগ্য । হলি হল বসন্তকে আমন্ত্রণ জানানোর উত্সব , দারুন করে আনন্দ করে এরা , আমার এইবার দিয়ে ২ বার হলি দেখার সৌভাগ্য হল ইন্ডিয়াতে । দিল্লী থেকে ২০০/৩০০ কিমি দুরে বৃন্দাবন , শ্রী কৃষ্ণর লীলা ভূমি , গত বছর হলি এর সময় বৃন্দাবন গিয়েছিলাম , ওইখানে মানুষেরা এত সুন্দর করে হলি খেলে চিন্তাই করা যায়না। চারিদিকে শুধু রং আর রং . লাল , হলুদ , সবুজ , কমলা , বেগুনী আরো কতকী ! জীবনের রং কি রকম জানতামনা , এইগুলাই তো জীবনের রং …বুঝতে পারলাম হলি এর রং দেখে । রং মেখে যখন সবাই একসাথে মজা করছিল তখন মনে হচ্ছিল আরে আসলে তো সবাই একইরকম দেখতে ! কে হিন্দু , কে মুসলিম কে ক্রিস্টান …কোনো তফাৎ নেই ! কার বাড়ি কোথায় জানার দরকার নেই শুধু একটাই পরিচয় আর তা হলো মানুষ ! জাতি হিসাবে ইন্ডিয়ান এবং বাংলাদেশীদের মাঝে তেমন তফাৎ পাইনি আমি , শুধু মনে হয়েছে আমরা বাঙালিরা সুবিধা বঞ্চিত , এইজন্য অনেকটা পিছিয়ে ওদের থেকে । আমাকে এই বেপারটা বড়ই কষ্ট দেয় , কেন এই ভাগাভাগি ? কেন এই বৈষম্য ? ভাবতে বসি দোষটা কার ? কপালের না আমাদের নিজের ? আজকে হলি এর পরে যখন মানুষগুলোকে দেখছিলাম তখন মনে হচ্ছিল আমরা মানুষগুলো যদি সবাই একই রং মেখে একাকার হয়ে যেতাম কত সুন্দরি না হত কার কোনো নাম নেই , জাতি নেই , ধর্ম নেই , আছে শুধু একটাই পরিচয় আমরা মানুষ ……………………

১,৭৮১ বার দেখা হয়েছে

১৬ টি মন্তব্য : “‘হলি’ থেকে শিখলাম, জীবনের রং মেখে মানুষ হই ।”

  1. আমি কি ২য় হলাম?বুঝতেসি না এখন ও।
    হলিতে ওরা অনেক মজা করে,আমার বান্ধবী থাকে পুনে তে,এখন অর হলির ছবি গুলোই দেখছিলাম,চারদিকে শুধু রং আর রং

    আপনার থিংকিং কে :salute: ভাইয়া

    জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)

    কালো আর ধলো বাহিরে কেবল,
    ভিতরে সবার সমান রাঙ্গা।

    ভাইয়া, আপনার ভাবনাটা ভালো লাগলো। পুরো পৃথিবীটা এক রঙ্গে সাজাতে পারলে অসাধারণ হতে পারতো।


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।