সুরা বাকারা- আয়াত (১৫৩-১৫৭)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম

হে বিশ্বাসিগন! তোমরা ধৈর্য ও নামাজের মাধ্যমে সাহায্য প্রার্থনা করো। আল্লাহ তো ধৈর্যশীলদের সঙ্গে আছেন। আর যারা আল্লাহর পথে মারা যায় তাদের মৃত বলো না, বরং তারা জীবিত; কিন্তু তা তোমরা বুঝতে পার না।

নিশ্চয় আমি তোমাদেরকে (কাউকে) ভয় ও ক্ষুধা দিয়ে, আর (কাউকে) ধনেপ্রাণে বা ফলফসলের ক্ষয়ক্ষতি দিয়ে পরীক্ষা করব। আর যারা ধৈর্য ধরে তাদেরকে তুমি সুখবর দাও।

(তারাই ধৈর্যশীল) যারা তাদের উপর কোনো বিপদ এলে বলে, আমরা তো আল্লাহরই আর নিশ্চিতভাবে আমরা তাঁরই দিকে ফিরে যাব। এইসব লোকের প্রতি তাদের প্রতিপালকের কাছ থেকে আশীর্বাদ ও দ্য়া বর্শিত হয়, আর এরাই সতপথপ্রাপ্ত।

১,০১২ বার দেখা হয়েছে

৮ টি মন্তব্য : “সুরা বাকারা- আয়াত (১৫৩-১৫৭)”

  1. আইরিন জামান সুরভী (১৯৯৭-২০০৩)

    তাঁদের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে ঠিক... কিন্তু আমরা এটা ভেবে অন্ততঃ একটু সান্তনা পাবার চেষ্টা করি যে আল্লাহ তাদের জীবনের গুনাহ্‌গুলির পরিবর্তে এটা শাস্তি হিসেবে দিয়েছেন; কিন্তু পরজীবনে তাঁদের উপহারের পরিমান অনেক বাড়িয়ে দিয়েছেন তাঁদের দেশপ্রেম, সততা আর যাবতীয় ভাল গুনের REWARD হিসেবে।

    আমি জানি না আমার কথাটা বলা ঠিক হল কি না... আমি এভাবে নিজেকে সান্তনা দেবার চেষ্টা করছি এখন।

    জবাব দিন
  2. ফাহিম (৯০-৯৬)

    মৃত্যু কোনো শাস্তি নয়। মৃত্যু সবার অবশ্যম্ভাবি পরিণতি। কিন্তু শহীদের মৃত্যু শুধু অসম্ভব সৌভাগ্যবানের ই হয়। তারা আসলে মরে না। তারা জীবিত কিন্তু আমরা তা বুঝতে পারি না।

    জবাব দিন
  3. আলম (৯৭--০৩)

    দেশপ্রেম ঈমানেরই অংশ। দেশের নিরাপত্তা রক্ষায় দায়িত্বরত অবস্থায় দুষ্কৃতিকারীদের ষড়যন্ত্রের কবলে মারা যান যিনি, তিনিতো নিশ্চিত শহীদ।
    দেশের স্বার্থে প্রাণদানের পরীক্ষায় তারাতো শতভাগ উত্তীর্ণ।
    আল্লাহ আমাদের সেনাপতিদের শাহাদাত কবুল করুন।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।