বাগ প্রবলেম

পোকাগুলি অকারনেই নড়েচড়ে বসে, মাথার ভেতর, লেখার শব্দগুলির ভেতর। আর তাতেই ক্রমশ পাল্টে যেতে থাকে যা বলতে চেয়েছিলাম, যা ভাবছিলাম।

লিখলাম সম্ভাবনা, তুমি দেখলে সম্ভব না …  এই পোকাগুলি খুবই নির্দোষ নির্দয় টাইপের। এরা অকারনেই ফিকশন লেখায় রেফারেন্স খোজে। লেখককে বিব্রত করে। আছে মাঝারি গোছের কিছু পোকা, এরা ক্রমাগত যন্ত্রনা করতেই থাকে। দিনরাত কুটকুট করে কাটে। যন্ত্রনায় চিৎকার করে বলতে চাওয়া কথা গুলি হয়ে যায়, হাল্কা রসিকতা কিসিমের। আমার মধ্যবিত্ত মানসিকতার মতই। সার্বক্ষনিক উপস্থিতি সর্বত্র। পরচর্চায় ব্যস্ত টাইপ। বলেও থামানো জায়না।হাত পা গুটিয়ে, মুখ বন্ধ করে বসে থাকি। মাথার ভেতর কুটকুট করতেই থাকে।

আর আছে নোংরা কিছু, অন্ধকার অশুচি কিছু। এরা থাকে মাথার গভীর অন্ধকারে। কদাচিত দেখি, এরা ভয়াবহ। এদের দেখা পাওয়াটাও একটা চটচটে ভাব তৈরি করে মনে। এরা একবার বের হয়ে আসলে চিন্তা, মন, পরিবেশ সব কদাকার করে ফেলে। চোখের সামনে তৈরী হয় কুয়াশার ঘোর। এদের বিষাক্ত বেচে থাকায়, লেখা হয়ে যায় ঘৃণায় ভর্তি … যুক্তি পুরোই আচ্ছন্ন।

যন্ত্রনায় চিৎকার করি, তুমি শোন কুৎসিত কিছু শব্দ। তোমার অবাক চোখ…

যন্ত্রনায় চিৎকার করি,  তুমি হাল্কা রসিকতা শুনে তুমি বিব্রত

লিখলাম সম্ভাবনা, তুমি দেখলে সম্ভব না …………

যে বলে, যে লেখে……  সে কিন্তু আমি আর যে বদলে দেয়, সে আমি নই। সে আমি নই।

 

১,১৬১ বার দেখা হয়েছে

১৫ টি মন্তব্য : “বাগ প্রবলেম”

  1. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    ওয়াল খুব সম্ভবত পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ এলবাম। ছবিটাও অনবদ্য হয়েছে। বিশেষ করে গেলডফের অভিনয় দেখে পিঙ্ক কে মনে হয় চোখের সামনে দেখা হয়ে ওঠে।


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।