সাপ্তাহিক ১৬

( পোস্ট খরার সুযোগে অসময়ে আমার সাপ্তাহিক নিয়ে চলে এলাম। যদিও এটা একটা ফাঁকিবাজি পোস্টে পরিনত হবার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। আশা করি পাঠকগন নিজ গুনে ক্ষমা করে দেবেন আর এটাকে প্রথম পাতা থেকে বিতাড়িত করতে সিসিবিতে পোস্টের বন্যা বইয়ে দেবেন।)

আজকে প্রায় সাড়ে তিন মাস পর ফুটবল খেললাম। আহ… কি আনন্দ। যদিও এতোদিন পরে মাঠে নামার কারনে শুরুতে কোন তালগোল পাচ্ছিলাম না, আর একটু পরপরই দম নিয়ে নিতে হচ্ছিল। তবে গোলের সামনে প্রথম সুযোগ পেয়েই ডান পায়ের তীব্র শটে গোলকিপারকে পরাভূত করে গোল করতে কোন সমস্যাই হয় নাই। ( নিজের ঢোল নিজেই কিছুক্ষন বাজিয়ে নিলাম) কিন্তু সেটা যে পুরো ম্যাচের একমাত্র সুযোগ হবে তা কে জানত। শেষ পর্যন্ত ১-৩ এ ম্যাচ হেরে মাঠ ছাড়তে হয়েছে। তবে এতোদিন পরে ফুটবল খেলতে পারার (সেই সাথে গোল করার) আনন্দে পরাজয়ের দুঃখ ভুলে গিয়েছি। এখন অপেক্ষা আবারো মাঠে নিয়মিত হবার।

গত সপ্তাহের প্রায় পুরোটাই কেটেছে বান্দরবনে, সারাদিন চরম ব্যস্ততা আর রাতে চরম ক্লান্তি। এর বাইরে বলার মত আর কিছু হয় নাই। তবে শনিবার ভাল কেটেছে । ফুটবল ক্রিকেট মিলিয়ে ভালই খেলা দেখা হয়েছে। জিম্বাবুয়ের সাথে প্রথম ম্যাচে হারার খবরে ব্যাপক মেজাজ খারাপ হয়েছিল। পরের ম্যাচ ভালভাবেই জিতেছিল। শনিবার খেলার শুরুতে মাজাকাদজা যেভাবে শুরু করেছিল তাতে ভয়ই পেয়ে গিয়েছিলাম। তবে তারপর যেভাবে একের পর এক ব্যাটসম্যান যেভাবে সুইসাইড করা শুরু করলো তাতে ওদের জন্য দুঃখই হলো, আমাদের মুশফিক যদিও ভালই চেষ্টা করেছিল ওদেরকে একটি সম্মানজনক অবস্থায় পৌছানোর। বাংলাদেশের ব্যাটিং মোটামোটি লেগেছে। তামিম দূদার্ন্ত খেলছে কিন্তু বেকুবের মতো সেঞ্চুরিটা মিস করলো। আর দলে নিজের জায়গা নিয়ে সন্দিহান আশরাফুলের চরম বিরক্তিকর ব্যাটিং দেখে প্রচুর মধুবর্ষন হয়েছে মুখ থেকে। তবে শেষে এসে আমাদের কৃতি ব্যাটসম্যানেরা যা শুরু করেছিল তা দেখে মনে হয়েছে আশরাফুল এক দিকে না দাঁড়িয়ে গেলে ঘটনা খারাপ হতে পারত। আগামীকাল আবারো খেলা আছে, দেখা যাক এবার আবার কি তামশা অপেক্ষা করছে। এই ম্যাচের ফাঁকে ফাঁকে অস্ট্রেলিয়া-ইন্ডিয়ার খেলাতেও চোখ রাখছিলাম। খেলাধূলা নিয়ে মোটামোটি খোঁজখবর রাখার পরেও অস্ট্রেলিয়ার সবাইকে চিনতে পারছিলাম না, আর যারা অনেকদিন পর খেলা দেখতে বসেছিল, তাদের কাছে ২-৩ জন বাদে বাকি সবাই ছিল অচেনা। এদের নিয়েও অস্ট্রেলিয়া কতোটা শক্তিশালী!

ফুটবলে ছিল আর্সেনাল টটেনহাম ডার্বি। ম্যাচের আগ পর্যন্ত টটেনহামের পয়েন্ট আর্সেনালের সমান থাকায় ( এক ম্যাচ বেশি খেলে) টটেনহাম বেশ আওয়াজ দিচ্ছিল, তারা নাকি আর্সেনালের সমান হয়ে গিয়েছে। এর উপযুক্ত জবাব মাঠেই দিয়েছে আর্সেনাল। দারুন উপভোগ করেছি পুরো খেলা। তবে আসল খেলা দেখাচ্ছে এবার লিভারপুল। ধরা খেয়ে খেয়ে আগের সপ্তাহে ম্যান ইউকে হারিয়ে ঘুরে দাড়ানোর ইঙ্গিত দিলেও এ সপ্তাহে আবার ফুলহ্যামের সাথে ধরা, সাথে দুইটা লাল কার্ড। ( আমিন… শকুনের দোয়ায় গরু দেখি মরে !!! ) গতকাল আবার ম্যান সিটি ড্র করছে, এ সপ্তাহ আমার জন্য বেশ ভালই গেল, তবে বড় রকম ধরা খাইছি সিসিবি ম্যানেজার লীগে।

অনেক ফাও প্যাচাল পাড়লাম। এইবার ক্ষেমা দেই। সকালে কক্সবাজার যাচ্ছি। এটা হবে আমার ষষ্ঠ বারের মতো যাওয়া। তবে আমি প্রতিবারই প্রায় প্রথম বারের সমানই উপভোগ করেছি। এবারো যাবার আগে বেশ এক্সাইটেড ( বাংলা কি হবে?) , আশা করি এবারের ভ্রমন ও অসাধারন হবে। আপনাদের দোয়া প্রার্থী।

শুভ কামনা।

২,০০৪ বার দেখা হয়েছে

৪০ টি মন্তব্য : “সাপ্তাহিক ১৬”

  1. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    মশকুনের দোয়ায় গরু মরে নাই ব্যাপার লজিক্যাল আমি আগে খেয়াল করি নাই। মস্কো থেকে আইসা প্লেয়ারদের মাঝে ক্লান্তির ছাপ ছিলো আর তার সাথে ফার্গির দল নামনোতে সমস্যা ছিলো। একটা হোল্ডিং মিড না খেলানোতে এই আকাম হইছে। ম্যানইয় ণিয়া এইবার খুব বেশি আশা করি না। লিগে তিনের মাঝে থাকলে আর চ্যাম্পিয়ন্স লীগ কোয়ার্টার ফাইনালে গেলেই খুশি।
    তোর খেলার কথা শুইনা ফুটবল খেলতে মঞ্চায়। অবশ্য গত কয়েক মাসে শরীরের যে অস্বাভাবিক বৃদ্ধি হইছে কোনকালে ফুটবল খেলতাম এইটাই মনে হয় না।
    আর সিসিবি ম্যানেজারের কথা কি কমু। আমার এক ফ্রেন্ডরে দায়িত্ব দিছিলাম। তো ও চেঞ্জ করে আমিও চেঙ্জ করি। ফলে বিশাল কইছু মাইনাস খাইছি। যা হোক এখনও আর্লি স্টেজ।
    ঢাকায় আসবি নাকি কাছে পিঠে।
    আসলে আওয়াজ দিস।
    এক সাথে খেলা দেখলাম।

    জবাব দিন
  2. কামরুলতপু (৯৬-০২)

    তোরে আগেও বলেছি ফরম্যাটটা বদলে গেছে। আগে প্রতি প্যারার প্রথম অক্ষরটা বোল্ড করে বড় করে দিতি। দেখতে ভাল লাগত। আমি আবার একটু পুরান কথা মনে রাখি তো।
    তোর খেলার কথা শুনে কি যে খারাপ লাগল। কতদিন যে কিছু খেলিনা আদৌ কোনদিন আর খেলতে পারব কিনা জানিনা। মাঝে একদিন টেবিল টেনিস খেলতে গিয়েছিলাম গিয়ে দেখি অবস্থা সুবিধার না তাই আবার অপেক্ষায় আছি। একদিন আমরাও...

    জবাব দিন
  3. রকিব (০১-০৭)

    ডজিং এর মৌসুমে তাইলে আপনি শেষ পর্যন্ত কিছু দিলেন। 😀
    ফ্যান্টাসী প্রিমিয়ার লীগে এইবার বিশাল দাঁও মারছি। এক্কারে আনলাকি ১৩ থেকে ৮ এ লাফ দিছি। :goragori:
    বান্দারবান-সফর তাইলে ভালোই গেছে দেখতাছি। 😀


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  4. তানভীর (৯৪-০০)

    এই পোস্টটা একটু ফাঁকিবাজি টাইপ হয়ে গেল আকাশ, যাই হোক- লিখছ তো! :thumbup:

    আর্সেনাল এখন পর্যন্ত সব ম্যাচে গোল করেছে। আশা করি এই ধারা অব্যাহত রাখতে পারবে। 🙂 চ্যাম্পিয়ন্স লীগ, প্রিমিয়ার লীগ, কার্লিং কাপ- সব মিলিয়ে বেশ অনেকগুলো খেলা। কিন্তু আর্সেনালের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় আহত। চিন্তায় আছি আবার না ওরা ক্লান্ত হয়ে যায়। বিশেষ করে ডিসেম্বরে দারুণ চাপ থাকে।

    সিসিবি লীগে কোন রকমে নিজের অবস্থান ধরে রাখছি। এহসান ভাই যেভাবে আগাচ্ছেন, তাতে মনে হচ্ছে আগামী এক-দুই সপ্তাহের মধ্যেই আমার পতন হবে। 🙁

    জবাব দিন
    • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

      পুরাই ফাঁকিবাজি হয়েছে ভাইয়া। 😛

      আর্সেনালের ইঞ্জুরির পজিটিভ সাইড ও আছে, এখনি টিম যথেষ্ঠ শক্তিশালী, আর ওয়ালকট, নাসরি সহ অন্যরা যখন ব্যাক করবে তখন আরো টাফ টিম হবে।

      এতদিন ধরে শীর্ষে আছেন, একটা পার্টিও দিলেন না 🙁


      আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
      আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

      জবাব দিন
  5. মেহেদী হাসান (১৯৯৬-২০০২)

    বেশ খোশ মেজাজেই আছিস মনে হয়। অনেক দিন ফুটবল খেলা হয় না। অবশ্য আমি কোন কালেই ভাল খেলতাম না। তবুও খেলতে মজাই লাগে। গতকাল অনেক দিন পর ভলিবল খেললাম... যদিও হেরেছি তবুও উপভোগ করেছি......

    সিসিবি লীগে আমার তো রমরমা অবস্থা। গত চার সপ্তাহ ধরে আমার পজিশন যথাক্রমে ১০ম, ৮ম, ৭ম ও চলতি সপ্তাহে ৬ষ্ঠ। পুরা অক্টোবরে আমি বিশাল ব্যবধানে প্রথম :awesome: :awesome: । মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগেই আমার পজিশন ছিল নীচের দিকে। হা হা হা।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।