মিরাজ

সাদামাটা একখানা ফতুয়ার সাথে নিভাঁজ খাকিতে
দীপ্ত মুখখানি! কালো চশমার অন্তরালে গভীর চোখের
শুদ্ধতা আর সারল্য শিশুকেও পরাভূত করে।
রূপালী হাতঘড়িতে জ্যৈষ্ঠের ধূসরাভ সন্ধ্যা।
স্মিত হাসিতে করতলখানি বাড়িয়ে বললেন,
হ্যালো, জেটা! দেখা হলো অবশেষে! গালে গাল উষ্ণ সম্ভাষন।
তর্জনী আর বৃদ্ধাংগুলে ক্ষুদ্রকায় বৃত্ত এঁকে বললেন,
এইটুকু মোটে পৃথিবী তাতেই আধা জন্ম পার হয়ে মিললো দেখা তোমার!
লালচে কমলা মাসট্যাঙে কলাপাতা সবুজ মন
কিশোরের মুগ্ধতার বিনিময়ে বালিকার প্রগলভ হাসি।
রেড লাইট পেরিয়ে ঝুম বাদলমেঘ,
স্টার বাকসে ফ্রাপাচিনো এগিয়ে দিতে মধ্যমা ছুঁয়ে দেয়া
বিদ্যুৎ চমকে হঠাৎ আলোর ঝলকানি, খুনসুটি, হাহাকার!
অঝোর বাদলায় সয়লাব জনপদ, নুহের নৌকায় বড় একাকী মানুষ!
লুই ভাটনের বুকের জমিনে জড়াজড়ি শুয়েছিল নিল সাদার ছাতাখানি,
কালো চশমার আড়ালে কপট গাম্ভীর্যের মুখোশখানি ছুঁড়ে ফেলে
হাত বাড়িয়ে বললেন, এসো জেটা!
জ্যৈষ্ঠের দাবদাহের পর জলে ভেজা হাতখানি ছুঁয়ে রইল উন্মুখ করতল।
সেফোরার কাজল রইল চোখের কোণে
সসি মভের দোলাচলে দেবতারও মন উচাটন,
কালো চশমার আর কীবা দোষ হায়!

১,২৭০ বার দেখা হয়েছে

১৭ টি মন্তব্য : “মিরাজ”

  1. লুৎফুল (৭৮-৮৪)

    তর্জনী আর বৃদ্ধাংগুলে ক্ষুদ্রকায় বৃত্ত এঁকে
    বিদ্যুৎ চমকে হঠাৎ আলোর ঝলকানিতে
    স্টার বাকসে ফ্রাপাচিনোর গায়ে চেপে মধ্যমা ছোঁয়া
    কালো চশমার অন্তরালে গভীর চোখের সারল্য পাওয়া

    - সৌভাগ্যের বরপূত্রের জলের সংগে সখ্যতার ছুতোনাতায় মর্ত্যে নেমে আসা ।
    নেমে আসা শব্দ সন্ধি পাতা সেফোরার কাজল চোখের কোণে সসি মভের দোলাচলে ...

    জবাব দিন
    • সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

      🙂 🙂 🙂 🙂

      আপনার লেখা মন্তব্য আমায় কমপক্ষে দুইবার পড়তে হয়, ভাইয়া! কী চমৎকার করেই না কথা বলেন আপনি! কবিতায় মন্তব্য করতে এসে আপনি ভাইয়া নতুন একটি কবিতাই লিখে ফেলেন! :clap:

      আজ সিসিবিতে কবিতার উৎসব চলছে দেখি, আর আজই কিনা আমি লিখলাম আবোলতাবোল কিছু। একজন প্রথিতযষা কবি বন্ধুর প্ররোচনাতেই আমার এই প্রলাপ বকাবকি! তখনও কি জানি, আজই সব কবিরা জোটবদ্ধ হয়ে অসাধারণ সব লেখা প্রকাশের সংকল্প করবেন। আজ কবি যে শূলে চড়বেন এ আমি নিশ্চিত!

      জবাব দিন
  2. পারভেজ (৭৮-৮৪)

    "এইটুকু মোটে পৃথিবী তাতেই আধা জন্ম পার হয়ে মিললো দেখা তোমার!" - তাও তো মিললো?
    কতজনের তো পুরো জীবন কেটে যায়, তবুও দেখা হয় না "তার" সাথে।
    যদিবা হয় অচকিতে,
    অতর্কিতে হয়তো হারাতে হয় তা,
    অন্য কোন অবলীলায়...
    কে রাখে তার খবর???

    খুব ভাল লেগেছে!!!


    Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

    জবাব দিন
    • সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

      মানুষ হারিয়ে যায় কালের স্রোতে, উই পোকায় খেয়ে যায় প্রতিকৃতি তবুত্ত কাঁচের চুড়ির মত অথবা জাইলোফোনের টুংটাঙের মত তার রিনরিনে হাসিটি কানে বাজে ঠিকই। ঘুমঘুম দুপুরে তার গাওয়া গানখানি অথবা মেঘের দুপুরে চলে এসো র নেমন্তন্ন.... সব রয়েই যায়। প্রাপ্তির খাতায় এটিই বা কম কি! হানি চলে গেছে তাতে কি, বলো? চিকেন তো রয়েই গেল, খাঁটি মধুর সন্ধানে যাও, তারপর নিজেকে আপ্যায়ন করো হানি চিকেনে! 😛

      জবাব দিন
  3. নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

    দিনের মাঝামাঝি সময়ে পড়েছিলাম। দিনশেষে ফিরে এসে আবারো কয়েকবার পড়া হয়ে গেল।
    মুগ্ধতা তো আকাশ ছুঁয়ে গেল আপা।
    দেবতার মন উচাটন হয়েছে --- এ হচ্ছে আসল কথা। থ্রি চিয়ার্স!

    জবাব দিন
    • সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

      উইকেন্ডের অবকাশে কবি তুমি সন্ধ্যাভোজ শেষে পানটান বেশী করনিতো?? সারাদিন ভয়ে ডরে কাটলো, বার কয়েক তোমার খোঁজে ঢু দিয়ে গেলাম এক চোখ মেলে। আজ সিসিবিতে কবিতার উৎসব চলছে, অসাধারণ সব লেখা প্রথম পাতা জুড়ে। আর আজই কিনা আমায় লিখতে হলো৷

      দেবতার মন পাওয়া সহজ, কবি। যন্ত্রনা করে তো মনুষ্যদল!

      জবাব দিন
  4. সাইদুল (৭৬-৮২)

    প্রথমে ভেবেছিলাম তোমার কবিতার লাইন টুকেই মন্তব্য ঠুকে দেবো ।
    পরে ভাবলাম, প্রায় সব ক'টি লাইনই তো উদ্ধৃতি হওয়ার যোগ্যতা রাখে।

    চমৎকার


    যে কথা কখনও বাজেনা হৃদয়ে গান হয়ে কোন, সে কথা ব্যর্থ , ম্লান

    জবাব দিন
  5. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    এখানে (সিসিবিতে) আমার পদচারণা বেশীদিনের নয়। পেছনের পাতা উলটানো খুব একটা হয়নি/হয়না বললেই চলে। তোমার কোন কবিতা এই প্রথম পড়লাম। ভালো লেগেছে কয়েকটা কারণেঃ
    ১। শিরোনামটা সুন্দর। ইংরেজী mirage শব্দটাকেই শিরোনামে রেখেছো, বাংলা মরীচিকা করনি, এটা ভালো হয়েছে। (নাকি এটা অন্য কোন মিরাজ, জানিনা!)
    ২। কালো চশমা, রূপালী হাতঘড়ি, ধূসরাভ সন্ধ্যা, লালচে কমলা মাসট্যাঙে কলাপাতা সবুজ মন, কিশোরের মুগ্ধতার বিনিময়ে বালিকার প্রগলভ হাসি, জ্যৈষ্ঠের দাবদাহের পর জলে ভেজা হাতখানি ছুঁয়ে রইল উন্মুখ করতল, ইত্যাদি উপমার প্রতিকী দ্যোতনা।
    ৩। কবিতায় সবকিছু ব্যাখ্যা করে বোঝানো হয়নি।
    তোমার descriptive পারদর্শিতা অসাধারণ! এর কারণে তোমার গদ্য লেখা একটা আলাদা বিশেষত্ব পায়। কিন্তু এই গুণ যে কবিতায়ও অবদান রাখবেনা, তা আমি বিশ্বাস করিনা। সুতরাং আরো কবিতা চাই।

    জবাব দিন
    • সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

      :hatsoff: :hatsoff: :hatsoff: :hatsoff:

      আমি ইংরেজী মিরাজকে দুটো কারণে পছন্দ করেছিলাম, ভাইয়া। প্রথমত, একটি মিষ্টি প্রেমের কবিতার জন্য মিরাজের তুলনায় মরিচীকা শব্দটি অতি সিরিয়াস মনে হয়েছিল। দ্বিতীয়ত, কবিতার নায়িকা মিজ জেটা জোন্স জানিয়েছিলেন যে তিনি কালো চশমার সাথে মিরাজ নামের একটি পারসিয়ান রেঁস্তোরায় মধ্যাহ্ন ভোজনে গিয়েছিলেন। এক ঢিলে শ্যাম আর কূল রাখার এমন মওকা জীবনে কম মেলে।

      কবিতার ব্যাখ্যা প্রসংগে বলি, কবিতার ব্যাখ্যা করতে আমার মন চায় না। পাঠকবর্গ একটু ভাবুন আমি চাই। সসি মভ রঙের (পেইল ব্লুইশ পারপল কালার) একখানা লিপ কালারের গল্প ভেঙে বলতে মন চায়না। কে না জানে, অবগুণ্ঠনে ঢাকা রহস্যময়ী সবার নজর কাড়ে।

      আপনার মন্তব্যের জন্য তৃষ্ণাতর্ চাতকের মত অপেক্ষায় থাকি, ভাইয়া! আপনার মত মনোযোগী পাঠক লেখকের জন্য আশীর্বাদ বৈকি! অনেক ধন্যবাদ আপনার স্নেহমাখা মন্তব্যের জন্য। 🙂 🙂

      জবাব দিন
  6. অরূপ (৮১-৮৭)

    অসাধারন সাবিনা ... :boss: :boss: :boss:
    কবিতা লিখ না, কেন কে জানে। খুব ভালো হয় লিখলে, এটাত আমরা প্রমান পেয়েই গেলাম। অপেক্ষায় থাকলাম পরের কবিতার।


    নিজে কানা পথ চেনে না
    পরকে ডাকে বার বার

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।