মায়াবিনী সপ্তস্বরা

মাঝে মাঝে বড্ড একা মনে হয় নিজেকে
আর সেই সাথে অনুভূত হয় তোমার শুন্যতা
বুকটাকে ঘিরে এক অদৃশ্য তীব্র যন্ত্রণা
এ যন্ত্রণা বেদনার, পেয়ে হারানোর অব্যক্ত বেদনার
তোমার চোখে আমি এক অদ্ভুত জ্যোতি দেখতাম
তুমি ছিলে তারুণ্যের নদীতে পাল তোলা নৌকা
তোমাকে দেখলেই তাই আমার কবিতা লেখার ইচ্ছে হতো
সেগুলো কবিতা ছিল না , ক’টি এলোমেলো শব্দ
আর এলোমেলো দুঃখের খণ্ড খণ্ড কষ্ট
জীবন নামের এই স্বোতস্বিনীতে
বড্ড একা আমি, নিঃসম্বল…।।
আকাশে চাঁদ উঠলে আজো বারান্দায় ছুটে যাই
এক টুকরো শুভ্র জোছনা এসে গায়ে পরে
সর্বাঙ্গে এক আশ্চর্য ভালোলাগা কাজ করে তখন
জোছনার মাঝেই আমি যেন খুঁজে পাই তোমার স্পর্শ
কারন জোছনারা কখনো আপন হয় না
ওরা বুকের অব্যক্ত কষ্টের মাঝে বেঁচে থাকে
ওদের ছোঁয়া যায় না, অনুভব করতে হয়
মায়াবিনী সপ্তস্বরার বেদনার রাগিণীগুলো
এক অপার্থিব সুরে জানিয়ে দেয় তোমার অস্তিত্ব
তুমি থাকবে আমার হৃদয় জুড়ে , ভেজা ভেজা কষ্টের সাথে
নিরন্তর থেকে অনন্তকাল………।

( ২০০১ সালে কোন এক প্রেপ টাইম এ বসে লেখা )

৩২২ বার দেখা হয়েছে

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।