আবোলতাবোল বাজনা – ৩

রাগ ভীমপলাশী। শুনলেই কেন জানি বিষণ্ণ হয়ে পড়ি। এত দীর্ঘ বাদনের শেষপর্যন্ত যেতে পারাটা চ্যালেঞ্জিং হবে।
প্রচুর বিচ্যুতি এবং ভুলভালসমেত নিবেদন করছি। আলস্য এবং অক্ষমতা কবুল করতঃ ক্ষমাপ্রার্থনা করছি।

২,৩০৯ বার দেখা হয়েছে

১৮ টি মন্তব্য : “আবোলতাবোল বাজনা – ৩”

  1. সাইদুল (৭৬-৮২)

    সময় নিয়ে শুনতে হবে। শিশুকালে আমাকে গানের স্কুলে যেতে হয়েছিলো। যখন গলা ভাংতে শুরু করলো নিজেই বুঝলাম কণ্ঠস্বর কুৎসিত (!) হয়ে যাচ্ছে। আর শেখা হয়নি। আরও গল্প আছে একদিন লিখবো


    যে কথা কখনও বাজেনা হৃদয়ে গান হয়ে কোন, সে কথা ব্যর্থ , ম্লান

    জবাব দিন
  2. মোস্তফা (১৯৮০-১৯৮৬)

    বর্তমানে আমাকে যে কাজটি করতে হচ্ছে, সেটি হলো আকাশের আঁচলে প্রত্যাবর্তনযোগ্য শব্দ পাঠানোর খেলা। ফিরে আসা শব্দটি কতটুকু বদলে গেল সেটি খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখা। একরকম কবিতা লেখাই, আর কি!

    'আঁচল' বলতে বুঝিয়েছি আকাশের একটি স্তর, বিজ্ঞানের পরিভাষায় তার নাম 'আয়নোস্ফিয়ার'। আর 'শব্দ' পাঠানোর যন্ত্রটির নাম 'আয়নোসন্ড'। আমার কাজে যে ডাটার ব্যবহার, মানে যাকে 'ফিরে আসা শব্দ' বলেছি, সেগুলোর 'র'-ফর্মের নাম 'আয়নোগ্রাম'। প্রতিদিন পাঁচ মিনিট পর পর এই খেলা খেলে খেলে যন্ত্রটি একেকটা দিবস-রজনীতে মোট ২৮৮ টি 'আয়নোগ্রাম' জন্ম দেয়। এগুলো দেখতে অনেকটা 'এক্সরে' কিম্বা 'ইসিজি' কিম্বা 'আল্টাসনোগ্রাফ'-এর মতো। 'র'-ডাটাকে গবেষণাযোগ্য ডাটায় রুপান্তর করতে হলে এর বিভিন্ন ফিচারগুলি চিহ্নিত করতে হয়। একে বলে স্কেলিং। স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি আছে, তবে মানুষের বিচারশক্তির কাছে সেসব শিশু। তাই গবেষণায় ভাল ফল পেতে চাইলে ম্যানুয়াল স্কেলিং-এর বিকল্প নেই। ব্যাপারটা প্রচণ্ড মনযোগ দাবি করে, সেই সাথে বিরক্তিকর ও ক্লান্তিপ্রদায়ক।

    তোমার বাজনা শুনতে শুনতে একদিনের স্কেলিং মাত্র একঘন্টায় করে ফেললাম। (সম্পাদিত)


    দেখেছি সবুজ পাতা অঘ্রানের অন্ধকারে হতেছে হলুদ

    জবাব দিন
  3. সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

    :clap: :clap: :clap: :clap:

    আহ! আ পারফেক্ট উইকেন্ড বিগিনস উইথ ইউ! কেয়া বাত, নূপুর!

    একটি গল্প বলি, শোন।

    ওস্তাদ আলাউদ্দিন খানের মিউজিক খুব পছন্দ করতেন আমাদের রবি কবি। গুরুদেবের নিমন্ত্রণে শান্তি নিকেতনে মাঝেমধ্যে বাজাতে আসতেন ওস্তাদজী। তখন তাঁকে থাকতে দেয়া হতো রবি ঠাকুরের সবচেয়ে কাছের ঘরটিতে। শান্তিনিকেতনে অবস্থানকালীন সময়ে আলাউদ্দিন খান তাঁর নাওয়া খাওয়ার সময়টুকু ছাড়া বাকী সময়টুকু ঘরে বসে বাজাতেন কবির জন্য।
    একদিন কবির একজন ভক্ত ওস্তাদজীকে জিজ্ঞাসা করলেন, আপনি দিনরাত বাজনা বাজাচ্ছেন কেন? এখানে তো কেউ নেই, কার জন্য আপনি বাজান? উত্তরে ওস্তাদ আলাউদ্দিন খান বললেন, কবিগুরু সদা ব্যস্ত মানুষ; উনি কখন অবসরে থাকেন তা আমার জানা নেই, তাই আমি দিনরাত বাজিয়ে যাই। কাজের ফাঁকে ফাঁকে গুরুদেবের যখন অবসর হবে তখনই তিনি যেন আমার বাজনা শুনতে পারেন।

    মুগ্ধতায় ডুবে আছি। ফোনের ভয়েস মেমোসে তোমার সুদীর্ঘ এবং সুবাদ্য ভীমপলশ্রীকে তুলে রাখলাম; দিনের সকল কাজ ও অকাজের ফাঁকে ফাঁকে আবারও এক টুকরো নূপুরকে পাবো বলে! :clap: :clap:

    (সম্পাদিত)

    জবাব দিন
  4. লুৎফুল (৭৮-৮৪)

    এমন তারের দ্যোতনা কর্ণকূহরে প্রবেশ করলেই কেমন যেনো এক ভাবালুতায় গ্রাস করে নেয়। আর তা যদি হয় বিষন্নতার জল মাখা তবে তো... তবে তো......
    হোক বিষন্নতা, হোক আনন্দ, বাজুক তোমার বীনা... বাজুক সেতার.... বাজুক সরোদ..... বাজুক মোহন বাঁশী.....
    বাজুক সকলি, অনুভবের সুখ-দু:খ-হেয়ালী।
    :boss: :boss:

    জবাব দিন
  5. জিয়া হায়দার সোহেল (৮৯-৯৫)

    বাহ, নুপুর ভাই অনেক সুন্দর বাজায়ছেন। এমনিতে বেশ কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন রাগ সঙ্গীত শুনছিলাম। এখন রাগ অনেক ভালো লাগে। নুপুর ভাই সত্যি আপনি অসাধারন মানুষ। শুভকামনা। :clap:

    জবাব দিন
  6. সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

    🙂 🙂 🙂 🙂

    সিসিবিতে প্রায় তেইশ মিনিট ধরে বাজাতে গাটস লাগে, নূপুর! তোমার সেই গাটস আছে বলতেই হবে। রাগ অনুরাগের জন্য তেইশ মিনিট এক লহমা বৈ তো নয় জানি তবুত্ত সাহস থাকা চাই। তোমার সুরের টানে ঘুম ভাংলো আজ। আবারও বিনা সুদে তেইশ মিনিট ধার দিতে হলো তোমাকে। শুনতে শুনতে মনেহলো, You are the music while the music lasts!

    জবাব দিন
  7. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    :clap: :clap: :clap:
    মুগ্ধ হয়ে তোমার এই 'আবোল তাবোল' বাজনাটাই শুনে গেলাম। শুনতে শুনতে এরই ফাঁকে অবশ্য একটা কবিতাও লিখে ফেলেছি। বাজনার শেষটুকু বড়ই চমৎকার লেগেছে আমার এ অপ্রশিক্ষিত কর্ণযুগলেও।
    ওয়েল ডান!

    জবাব দিন
    • নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

      অশেষ ধন্যবাদ খায়রুল ভাই!
      দুঃখিত বেশ কয়েকদিন পর জবাব দেবার জন্যে। ব্যস্ততার জন্যে ক'দিন মন্তব্য করে উঠতে পারিনি।
      ধন্য হলাম খায়রুল ভাই, যে, আমার অক্ষম সুর আপনার কবিতা লেখার উপলক্ষ হতে পারলো।
      বাজনার শেষ অংশের নাম 'ঝালা'।
      লেখাটা কি শেয়ার করবেন এখানে?

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।