The River – আনন্দ শঙ্কর

ইদানিং
নদীর মতন আসেনা কেউ!
তার মতন ঢেউ
তুলে কেউ বলেনা –
চলো,
ছলোছলো
চোখ মুছে নিয়ে

এলে যে কি নির্ভার
হতাম! কি দিয়ে
তাকে ডাকি,
বুকে রাখি
ভেবে বার করার
আগেই, আনন্দ,
আপনি বাজালেন
দি রিভার!

মে ২৭, ২০১৫। ফেসবুক

৩,৬৫৭ বার দেখা হয়েছে

৩১ টি মন্তব্য : “The River – আনন্দ শঙ্কর”

  1. অরূপ (৮১-৮৭)

    বাহ, যুগলবন্দীটা চমৎকার হয়েছে ... :thumbup: :thumbup: :thumbup:
    আনন্দশঙ্কর শুনে তোমার কবিতা ... তবে ফুরিয়ে গেলো অনেক তাড়াতাড়ি
    আমাদের পড়বার আর শুনবার ক্ষুধা দুটোই বাড়ছে কিন্তু ...


    নিজে কানা পথ চেনে না
    পরকে ডাকে বার বার

    জবাব দিন
  2. সাইদুল (৭৬-৮২)

    এই বাজানোটাআমি চিনি, ইন ফ্যাক্ট এই সুর দিয়েই আমি আনন্দ সরকারকে চেনা শুরু করি, সেই কলেজে পড়ার সময়, তবে এর নাম যে রিভার সেটা প্রথম জানলাম।
    তোমার কবিতাটাও হয়েছে চমৎকার । অরূপ যেমন বলেছে, যুগলবন্দীটা চমৎকার হয়েছে


    যে কথা কখনও বাজেনা হৃদয়ে গান হয়ে কোন, সে কথা ব্যর্থ , ম্লান

    জবাব দিন
  3. মোকাব্বির (৯৮-০৪)

    মধু, লেবু, একটু ভদকা। পড়া ও শোনা শেষ করে এই তিনটে উপকরণের নাম মাথায় এল। সম্ভবত কিছুই হয় না। তবুও এল! 🙂


    \\\তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা
    অবুঝ শিশু হামাগুড়ি দিল পিতামাতার লাশের ওপর।\\\

    জবাব দিন
  4. খায়রুল আহসান (৬৭-৭৩)

    কবিতার প্রথম স্তবকটা খুবই চমৎকার হয়েছে। আর মিউজিকটা, চেনা সুর, আগে আমার একটা প্রিয় ক্যাসেটে ফিলার হিসেবে ছিল। এটা শুনতে শুনতে বহুদিন ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। অজানা ছিল যে এটা আনন্দ শংকর এর 'রিভার' এর সুর। এখন জানা হলো। ধন্যবাদ।

    জবাব দিন
  5. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    নূপুরদা,
    মিউজিকের সাথে কোন মতেই 'রিভার' রিলেট করতে পারলাম না। 🙁

    আমার মনে যে দৃশ্যের অবতারনা হল তা এরকম-

    ওয়েস্টার্ন সিনেমার শেষ দৃশ্য।
    নায়ক সব ভিলেন মেরে-টেরে সাফ করে লাফ দিয়ে ঘোড়ায় উঠল, হ্যাটটা হালকা নড করে উপস্থিত শহরবাসীকে বিদায় জানিয়ে ঘোড়া ছুটিয়ে দিল।
    দ্রুত শহর থেকে বের হয়ে ঘোড়া সোজা ছুটতে থাকল...
    দিগন্তজোড়া বিশাল তৃণভূমি হবার কারনে কোন ঝামেলা ছাড়াই ওরা চলতে থাকল...
    এদিকে স্ক্রিনে ক্রেডিট দেখানো শুরু হয়েছে...
    ব্যাকগ্রাউন্ডে আমাদের হিরো ঘোড়ায় চড়ে ছুটছে আর ছুটছে...ধীরে ধীরে ছোট হয়ে আছে তাদের অবয়ব... 😀


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  6. পারভেজ (৭৮-৮৪)

    যে তিন চারটা ক্যাসেট সারাটা এক্সকারশনে সুন্দরবনের নিরবতা ভেঙ্গে নদীর বুকে ছন্দ ছড়িয়েছিল, এটা তারই একটা।
    শুনতে শুরু করেই এক টানে ৩২ বছর আগের সেই সুন্দরবনে ফিরে গেলাম......

    মনে পড়ছে, এসপি রুহিতে শুয়ে নদী বক্ষে এই সুর শোনাটা দারুন মানিয়ে গিয়েছিল।
    কবিতাটাও সেইরাম চমৎকার মানিয়েছে।
    দারুন! দারুন!!
    :hatsoff: :hatsoff: :hatsoff:


    Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

    জবাব দিন
  7. সাবিনা চৌধুরী (৮৩-৮৮)

    :clap: :clap: :clap: :clap: :clap: :clap:

    হেডফোনে আনন্দ শংকর চাপিয়ে চোখ রাখলাম তোমার নদীতে, নূপুর! একবার নয় বেশ কবার জানো, মনে পড়ে গেল পোকাহন্টাসের বিখ্যাত সংলাপ, ইউ ফ্লো থ্রু মি, লাইক আ রিভার! তোমার কুহকিনী নদীর আহ্বান আমিও যেন শুনতে পেলাম বহু দূরের শহর থেকে। 🙂

    জবাব দিন
  8. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    প্রথম যে ওয়েস্টার্নটা হার্ড ডিস্কে পেলাম সেটার প্রথমটুকুতে ব্যবহার করে দেখলাম মন্দ লাগছে না! 😀
    (ইউটিউবে আপলোড করতে দেয় না, কপিরাইট ঘাপলা! ) (সম্পাদিত) (সম্পাদিত)


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।