শরৎবাবু, এ চিঠি পাবে কিনা জানি না … … [উত্তর মিলিয়ে নিন: Bold করে দেয়া আছে]

প্রিন্সিপার ইন্সপেকশনে স্টোর রুমের কদর খুব বেড়ে যেত … … কারণ … (… … থাক, নাইবা বললাম … …) তো একবার রুমের সকল “নিষিদ্ধ দ্রব্যাদি” একটা ভাঙা বালতিতে ভরে স্টোর রুমে রেখে আসলাম । যথারীতি ইন্সপেকশন শেষ … … আর ইন্সপেকশন যেখানে শেষ, আমার আজকের গল্প সেখানেই শুরু … … …

ইন্সপেকশন শেষ হবার পর ঐ বালতিটি রুমে নিয়ে আসলাম, কিন্তু বালতির ভিতরে পেলাম আরও দুটো জিনিস … … দুটি চিঠি … … ডায়রির দুটি পাতা … … ছেড়া, ছিন্ন , মলিন … … তার একটা চিঠি আজ সবার সাথে শেয়ার করব ।

========================

দেবদাস,
অনেকদিন পর তোমাকে চিঠি লিখছি। একদিন তোমাকে বলেছিলাম, আমি অরক্ষণীয়া নই। সে ভুল আমার ভেঙে গেছে। প্রথমে বড়দিদিমেজদিদির পথ নির্দেশে চলতাম। কিন্তু ওদের কথায় যখন হরিলক্ষীরামের সুমতি হল না, তখন পথের দাবী ছেড়েই দিলাম। বইকুণ্ঠের উইল পেয়ে শ্রীকান্তেদেনা-পাওনা চুকিয়ে দিয়ে পথে নামলাম।এমন সময় দেখা হল পণ্ডিতমশাইয়ের সাথে। তাঁর অনুরোধে চন্দ্রনাথের সাথে পরিণীতা হলাম।বেশ কিছুদিন ভালই কাটল। একদিন বিপ্রদাস আমার স্বামীকে বলল, আমি চরিত্রহীনা। এমন কি বামুনের মেয়ে হয়ে কাশিনাথের বাগদত্তা ছিলাম। তবুও গৃহদাহ থেকে নিস্কৃতি পেলাম না । ছবি দেখেছি, বুঝেছি দর্পচূর্ণ হইয়াছে। তোমার কাছে এই আমার শেষ প্রশ্ন, কেন সমাজ নারীর মূল্য দিল না? এই কি তোমার সেই পল্লীসমাজ? থাক ওসব কথা; শুভদাকে বলিও , তোমার অনুরাধাকে যেন বিন্দুর ছেলের হাতে সঁপে দেয়। পরেশ কেমন আছে?তোমার সাথে যদি আর শেষ পরিচয় না হয়, তবে দোষ দিও না।

ইতি
বিরাজ বৌ

=================

[পুরো চিঠিতে শরৎচন্দ্রের বিভ্ন্নি উপন্যাস ও ছোটগল্পের নাম ব্যবহার করা হয়েছে। খুঁজে বরে করুন সেই নামগুলো কী কী। উত্তর আগামীকাল দেব, তবে আমার মনে হয়, শরৎপ্রিয় ক্যাডেটরা আমার উত্তরের অপেক্ষায় থাকবে না … নিজেরাই … … ]

[অনেক খুঁজেও সেই ডায়রির মালিককে বের করতে পারিনি , তবে ডায়রির কোণায় যে তারিখ দেয়া ছিল তার সালটা ছিল : ১৯৮৩, দিন, মাস পাই নি ]

পরের চিঠিটা অন্য একদিন … …

২,৬৪৭ বার দেখা হয়েছে

৩২ টি মন্তব্য : “শরৎবাবু, এ চিঠি পাবে কিনা জানি না … … [উত্তর মিলিয়ে নিন: Bold করে দেয়া আছে]”

  1. বড়দিদি
    মেজদিদির
    বৈকুণ্ঠের উইল
    রামের সুমতি
    শ্রীকান্ত
    পণ্ডিতমশাই
    চন্দ্রনাথ
    পরিণীতা
    চরিত্রহীন
    বিপ্রদাস
    গৃহদাহ
    বাগদত্তা
    দর্পচূর্ণ
    নারীর মূল্য
    পল্লীসমাজ
    শুভদা
    বিরাজ বৌ
    দেবদাস
    দেনা-পাওনা

    জানি না হইছে কিনা, সবগুলাই কি শরৎচন্দ্রের? কনফিউজড... যেইটা যেইটা মনে হইল দিয়া দিলাম।

    জবাব দিন
  2. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    দেবদাস,অরক্ষণীয়া,বড়দিদি,মেজদিদি,রামের সুমতি,পথের দাবী,বৈকুন্ঠের উইল,শ্রীকান্ত,দেনা-পাওনা,পন্ডিত্মশাই,চন্দ্রনাথ,পরিনিতা,বিপ্রদাস,চরিত্রহীনা,বামুনের মেয়ে,বাগদত্তা,গৃহদাহ,নিষ্কৃতি,দর্পচুর্ণ,শে্যষ প্রশ্ন,নারীর মূল্য,পল্লী সমাজ,শুভদা,অনুরাধা,বিন্দুর ছেলে,শেষ পরিচয়,বিরাজ বৌ 😀
    একটা দুইটা মিস যাইতে পারে...
    যাউক,বিসিএসের রিভাইস হইলো 😀 😀

    জবাব দিন
  3. মেলিতা

    দেবদাস
    অরক্ষণীয়া
    বড়দিদি
    মেজদিদির
    হরিলক্ষী
    রামের সুমতি
    পথের দাবী
    বইকুণ্ঠের উইল
    শ্রীকান্তের
    দেনা-পাওনা
    পণ্ডিতমশাইয়ের
    চন্দ্রনাথ
    পরিণীতা
    বিপ্রদাস
    স্বামী
    চরিত্রহীন
    বামুনের মেয়ে
    কাশিনাথ
    বাগদত্তা
    গৃহদাহ
    নিস্কৃতি
    ছবি
    দর্পচূর্ণ
    শেষ প্রশ্ন
    নারীর মূল্য
    পল্লীসমাজ
    শুভদা
    অনুরাধা
    বিন্দুর ছেলের
    পরেশ
    বিরাজ বৌ

    ছোট বেলায় সময় পেলেই শরতচন্দ্র রিভিশন দিতাম 😀

    জবাব দিন
  4. টিটো রহমান (৯৪-০০)

    · পরিণীতা (১৯১৪)

    · বিরাজ বৌ (১৯১৪)

    · পণ্ডিত মশাই (১৯১৪)

    · রামের সুমতি (১৯১৪)

    · বিন্দুর ছেলে (১৯১৪)

    · মেজদিদি (১৯১৫)

    · পল্লী সমাজ (১৯১৬)

    · বৈকুণ্ঠের উইল (১৯১৬)

    · দেবদাস (১৯১৭)

    · চরিত্রহীন (১৯১৭)

    · নিষ্কৃতি

    · শ্রীকান্ত (১ম পর্ব) (১৯১৭)

    · শ্রীকান্ত (২য় পর্ব) (১৯১৮)

    · দত্তা (১৯১৮)

    · গৃহদাহ (১৯২০)

    · বামুনের মেয়ে (১৯২০)

    · ছবি (১৯২০)

    · শ্রীকান্ত (৩য় পর্ব) (১৯২৭)

    · শ্রীকান্ত (৪র্থ পর্ব) (১৯৩৩)

    · দেনাপাওনা (১৯২৩)

    · পথের দাবি (১৯২৬)

    · শেষ প্রশ্ন (১৯৩১)

    · বিপ্রদাস (১৯৩৫)


    আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।