একটি ব্লগর ব্লগর

আর সবার মত শুরু করব নাকি বুঝতে পারছি না। আমার লিখতে ইচ্ছা করছে- ” অনেক দিন ধরেই ভাবছি লিখব, কিন্তু সাহস আর সময়ের অভাবে লেখা হয়ে ওঠে না”। অনুভূতির ব্যাপারগুলো মনে হয় ক্যাডেট প্রজাতি (বিভিন্ন সময় আর জটিল পরিস্থিতিতে পড়ে বুঝতে পেরেছি যে, ক্যাডেটদের একটি আলাদা প্রজাতি বলা সম্ভব)-র প্রায় একরকম। তাই আমিও জানি আমার লেখা যতই বস্তাপচা হোক, সিসিবি ভাইরা এই পচা-গন্ধই বরাবর নেওয়ার জন্য আমাকে আবার ব্লগ লেখার জন্য “খুব ভাল হইছে, চালায়ে যাও” এই জাতীয় কথা বলবেন।

সিসিবিতে ব্লগ না লিখলেও আমি মোটামুটি নিয়মিত। সময়ের স্রোতে “একদা ক্যাডেট ছিলাম”-এটাই ভুলতে বসেছিলাম। কিন্তু সিসিবিতে এসে আবার সেই দিনগুলো কখনো হাসায়, কখনো না কাঁদালেও মন যে একটু হলেও আর্দ্র না হয়ে যায় না,তা ক্লাস সেভেনে সাত দিন থেকে কলেজে আর ফিরে না আসা ক্যাডেটও বলতেও পারবে না। তাই কাইয়ুম ভাই, আন্দালিব ভাই, মাশরুফ ভাই, জিহাদ ভাই, অনেক ক্যাডেট ভাই এবং আরো নন-ক্যাডেট আপু-ভাই (তাদের :salute: , আমাদের মত আধা-রবোটের অনুভূতি শেয়ার করার দুরূহ চেষ্টার জন্য)-দের আমি ভালই চিনি। :just: ফ্রেন্ড, লুঙ্গি, তিন প্রহরের বিল, চায়ের দোকান এর মত পিন গুলোও জানা।

বেশি লিখব না ভেবে কলম হাতে নিয়েছিলাম। রাত ৩টার বেশি বাজে, সকালে আবার যুদ্ধে নামতে হবে (যে কাজগুলো ক্যাডেট কলেজে করতে হয় নাই, এখন তাও করতে হয়)। কিন্তু এখনো যা নিয়ে লিখব তাই শুরু করি নাই। লেখার উদ্দেশ্য হল, আমি ফ্রাঙ্কফুর্ট, জার্মানি থেকে র‍্য়াভেন্সবার্গ, জার্মানিতে চলে যাচ্ছি। এই শহরকে কখনোই নিজের মনে হয়নি। এই স্টেট এর স্টুডেন্ট’ল আর বিদেশীদের প্রতি স্থানীয়দের মনোভাব (সংগত কারণেই) সহ অনেক কারণই কাজ করেছে এই সিদ্ধান্তের পেছনে। জার্মানরা বলে, তারা নিজেরাই ফ্রাঙ্কফুর্ট চেনে না। পুল এর কিউ বলের মত জায়গায় জায়গায় ধাক্কা, মানুষের দেহের ও মনের রং-এর প্রকারভেদ আর রং-এর পরিবর্তন দুটোই দেখেছি এবং দেখে শিখেছি এই ফ্রাঙ্কফুর্টেই। সাবটাইটেল- অভিজ্ঞতা সুখকর নয়। তাই ফ্রাঙ্কফুর্ট থেকে প্রস্থান আনন্দেরই হওয়ার কথা। কিন্তু যুক্তিহীনভাবেই খারাপ লাগছে। মনে হচ্ছে যা-ই কেড়ে নিক না কেন, অনেক সময়ই তো শূন্য হাতে ফেরায়নি। আমি মোটামুটি নিশ্চিত, আল্লাহর পাপী বান্দা দোযখের আগুনে পুড়ে শুদ্ধ হয়ে জান্নাতে যাওয়ার পর দোযখের সাপ আর প্রহরীদের মিস করবে। আমিও হয়তো রাভেন্সবুর্গ যাওয়ার পর নস্টালজিক হয়ে যাবো আর ভাববো আগেই মনে হয় ভালো ছিলাম।

লম্বা গ্যাজান দিয়ে ফেললাম। প্রিফেক্ট ছিলাম না বলে বেশি গ্যাজানের স্বভাব নাই। আবারো ধন্যবাদ সিসিবিকে ক্যাডেট ফিলিংসগুলোকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য। ::salute::

( অ টঃ ভাই, একটা ব্লগিং বুকিং কোচিং সেন্টার খুলেতে পারেন। হেভি জমবো ভাই। ওই কোচিং-এ এইজ, সেক্স আর রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসওয়াইজ স্ট্যাটাস, কমেন্ট আর পোস্ট দেওয়া শেখানো হইবো। আইডিয়া টা নিয়া ভাইবা দেখতে পারেন 😉 । )

১,৫৭৫ বার দেখা হয়েছে

১৪ টি মন্তব্য : “একটি ব্লগর ব্লগর”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    ব্লগে স্বাগতম ইশতিয়াক, আগে কুইক ১০টা ডিগবাজি লাগাও... বাকি কথা পরে বলতেছি।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।