ফ্যান্টাসি ফুটবল ইজ ব্যাক :D

ফুটবল পাগলদের এখন সুসময়। আগস্ট মাস এসে গেছে। বেজে উঠেছে ইউরোপিয়ান লিগগুলোর দামামা।বরাবরের মত বিভিন্ন পত্রিকা/চ্যানেল/ওয়েবসাইট আয়োজন করছে বিভিন্ন ফ্যান্টাসি ফুটবল প্রতিযোগিতার। চা’ওয়ালা রকিব আর কোলকাতার আকাশ খোমাখাতায় বলল ফ্যান্টাসি ফুটবল নিয়ে পোস্ট দিতে, ভাবলাম দিয়ে দেই, অনেকদিন তো কোন পোস্ট দেই না 😛

ম্যাক্সিস এফসি ম্যানেজার

জনপ্রিয় স্পোর্টস চ্যানেল ইএসপিএন স্টারস্পোর্টসের ফ্যান্টাসি ফুটবল প্রতিযোগিতা ‘ম্যাক্সিস এফসি ম্যানেজার’ এর এবারের প্রাইজমানি মাথা ঘুরিয়ে দেয়ার মত। গতবার বছরের সর্বোচ্চ পয়েন্ট অর্জনকারী যেখানে ৭৫০০ ডলার পেয়েছিলেন, এবার তা বেড়ে হয়েছে ২০ হাজার ডলার :dreamy:

পরবর্তী দু’জন পাবেন যথাক্রমে ৫ হাজার আর ৩ হাজার ডলার :guitar:

এছাড়া পুরো সিজনকে ভাগ করা হয়েছে ছোট ছোট নয়টি ভাগে, প্রত্যেক ভাগের বিজয়ী (উইনার অব দ্য মান্থ) পাবেন ১০০০ ডলার করে।

আরেকটি চমক থাকছে বছরের সেরা লীগ (লীগ অব দ্য লীগস) পুরষ্কারে, সিজনের গড়ে সর্বোচ্চ পয়েন্ট পাওয়া তিন লীগের ম্যানেজারেরা পাবেন যথাক্রমে ৬ হাজার, ৩ হাজার আর দেড় হাজার ডলার।

জানুয়ারি থেকে সব রেজিস্টার্ড টিম নিয়ে শুরু হওয়া নকআউট কাপের বিজয়ী জিতবেন ২৫০০ ডলার।

বেসিক কিছু জিনিস আবার বলে দিচ্ছি — প্রত্যেক প্রতিযোগীকে ১৬০ মিলিয়ন পাউন্ডের একটি ভার্চুয়াল বাজেট দেওয়া হয়, যা দিয়ে তাকে ১৬ জনের একটা দল বানাতে হয়। তবে প্রিমিয়ার লিগের কোনো দল থেকে সর্বোচ্চ তিনজনের বেশি খেলোয়াড় নেওয়া যায় না। একজন ফ্যান্টাসি ম্যানেজারের সাফল্য নির্ভর করে তূলনামূলকভাবে কম দামি খেলোয়াড় নির্বাচনের ওপর। ১৬ জনের ভার্চুয়াল এ দলটির আক্রমণভাগের খেলোয়াড়রা বাস্তবে খেলায় যখন গোল করেন অথবা রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা যখন ক্লিনশিট রাখেন তখন যেমন পয়েন্ট পান ফ্যান্টাসি ম্যানেজাররা, তেমনিভাবে পয়েন্ট হারান তারকারা যখন হলুদ কার্ড বা লাল কার্ড দেখেন মাঠে।

আগের পোস্টগুলো যারা মিস করেছেন তাদের জন্য আমি এখানে আবারো নিয়ম/টিপসগুলো দিয়ে দিচ্ছি

টিপস

১। ১৬ জনের মাঝে ১৫ জন (ম্যানেজার বাদে) যেন নিয়মিত মাঠে নামা খেলোয়াড় হন সে দিকে নজর দিতে হবে।

২। বড় দলগুলো থেকে ম্যানেজার নেয়া ভাল, কারণ ম্যানেজার দল জিতলে +৫ পান, আর অন্যদের ম্যানেজার যদি হেরে যান, আপনার হয়ে যাবে +৭।

৩। এবার গোলকিপার ক্লিন শীটের জন্য অনেক পয়েন্ট পাবেন, তাই আমি বড় টিমের গোলকিপার আর ৫-৩-২ ফর্মেশনে গোলস্কোরিং ডিফেন্ডার/ক্লিন শীট বেশি রাখার চান্স বেশি এমন ডিফেন্ডার নেয়ার পক্ষপাতী।

৪। বেস্ট ফর্মেশন ৫-৩-২। অন্য ফর্মেশনে টিম সাজাতে গেলে বাজেটে কুলায় না।

৫। স্কোরিং ডিফেন্ডার নেয়া ভাল, যেমন বেইনস, ভারমেলেন অথবা যারা গোল বানায়ে দেয়, যেমন কোল, জনসন।

৬। এবার যারা নতুন লিগে তাদের মধ্য থেকে ভালো প্লেয়ার নিতে হবে। যেমন আদেল টারাবট (কিউপিআর) আর স্কট সিনক্লেয়ার (সোয়ানসী সিটি)।

৭। স্ট্রাইকিং এ ওয়েস্টব্রমের ওদেমোয়েনগি, কিউপিআর এর ডিজে ক্যাম্পবেল (এখনো নাম আসে নাই মনে হয়, কিন্তু আসবে) কম বাজেটে ভালো অপশন।

৮। ধরে নেই ৫-৩-২ ফর্মেশনে খেলা কারো দলে তিনজন স্ট্রাইকার – ডিফো, রুনি আর তেভেজ। এখন রাত নয়টায় ডিফো আর রুনির খেলা আর রাত এগারটায় তেভেজের খেলা। প্রশ্ন জাগতে পারে তাহলে তিনজন কিভাবে পয়েন্ট পাবে। এখানে নয়টার খেলা শুরু হওয়ার পর (১৫-২০ মিনিট পর) ডিফোকে বাহিরে নিয়ে তেভেজ কে তার খেলা শুরুর আগে মেইন টিমে নিয়ে আনলেই তিনজন স্ট্রাইকারই পয়েন্ট পাবে। এটা সব পজিশনের জন্য প্রযোজ্য।

আরেকটা ব্যাপার — একজন সর্বোচ্চ ৫ টা টিম বানাতে পারবেন।

সবাই সবার সাজেশন শেয়ার করেন 😀

ফ্যান্টাসি প্রিমিয়ার লীগ

ফ্যান্টাসি প্রিমিয়ার লীগ আর ম্যাক্সিস এফসি ম্যানেজারের নিয়মে কিছু পার্থক্য আছে। ফ্যান্টাসি প্রিমিয়ার লীগের বিস্তারিত নিয়মকানুন পাবেন এখানে //www.cadetcollegeblog.com/ehsan/13374

সিসিবির লীগের কোড 144028-67994

চলেন শুরু করি 😀

৯২৯ বার দেখা হয়েছে

৮ টি মন্তব্য : “ফ্যান্টাসি ফুটবল ইজ ব্যাক :D”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    অনেক কষ্টে দুইটা মাস পার করছি, আর মাত্র ১৩ দিনের অপেক্ষা 😀

    পোস্ট দেবার জন্য থ্যাঙ্কস :thumbup:

    আসুন আমরা দলে দলে যোগ দিয়ে দো লীগের অশেষ পয়েন্ট হাসিল করি 😛


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  2. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    নানান চিপায় ভুইলাই গেছিলাম ফ্যান্টাসীর কথা। আহ এখন আগামী সপ্তাহ থেকেই প্রতি উইকে উইকেন্ডের অপেখ্ষা করুম পয়েন্ট গোনার লাইগা। ভাবতেই ভালো লাগতেসে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।