ধুরোঃ এত্তো গরম ক্যান!!!!

দুইদিন পরপর জাপানের মন্ত্রিপরিষদ গরম হয় আর আসে নতুন প্রধানমন্ত্রী। কয়েকদিন ধরে আবার খুব গরমে জাপানের কেবিনেট। এর মাঝে অর্থমন্ত্রী মিঃ নাকাগাওয়া কোন একটা গুরুত্বপূর্ণ মিটিং এ মাল খেয়ে টাল হয়ে অ্যাটেন্ড করে চরম আলোচিত সমালোচিত হয়ে গরম কেবিনেটে কেরোসিন ঢেলে দিছেন। তিনি নিজেও গরম সহ্য করতে না পেরে ছেড়ে দিছেন মূল্যবান পদটি। এটা নিয়েও চরম গরম কেবিনেট। সব মিলে এই গরমের চাপে আবারো জাপানের প্রধানমন্ত্রী যায় যায় অবস্থায়।

ওদিকে বন-বাঁদাড়ে আগুন ধরে অসহ্য গরম অস্ট্রেলিয়া। তার সাথে কয়েকদিন ধরে সিরিয়াস সিরিয়াস গরম গরম পুস্ট দিয়ে গরম আমাদের সিসিবি। গরমে সিসিবিতে হাত দেয়া যাইতাছে না। ভয়ে ভয়ে হাত দিতাছি। নরম পুস্টের হাত। পুড়তেও পারে বলা যায় না। তারপরেও নিজের বাড়ি তো। নিজের বাড়িতে কতকিছুই পুড়ে! আর আমার এই নাদানের হাত!

যাইহোক, আসেন এই গরমের মাঝে একটা গান শুনি। যদি একটু ঠান্ডা হওয়া যায় আর কি। আমাদের বাড়ির মানুষেরই গান। ছয় কি সাত মাস আগে হবে, কার যেন একটা পুস্টে পড়ছিলাম গায়ক তপু নাকি আমাদেরই জাতভাই, ক্যাডেট। পইড়া তো বুকটা ফুইলা গ্যাছিল তিন হাত। তপু ভাইয়ের গানে ঠান্ডা হই অনেক আগে থেকেই। যাইহোক, আসেন গানটা শুনা যাক। বেশি পুরান গান না, তবে একটু পুরান। মনে হয় সবাই শুনছেন। তারপরেও শুনেন। বাড়ির মানুষের গান বলে কথা। ক্যাডেট যেমন পুরান হয় না,তেমনি তার গানও।

08.Topu – Ki Chao …

ডাউনলোড এইখানে

১,৫৪২ বার দেখা হয়েছে

২২ টি মন্তব্য : “ধুরোঃ এত্তো গরম ক্যান!!!!”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।