নর এবং নারীর শব্দ কলহ

লেখাটি খুব সাধারণ মানের বিক্ষিপ্ত চিন্তা প্রসূত। তাই এটিকে খুব গুরুত্বের সাথে না নেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি

১। একটি বইয়ের টাইটেল বাংলা অনুবাদ করলে এমনটা দাঁড়ায় পুরুষ এসেছে মঙ্গল হতে নারী শনি হতে। অর্থাৎ পুরুষ হল কল্যাণকর এবং শুভ। নারী অকল্যাণকর এবং অশুভ।
২। নার শব্দের অর্থ আগুন। এখন যদি প্রকৃতি প্রত্যয় নিয়ে খেলা করি দেখি কি দাঁড়ায়
নার = আগুন
নার+ই = আগুন+ই
নারী = আগুনি
আগুনি মানে আগুন হতে তৈরি। অর্থাৎ নারী হল আগুন হতে তৈরি। বা দোজখের আগুন হল নারী।
৩। নারীর ইংরেজি প্রতিশব্দ হল female আবার আগুনের ইংরেজি প্রতি শব্দ হলে flame। ইংরেজি flame এর letter গুল উলটা পালটা করলে female হয়, শুধুমাত্র একটা e কম পরে।
৪। নর এর স্ত্রী লিঙ্গ হল নারী। কিন্তু নর বলতে পুরুষ নয় বরং মানুষকে বোঝায়। তবে নারীর পুং লিঙ্গ কোথায়। তবে কি পুরুষ মানেই মানুষ; নারী মানুষ নয়, মানুষ হতে একটু ভিন্নতর।
৫। নারীর আরেকটি প্রতিশব্দ হল মহিলা। অর্থাৎ যে মহলে থাকে। যেসব স্ত্রীমানুষদের থাকার ঘর নাই তাদের কি বলবে। রাস্তায় থাকলে রসীলা, শরণার্থী হলে শরীলা, আবার উদ্বাস্তু হলে উদীলা। হাসছেন!! আসলেই হাস্যকর।
৬। নারীর আরেকটি প্রতিশব্দ হল অবলা। অর্থাৎ শক্তি নেয় যার। অনেক দুর্বল পুরুষ আছে যারা নারী হতেও দুর্বল। তাদের কি নামে ডাকা হবে।
৭। নারীর আরও ২ টি প্রতিশব্দ আছে কামিনী ও রমণী। ২ টা শব্দই নারী ও পুরুষ এর মিলন কৈন্দ্রিক একটি বিশেষ মুহুর্তকে কেন্দ্র করে নামকরণ করা হয়েছে। কিন্তু পুরুষদের এরকম কোনো নাম নাই।
৮। নারীর আরও একটি প্রতিশব্দ আছে যার নাম প্রমদা। অর্থাৎ যে প্রমোদন দেয়। নারী শুধু পুরুষের বিনোদনের বস্তু। অনেক পুরুষ আছে যারা নারীদের বিনোদন দান করে তাদের কি বলা হবে।
সত্যিকার অর্থে নারী এবং নারী কৈন্দ্রিক যত প্রতিশব্দ আছে তা শুধুমাত্র নারীকে চার দেওয়ালে বন্দী বা মানসিকভাবে সংকীর্ণ করে রাখার জন্য করা হয়েছে।
নারীর আরেকটি প্রতিশব্দ আছে তা হল প্রকৃতি। প্রকৃতি কে অনেক সময় স্রষ্টা বলে হয়। অর্থাৎ নারীর সৃষ্টির ক্ষমতা আছে কিন্তু পুরুষের নাই। নারী সৃষ্টি করে পুরুষ তা ধ্বংস করে।
কাজি নজরুলের কবিতা দিয়ে শেষ করি,

রাজা করিতেছে রাজ্য শাসন, রাজারে শাসিয়াছে রানী
রানীর দরদে ধুইয়া দিয়াছে রাজ্যের যত গ্লানি।

২,৯০২ বার দেখা হয়েছে

২৬ টি মন্তব্য : “নর এবং নারীর শব্দ কলহ”

  1. সামীউর (৯৭-০৩)

    নার- আরবি শব্দ, এটার সাথে বাংলা প্রকৃতি প্রত্যয় লাগাইলে কেমনে হবে? তবে আমি মানি সমাজে নারী শব্দটির অনেক প্রতিশব্দ প্রচলিত যা তাদের জন্য অবমাননাকর। তবে তার চেয়ে অবমাননাকর বিজ্ঞাপণে তাদের উপস্থাপন।

    জবাব দিন
  2. মেহেদী হাসান (১৯৯৬-২০০২)

    লেখাটি খুব সাধারণ মানের বিক্ষিপ্ত চিন্তা প্রসূত। তাই এটিকে খুব গুরুত্বের সাথে না নেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি

    তবুও দুই একটি কথা না বলে পারছি না। এখানে নারীর যেসমস্ত প্রতিশব্দ ব্যাবহার করা হয়েছে তার সবই আমাদের সমাজের যুগ যুগ ধরে প্রচলিত নারীর অবস্থানের প্রতিফলন। এটা পুরুষ শাসিত সমাজের দৃষ্টিভংগি। আমাদেরকে এগুলো/ এই মনোভাব পরিবর্তন করতে হবে।

    মাসুদ, লেখাটা পড়ে যত টুকু বুঝলাম, তুই এই পরিবর্তনের ডাক দেওয়ার জন্য লেখাটা লিখেছিস। ভাল ছিল।

    জবাব দিন
  3. ফয়েজ ভাইয়ের সাথে একমত, তবে ভাইয়া আপনার মেয়েকে এটার সাথে সাথে পুরুষদের কি কি প্রতিশব্দ, বিশেষন ইত্যাদি আছে সেটাও পড়তে দিয়েন। 😀

    আচ্ছা ১ নম্বরের বইটার নাম মনে হয় "men from mars and women from venus", সে ক্ষেত্রে শনি না হয়ে শুক্র হবে।

    আরো একটা কথা, 'অবলা' শব্দটা বিশেষণ, বিশেষ্য হিসেবেও কি ব্যবহার হয় নাকি?

    জবাব দিন
    • মাসুদুর রহমান (৯৬-০২)

      হা আপনার দেওয়া নামের একটা বই আছে। বইটা মুলত কিভাবে অপোজিট জেন্ডারকে খুশি রাখা যায়। তা নিয়ে। কিন্তু আমার বইটা ইংরেজি ভাষার নয়। গুজরাতি ভাষার।
      ‘অবলা’ শব্দটা বিশেষণ কিন্তু সাথে সাথে স্ত্রী শব্দের প্রতিশব্দ।অবলা শব্দটা ২ টি ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এক নারী আরেকটি হল পশু পাখি। কিন্তু পশু-পাখিদের ক্ষেত্রে যে অবলা শব্দ ব্যাবহার করা হয় তার অর্থ দুর্বল নয় বরং মূক বা কথা বলতে পারেনা এমন বোঝায়। নারীদের ক্ষেত্রেও এমন অর্থে ব্যবহার করা হয়,কিন্তু তা ক্ষেত্র বিশেষে।

      জবাব দিন
  4. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)

    বেশ ভালো লিখেছো :thumbup: :clap:

    তোমার উল্লিখিত এই ব্যাপারটা ভাষাতাত্ত্বিকদের মধ্যে একদল ল্যাঙ্গুয়েজ-গেইম হিসেবে দেখে, ভাষা যেখানে নারীকে যাবতীয় নেগেটিভ বৈশিষ্ট্য দিয়ে এমন ভাবে চিত্রিত করে যা প্রকারান্তরে পুরষকেই মহিমান্বিত করে।

    সামাজিক বিজ্ঞানে, বিশেষ করে উত্তরাধূনিক ধারায় 'othering' বা প্রান্তিকীকরণ বলে একটা প্রকৃয়ার কথা বলা হয়। এর মাধ্যমে এই ল্যাঙ্গুয়েজ-গেইম'টা ভালো বোঝা যায়।


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  5. শাওন (৯৫-০১)

    নারীবাদী না কি পুরুষবাদী বুঝলাম না........... 😀


    ধন্যবাদান্তে,
    মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শাওন
    প্রাক্তন ক্যাডেট , সিলেট ক্যাডেট কলেজ, ১৯৯৫-২০০১

    ["যে আমারে দেখিবারে পায় অসীম ক্ষমায় ভালো মন্দ মিলায়ে সকলি"]

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।