চ্যাম্পিয়ন্স লীগ কোয়ার্টার ফাইনালঃ ফিক্সচার এবং প্রেডিকশন

ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনাল পর্বের ড্র ইতিমধ্যে হয়ে গিয়েছে, যারা ফুটবল নিয়ে সামান্যতম খোঁজ খবর রাখেন তারা সবাই যেনে গিয়েছেন কে কবে কার সাথে খেলছে। তারপরও দেরিতে হলেও এই পোস্ট দেবার লোভ সামলাতে পারলাম না এ নিয়ে কিছু ফুটবল প্যাচালের আশায়। প্রথমে ফিক্সচাররে একটু চোখ বুলিয়ে নেইঃ

1

বায়ার্ন মিউনিখ – ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড (৩০ মার্চ)
লিওঁ – বোর্দো (৩০ মার্চ)
আর্সেনাল – বার্সিলোনা (৩১ মার্চ)
ইন্টার মিলান – সিএসকেএ মস্কো (৩১ মার্চ)

বার্সিলোনা – আর্সেনাল (৬ এপ্রিল)
সিএসকেএ মস্কো – ইন্টার মিলান (৬ এপ্রিল)
ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড – বায়ার্ন মিউনিখ (৭ এপ্রিল)
বোর্দো – লিওঁ (৭ এপ্রিল)

এই ম্যাচগুলো নিয়ে বিস্তারিত প্রিভিও দেবার লোভ হলেও তা দিতে পারছি না। কারন ইংলিশ আর স্প্যানিশ লীগের তিন দল বাদে বাকী দলগুলো সম্পর্কে আমার ধারনা এখন পর্যন্ত বেশ সীমিত, আর নেট ঘেটে জ্ঞান লাভের মত সময় ও হাতে নেই। তাই ম্যাচগুলো নিয়ে হালকার উপর দিয়ে ঝাপসা কিছু আওয়াজ দিচ্ছি, সেই সাথে নিজের প্রেডিকশন।

বায়ার্ন মিউনিখ – ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডঃ এই দুই দলের নাম এক সাথে উচ্চারন করলেই চোখের সামনে ১৯৯৯ এর ফাইনালের শেষ কয়েক মিনিটের দৃশ্য ভেসে ওঠে। ওই ম্যাচের পরে সম্ভবত এটাই প্রথম এ দুদল মুখোমুখি হতে যাচ্ছে। সেবার ম্যান ইউ’র ম্যাচ জেতার জন্য একদম শেষ কয়েক সেকেন্ডের জন্য অপেক্ষা করতে হলেও এবার মনে হয় না বায়ার্ন সে রকম কোন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারবে। বাড়তি সুবিধা হিসেবে ম্যান ইউ সেকেন্ড লেগ খেলবে ওল্ড ট্রাফোডে।
সম্ভাব্য বিজয়ীঃ ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড

লিওঁ – বোর্দোঃ আগের রাউন্ডে রিয়াল মাদ্রিদ আর গ্রুপ পর্বে লিভারপুলকে হারিয়ে আসা লিওঁকে এ কোয়ার্টার ফাইনালের ফেভারিট হিসেবে ধরা যায়। তবে স্বদেশি বোর্দোও খুব বেশি পিছিয়ে নেই। ফ্রেঞ্চ লীগে তারা লিওঁ থেকে মাত্র দু পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছে। এই কোয়ার্টার ফাইনালে আমার ব্যক্তিগত আগ্রহ থাকবে বোর্দো’র স্ট্রাইকার চামাক এর খেলার প্রতি, আগামী মৌসুমে তার আর্সেনালে যোগ দেবার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।
সম্ভাব্য বিজয়ীঃ লিওঁ

আর্সেনাল – বার্সিলোনাঃ আগেই সবাইকে সাবধান করে দিচ্ছি, এ ম্যাচের প্রেডিকশন হয়তো কারো কাছেই গ্রহনযোগ্য মনে হবে না। আর তাই এই ম্যাচ নিয়ে খুব বেশি কিছু বলবো না। শুধু এটুকু বলবো, বেকহ্যাম গত রাউন্ডে যে অভিজ্ঞতা পেয়েছে, থিয়েরি অঁরি একই অভিজ্ঞতা লাভ করবে এই কোয়ার্টার ফাইনালে। একই সাথে ২০০৬ এর ফাইনালের প্রতিশোধ ও নেয়া হয়ে যাবে।
সম্ভাব্য বিজয়ীঃ আর্সেনাল

ইন্টার মিলান – সিএসকেএ মস্কোঃ কোয়ার্টার ফাইনালের তুলনামূলক ভাবে সবচেয়ে ভাগ্যবান দল বলা যায় জোসে মোরিনহোর ইন্টার মিলানকে। মরিনহো’র চেলসি আর ইন্টার মিলানের ক্যারিয়ার প্রায় একই প্রোফাইলে চলছে। ঘরোয়া লীগে সাফল্য পেলেও চ্যাম্পিয়ন্স লীগ এখনো অধরা। তবে এবার অন্তত সেমিফাইনাল পর্যন্ত যেতে ইন্টারের কোন অসুবিধা হবার কথা না। তবে সিএসকেএ মস্কো নিজেদের দিনে বড় কিছু ঘটিয়েও ফেলতে পারে। এবারের গ্রুপ পর্বে তারা ম্যান ইউ এর বিপক্ষে ওল্ড ট্রাফোডে এক সময় ৩-১ এ আগিয়ে ছিল যদিও শেষ পর্যন্ত তারা ৩-৩ এ ড্র করে।
সম্ভাব্য বিজয়ীঃ ইন্টার মিলান

আবারো বলছি এটা ছিল আমার নিজস্ব প্রেডিকশন। আশা করি সিসিবির বিশিষ্ট ফুটবল বোদ্ধাদের কাছ থেকে আরো বিস্তারিত, তথ্যবহূল কিছু সত্যিকারের প্রিভিউ পাব। শেষ করবো সবার উদ্দেশ্যে একটি কুইজ দিয়ে। বলতে হবে এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনালের ড্র নিয়ে সবচেয়ে খুশি ব্যক্তিটি কে? (হালকা একটা হিন্টস দিয়ে দেই, সে এই আট দলের কোনটির সাথেই সরাসরি জড়িত না।)

৭৪০ বার দেখা হয়েছে

৩৪ টি মন্তব্য : “চ্যাম্পিয়ন্স লীগ কোয়ার্টার ফাইনালঃ ফিক্সচার এবং প্রেডিকশন”

  1. বন্য (৯৯-০৫)

    কোয়ার্টার ফাইনালের প্রেডিকশান! আমি তো ফাইনালেরই রেজাল্ট দিয়া দিতে পারি।
    চ্যাম্পিয়ন : ম্যানইউ :grr:

    সম্ভাব্য বিজয়ীঃ আর্সেনাল

    ট্যাগে রম্য দেন নাই ক্যান? 😀 😉

    জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)

    কেবল মাত্র একটা জিনিস খেয়াল করলাম। ফ্যান্টাসী প্রিমিয়ার লীগে বহুতকাল পর তানভীর ভাই সিংহাসন হারিয়েছেন। :grr:
    গোলাপজান ভাবী ড়কায়। :awesome:


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  3. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    নাহ! পোলাডা আর্সেনাল সাপোর্ট ছাড়তে পারলো না। আর্সেনাল ফাইনালে গেলে আমিও খুশি হইতাম, কিন্তু মগজ এইটা বলতেছে না।

    আরেকটা বার্সা-ম্যান ইউ ফাইনাল হতে যাচ্ছে। মেসি-রুনি ম্যাজিক দেখার জন্যে এরচেয়ে ভালো মঞ্চ আর হইতে পারে না। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর ফাইনালের সব টিকেট নিশ্চয়ই বিক্রি হয়ে যাবে আগেই। বাদ পড়ে গেলেও এইটা একটা খুশির কারণ রিয়াল প্রেসিডেন্ট পেরেজের জন্যে। 😀

    বার্সেলোনা-আর্সেনাল প্রেডিকশনে তোর মাথার চেয়ে মন বেশি কাজ করছে মনে হয়। অ্যামিরেটসে বড়জোর ড্র করতে পারে গানাররা। ন্যু ক্যাম্পে কয়েকটা খাবে।

    ইন্টার মিলানরে সেমিফাইনালে যাইতে হইলে অ্যাওয়ে গোল দিতে হবে। সিএসকেএ মস্কোর চান্স আছে ভালোই।
    বাকি দুইটা ম্যাচের সম্ভাব্য বিজয়ীর ক্ষেত্রে আমার প্রেডিকশনও তোর মতোই।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  4. সাল্লু (৯২/ম)

    "এই দুই দলের নাম এক সাথে উচ্চারন করলেই চোখের সামনে ১৯৯৯ এর ফাইনালের শেষ কয়েক মিনিটের দৃশ্য ভেসে ওঠে। ওই ম্যাচের পরে সম্ভবত এটাই প্রথম এ দুদল মুখোমুখি হতে যাচ্ছে" -
    ঐ ফাইনালের ২ সিজন পরেই কোয়ার্টার ফাইনালে এদের দেখা হইসিলো - বায়ার্ন ২ লেগই জিত্যা ভালো প্রতিশোধ নিছিলো।

    জবাব দিন
  5. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    আমি আগামী কয়ইনে ব্লগে আসার সম্ভাবনা খুব কম। ভার্চুয়াল কিংবা একচুয়াল সব দুনিয়া থেকেই কিছুদিনের জন্য বিচ্ছিন্ন। তবুও এই পোস্ট মন্তব্য করার লোভ সামলাতে পারলাম না। প্রথমে ধন্যবাদ আকাশকে পোস্ট টা দেয়ার জন্য। এহসান ভাই ব্যাক্তিগত ঝামেলায় ব্লগে রেগুলার না তার উপর লিভারপুল নাই আর কামরুল ভাইও অনেক বিজি। এর মাঝে আমাদের মত তরুণ তুর্কিদেরই তো ঝাণ্ডা উড়াতে হবে।
    এবার আমার প্রেডিকশনে আসি। বায়ার্ন মিউনিখ প্রতিপক্ষ হিসাবে কখনৈ সহজ নয়। বিশেষত তাদের হোম রেকর্ড ভালো আর জার্মানিতে ম্যানইউর খারাপ রেকর্ড মানসিকভাবে তাদের এগিয়ে রাখবে। তবে ম্যানইউর থাকছে পরে হোম ম্যাচ খেলার সুবিধা আর তার সাথে রুনির ফর্ম। রুনির খেলার উপর নির্ভরতা অনেক বেশি তবে ম্যানইউ সাপোর্টার হিসাবে মিউনিখকে নিয়ে স্বস্তিই বোধ করছি বলা যায়। ম্যানইউকেই এগিয়ে রাখছি আমি।
    ইন্টার আর সি এসকে মস্কোর খেলাটা হবে ইন্টারেস্টিং। মস্কোর তথা রাশিয়ার আভাওয়া ইউরোপের অন্যদলগুলোর জন্য চ্যালেঞ্জ। তার সাথে যদি রুবিন কাজানের সাথে ইন্টারের নাকানি চুবানি খাওয়ার কথা মাথায় রাখি তবেও মস্কোকে ফেলে দেয়া যায় না। তবে মরিনহো তার পরেও তার স্ট্র‍্যাটেজি দিয়ে পার পেয়ে যাবেন বলে মনে হয়। বিশেষ করে চেলসির সাথে ইন্টারের খেলা দেখে মরিনহোর প্রতি ভক্তি বোধ করেছি।
    বোর্দো আর লিঁওর ব্যাপারে আমি দ্বিমত করছি আকাশের সাথে। দুটি এক লিগের দল। একে অপরকে চেনে। এমতাবস্থায় পরের ম্যাচ হোম হওয়ার সুবিধা বোর্দোর দিকে যায়। লিভারপুল রিয়ালকে আউট করার জন্য লিঁও যদি এগিয়ে থাকে বায়ার্ন মিউনিখ জুভেন্টাসকে পিছে ফেলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়া বোর্দোও পিছনে থাকবে না মোটেও। আমি বরং বোর্দোকে ফাইনালে উঠার জন্য ফেভারিট ভাবছি। বোর্দোর খেলা লাইভ দেখা হয়নি খুব হাইলাইটস দেখে তাদেরকে লিঁওর চেয়ে প্রাণবন্ত মনে হয়েছে আমার কাছে। আমি বোর্দোর দিকে।
    বার্সা আর্সেনাল খেলাটা হবে সবচেয়ে এট্রাকটিভ। আমি নিজে বার্সার ফ্যান ছিলাম তবে গর্ডিওলাকে ভালো লাগে না বলে এখন সাপোর্ট করি না তেমন। তবে আর্সেনালের সাথে অবশ্যই বার্সা। বার্সার ফুটবল সত্যিকার অর্থে আনন্দদায়ী। তবে আর্সেনালকে অপছন্দ করলেও ওদের সাথে ফ্লোয়িং ফুটবল বিপদজনক। আর আর্সেনাল টিম মোটামুটি সংঘটিত। বার্সার ডিফেন্সের দুর্বলতা তারা কতটা কাজে লাগাতে পারে তার উপর নির্ভর করবে ফলাফল। আমি নিজে ব্যাক্তিগত ভাবে আর্সেনালকে এগিয়ে রাখছি।

    জবাব দিন
  6. তানভীর (৯৪-০০)

    আর্সেনাল-বার্সেলোনা খেলায় বার্সার জেতার সম্ভাবনাই বেশি। একদিকে যেমন মেসি দুর্দান্ত ফর্মে আছে, তেমনি তাকে আটকানোর জন্য ওয়েংগার কোন স্পেশাল স্ট্রেটেজিও নিবে না- এদিক দিয়েই অনেক এগিয়ে যাবে বার্সা। অবশ্য আর্সেনাল জিতুক এটা মন থেকেই চাই।

    লিওঁ – বোর্দোর খেলার ব্যাপারে অবশ্য আমার কোন প্রেডিকশন নাই, দুই দল সম্পর্কেই আমার তেমন কোন ধারণা নেই। চামাকের খেলার উপর অবশ্য নজর থাকবে, কেননা পরের সিজনে ওর আর্সেনালে যোগ দেয়ার কথা।

    ম্যানইউ আর ইন্টার পরের পর্বে উঠবে- এটা মোটামুটি বলেই দেয়া যায়! এর ব্যতিক্রম হলে আমি খুশিই হব। 🙂

    দেখা যাক, সামনে কি হয়!

    জবাব দিন
  7. হায়দার (৯৮ - ০৪)

    সেই যখন থেকে প্রিমিয়ার লিগ দেখা শুরু , সেই তখন থেকেই আর্সেনালের ফ্যানাটিক সাপোর্টার হয়েই আছি। মন বলছে আর্সেনাল জিতুক। কিন্তু অনেকগুলো ব্যাপার এখানে আগে ভাবতে হবে। আর্সেনাল এই বার তাদের বিগ ম্যাচ গুলোতে গোল করতে পারেনি কেবল জেনুইন একজন স্ট্রাইকারের অভাবে। পার্সি নেই, এডুয়ার্ডোর সেই আগের ধার নেই, বেন্টনার কে আমার কখনোই আর্সেনালে খেলার মত যোগ্য মনে হয়নি। (যদিও সাম্প্রতিক ফর্ম ভালো, তার অ্যাবিলিটি নিয়েই সন্দেহ আছে)। ভরসা কেবল, আরশাভিন আর ওয়ালকট। তাই, অ্যাটাকিং এ বার্সেলোনা যোজন যোজন এগিয়ে ( মেসি, ইব্রাহিমোভিচ, অঁরি )। কিন্তু মাঝমাঠে ফ্যাব্রিগাস, নাসরিরা জাভি ইনিয়েস্তার চেয়ে কম যায়না। আর্সেনালের দুই উইং ব্যাক, লেফটে ক্লিচি ও রাইটে স্যানিয়া যেমন দুর্দান্ত গতিতে আক্রমনে আসতে পারে, তেমনি ক্রস করতেও সমান পারদর্শী। তবে এভাবে খেলে বার্সার ড্যানি আলভেজও। সেন্টার ব্যাকে পুয়োল, গ্যালাস ও সেন্দেরসের চেয়ে অনেক এগিয়ে। আর্সেনালের সেট পিস রেকর্ড এবার সন্তোষজনক নয়। এদিক দিয়ে বার্সা এগিয়ে থাকবে। তবে ভার্মেলেন ও গ্যালাসের লুকোচুরি হেড বার্সাকে বিপদে ফেলতে পারে।
    তবে সবচেয়ে বড় ফ্যাক্টর মেসি। মেসিকে কেউ আটকাতে পারছেনা। আর্সেনাল পারবে কিনা সেটা সময়ই বলে দেবে।
    আর্সেনাল যেহেতু প্রথম লেগ খেলছে এমিরেটস এ, তাই কিছুতেই বার্সাকে অ্যাওয়ে গোল করতে দেয়া যাবেনা। তারপর ন্যু ক্যাম্পে গিয়ে ঠিক সেই কাজটাই করতে হবে।
    অনেক কঠিন হবে আর্সেনালের পথ। তবু চাই গানাররা এবার শিরোপা জিতুক। অনেকদিন কোনো শিরোপা জিতিনি।

    জবাব দিন
  8. এহসান (৮৯-৯৫)

    হায়দারের মন্তব্যটা ভালো লেগেছে। কিন্তু পুয়োল গালাসের চেয়ে ভালো এইটা মনে হয় ঠিক না। সেন্ডেরসতো এখন আর্সেনালে নাই। ধারে এভারটনে খেলছে। দু-দলই এওয়ে গোল পাবে। আরশাভিন আর ওয়াল্কট এই দুইজনের কেউই এখন ফর্মে নাই। ওয়াল্কটের তো জাতীয় দলেই জায়গা হওয়া উচিত না। আর্সেনাল হয়তো দুই লীগেই গোল করবে। কিন্তু এগ্রিগেটে বার্সেলোনা কম পক্ষে ৩ গোলের ব্যবধানে জিতবে। মানে তেমন কোনো প্রতিদন্দ্বিতাই হবে না।

    সেই তুলোনায় বায়ার্ণ ভালো ফাইট দিবে। রোবেন এর ফর্ম তো মারাত্মক। ২য় রাউন্ডে গোলটা কেউ কি দেখো নাই!! এছাড়া রিবেরী, ক্লোজা, মারিও গোমেজ, শোয়াইনস্টাইগার, ভ্যান বোমেল, হামিত আলটিনটপ আর কাম্রুলদের ডেমিকেলিসরা তো আছেই। আমি এই ম্যাচে কি চাই এটা তো বুঝাই যাচ্ছে। যদিও এই বছর চ্যাম্পিওন্স লিগটা ভুয়া হইতেসে, কারণ আমরা সবাই আর কিছুদিনের মধ্যেই শুধু বিশ্বকাপ নিয়ে ভাবনায় ব্যস্ত হয়ে যাবো।

    সবচেয়ে খুশী কি প্লাতিনি!!! চেলসি, লিভারপুল বাদ পড়সে। এখনো ইংল্যান্ড, স্পেন, ইতালী, রাশিয়া, ফ্রান্স, জার্মানী সব বড় ফুটবলীয় দেশগুলোর প্রতিনিধিত্ব আছে।

    জবাব দিন
    • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

      এহসান ভাই, একমাত্র আপনিই প্রশ্নের উত্তরটা দিলেন আর সেটা ১০০% সঠিক।
      বার্সিলোনার সাথে আর্সেনালের ম্যাচ এর প্রেডিকশন নিয়ে আমি কোন লজিকে যায়নি, কারন লজিকে গেলে আর্সেনালকে জয়ী হিসেবে দেখা বেশ কষ্টকর 😛

      ওয়ালকটকে আমার সব সময়ই ওভাররেটেড মনে হয়েছে, তবে আরশাভিনের ফর্ম নয়ে আসলেই চিন্তিত আছি... গত জানুয়ারীতে আসার পর থেকেই ও আমার আর্সেনালের ফেভারিট প্লেয়ার 🙁


      আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
      আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

      জবাব দিন
  9. হাসান (১৯৯৬-২০০২)

    বার্সা আর ইন্টার যে জিতবে এটা তো সহজেই অনুমেয়। ইন্টারের বিপক্ষে যারা বলছেন, তাদের বিপক্ষে আমার একটাই পয়েন্ট - মরিনহো। সিএসকেএ মস্কো হেরে যাবে দ্য স্পেশাল ওয়ানের কাছেই।

    আমি চাই বায়ার্ন জিতুক, অনেকদিন চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ওরা ভাল করতেছে না। আর অন্য ম্যাচটাতে আমার মনে হয় লিঁও জিতবে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।