আমাদের ফুটবল সংস্কৃতি

মোহামেডান ফুটবল ক্লাব বাফুফেকে ৪৮ ঘন্টার সময় বেঁধে দিয়েছে বিয়ানীবাজার স্পোর্টস ক্লাবের সাথে খেলার তাদের খেলোয়ারদের উপর আক্রমনের জন্য দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি প্রদানের জন্য। তা না হলে তারা লীগ বয়কট করবে। খবরে দেখলাম মোহামেডানের খেলোয়ারেরা সিলিং এ হাত ঝুলিয়ে, শরীরে বিভিন্ন ধরনের ব্যান্ডেজ লাগিয়ে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছে, যাদের অধিকাংশই জাতীয় দলের সদস্য। ঘটনাটি নিঃসন্দেহে অত্যন্ত দুঃখজনক। যে মাঠে খেলোয়ারদের নূন্যতম নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব নয় সেরকম মাঠে এ ধরনের পর্যায়ের খেলা আয়োজন সত্যিই বিপদজনক। যেকোন দিন অনেক বড় কোন দুর্ঘটনাও ঘটে যেতে পারে। বাফুরের উচিৎ যেকোন ভেন্যুতে খেলা আয়োজন করার আগে উপযূক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা আর সেটা করতে ব্যর্থ হলে ভেন্যু বাতিল করে দেয়া।

তবে সংবাদে মোহামেডানের খেলোয়ারদের উপর আক্রমনের বিরুদ্ধে তাদের খেলোয়ার কর্মকর্তাদের অনেক বক্তব্য শুনলেও ঘটনার সুত্রপাত সম্পর্কে তেমন কিছু শুনলাম না, হয়তো আগামীকাল পত্রিকায় বিস্তারিত জানা যাবে। বিভিন্ন পত্রপত্রিকা পড়ে আমি যতটুকু বুঝেছি তা হলো খেলা শেষে মোহামেডানের খেলোয়ারেরা রেহারি তৈয়ব হাসানের উপর চড়াও হয় , তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসা বিয়ানিবাজারের এক পরোপকারী (!) কর্মকর্তাও তাদের হাতে লাঞ্ছিত হন। এর ফলে স্থানীয় দর্শকেরা উত্তেজিত হয়ে ওঠে এবং মাঠে ঢুকে তারা মোহামেডানের খেলোয়ারদের তাড়া করে। এর সব কিছু শেষ হয় মোহামেডানের কর্মকর্তাদের ক্ষমা চাওয়ার মাধ্যমে। আর আজ অনেক আয়োজন করে সেই কর্মকর্তারা সব কিছুর ভিতরে মোহামেডানের বিরুদ্ধে এক গভীর ষড়যন্ত্র খুঁজে পেল যার সাথে নাকি বাফুফে সরাসরি জড়িত। বিস্তারিত এখানে অথবা এখানে

জানিনা এই আলটিমেটামের শেষে কি হবে,বরাবরের মতই বড় দলের চাপে সমঝোতার পথই হয়তো বেছে নেবে বাফুফে। তবে আসলে যেটা হওয়া উচিৎ তা হলো ঐ সব উশৃংখল খেলোয়ার আর কর্মকর্তাদের জন্য দৃস্টান্তমূলক শাস্তি । আবাহনী, মোহামেডান এর মত বড় কিংবা ফেনী, বিয়ানীবাজারের মত আঞ্চলিক, সব ধরনের দলের জন্যই সমান ভাবে এ ধরনের ঘটনার জন্য কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। তা না হলে আমাদের এই দল না জিতলে রেফারি পিটানোর সংস্কৃতি কখনোই বন্ধ হবে না।

খেলা পরবর্তী ঘটনা নিয়ে অনেক কিছু বলে ফেললেও খেলার ফলাফলই বলা হয় নাই এখনো। এই খেলায় মোহামেডান বিয়ানিবাজারের সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছে। এর আগের ম্যাচেও মোহামেডান শেখ রাসেলের সাথে ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছে। এই মুহুর্তে মোহামেডান আবাহনীর থেকে ১ ম্যাচ কম খেলে ৭ পয়েন্ট পিছিয়ে আছে। মোহামেডানের পয়েন্ট ১০ ম্যাচে ২৬ আর আবাহনীর ১১ ম্যাচে ৩৩ ( শতভাগ জয়)। কোটি টাকা খরচ করে নিজেদেরকে প্রায় পুরো জাতীয় দল বানিয়ে ফেলেও আবাহনীর সাথে পেরে না ওঠছে না মোহামেডান। ইসস… বেচারাদের জিন্য দুঃখই হয় :grr: :goragori: :grr:

৮৪৭ বার দেখা হয়েছে

১৭ টি মন্তব্য : “আমাদের ফুটবল সংস্কৃতি”

  1. রবিন (৯৪-০০/ককক)
    কোটি টাকা খরচ করে নিজেদেরকে প্রায় পুরো জাতীয় দল বানিয়ে ফেলেও আবাহনীর সাথে পেরে না ওঠছে না মোহামেডান। ইসস… বেচারাদের জিন্য দুঃখই হয় :grr: :goragori: :grr:

    :clap:

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।