আবাহনী প্রিমিয়ার ডিভিশন টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন

*** ইহা একটি ইসসসিরে পোস্ট ***

প্রিমিয়ার ডিভিশন টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্টের ফাইনালে গাজী ট্যাঙ্ককে ৫ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে আবাহনী। আগের কোন খেলা দেখার সুযোগ না পেলেও এ ম্যাচে আবাহনীর ব্যাটিং মিস করিনি। ১৪৫ রান তাড়া করতে গিয়ে আবাহনী মোটামোটি ধরা খেয়ে যাচ্ছিল। শেষ তিন ওভারে দরকার ছিল ৪৩ রান। আবাহনীর ব্যাটসম্যানদেরকে যখন সমানে গালাগাল দিচ্ছি তখনি জ্বলে উঠলো রফিক। রাজ্জাক এবং কাপালির পরপর দু ওভার তুলোধুনো করে শেষ পর্যন্ত ৫ বল হাতে রেখেই ম্যাচ জিতে যায় আবাহনী। রফিকের অবদান?……… ৫০ রান মাত্র ২১ বলে ( ৬টি ছক্কা, ২টি ৪ ) এর আগে বল হাতে ২ উইকেট।

অসাধারন একটা ম্যাচ ছিল এটা, অনেকদিন পর ক্রিকেট খেলা দেখে মজা পেলাম, গ্যালারী ভর্তি দর্শক, চিয়ার গার্ল, সেই সাথে অসাধারন ক্রিকেট আর অবশ্যই আবাহনীর শিরোপা। অনেকদিন পর এতটা আনন্দ পেলাম।

আবাহনীকে এবং এর সমর্থকদের অভিনন্দন। আর এক দিনের জন্য যারা গাজী ট্যাঙ্কের সমর্থক বনে গিয়েছিলেন তাদের জন্য সমবেদনা। ও হ্যা… মোহামেডান এ টুর্নামেন্টে সফলতার সাথে তৃতীয় হয়েছে, তাদেরকেও অভিনন্দন।

সাব্বাশ আবাহনী… সাব্বাশ রফিক।

১,৬২৮ বার দেখা হয়েছে

২৫ টি মন্তব্য : “আবাহনী প্রিমিয়ার ডিভিশন টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন”

  1. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    অভিনন্দন আবাহনী। বুড়া ব্যাটা নাকি চিরতরুণ রফিক আজকে দানবের মতো খেলে আমারা যারা গাজী ট্যাংকের সমর্থক তাদের হৃদয়-মন গুড়িয়ে আবাহনীকে শিরোপা এনে দিল তাকেও লালগোলাপ অভিনন্দন। :hatsoff: :hatsoff: :hatsoff:


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
    • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

      গাজী ট্যাঙ্ক টিমটাকে আমার পুরো আইসিএক টিম মনে হচ্ছিল, এ কারনে আরো বেশি করে চাচ্ছিলাম আজ যেন আবাহনী জিতে। একটা ২০/২০ এর পারফর্মেন্স দেখে আসলে খুব বেশি কিছু বলা যায় না, জাতীয় দলে ফিরতে হলে পুরো মৌসুম জুড়ে ভাল করতে হবে। তবে কাপালি বাদে আর কেউ ফিরতে পারবে বলে মনে হয় না। ( ওপেনিং এ একটা স্লট থাকতে পারে, তনে জুনায়েদ আর কায়েস ও খারাপ করছে না)


      আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
      আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

      জবাব দিন
      • আমিন (১৯৯৬-২০০২)

        সত্যি কথা হইল তোরা জিতলি আরেক আইসিএলের ব্যাটে। রফিক ভাইরে এখনো খেলানো যায় । ঐদিন তাপস রে দেখলাম ভাল খেলতে । আফতাবরে ভুইলা গেলি ক্যামনে ? তামিম ছাড়া আমাগো বাকি দেশপ্রেমিকরাতো গোল্লা । রনি তালুকদার মিথুন আলী ইম্প্রেসিভ ।

        জবাব দিন
        • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

          রফিকের আইসিএল এ যোগ দেয়া নিয়ে আমার কখনোই আপত্তি ছিল না, ও তার আগেই অবসরে চলে গিয়েছিল।

          আফতাব যখন আইপিএল এ যায় তখনই জাতীয় দলে ওর জায়গা নিশ্চিত ছিল না, এখন ফিরতে হনে অসাধারন কিছু করতে হবে আর ওকে দিয়ে দুর্দান্ত একটা ২০-২৫ রানের ইনিংস থেকে খুব বেশি কিছু আশা করা বোকামি।


          আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
          আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

          জবাব দিন
  2. বড়ই ভালা লাগছিল খেলাডা 🙂
    অন্তত চ্যাম্পিয়ন্স লীগ/আই পি এলের নিম্নমানের ক্যাচ মিস মহড়ার চেয়ে ভাল খেলা হইছে।
    ব্যাক্তিগতভাবে ক্রিকেটের নামে ব্যবসাকে আমি ঘৃনা করি,তবে বিনোদন অনেক ভালবাসি।আমার নিজের দেশের মাটিতে এমন একটা টুর্নামেন্ট দেখে বেশ ভাল লাগলো। :boss: এরকম টুর্নামেন্ট আমাদের দেশে বারবার আয়োজন করতে পারলে ফালতু বাংগালীবিহীন আইপিএল/চ্যাম্পিয়ন লীগ দেখতে হবে না।টাকা খরচ করে ষ্টেডিয়ামে গিয়ে হলেও খেলা দেখতে আমি রাজি আছি।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।