ফ্যান্টাসী লীগ- সিসিবি ম্যানেজারদের আমলনামা ০৪ ( + হালকা প্যাচাল)

ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের আরেকটি সপ্তাহ শেষ, সেই সাথে ফ্যান্টাসী লীগের। সিসিবির ম্যানেজারেরা ইতিমধ্যে নিশ্চয়ই নিজেরটা সহ তাদের প্রতিদ্বন্দিদের আমলনামা গবেষনা করে ফেলেছেন। তারপরেও সিসিবির আমজনতার জন্য এই আমলনামা। আসুন দেখে নেই সপ্তাহ শেষে কার অবস্থান কোথায়।

প্রথমবারের মত শীর্ষে উঠে এসেছেন কামরুল ভাই, তার পরপরেই আছেন গোলাপজান ভাবি আর এহসান ভাই। প্রতিদ্বন্দিতা খুব তীব্র। প্রথম ৫ জনের মাঝে পয়েন্ট ব্যবধান মাত্র ১০। এছাড়া বিস্তারিত পয়েন্ট, অবস্থান ওঠা-নামা লীগ টেবিলেই রয়েছে। তাইফুর ভাইয়ের OstaderMairLastNight কে পিছনের দিক থেকে ১ম স্থান থেকে বঞ্চিত করে এ সপ্তাহে আরো নতুন তিনটি দলের লীগে যোগদান করেছে। বেশ কয়েকজন ম্যানেজার এ সপ্তাহে ওয়াইল্ড কার্ড ব্যবহার করে ফেলেছেন। ফয়েজ ভাই, তানভির ভাই, রায়হান আবীর ( আর কেউ?) তবে অন্তত এই সপ্তাহে কারোরই খুব একটা লাভ হয়নি বরং সবাই আগের থেকে আরো পিছিয়ে পড়েছে। আর এ সপ্তাহে সর্বোচ্চ পয়েন্ট করেছে আবাহনী যার ম্যানেজার জনৈক আহসান আকাশ।
fantasy-premier-league-a-fantasy-football-game-for-the-barclays-premier-league_1251665599620

এ সপ্তাহে হট ফর্মে ছিল চেলসির খেলোয়ারেরা। তবে বার্নলির মতো দলকে সামনে পেয়ে যারা আমার মতো ভেবেছিল দ্রগবা নিদেনপক্ষে হ্যাট্রিকের আশা করে তাকে ক্যাপ্টেন বানিয়েছিল তারা হতাশ হয়েছে। তবে পয়েন্ট দিয়েছে ল্যাম্পার্ড, বালাক আর এশলি কোল। বিশেষ করে গোলাপজান ভাবি আর আমার মতো যাদের দলে এশলি কোল ছিল, গোল আর ক্লিনশিট আর বোনাস মিলিয়ে তাদেরকে ভালই একটা টান দিয়েছে।

স্ট্রাইকারদের মধ্যে টরেস ছিল সবচেয়ে লাভজনক, রুনিও কিছু পয়েন্ট দিয়েছে। এছাড়া আনেলকা, আদাবায়র গোল করে গড় মান ধরে রেখেছে। তবে ডিফো’র আগের ম্যাচগুলোর কথা মাথায় রেখে ফয়েজ ভাইয়ের মতো যারা তাকে দলে ভিড়িয়ে ছিল তারা ধরা খেয়ে গিয়েছে। টটেনহামের পরের দুটো ম্যাভ হলো ম্যান ইউ আর চেলসির সাথে, খুব বেশি সুবিধা আপাতত সে করতে পারবে বলে মনে হয় না।

মিডফিল্ডের ল্যাম্পার্ড আর বালাকের কথা আগেই বলেছি, সেই সাথে লেননও ভাল করেছে। আমার আবাহনীতে আরশাভিনের ভবিষ্যত বেশ হুমকির মুখে ছিল, দলে টিকে থাকতে সেও এ সপ্তাহে ভাল করেছে। তবে খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি জেরার্ড।

ডিফেন্সে ছিল এ সপ্তাহের সেরা তারকা এশলি কোল। জনসন, বেনিস, স্টিয়ারম্যান ভাল করলেও সিসিবির খুব বেশি ম্যানেজার মনে হয় না তাদের দলে রেখেছিল । ক্লিনশিটের কল্যানে ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে সোক্রস, আপ্সন, ট্যুরে, বসিঙ্গুয়া। আর্সেনাল ম্যান ইউ দুদলের ডিফেন্ডাররাই ছিল এ সপ্তাহে ফ্লপ।

স্প্যানিশ, ইটালিয়ান লীগও শুরু হয়ে গিয়েছে। এবার সব লীগেই মৌসুমের শুরুতেই বিগ ম্যাচ শুরু হয়ে গিয়েছে, ম্যান ইউ আর্সেনাল হলো, ইটালিতে ছিল মিলান ডার্বি। সেখানে মরিনহোর ইন্টার মোটামোটি ধুয়ে দিয়েছে কাকাবিহীন এসি মিলানকে(০-৪)। স্প্যানিশ লীগে রিয়াল তার গ্যালাকটিকো নিয়ে মুখোমুখি হয়েছিল ডেপোর্টিভোর। জিততে বেশ কষ্টই করতে হয়েছে রিয়ালকে(৩–২)। তবে মজা পাচ্ছি ইংলিশ লীগে দেখে, ম্যান সিটি, টটেনহামের কারনে এবার লীগ অনেক ওপেন হয়ে গিয়েছে। মোটামোটি প্রতি সপ্তাহেই একটা না একটা বিগ ম্যাচ আছে। দারুন এক ফুটবল মৌসুমের আশায় আছি।

আগামী সপ্তাহে প্রিমিয়ার লীগে কোন খেলা নেই, আন্তর্জাতিক খেলার জন্য বিরতি। সিসিবি’র ম্যানেজারেরা বিশ্রাম করেন। তবে আগামী সপ্তাহে যেটা আছে তা হলো ব্রাজিল -আর্জেন্টিনা ম্যাচ। ম্যারাডোনা অনেক ফাল পাড়তেছে এই ম্যাচ নিয়ে, দেখা যাক মাঠে কি করে। যদিও এর কোন দলকেই আমি সমর্থন করি না, তবে খুব চাচ্ছি ব্রাজিল ভাল ভাবে জিতুক ম্যাচটা। শুধু এটা দেখতে যে ব্রাজিলের কাছে ম্যাচ হারলে আর্জেন্টিনার লোকজন ম্যারাডোনাকে নিয়ে কি করে। ( তবে ব্রাজিল পারবে কিনা তা নিয়ে আমার যথেষ্ঠ সন্দেহ আছে।)

শুভেচ্ছা, শুভকামনা।

২,৬০০ বার দেখা হয়েছে

৫২ টি মন্তব্য : “ফ্যান্টাসী লীগ- সিসিবি ম্যানেজারদের আমলনামা ০৪ ( + হালকা প্যাচাল)”

  1. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    ফ্যান্টাসী লীগে এই সপ্তাহে প্রথম স্থান অধিকার করার পুরষ্কার সরূপ আমাকে আর্জেন্টিনার ম্যানেজার নিয়োগ দেয়া হোক। :grr:

    ম্যারাডনার চেয়ে আমি ভালো ম্যানাজারী করুম। 😉


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  2. এহসান (৮৯-৯৫)

    নিজের মাঠে দ্রগবা ফাটাইবো মনে কইরাই তো আমি ফয়েজ ভাই রে কইসিলাম টরেসরে বাদ দিয়া দ্রগবারে নেন। ভাবসিলাম বোল্টনের মাইর খাইয়া টরেস কোনো বেইল পাইবো না, সেই তুলোনায় দ্রগবা শিওর বেট। উনার ডিফেন্স উনার বারোটা বাজাইসে, তার উপর ডেফোও ফ্লপ, এইগুলা দেখে না; দেখে খালি আমার দোষ।

    ইঞ্জুরীতে না পড়লে ৩৮ ম্যাচেই টরেসরে আমি খেলামু। এখন টরেস ৩৮ ম্যাচে ভালো করুক আর না করুক ঐটা কোনো ব্যাপার না।

    জবাব দিন
  3. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    আমার সবগুলা প্লেয়ার এইবার পয়েন্ট দিছে। খালি কাপ্তান চাড়া। আয়ারল্যান্ডরে ক্যাপ্টেনহ বানায়া একটা ফাটকা খেলছিলাম। ও আমারে পুরা বসায়া দিছে। টরেসরে ক্যাপ্টেন দিলেই আমি আহসানরে ধইরা ফেলতে পারতাম। যা হোক আগাইতেসি। টপ টেনে ঢুকে গেছি। আস্তে আস্তে থ্রেড হিসাবে প্রকাশ করতেসি।
    কী বলেন কাইয়ুম ভাই?

    জবাব দিন
  4. তানভীর (৯৪-০০)

    ভাবলাম নিজের মাঠে বার্মিংহামরে পাইয়া ডেফো মিয়া সমানে গোল করবে, আর টরেস মনে হয় বোল্টনের পোক্ত ডিফেন্স আর ট্যাকলিং এ বেইল পাবে না- কিন্তু আমারে অথৈ সাগরে ডুবাইয়া দিয়া টরেস গোল করল আর ডেফো মিয়া সারা মাঠ খালি দৌড়াইল। 🙁
    ওয়াইল্ড কার্ড মাইরা এ ধরণের ধরা খেয়ে আমি ব্যাপক বিমর্ষ! কি হয় কপালে আল্লাহই জানে! 🙁

    জবাব দিন
  5. শার্লী (১৯৯৯-২০০৫)

    কিছু কাজ নিয়ে অতিরিক্ত ব্যস্ত। তাই ফ্যান্টাসি ঠিকমত খেলতে পারছি না। ওয়াইল্ড কার্ড মারলাম, তাতেও কাজ হবে বলে মনে হচ্ছে না। কারণ লিগের খোঁজখবর তেমন একটা রাখা হয় নি।

    জবাব দিন
  6. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)

    চতুর্থ সপ্তাহে ওয়াইল্ড কার্ড মাইরা সত্যিকার ভাবে লীগে প্রবেশ করলাম। সিরাম মজা পাচ্ছি। দল এখন চরম পছন্দ তবে একটু খুতখুতানি রয়ে গেলো। টরেস, রুনি আর দ্রগবা এই তিনটারে দলে নিতে পারলে সবচেয়ে জোস হইতো। বুঝি নাই।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।