সাপ্তাহিক…৭

প্তাহের শেষে এসে মনে হচ্ছে গত সাত দিনে শুধু দুটো ঘটনা ঘটেছে, একটা হচ্ছে বৃষ্টি আর অন্যটা ক্লাস। বৃষ্টি তো মনে হয় এক মুহুর্তের জন্য থামেনি। এরকম বিরতিহীন ভাবে মুষুলধারে বৃষ্টি এর আগে কখনো দেখেছে বলে মনে পড়ে না। আর এই ঘুমের আবহাওয়াতে দিনে গড়ে ১০ ঘন্টা করে ক্লাস, পুরা পাগল হবার দশা।

বার আমার তৃতীয়বারের মত চট্টগ্রামে থাকা হচ্ছে। এখানের মোটামোটি সব কিছুই কম বেশি ঘুরে দেখা হয়েছে। এর মাঝে আমার সবচেয়ে প্রিয় জায়গা হলো কর্ণফুলির মোহনা (১৫ নম্বর), বিশেষ করে সন্ধ্যার পরে। এপারে রাস্তার পাশে পা ঝুলিয়ে বসে নদীর ওপারের কাফকো আর নদীতে থাকা জাহাজের আলো গুলো দেখতে খুব ভালো লাগে,সাথে পিয়াজু আর কাকড়া খাওয়া, অসাধারন। এবার চট্টগ্রামে আসার প্রায় দুমাস চলে গেলেও ওখানে যাওয়া হচ্ছিল না, এ সপ্তাহে ঘুরে আসলাম। গত শুক্রবার দিনটা শুরু হয়েছিল বিশাল এক সারপ্রাইজের মধ্য দিয়ে, ঘুম থেকে উঠেই দেখি দুই কোর্সমেট দাঁড়িয়ে আছে, ওরা যে চট্টগ্রাম এসেছে সেটাই জানতাম না। তারপর তিনজন মিলে হানা দিলাম শহরে থাকা আরেকজনের ডেরায়। দুপুরে ভূরিভোজ, বিকালে পতেঙ্গা বিচে সূর্যাস্ত দেখা, সন্ধ্যার পরে ১৫ নম্বরে বসে পিয়াজু আর কাকড়া খাওয়া, আর পুরো সময় জুড়ে আড্ডা,আহা… এবারের চট্টগ্রাম জীবনের এখন পর্যন্ত সেরা দিন ছিল সেটা।(কাকড়ার টেস্টটা আগের মত ছিল না, তা না হলে আরো ভাল হতো)

মি বেড়ে উঠেছি ঢাকায়। তবে কলেজে যাবার পর থেকে আর সেভাবে থাকা হয়নি,শুধু ছুটিতে আসা হতো, বেড়াতে আসার মত। গত দু বছর ধরে আবার ঢাকায় থাকা হচ্ছিল, এখন আবার চট্টগ্রাম।ঢাকা দিনে দিনে মনে হয় বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠছে, আমার নিজের কাছে চট্টগ্রামকে ঢাকার থেকে সবসময়েই ভাল মনে হয়েছে। আর যতই দিন যাচ্ছে ঢাকার অবস্থা যেন আরো খারাপ হচ্ছে। এবারের বৃষ্টির পরে ঢাকা শহরের অবস্থা দেখে (ছবিতে) ঘটনা আরো ভয়াবহ মনে হলো, রাস্তাগুলো দেখলাম নদীতে পরিনত হয়েছে, শুনলাম প্রধানমন্ত্রী নাকি নর্দমা পরিষ্কারের জন্য বিশেষ ভাবে আদেশ দিয়েছেন, হায়রে … তবে এতকিছুর পরেও আর সবার মতো আমি নিজেও ঢাকা ছেড়ে যেতে চাই না, (অন্তত আগামী দু তিন বছরের মধ্যে ) অবশ্য সেটা মোটেই ঢাকা শহরের আকর্ষনে নয়।

বাংলাদেশের ক্রিকেট অসাধারন এক সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, টেস্টে হোয়াইট ওয়াশ করার পর ওয়ানডে সিরিজও সে দিকেই এগুচ্ছে। আপসোস একটাই, একটা খেলাও দেখতে পারছি না, এমনকি ক্রিকইনফোও ফলো করতে পারছি না, অতো রাত পর্যন্ত জেগে থাকা হয় না। তবে আমার এ ঘুম বাংলাদেশের জয়ের পিছনে বিশেষ অবদান রাখছে বলে মনে হয়, আগামী খেলায় এর সত্যতা প্রমান করবো ভাবছি, পরেরদিন ছুটি থাকায় খেলা দেখার পরিকল্পনা করছি( বাংলাদেশ হেরে গেলে কিন্তু আমার কোন দোষ নাই )

০০৯ মনে হয় কাম ব্যাক ইয়ার। প্রথমে ল্যান্স আর্মস্ট্রং আর এবার ফরমুলা ওয়ানে মাইকেল শুমেখার। ফরমুলা ওয়ান দেখা শুরু করার পর থেকেই আমি শুমেখারের ফ্যান। ওর অবসরের পরও নিয়মিত ফরমুলা ওয়ান দেখলেও আগের মত সেই মজা পাই নাই। গত ফেরারির মাসা এক্সিডেন্ট করার পর তার জায়গায় ফেরারির হয়ে শুমেখার আসছে, দারুন আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছি আবার ওর রেসিং দেখতে।

এই বৃষ্টির দিনে সবার জন্য দুটো বৃষ্টির গান… প্রথমটা আর্টসেল এর, পরেরটা রাগা’র…

৩,০১০ বার দেখা হয়েছে

৫১ টি মন্তব্য : “সাপ্তাহিক…৭”

  1. দিহান আহসান
    বিকালে পতেঙ্গা বিচে সূর্যাস্ত দেখা, সন্ধ্যার পরে ১৫ নম্বরে বসে পিঁয়াজু আর কাঁকড়া খাওয়া, আর পুরো সময় জুড়ে আড্ডা,আহা… এবারের চট্টগ্রাম জীবনের এখন পর্যন্ত সেরা দিন ছিল সেটা।

    :dreamy: :dreamy:
    আকাশ ভাইয়া কি মনে করে দিলে???? ( দীর্ঘশ্বাসের ইমো )।
    ভাইয়া কেমন আছো? ঢাকা'র অতিথি কেমন আছেন? ক্লাশের অবস্থা কেমন? 🙂

    জবাব দিন
  2. ইয়ে মানে, কাকড়া কি খাওয়া যায়? কখনো খাই নাই। দিহান ভাবি সাব, একটু দেইখেন তো এই দিকটা। কাঁকড়া দিয়া একটা স্পেশাল কারি বানায়া রাইখেন। আসতেছি।

    ঢাকাই আইসেন না, গান্ধা জায়গা,
    তারচেয়ে "বিশেষ কারণ" সাহেবাকে চিটাগাঙে শিফট করেন।
    দুইজন বইসা মনের আনন্দে কাঁকড়া খাইবেন।

    জবাব দিন
  3. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    f1 f1 f1
    ঢাকা শহরের একটা ছবি দিয়েছিলাম পোস্টে, কিন্তু দেখা যাচ্ছে না. কিভাবে কি করবো? (ডাইরেক্ট লিঙ্ক পেস্ট করলে বিশাল বড় হয়ে যায়, তাই একটু ছোট করতে গিয়েছিলাম)


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
    • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

      দিনে ১০-১১ ঘন্টা ক্লাসে থাকতে থাকতে মাথার তার ছিড়া যাচ্ছে আর তুই বলতেছিস কোর্স করতেছি মনে হচ্ছে না x-( x-( x-(

      তোরে গালি দিতে ইচ্ছা হচ্ছিল কিন্তু লেখা যেহেতু ভাল লাগছে তাই ... 😀 :hug:


      আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
      আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

      জবাব দিন
  4. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    গত ১০-১৫ বছরে পতেঙ্গায় আমি যতোবার গেছি, প্রতিবারই ছিল রাত। তুমুল বাতাস, সাগরের গর্জন, দূরে জাহাজের ডেকের অস্পষ্ট আলো.......... আহ্

    :thumbup: আকাশ


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  5. আরিফ (১৯৯৪-২০০০)

    পাইছি পাইছি!!! এতোদিন এ একটা F1 ফ্যান পাইছি। কই ছিলা এতোদিন... :hug:

    মাইকেল শুমেখার এই পচাঁ ফেরারী F60 দিয়ে কতটুকু কি করতে পারবে জানিনা। কিন্তু ফিরতেছে তাতেই আমি... :awesome: :awesome:

    কিমি রে ধইরা :duel: :duel: , এই উইক এ নাকি আবার র‌্যালীতে কমপীট করবে 😡 😡

    এইবার আমি ভেটেল এর সাপোর্টার...দেখা যাক।

    ফেলিপে ভালয় ভালয় সুস্থ হয়ে আবার ফিরুক। ফেলিপে, আলোন্সো রে ফেরারী তে দেখতে মঞ্চায়।

    জবাব দিন
    • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

      :hug:

      আমিও আলোন্সো'র ফেরারিতে আসার জন্য অপেক্ষায় আছি... এইবারের আশা তো শ্যাষ, শুমেখার আসছে দেখে আবার আগ্রহী হয়ে উঠছি... দেখি আগামীবার কি হয়...


      আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
      আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

      জবাব দিন
  6. তানভীর (৯৪-০০)

    লেখায় :thumbup:
    শুমেখারের রিটার্ন কেমন হয় দেখার অপেক্ষায় আছি। কিন্তু মনে হয় না ফেরারী এইবার ভালো কিছু করতে পারবে। 🙁
    বৃষ্টি ভেজা রাতে গানটা দারুণ। 🙂

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।