আমার প্রেমিকারা-৫

‘পুরুষ মানুষের মন আর নারীর দেহ,এই দুইটার-ই কপিরাইট থাকা দরকার’। কথাটা প্রথম যখন শুনি,হেসেই উড়িয়ে দিয়েছি। তারপর ভেবে দেখলাম-এ আবার কেমন কথা? গুরু বললেন- এই দুইটার কপিরাইট করা থাকলে এই পৃথিবীটায় আর কোনোদিন কোনো ঝামেলা থাকতোনা।যত নষ্টের গোঁড়া,এই দুই বিষফোঁড়া।

আমি ভেবে অবাক হই-তাইতো গুরু, আপনিতো ঠিক বললেন।আমার নিজের এই মনটার ঘাটে ঘাটে নোঙ্গর করার স্বভাবটার মিল বুঝি এখানেই খুঁজি পাচ্ছি।কবির ভাষায় বলি-
‘আর পারছিনা গুরু,সেই ক্লাস ওয়ান থেকে শুরু’।

কিন্তু সমস্যা হল,এই যে নিজে বার বার বিরোধী দলের মত নির্যাতনের শিকারে পরিণত হচ্ছি,তার থেকে মুক্তি কোথায়?এই জীবনে কী সরকার হয়ে উঠতে পারবোনা? গুরু বলেন-বিয়ে কর,মুক্তি আসন্ন।আমি বলি-সে আবার কিরকম?
তারপর গুরুর বয়ান-বিয়ে করে একটা পরকীয়া কর,দেখবি সব মুস্কিল আহসান। বউ ঘরে দিবে যন্ত্রনা, কিন্তু ঘরের বাইরে মুক্তির মন্ত্রনা।আমি বলি-এতে কাজ হয়? উনি বলেন, কাজ হয়না মানে,এটা পরীক্ষিত। বউ আর সংসারের পিছনে যত খরচ তা হলো রাজস্ব ব্যয় আর প্রেমিকার খরচ হলো উন্নয়ন ব্যয়। মনের শান্তি মানেই তো সত্যিকারের উন্নয়ন আর বিবাহিত জীবনে তা পরকীয়াতেই মিলবে।আর রাজস্ব খাত আর উন্নয়ন খাতের সমুন্নয় করতে গিয়ে যে বাজেট করার গুরুদায়িত্ত্ব তোর ঘাড়ে চাপবে,তখন-ই নিজেকে মনে হবে সরকার। আমি এই কথা শুনে তাজ্জব বনে যাই আর বেরসিকের মত প্রশ্ন করি- বউ ও যদি তখন পরকীয়া শুরু করে,তাহলে কি হবে? গুরু বলেন-তোর বাড়ী কি নোয়াখালি? আমি মুচকি হেসে স্বীকার করি। তখন উনি বলেন- তখন ও সরকার থাকবে,তবে এর নাম তত্ত্বাবধায়ক সরকার।

সত্যিকার অর্থেই আমার দাদা বাড়ি নোয়াখালি, জন্মেছিলাম চট্রগ্রামে ,শৈশব কেটেছে চাঁদপুরে আর বাবা বাড়ী করার সুবাদে জীবনের বেশিরভাগ সময় কেটেছে কুমিল্লায়। মোটকথা, বিএনসিসি(BNCC) এর বরিশাল ছাড়া আমার সব জেলার–ই ছোঁয়া আছে? গুরুকে বলি- এইবার বরিশালে বিয়েটা করলে কেমন হয়? তাহলে তো আমার জীবনের ষোলকলা পূর্ণ হয়। গুরু শুনে হাসেন আর আমায় বারণ করলেন এই বলে- সবসময় মনে রাখবি,
‘ ছেলেদের ক্ষেত্রে-নতুন উঠা দাঁড়ি,
মেয়েদের ক্ষেত্রে-নতুন পরতে শেখা শাড়ী,
আর মানুষের ক্ষেত্রে-বরিশালে বাড়ী,
এই তিন-ই ভয়ঙ্করী’।
এই কথা শুনে তারপর ও আমার ইচ্ছেটা একবারেই কমলোনা। আগ্রহটা রয়েই গেল মনের ভেতর। মনে মনে ভাবি- আমার চক্রটাতো পূর্ণ করা দরকার।আমার হাব-ভাব দেখে গুরু বলেন- বাছাধন শোন,দশচক্রে ভগবান ও ভূত হয় আর তোর এই চক্রে কি যে হবে আমি সেই দুঃশ্চিন্তায় তোকে বারণ করলাম। আর তুই যে আশা নিয়ে বসে আছিস,তাও কোনোদিন পূরণ হবার নয়।তোর অবস্থা হবে ঢাকার সেই মেয়রের মত, যিনি সিটি কর্পোরেশানের মশক নিধন কর্মসূচী হাতে নিয়ে ঘোষণা দিয়েছিলেন-‘মশা না মেরে ঘরে ফিরবনা’। তিনি এখন চিরদিনের মত না ফেরার দেশে চলে গেছেন কিন্তু মশারা বহাল তবিয়তে রয়ে গেছে।তেমনি বরিশালের মেয়েরা ঠিক-ই রয়ে যাবে,কিন্তু তোর আর এই জীবনে বিয়ে করা হবে না।

৪,৩৬৫ বার দেখা হয়েছে

৪৪ টি মন্তব্য : “আমার প্রেমিকারা-৫”

  1. আছিব (২০০০-২০০৬)

    ‘ ছেলেদের ক্ষেত্রে-নতুন উঠা দাঁড়ি,
    মেয়েদের ক্ষেত্রে-নতুন পরতে শেখা শাড়ী,
    আর মানুষের ক্ষেত্রে-বরিশালে বাড়ী,
    এই তিন-ই ভয়ঙ্করী’।

    বউ আর সংসারের পিছনে যত খরচ তা হলো রাজস্ব ব্যয় আর প্রেমিকার খরচহলো উন্নয়ন ব্যয়।

    :))
    :pira:
    :khekz:
    :clap:

    :hatsoff:

    জবাব দিন
  2. ফারহানা (২০০১-২০০৭)
    -তোর বাড়ী কি নোয়াখালি? আমি মুচকি হেসে স্বীকার করি। তখন উনি বলেন- তখন ও সরকার থাকবে,তবে এর নাম তত্ত্বাবধায়ক সরকার।

    চরম!!!! :clap: :clap:
    বি এন সি সির কি গতি হয় শেষ পর্যন্ত দেখার অপেক্ষায় রইলাম,ভাইআ।

    =)) =)) =))

    জবাব দিন
  3. রাজীউর রহমান (১৯৯৯ - ২০০৫)
    ‘ ছেলেদের ক্ষেত্রে-নতুন উঠা দাঁড়ি,
    মেয়েদের ক্ষেত্রে-নতুন পরতে শেখা শাড়ী,
    আর মানুষের ক্ষেত্রে-বরিশালে বাড়ী,
    এই তিন-ই ভয়ঙ্করী’।

    :boss: :boss:

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।