ছোট মেয়েটির হাত ধরে তুমি

ছোট মেয়েটির হাত ধরে তুমি
————————————————— ড. রমিত আজাদ

হাসি-কান্নার ঝুলনে-দোলনে, যামিনীর কোলে বেদনা-বিহনে,
তোমার আঁখির চাওয়ার হাওয়ায়, হিয়া শিহরণে, মৃদু সমীরণে,
যতনা শঙ্কা তার চেয়ে বেশি খুশি, তব মধু অঙ্গনে,
রঙ্গ বিহঙ্গ গোধুলিলগনে মম প্রণয়ের প্রাঙ্গনে,
পুষ্প পসারিনি, বনের হরিণী, সুনীল সাগরপার,
আপন হয়ে তুমি এসেছিলে কাছে, তবু রয়ে গেলে চির পর।

কান পেতে পেতে শুনেছি তখনি তব নুপুরের সুর,
কাজের মাঝারে লুকিয়ে-চুরিয়ে হারিয়েছি বহুদূর।
মিলনের মালা তোমার গলায় পরানোর ছিলো আশঁসন,
মাণিক জ্বালা সন্ধ্যাতারার কত কলরবে, কি সে বরষণ!
দারুণ রৌদ্রে আবৃত গগণে, নিভৃত তারার ব্যাথা,
মেঘলা নিশির তমসা ছাপিয়ে, একাকী চাঁদের কথা।
পুষ্প পসারিনি, বনের হরিণী, সুনীল সাগরপার,
আপন হয়ে তুমি এসেছিলে কাছে, তবু রয়ে গেলে চির পর।

দিন গিয়েছিলো এক এক করে, পার হয়ে শত তিথি,
তোমাকে হারায়ে দেখিনি তোমার প্রতুল পুষ্প বিথী।
জানিনা তোমার মনে কি ছিলো, কি ছিলো তোমার কথা,
আমিতো কেঁদেছি তোমার বিরহে, যামিনীর আকুলতা!
আমার বাঁশরী কাঁদিয়া ফিরেছে তোমার বনের বায়ে,
একবার শুধু চেয়েছি দেখিতে, কাজল চোখের মায়ে।
অবশেষে আজ দেখেছি তোমায়, কৃষ্ণচূড়ার ছায়ে,
লাল পাঁপড়ির ঝরা পথে হেটে চলেছ চপল পায়ে।
একা নও তুমি, দুজনার কেতা, বৈভব সম, মাতা ও দুহিতা,
হাতে ধরা ঐ ছোট মেয়েটির রূপে, তোমারই মুখের শোভা!

মনে পড়ে আজ? একদিন আমি বলেছি তোমার কানে,
জায়া থেকে যবে হবে রে জননী, কালের স্রোতের টানে,
রবো নাকো আমি আর তোমার মনেতে, হবো না জলের খেলা,
সত্যিই আজ ভুলেছ আমাকে, না করো আধি, না হও উতলা।
যাই হোক তাও ভালো থেকো প্রিয়া দুহিতার হাত ধরে,
লুকানো স্বপ্ন, সাজানো পুষ্প, রাখিও জীবন ভরে।
পুষ্প পসারিনি, বনের হরিণী, সুনীল সাগরপার,
আপন হয়ে তুমি এসেছিলে কাছে, তবু রয়ে গেলে চির পর।

৪০২ বার দেখা হয়েছে

২ টি মন্তব্য : “ছোট মেয়েটির হাত ধরে তুমি”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।